সুখানুভূতি শুধু স্বপ্নেই থেকে গেল – পর্ব ১

bangla students sex story স্টুডেন্টস সেক্স স্টোরি

bangla students sex story স্টুডেন্টস সেক্স স্টোরি

কলেজে তখন সবে ভর্তি হয়েছি ফার্স্ট ইয়ারে। যখন আমার বারো বছর বয়স, হঠাৎই মা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেন। বাবাকেও কাছে পাই না। চাকরীর সূত্রে বাবা এখানে থাকেন না। তাকে মাঝে মাঝে বিদেশেও যেতে হয়। বাড়ীতে একা থেকে মন টেকে না। সঞ্জু, ফিরোজ, ওরা সব আসে, আমার বন্ধুরা। গল্প করি, ক্যারাম খেলি, আড্ডা মারি। কিন্তু তাহলেও কিসের যেন একটা অভাব বোধ করি। আমার বন্ধুরা সব গার্ল ফ্রেন্ড নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। সঞ্জুর সাথে ডলি, ফিরোজের সাথে বান্টি। কিন্তু আমার কেউ নেই। আমি গার্ল ফ্রেন্ড এর খোঁজ করি, কিন্তু মনের মত সেরকম কাউকে পাই না। মা বলেছিল, বড় হলে তোর একটা সুন্দর দেখে বউ আনব। তোর আমি পরীর সাথে বিয়ে দেব। কিন্তু মা আজ বেঁচে নেই, আর আমার পরীর মত বউ খুঁজে দেওয়ারও কেউ নেই। আমি শুধু সুখের তাগিদে মাঝে মাঝে ঘরে থেকে মাস্টারবেট করি।

লিঙ্গটি হাতে নিয়ে নড়াচড়া করলে ওটা রীতিমতন রেগে ফুঁসে ওঠে। লম্বা মোটা শক্ত হয়ে যায়। হাত দিয়ে খেঁচতে থাকলে সারা শরীরে এক অসাধারণ অনুভূতি বয়ে যেতে থাকে। আমার হাতের মুঠোয় যখন লিঙ্গটি ক্রমশ আরো মোটা আর শক্ত হতে থাকে, তখন আমি আরো স্পীড বাড়াতে থাকি। একসময় বীর্যপাত যখন ঘটে যায়, দারুন আনন্দে আমার দেহমনও তখন ভরে যায়। আমি এই মাস্টারবেশন শুরু করেছি চোদ্দ পনেরো বছর বয়স থেকে। শরীরে কামের জোয়ার এসে গেলে আমাকে এটা করতেই হয়। দিনে অন্তত দু-তিনবার। শরীরে একটা অবসাদ চলে আসে। ঘুমিয়ে পড়ি, তারপর আবার আমার শরীর মন দুই-ই চাঙ্গা হয়ে ওঠে। আমার কখনও মনে হয় না এটা কোনো অপরাধ। শরীরের প্রয়োজনে মাষ্টারবেট করাতো স্বাভাবিক। এরজন্য পাপবোধ বা অনুশোচনা হওয়ার তো কোনো কারন নেই।

আমার বন্ধুরা অবশ্য ছোটোবেলায় বলতো, এই শোন বাড়ীতে কিন্তু লুকিয়ে লুকিয়ে মাষ্টারবেট করবি। অন্যকেউ দেখে ফেললেই তুই কিন্তু লজ্জায় পড়ে যাবি। ওদের কথা শুনে আমার অবাক লাগত। কেন? এরজন্য লজ্জাবোধ হবে কেন? আমি তো কোনো খারাপ কাজ করি না। কারো ক্ষতি তো করি না। আমার মন প্রাণ যা চায় তাই তো করি। এতে আবার লুকোবার কি আছে? বন্ধুরা বলত, আসলে তোর বাড়ীতে বাবা, মা, ভাই বোন কেউ নেই। তাই এসব তুই বুঝিস না। এসব কাজ আড়ালে আবডালে লুকিয়ে চুরিয়েই করতে হয়। না-হলে কেউ যদি দেখতে পায়। তাহলে ভাববে ছেলে একদম গোল্লায় গেছে। আমার কিন্তু ওদের কথা শুনে প্রতিবাদ করতে ইচ্ছে করত। আমি কখনও গোল্লায় যাইনি। পড়াশুনায় আমি কখনও ফাঁকি দিই নি। আমাকে ক্লাসের টিচাররা খুব লাইক করত। ক্লাসের গুডবয় হিসেবে আমার খুব নাম ছিল। আমার মনে হতো, কোনো কাজই আমি যখন লুকিয়ে চুরিয়ে করি না, তখন এটাই বা লুকোতে যাব কেন? এটাতো কোনো খারাপ কাজ নয়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমার মধ্যে সেই বোধটা এল। বুঝলাম, কেন এটা লুকিয়ে করতে হয়। ওরা তখন কেন আমায় মানা করত। এ জিনিষ সবার সামনে করা যায় না। তাহলে সেটা ভীষন দৃষ্টিকটু লাগে। এ জিনিষ আড়ালে আবডালেই করতে হয়। কারন পুরুষ মানুষ সাধারণত দুভাবে তাদের যৌন কামনা চরিতার্থ করে।

