আয় ঘুম, আয়….(১ম পর্ব)।

এয়ারপোর্ট থেকে শরীফ আমাকে রিসিভ করে নিয়ে এলো ওর বাসায়। স্বামী- স্ত্রী, আর ৪ বছরের একটা ছেলে নিয়েই ওদের সংসার। প্রায় ৭ বছর আগে বিয়ের সময় একবার দেখেছিলাম ওর বউ কে। তারপর আর কোনদিন সামনাসামনি দেখা হয়নি। ওর বাচ্চাটাকেও আমি ছবিতেই দেখেছি মায়ের কোলে। যতদূর মনে আছে তাতে শরীফের বউ আফরিন ওর থেকে ৪ বছরের ছোট। সে হিসেবে বয়স এখন ৩০ হবার কথা। আর শরীফ আমার থেকে প্রায় ৬ বছরের জুনিয়র বিধায় ওর বউ আমার থেকে ১০ বছরের ছোট হবে সন্দেহ নেই। স্বামীর মত সেও আমাকে ভাই ভাই করেই কথা বলে ফোনে। অনেক করে বল্লেও ওদের বাসায় কখনো যাওয়া হয়নি। এবারই প্রথম যাচ্ছি। তাও অনিচ্ছা স্বতে যাওয়া লাগছে। বহু আগে থেকেই শরীফকে ব্যাবসায় আর্থিকভাবে হেল্প করতাম।

ব্যাবসা ভালোই যাচ্ছিলো ওর। আমাকে অনেক অনুরোধ করেছে ওর ব্যাবসায় পার্টনার হতে। আমি হেল্প করতে রাজি আছি, পার্টনার হয়ে সম্পর্ক নস্ট করতে চাইনা। বছর তিন আগে ৫ লাখ টাকা লোন দিয়েছিলাম। ৬ মাসের ভিতর ফেরত দেবার কথা ছিলো। আগেও লাখ লাখ টাকা সাহায্য করেছি, সময়মত ফেরত দিয়েছে। কিন্তু এবার সে ২ বছর ধরে চেস্টাই করে যাচ্ছে। পারছে না। বলেছিলাম- অল্প অল্প করে শোধ করলে তো তোর উপর চাপ কমতো তাই না! এক্কেবারে পাচ লাখের এক টাকাও ফেরত দিলিনা এত বছরে। আমার টাকার দরকার থাকুক বা ঢের টাকা থাকুক সেটা বিষয় না। বিষয় হলো, টাকা ফেরত দিতে চাইছিস না? নাকি ব্যাবসার দুরবস্থা তাই পারছিস না? একেবারে ছোট ভাইয়ের মত আদর করেছি শরীফের সাথে পরিচয়ের পর থেকেই।গরীব ঘরের ছেলে হয়ে রাস্তায় হকারি করতো। আমার পিছনে লেগে থেকে এখন টুকটাক ব্যাবসা করে সংসার গুছিয়ে গ্রামে জমিও রেখেছে। অনেক বকাবকি করেছিলাম। আমি মনক্ষুন্ন হয়েছি বলে বউ আর জামাই মিলে আমাকে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে এসেছে ফ্লাইটে। বিয়ের আগে যে বস্তিতে থাক্তো সেটা চিনতাম। বিয়ের পর বাসা উত্তরার দিকে নিয়েছে জানতাম, ব্যাস। আজকেই প্রথম যাচ্ছি শরীফের বাসায়।

