আমার যৌনতার গল্প – দ্বিতীয় পর্ব – নীলা

বাসায় এসে বাথরুমে ঢুকলাম, নীলাকে আমার পুরো উলঙ্গ শরীর দেখাতে পারার জন্য অদ্ভুত একটা আনন্দের শিহরণ বইছে শরীরে। নীলার হাতে আমার মাল আউটের কাল্পনিক ফ্যান্টাসি করে করে হাত মেরে গোসল করে বেরিয়ে এলাম। দুপুরের খাবার খেয়ে আয়েশ করে সোফায় শুয়ে আজকের পুরো ঘটনাটা ভাবতে লাগলাম। উফ আমি পুরো উলঙ্গ, নীলা রসিয়ে রসিয়ে আমার পুরো শরীর আর গোপন জায়গাগুলা দেখছে। ভাবতে ভাবতেই আবার লিঙ্গ গরম হয়ে গেল। আজ থেকে নীলা আমার গোপন যৌনতার রাজ্যের রানী। ওর প্রতি কেমন জানি একটা আকর্ষণ হচ্ছে মনের ভীতরে। আগে কখোনো এমন হয় নাই আমার। আজ নীলাকে অনেক সুন্দরী বলে মনে হচ্ছে। নীলাকে আগে কখোনো মনোযোগ দিয়ে দেখাই হয় নাই। আজ মন বলছে নীলাকে একটু মনোযোগ দিয়ে দেখতে হবে। মনটা অস্থির হয়ে গেল, মনে হলো দেরী কেন? এখনই যাই, এখনই ওকে ভাল করে দেখি। যেই ভাবা সেই কাজ। ঘরে তালা মেরে নীচে নীলাদের বাসায় গেলাম। কলিং বেল টিপতেই নীলা দরজা খুলল। ভিতরে ঢুকে দেখি মামী দুই বাচ্চা নিয়ে কোথায় যেন গিয়েছে। আমি নীলার রুমে ঢুকে ওর বিছানায় লাফ দিয়ে শুলাম। নীলা খুব গল্পের বই পড়ে, ওর একটা বই নিয়ে দ্রুতবেগে পা নাচাতে নাচাতে বইটা পড়তে লাগলাম। মাঝে মাঝে গুনগুন করে গান গাইছি। নীলা পাশের রুম থেকে এসে বলল –

– কি ব্যাপার ভাইয়া, আজকে এত খুশী খুশী কেন?
– তুমি বুঝো না, কেন?
– উমমম না, বুঝি না তো
– ছাদে যা হলো তাতে তুমি খুশী হও নাই? আমার কিন্তু অনেক খুশী লাগছে
– জানি না, যাও
– বলো না নীলা, এখোনো কেন লজ্জা পাচ্ছো?
– তুমি যা সব কর, লজ্জা লাগবে না তো কি লাগবে? ছিঃ
– এখন ঐরকম আবার করি? আমি জানি তুমি খুব মজা পাও
– না না না প্লিজ আর না, ছাদে অনেক হয়েছে ইশশশ

আমি নীলার দিকে তাকালাম, নাঃ সত্যিই এতদিন আমি কি মিসটাই না করেছি। নীলাতো বেশ সুন্দরী এই বয়সেই! আর কয়েক বছর পার হলেই ও যে একটা হেভী মাল হবে সেটা এখনই বোঝা যায়। এই প্রথম আমি ওর চেহারা দেখে যৌন উত্তেজনা অনুভব করলাম। ওর টসটসে ঠোঁট যখনই হাসছে তখনই আমার বুকটা ধড়ফড় করে উঠছে। যা হয় হবে, বাসা খালি আছে, মন যা চায় তাই করে ফেলতে হবে। এখন এই সুযোগটা কাজে লাগাতে হবে। আমি উঠে বসে নীলার পাশে বসে বললাম –

– এই নীলা, কি আশ্চর্য! এতদিন তো খেয়ালই করি নাই যে তুমি এত সুন্দরী!
– হ্যা বলেছে তোমাকে, মোটেও না
– তুমি জানো না, তুমি কতটা সুন্দরী। তোমার ঠোঁটগুলা মারাত্মক সেক্সি। চুষে চুষে খেতে মন চাচ্ছে আমার, উফ!
– যাও ভাইয়া, তুমি আসলেও পাগল। কি যে বলনা এসব।
– সব সত্যি বলছি নীলা, তুমি আসলেও অনেক সুন্দর, এখন আমার মন চাইছে তোমাকে আমার প্রেমিকা বানাই। নীলা, আমার সাথে প্রেম করবে?
– ইশশশশ মাগো, ভাইয়া, থামো তো থামো, খালি দুস্টুমি করে।
– নারে নীলা, দুস্টুমি না, আমি কিন্তু সত্যি বলছি। তুমি রাজী হলেই আমাদের প্রেম শুরু হবে। তারপর আমরা বড় হলে তুমি হবে আমার সুন্দরী বউ। কি লক্ষী, হবে না?
– যাহ্‌ আমি জানিনা