আরো খবর  bangladeshi shali dulabhai শালীর দুধে ইচ্ছে করে চাপ দিলাম

এক হলো নারীর সাথে সঙ্গম করে, আর দুই হলো নিজেই নিজে হস্তমৈথুন করে। কামনা বাসনা পাপ নয়। কিন্তু জনসমক্ষে করাটা পাপ। কেউ দেখে ফেললে তখন তার চোখে নিজেকে খারাপ লাগে। সে তখন তার অন্য মানে খোঁজে। আমি খুব ভালোমতই বুঝতে পারি, ছোটোবেলাকার এই অভ্যাস আমি কিছুতেই ছাড়তে পারব না কোনোদিন। হয়তো আমার যখন বিয়ে হয়ে যাবে তখনও। স্ত্রীর সাথে যৌনসঙ্গমের পাশাপাশি হস্তমৈথুনও আমাকে চালিয়ে যেতে হবে। কারন এটা আমার সম্পূর্ণ একার জিনিষ। এর ভাগ আমাকে কাউকে দিতে হবে না। যদি আমি কোনো নারীর সাথে কখনও যৌনসঙ্গম করি তাহলে সে আনন্দ আমাকে সেই নারীর সাথেই ভাগ করে নিতে হবে। হস্তমৈথুনের মজা তখন আমি পাব না। কেন? কারন দুটোতেই আসে চরম পুলক। যদি হস্তমৈথুন করতে করতে আমার মনে হয়, এখন থাক। পরে অন্যসময় আমি চরম পুলক ঘটিয়ে নেব, তবে তা থামিয়েও দিতে পারি। কিন্তু নারীর সাথে করতে করতে থামিয়ে দিলে সেটা হবে অমানবিক, চরম নিষ্ঠুরতা, একটি মেয়ের যৌনসত্তার প্রতি অশ্রদ্ধা, অপমান। কিন্তু সেখানে মাষ্টারবেট? আমি যেন মুক্ত বিহঙ্গ। আমার ইচ্ছেটাই এখানে শেষ কথা। এ যেন এক অদ্ভূত সুখানুভূতি।

আমাদের কলেজে নতুন মহিলা টিচারটি খুব দারুন। যাকে বলে একদম পরমা সুন্দরী। নাম সোনালী ম্যাম। বয়সটা তিরিশের কাছাকাছি হতে পারে, কিন্তু খুব সুন্দরী আর বুদ্ধিদীপ্ত চেহারা। অসাধারণ দেহের গড়ন ও মুখশ্রী যেকোনো পুরুষকে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আমাকে ওর এই সুন্দর চেহারা বারে বারেই মুগ্ধ করে। টিচার বলে ভাব জমাতে পারি না। কারন তাহলে কলেজ থেকে বিতারিত হয়ে যাব। হাজার হোক টিচারের সঙ্গে তো আর কামের গন্ধ চলে না। তাই ওনাকে আমার শ্রদ্ধার চোখেই দেখতে হয়। কিন্তু আমি জানতাম না উনি ডিভোর্সী। ভালোবেসেই বিয়ে করেছিল একজনকে। কিন্তু সে বিয়ে টেকেনি। বরের সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর উনি একাই একটা ফ্ল্যাটে থাকেন। ফ্ল্যাটটা আবার আমার বাড়ী থেকে খুব দূরেও নয়। তবে খুব বিলাস বহূল ফ্ল্যাট। মহিলাটির একটা কাজের লোক আছে। সে সব ঘরের কাজকর্ম দেখাশোনা করে। উনি কলেজে পড়ান। আর পি এইচ ডি করার জন্য অবসর সময়ে বাড়ীতে বসেই পড়াশুনা করেন। একদিন কলেজে সোনালী টিচারকে বললাম-ম্যাম, আমাকে আপনি পড়াবেন? যদি বলেন তো আপনার বাড়ীতে গিয়ে আমি টিচিং নিয়ে আসতে পারি। উনি আমার দিকে তাকালেন। আমাকে বেশ ভালো করে দেখলেন। বললেন-পড়তে যদি চাও? তাহলে আমার কাছে রাতে আসতে হবে। কারন আমি দিনের বেলায় আমি একদম সময় দিতে পারবো না। সকালবেলা তো এমনিই কলেজ থাকে। তোমারও সময় হবে না। আমার তো নয়ই।

আরো খবর  প্রতিনিধি পিতা – প্রথম অধ্যায়

Pages: 1 2 3 4 5 6

Dont Post any No. in Comments Section

Your email address will not be published. Required fields are marked *