একটা বিল্ডিংয়ের চারতলায় বাসা ওদের। কলিং বেল বাজাতেছে। খুট করে দরজা খুলে গেলো। দেখি ২৫/২৬ বছরের একটা মাঝারি উচ্চতার মেয়ে দরজা খুলে দিলো। গায়ের রঙ বেশ ফর্সা, চেহারার আদল বেশ চোখালো, শার্প নোজ, চুলের কিছুটা কাধের উপর দিয়ে ডান বুকের উপর ফেলে রেখেছে। বোঝাই যাচ্ছে বেশ সুন্দর চুল। মুখের দিকে তাকালে শরীর আন্দাজ করা যায়না। একটা সাদা পাতলা স্কার্ট আর উপরে ডিপ নেক টাইপ টপ্স পরেছে। নিচে ব্রা পরেছে কিনা সন্দেহ। দুধ হালকা নিচু হয়ে থাকলেও বোটাটা স্পস্ট টপ্সের নিচ থেকেই শেপ ফুটিয়ে দিচ্ছে। কয়েক মুহুর্তবাদেই মেয়েটা একেবারে বসে পড়ে আমার পায়ে হাত দিয়ে সালাম করলো।

আমি অপ্রস্তুত হলেও, শরীফ বল্লো- বড়ভাই, ও আরাফের মা। আছা, আচ্ছায়ায়ায়, তার মানে এই সেই আফরিন। ৭ বছর পর আবার দেখলাম। কোথা থেকে ছোট্ট একটা বাবু দৌড়ে এসে বল্লো- আংকেল কি এনেছ, কি এনেছ আমার জন্য?? ভীষণ লজ্জায় পড়ে গেলাম। সোজা এয়ারপোর্ট থেকে ওদের বাসায় আসা। একেবারেই খালি হাতে। মিস্টিও আনা হয়নি। বল্লাম- আংকেল তো অনেক বোকা তাই ভুলে গিয়েছিলো, বিকালে তোমাকে বাইরে নিয়ে যেয়ে অনেক কিছু কিনে দেবো খুশি তো!! বাচ্চাটা, কি মজা, কি মজা, বিকালে বাইরে ঘুরতে যাবো, যাবো। বলতে বলতে ফুর্তি করছে। আর তখন আফরিন পায়ে সালাম করে বসা থেকে উঠছে। আমার চোখ গেলো সোজা বড়গলার টপসের ফাকে। জামার ফাক গলিয়ে আফরিনের দুধের খাজ স্পস্ট দেখা যাচ্ছে। খয়েরি হয়ে যাওয়া নিপলের আশেপাশের হালকা ঘেরটাও উকি দিচ্ছিলো আমার চোখে। এত বড়গলার টপ্স পরলে খুবই স্বাভাবিক। হয়তো বাসায় আছে তাই নরমাল ড্রেসেই আছে। তারপরেও একজন মেহমান আসবেন, তার সামনে এই ড্রেসে আসা একটু কেমন যেন। আমাকে ড্রয়িং রুমে বসালো। শরীফ আমার ব্যাগটা আফরিনকে দিয়ে বল্লো- ভাইয়ের রুমে রেখে আসো বিছানার কাছে।

শরিফের বউ খুব গদগদ হয়ে ব্যাগটা নিয়ে একটা রুমের ভিতর চলে গেলো পাছা দুলিয়ে। সাদা স্কার্ট পরে থাকায় নিচে কালো রঙের প্যান্টি একেবারে ফুটে উঠেছে। পুরো পাছাটা দারুন সাইজ লাগছে দেখতে। বাবাগো, এমন ডবকা সুন্দরী মেয়ের চার বছরের ছেলে আছে কেউ বিশ্বাসই করবে না। শরীফ এই রত্ন আগলে রাখে কিভাবে, কে জানে? মানুষের চোখ পড়লে ওর বউ ডাকাতি হয়ে যাবে, ভাবছি মনে মনে। এমন সময় আফরিন একটা ট্রেতে ঠান্ডা পানি, জুস, ফ্রুটস নিয়ে এসে আমার সামনে ঝুকে টি টেবিলে রাখলো। নিজের অজান্তেই চোখ আবার ওর টপ্সের ফাক গলিয়ে দুধের খাজের মাঝে তাকিয়ে রইলো, একটু উকিঝুকি দিতে মন চাইলো- যদি বোটাটার কিছুটাও চোখে পড়ে। আফরিন যেন একটু সময় নিয়েই ট্রে থেকে বাটিগুলো এক এক করে নামাচ্ছে। আর আমি এর ফাকে চেস্টা করছি- উফফফফ, এমন দারুন ভরাটা আর সুডৌল স্তনের বোটাটা নিশ্চয়ই চারপাশে খয়েরি/ কালা বর্ন ধারন করেছে বিয়ের সাত বছরে।

শরীফের কপাল বটে, এমন সুন্দরী বউ ভাগ্যগুণে জুটলেও, কপালগুনে সংসার করে। এই মেয়েরমত একটা মেয়ে পেলে আবার বিয়ের কথা চিন্তা করা যেত। এসব ভাবছি, কানে এলো- বড়ভাই, প্লিজ, একটু ঠান্ডা পানি নেন। হালকা ফ্রুটস খান ভাই। আপনি তো আবার গরীবের ঘরে খান কিনা সেই চিন্তায় ছিলাম আমরা। হেসে দিয়ে বল্লাম- খেতে না চাইলে ৩/৪ দিনের জন্য বেড়াতে আসতাম নাকি গাধা? কথার ফাকে আফরিন একটা এশট্রে এনে আমার সামনে রেখে বল্লো- এই যা ভাই, আপনার এশট্রে। আপনি আসবেন তাই আরাফের বাবা গতকাল কিনে এনেছে। আপনার আবার ক্রিস্টালের এশট্রে পছন্দ। আশেপাশে না পেয়ে, সেই জসিমউদদীন রাজলক্ষি মার্কেট গিয়ে পেয়েছে।

ভাইয়ের প্রতি কি আদর দেখেন? আমি হেসে হেসে বললাম, এত কস্ট কেন করলি? একটা কাওএ পানি দিয়েই তো অনায়াসে কাজ চালিয়ে নেওয়া যায়। টাকা বেশি হয়ে গেছে নাকিরেএএ??? তাইলে আমার টাকাটা দিয়ে ফেল। আমি জাইগ্যা… শুনে জামাই বউ আর আমি তিনজনেই হেসে দিলাম। সিগারেট ধরাল। আফরিন একটু বাদেই চা নিয়ে এলো। বল্লো- পুরো আড়াই চামুচ চিনি দেওয়া আছে। শুনে অবাক হয়ে তাকালাম আফরিনের দিকে। ওর স্বামী উত্তর দিলো- ভাইইইই, আপনার সাথে দেখা না হইলেও প্রতিদিন আপনার কথা একবার হলেও ওঠে। আপনার অনেক কিছুই সে জানে। তাই নাকি? আফরিন হেসে বল্লো- জ্বী ভাইয়ায়ায়া। আপনি আমাদের বাসায় বেড়াতে আসবেন এটাই আমাদের ঈদের মত খুশি লাগছিলো কয়েকদিন ধরে। বাচ্চার বাবা তো, আপনার পছন্দ অপছন্দ, এমনকি বিছানার চাদরের কালার, পাশে সোফা, বাথরুমে গাছের টব, বারান্দায় গাছগাছালি, আর কত কি করেছে দেখতে পাবেন। কি বলো তোমরা এসব?!! আফরিন বল্লো- সবে তো এলেন। সবই দেখবেন। আপনাকে দেখানোর জন্যই তো এত আবদার করে নিয়ে আসা বাসায়। আপনার যখন যা মনে করবে কেবল বলবেন একটু। লজ্জা করলে আমরা কস্ট পাবো- বল্লো শরীফ। সাথে আফরিন যোগ করলো- ভাইয়্যায়ায় কিন্তু একা একাই জীবন কাটাচ্ছেন, ভাবী থাকলে কত ভালো হতো নিয়ে আসতেন, আহারে একা একা ভাইয়ার যত্ন করার কেউইইই থাকেনা। পাশ থেকে আফরিনের জামাই শরফ বল্লো- কেনো ভাই যে কদিন আমাদের কাছে থাকবে সেকদিন ভাইয়ের যত্নের কমতি হবে কেন? ভাইয়ের সেবা যত্ন করবো বলেই তো জোর করে নিয়ে এলাম। আফরিন একটু মুচিকি হাসি দিয়ে বল্লো- ভাইয়ায়ায়া!! আপনার কোন বারনশুনবো না কিন্তু, মন ভরে আপনার সেবা যত্ন করার সুজোগ আর কবে জুটবে কপালে??

আসুন ভাইয়া, আপনাকে রুম দেখিয়ে দিচ্ছি। ডাইনিং পেরিয়েই বাম পাশে দরজা। ধুকেই বেশ বড় একটা রুম। বোঝাই যাচ্ছে, আমার জন্য মাস্টারবেড ছেড়ে অন্য রুকে গেছে। লাগোয়া বারান্দা, ভারি পর্দা ঝোলানো, হালকা করে এসি চলছে। বেশ বট এল ই ডি টিভি। রুমের প্রতি কোনায় স্পট লাইনের খেলা জ্বলছে। বাথরুমে নিলচে আলোর বাতি জ্বালানো আমার পছন্দসই করে সেটা বিছানায় বসেই বুঝে নিয়েছি আমি। ওরা স্বামী স্ত্রী দুজন মিলে বাথরুমে ঢুকে পানি ছাড়লো, আমার জন্য বাড়তি এশট্রে নিয়ে রাখলো বাথরুমে। বারান্দার সাথেই জানালার পর্দা সরিয়ে দিলো আফরিন। পুরো বারান্দাই বিভিন্ন ফুলের সবুজ সমারোহে সবুজ ঝোলানো কার্পেট হয়ে আছে যেন। বল্লাম- বাহহহহহ, দেখতে দারুন লাগছে। এত যত্ন করে সাজিয়েছিস তোরা? আফরিন বল্লো- ভাইয়া সবে এলেন কেবল। আরাফের বাবা কত কিছু সাজাতে চাচ্ছিলো আর সাজাতে ইচ্ছে করেছে তা সবই জানবেন একটু একটু করে। আপনার জন্য ওর যত্নের কোন কমতি নেই। মাঝে মাঝে মনে হয়- পারলে বউটাকেও দিয়ে দেয় কিনা??

দুপুরে হরেক রকমের ম্যানুতে লাঞ্চ করলাম আমরা। বাচ্চাটাও খেলো আমাদের সাথে বসেই। আফরিন ফ্রেশ হয়ে একটা নীল কালারের শাড়ি পড়েছে। ব্লাউজ ফেটে দুধ বেরিয়ে যেতে চাইছে যেন। আর নাভির একটু নিচে শাড়ির কুচি করেছে। দারুণ নাভির ফুটো তো মেয়েটার? দেখলেই যে কারো নাভির ফুটোতে জীভ বোলাতে ইচ্ছে করবে। আর নাভীটা এমন শেপের যে, বাচ্চা মানুষের নুনুটা একেবারে ধরে যাবে নাভীর খাজে। আর এমন ফিগারে শাড়ি পরাতে আফরিনের পাছাটা দারুন করে ফুটে উঠেছে। মনে হচ্ছে উলটানো ধামার মত কিছু শাড়ীতে জোর করে বেধে রেখেছে। তাই একটু নড়লেই পাছার দাবনা ঝাকি খাচ্ছে আর শাড়ি সমেত পোদে ঢেউ খেলছে। খাবার বেড়ে দিচ্ছিলো তাই আর শরাইফের বউ এর ব্লাউজে আটকানো স্তনজোড়া একপ্রকার চোখের আড়ালেই রাখতে হলো। এমন হা করে করে তাকিয়ে থাকলে কি ভাবব্বে- ছি ছি। ডাইনিং টেবিলেই বল্লাম- শরীফ, বিকেলে গাড়ি দিও তো একটু, বাচ্চা আর তার মাকে নিয়ে আমি একটু বের হবো, তুমিও যাবে কিন্তু। বল্লো, জ্বী আচ্চা ভাই, জ্বী আচ্ছা। লাঞ্চ সেরে আমি রুমে যেয়ে বিছানায় এলিয়ে পড়লাম। ঘুম ভাংলো আফরিনের ডাকে। চোখ মেলে দেখি- ৩৬ সাইজের স্তন দুটো ব্লাইজের ভেতর দিয়ে একেবারে আমার মুখের উপর ঝাপিয়ে পড়বে যেন!! ভাইয়া, এই যে ভাইয়ায়া, ভাইয়ায়ায়া, বেলা শেষ প্রায়। আপনি বাইরে যেতে চেয়েছিলেন। শরীফ গাড়ি বের করছে গ্যারেজ থেকে। আমাকে বল্লো আপনাকে ডেকে দিতে। আমি ওর ব্লাইজে বাধা দুধের দিকে তাকিয়েই রইলাম। তাকিয়ে ত্থেকেই বললাম- হুম, বের হবো। তুমি আর বাচ্চাটা রেডি তো? জ্বী ভাইয়া, আমি তো আপনার জন্য সেই কয়েক মাস ধরেই রেডি হয়ে আছি। আপনার জন্য অপেক্ষা ছিলো কেবল। আপনি এসেছেন, এখন তো সারাক্ষনই রেডি হয়ে থাকতে হবে। আমি ওর দিকে তাকাতেই বল্লো- আগে ফ্রেশ হয়ে নেন আপনি, অনেক কিছুই জানিতে পারবেন ভাইয়ায়া। এবার জলদি জলদি ফ্রেশ হন, আমরা নিচে যাই সবাই। ওকে, ১০ মিনিটের ভেতর রেডি হচ্ছি। আফরিন চলে গেলো, পাছাটা দোলানো যেন চোখে লাগলো আলাদা করে এবার।

সবাই মিলে শপিং করতে গেলাম একটা গিগামলে। বাচ্চাটাকে একটা মটোরাইজড বাইক কিনে দিলাম ২০ হাজার টাকা দিয়ে। শরীফ আর আফরিন অনেক বারন করলেও পাত্তা দেইনি আমি। অবাক করার মত একটা কথা আছে এখানে। বাসা থেকে বেরুবার সময় আফরিন পুরোদুস্তর হাত পা চুল ঢেকে, গায়ে আবায়া চাপিয়ে, মাথায় হিজাব করে বেরিয়েছে। সে নাকি এভাবেই বের হয় বাইরে গেলে। এই আফরিনই কি সারদিনের সেই যৌবন উপচে পড়া টসটসে ডাসা মাল শরীফের বউ??? বিশ্বাস করতে কস্ট হচ্চে। যাই হোক, আফরিন আর বাচ্চাটাকে ফুডকোর্টে রেখে শরীফকে নিয়ে রেমন্ডে ঢুকলাম। একটা স্যুটের কাপড় কিনে জোর করে ওর মাপ দেওয়ালাম। ৫টা কাস্পিয়ান কটনের শার্টপিচ কিনে সেটাও টেইলরিং করতে দিলাম রেমন্ডেই। যেহেতু স্যুট ওরাই বানাচ্চে শরীফের, তাই জামাও ওরাই বানাক। শরীফ ছেলেটা অনেক কাচমাচু করছিলো। আমি অনেক ইজি করতে চেয়েও পারিনি, সে নিজেকে গুটিয়ে রাখছিলো হয়তো ভাবছিলো- ধারের টাকাই শোধ করা হয়নি, উল্টো পাওনাদার ২৫/৩০হাজার টাকার শার্ট, স্যূট গিফট করছে দেনাদারকে। আমি অকে যতটা সম্ভব ইজি করার চেস্টা করেছি। বল্লাম- সিগারেট খাবো। পাশেই একটা শপের সাথে লাগোয়া রুফটপ। যেখানে দুটো কফি অর্ডার করলো ছেলেটা। আমি কফি শেষ করতে করতে তিনটে সিগারেট শেষ করলাম। বের হলাম। এবার উপরে চল। তার বউ বাচ্চা অনেকটা একা একা বসে আছে। উত্তর দিলো- না ভাই, মাইয়া জাতি, শপিং মলে বইসা থাকার জিনিস না। যেয়ে দেখবেন, জায়গায় নাই মহিলা।

বাচ্চা কোলে কইর‍্যা দোকানে দোকানে আজাইরা ঘুরছে। ফুডকোর্টে জেয়ে দেখি- কথা সত্যি, আফরিন আর বাচ্চাটা সেখানে নেই। শরীফ বল্লো- ভাই আমরা দুজন এখানেই বসে থাকি, তাদের ঘোরাঘুরি শেষ হলে সুরসুর করে এইখানেই ফিরবে দেখবেন। আমি হাসলাম। বল্লাম- দুইটা আইস্ক্রীম নিয়ে আয়, কোনে করে আনবি, দুইটা করে স্কুপ দিতে বলবি প্রত্যেকটায়। ভ্যানিলা আর চকোলেট মিক্স। শরীফ বল্লো- জানি ভাইইইই, জানি। হাসতে হাসতে আইস্ক্রিম আনতে একটা আইস্ক্রাইম বারের সামনে গেলো। ঠিক তখনই- একেবারে হুজুরানী সেজে থাকা আফরিন বাচ্চাটাকে পাশে হাটিয়ে হাটিয়ে আনলো। বেশ আল্লাহদ করে বল্লো- ভাইয়ায়ায়া, বাচ্চাটা নতুন কেনা গাড়িটার জন্য অস্থির করে ফেলছে, এখানেই চালাতে চাইছে, এক্ষুনি চালাতে হবে তার…।

আমি হাসলাম, এই তো বাবা!! আমরা বাসায় যেয়েই সবাই মিলে চালাবো। বাচ্চাটা রাগ করে বল্লো- সব্বাই না, খালি আমি চালাবো, এটা আমার গাড়িইইইই। সরি সরি বাপ, ভুল হয়েছে, হ্যা এটা আপনার গাড়ি, বাসায় জেয়ে আপনি চালাবেন আর আমরা দেখবো, ওকেএএএ। ছেলেটা খুশি হয়ে গেলো। শরীফ এলো আইস্ক্রীম নিয়ে। আফরিন বল্লো- আমরাও আইস্ক্রীম খাবো। এই শরীফ যা, আবার নিয়ে আয় কস্ট করে। একটু ঝাঝ দিয়ে বল্লো- একটু আগে কই ছিলে মা ব্যাটা দুজনে। এখানে থাকলেই তো একসাথে অর্ডার করা যেতো। আবার লাইন ধরো। আমি আর আফরিন হেসেই দিলাম। বেচারা অগ্যতা লাইন ধরলো। আরো দুটো আইস্ক্রীম আনলো। একটা ছেলে আরাফকে দিলো, আরেকটা ওর বউ আফরিনকে।

আমার আইস্ক্রীম প্রায় শেষের দিকে। শরীফকে বল্লাম- তোদের বাপ বেটার সাথে কাজ শেষ এখানে। কেবল আফরিনের সাথে একটু কাজ বাকি আছে। কিছু মনে না করলে আফরিনকে নিয়ে একটু নিচের ফ্লোর থেকে ঘুরে আসি?? আমার প্রশ্ন শুনে- শরীফ আর আফরিন দুজনেই আতকে উঠলো….ছিছিছি,… ভাইইইইই এভাবে বলছেন কেন,,,, ভাইকে আমাদের পর মনে করছেন….আপনি আমাদেরই একজন। আপনার যখন যা ইচ্ছে হবে, কাউকেই জিজ্ঞেস করতে হবেনা ভাই। যে কদিন ঢাকাতে আমাদের সাথে আছেন, ততদিন বাসার কর্তা আপনি। আমকে আর ছোট করেন না ভাই, এমনিতেই ছোট হয়ে আছি আপনার কাছে কথা রাখতে না পেরে। আরে ধুর!!! কিসের ভেতর কি বলিস্না তুই শরীফ।

শরীফ আফরিনকে ধমক দিয়ে উঠলো- কি যত্ন আত্তি করছো যে ভাই নিজেই তোমাকে নিয়ে একটু এখানে ঘুরবে তাতেও অস্বস্তি ফিল করছে? চুপ করে দাঁড়িয়ে আছ কেনো?? আরাফ কে দাও। তুমি ভাইয়ের কথামত চলো। ভাইয়ের কথার বাইরে একটা পা ফেলবে না বুঝলেএএ!??? আফরিন চুপচাপ মাথা নাড়ালো কেবল। হইছে হইছে, হলা চড়াবার কিছুই হয়নি। অজথা উচু গলায় কিথা বলছিস শরীফ তুই। সরি ভাই, সরি, সরি….এই আরাফের মা, ভাইয়ার সাথে সময় দাও, ভাইয়াকে ঘুরিয়ে দেখাও জায়গাটা। ছেলের সাথে, আমার সাথে ঘুরেছে, বাকি কেবল তুমি। যাও ভাইয়ের সাথে। ভাইয়্যায়া, চলুন তো, চলুন। ওর কথা বাদ দেন, অল্পতেই বেশি বেশি। আর আপনি সামনে আছেন তো, তাই আল্লদ জেগেছে ছেলের বাপের। আচ্ছা ভাইয়া, চলুন। কোন দিকটায় যাবেন। আমার হাত ধরে নিজের হাতের ভিতর নিয়ে আলতো চাপতে চাপতে বল্লো- কোন দিকে যাবেন? কি দেখবেন? কোন ফ্লোরে যাবেন? বলতে এস্কেলেটরের গোড়ায় চলে এলাম দুজনে। পিছে দিরে দেখি, শরীফ ওর ছেলেকে নিয়েই আইস্ক্রীম খাওয়ায় ডুবে আছে।

সোজা ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড এ গেলাম আফরিনকে সাথে নিয়ে। আমি নিজেই পছন্দ করে ৪ স্টোনের একটা নজপিন কিনলাম ২৮ হাজার টাকা দিয়ে। আফরিন জিজ্ঞেস করছিলো – কার জন্য ভাইয়া? আপনার পছন্দের মানুষ টা কে বলবেন না? দেখাবেন না ভাইয়া? ছবি আছে মোবাইলে? দেখান না প্লিজ, প্লিজ। আহাহা, একটু থামোনা বাবা। দেখাবো, দেখাবো। ছবি দেখানোর আগে একটা কাজে সাহায্য করবে? জ্বী ভাইয়া অবশ্যই, বলেন বলেন, বলেন অলিজ, কি হেল্প লাগবে। হাটতে হাটকে ভেনাস জুয়ালার্সের শোরুমে ঢুকে একটা শোকেস দেখিয়ে বল্লাম- এখান থেকে একটা গোল্ডের চেইন পছন্দ করে দাওনা প্লিজ।

আফরিন লাফ দিয়ে কাজে লেগে গেলো। দুনিয়াতে কেবল চেইন পছন্দ করাই যেন তার কাজ। মেয়েরা আসলে শপিং করতে খুব ভালোবাসে। শপিং কার জন্য সেটা ইস্য না, শপিং করছে সেটাই ইস্যু। আর নিজের জন্য শপিং হলে তো সেদিন চাদরাতের খুশি লাগে মেয়েদের মনে। যাই হোক, চেইন পছন্দ করে দিলো, প্রায় ৪৭ হাজার টাকা নিলো। সেখান থেকে বেরিয়ে আবার ফুডকোর্টে যাবো। এবার লিফটে উঠলাম। আফরিনের কাছে যেয়ে বল্লাম- এই প্যাকেট দুটি তোমার। সে অবিশ্বাস নিয়ে তাকিয়ে আছে আমার দিকে। তার হিজাবে জড়ানো চোখ দেখেই বুঝতে পারছিলাম যে, সে ভাবছে ভুল শুনেছে। আমি আবারও বললাম, ডায়মন্ডের নোজ পিন আর গোল্ডের নেক্লেস দুটো তোমার জন্যই কেনা আফরিন। এবার জিজ্ঞেস করলো- ভাইয়া, বাচ্চার বাবাকে কি বলবো??উত্তর দিলাম- ঝাড়ি দিয়ে বলবে, বাপ বেটা নিজেদের শপিং শেষ করে বেলাশেষে আমাকে ঝাড়ি দিলে?? ব্যাস শরীফ একটা কথাও বলবে না। কেবল গয়নাগুলোর দাম বলোনা ওকে। কেন ভাইয়া? আমি শীতল চোখ করে বল্লাম- আমি মানা করেছি বলতে, তাই বলবে না প্লিজ। তারপরও যদি তোমার স্বামীকে বলতে চাও সেটা তোমাদের স্বামী স্ত্রীর ব্যাপার। আমি চাইনা, কেউ টাকার অংকে ভালোবাসা পরিমাপ করুক। হাটতে হাটতে আবার সবাই একসাথে হলাম।

এবার বাসায় ফেরার পালা। ফিরতে ফিরতে রাত ১০ টা বেজে গেলো। ফ্রেশ হয়ে রাতে খাবার খেতে বসার আগেই বাচ্চাটা ঘুমিয়ে গেলো, আহারে। ওরা স্বামী স্ত্রী কোনরকম নাকে মুখে ডিনার রেডি করলো। রাতের খাবার শেষ করতে করতে ১১.৩০ বাজলো। এবার ঘুমাতে হবে। আমি মেডিসিন নিয়ে ঘুমাই ওরা জানে। রুমে ফিরে একটা লুংিগ আর পাতলা গেঞ্জি পরে নিলাম। বারান্দায় একটু দাঁড়িয়ে রইলাম। সেখানে একটা সিগারেট শেষ করে আবার রুমে এসে আরেকটা ধরালাম। হঠাত শরীফের বউ, মানে আফরিনের সেই পাছার দোলুনি আর ভরাট দুধের খাজের গভীরতা চোখে ভেসে উঠলো। নিজের ভেতর খুব তাড়না ফিল করলাম। অন্যের বউ দেখে খেচে মাল ফেলাটা অনেক কস্টের সেটা কেবল অভাগারাই বোঝে। তবুও মন চাইলো না। ভাবলাম, যে আরাও ২ দিন আছিতো। এই দুতিনদিন মন ভরে চোখের সুখ করে আফ্রিন কে দেখে চোখ আর মনের সুখ করে নেই। নিজের বাসায় ফিরে গিয়ে, নিজের বাথরুমে আফরিনের নাম ধরে ধরে মাল ফেলতে দারুন লাগবে। ভাবনাটা নিজেকে একটা ঝাকি দিলো যেন। তাড়নাটা আরো জাগাতে ইচ্ছে করলো। অযথাই ব্যাগ থেকে একটা জিপার খুললাম। একটা ওশুধ খুলে পানিতে ঢোক গিল্ললাম। ভায়াগ্রাটা আমাকে জ্বালালে জ্বালাক। তবুও আফরিনের ফিগার কল্পনা করে ফিল নিতে দারুন লাগছে এখন। ঘুম না এলেও দারুন লাগবে ওকে ভাবতে। এভাবে ঘন্টা পেরিয়ে গেলো। বাড়া টোনটন করছিলো। না পেরে ২ টা স্লিপিং পিল নিলাম। বিছানায় শুয়ে একটা সিগারেট আবার ধরালাম, শেশ হলো, নেভালাম। রুমের একটা স্পটা লাইটা ছাড়া সব অফ করে চোখ বন্ধ করলাম। আয় ঘুম আয়। আয় ঘুম, সাথে করে আফরিনকে স্বপ্নে নিয়ে আয় আমার কাছে। আয় ঘুম আয়……

চলবে….

আরো খবর  আমার প্রথম প্রেম