নীলা এখন পুরোপুরি লজ্জাবতি রূপ ধারন করেছে। হোক সে এখনও ছোট, প্রসংশা আর প্রেমের প্রস্তাবে লজ্জা পেলেও ভেতরে ভেতরে খুশীও হয়েছে। আমি নীলাকে আলতো করে জড়িয়ে একহাতে ওর থুতনি ধরে মাথাটা একটু উঁচু করে ওর ঠোঁটে হালকা একটা চুমু দিলাম, তারপর ইংলিশ সিনেমায় দেখে দেখে যা শিখেছি সেইভাবে নীলার ঠোঁট নিয়ে বেশ অনেকক্ষণ চুমু খেলাম। জীবনে প্রথম ঠোঁটে চুমু খাবার চরম আনন্দে আমি বিভোর আর নীলারও মনে হলো একই অবস্থা। নীলা তখনও চোখ বন্ধ করে আছে। আমি তখন পুরোপুরী হিরো মুডে আছি, নীলাকে মনে হচ্ছে আমার হিরোইন। নীলার মাথাটা আমার বুকে চেপে ধরে ওর চুলে হাত বুলাচ্ছি। নীলা চুপটি মেরে দুইহাতে আমার পীঠ পেঁচিয়ে ধরে আছে। আমার খুব রোমান্টিক লাগছে পুরো ব্যাপারটা। মনে হচ্ছে নীলার সাথে আজ থেকেই প্রেম শুরু করে দিই। হঠাৎ নীলা বলল –

– ভাইয়া ছাড়ো, অনেক হয়েছে
– আরেকটু থাকি না এইভাবে নীলা, আমার খুব ভাল লাগছে
– আম্মু এখনই এসে পড়বে, ছাড়ো প্লিজ
– মামীর আসতে আরো দেরি আছে, টেনশন কর কেন?
– না না তাও ছাড়ো আমাকে এখন, আমার কেমন জানি লাগছে
– আচ্ছা ছাড়তে পারি, তুমি যদি আরেকবার আমাকে পুরোটা দেখ
– ছিঃ ছিঃ আবার? আম্মু যদি হঠাৎ এসে পড়ে তখন? না বাবা, দরকার নাই, আরেকদিন দেখিও ভাইয়া
– না এখনই নীলা, তুমি দেখে নিও কিচ্ছু হবে না, কেউ আসবে না প্লিজ প্লিজ একটু সময়ের জন্য প্লিজ

নীলা হাল ছেড়ে দেয়ার মত ভঙ্গী করল। আমি নীলাকে ছেড়ে দ্রুত সবকিছু খুলে পুরো উলঙ্গ হয়ে গেলাম। আহঃ আবার সেই বাঁধভাঙ্গা উত্তেজনা! আমার সবকিছু নীলার সামনে উন্মুক্ত, নীলা দেখছে! এবার নীলা আমার সবচাইতে কাছে, একেবারে পাশাপাশি! উলঙ্গ আমি বিছানায় পা ঝুলিয়ে শরীরটা পেছনদিকে হেলিয়ে বসে আছি, আমার উত্তেজিত খাঁড়া লিঙ্গ পঁয়তাল্লিশ ডিগ্রী এঙ্গেলে ছাদের দিকে মুখ করা। নীলা ঠিক আমার পাশেই বসা আর এতক্ষন না না করলেও এখন খুব মনোযোগ দিয়ে আমার খাঁড়া লিঙ্গ দেখছে। নীলা একটু ঝুঁকে একদম আমার লিঙ্গের কাছে ওর মাথাটা এনে দেখতে লাগল। তারপর আমার লিঙ্গের ফুটোর দিকে ইংগিত করে বলল –

– এই ফুটোটা দিয়ে তোমাদের পিসু বের হয়, তাই না ভাইয়া?
– হ্যা ঠিক বলেছো, আরেকটা জিনিসও বের হয়, সেটা জানো?
– কি সেটা?
– ঐযে সেদিন বলেছিলাম না? আমাদের মাল?
– ও হ্যা বলেছিলে, ঘন ঘন আঠা আঠা, তাই না?
– হ্যাঁ ঠিক তাই, এই নীলা শোননা, এখন দেখবে কিভাবে আমাদের মাল আউট হয়?
– এখন? না ভাইয়া, আম্মু এসে পড়বে যেকোন সময়, এসে যদি দেখে আমি এখনো পড়তে বসিনি তাহলে খুব বকবে। অন্য এক সময় দেখিও
– আরে আসবে না তুমি দেখো, আমার নুনুটায় হাত বুলিয়ে বুলিয়ে মাল আউট করে দাও না নীলা। তুমি তো কখোনো দেখো নাই মাল আউট কিভাবে হয়? আজ দেখো, অনেক মজা পাবে কিন্তু, সত্যি বলছি
– উফফফ না ভাইয়া, অন্য একদিন দেখিও প্লিজ, আর আমি তোমার ওইটা ধরতে পারবনা ছিঃ ভাবতেই কেমন জানি লাগে!

আমি আর ধৈর্য ধরে রাখতে পারলাম না, নীলার হাতটা খপ করে ধরে টেনে আমার লিঙ্গে ছোঁয়াবার চেষ্টা করতে লাগলাম, নীলাও হাত সরিয়ে নিতে থাকল। এসবের মাঝে দুয়েকবার নীলার হাত আমার লিঙ্গটা ছুঁয়ে ছুঁয়ে গেল। আহঃ এতেই কি অনুভূতি হল যে বলার মত না! এরকম টানাটানির মাঝেই বাইরে আমার সবচাইতে ছোট মামাতো ভাইটার কান্নার আওয়াজ শুনতে পেলাম। নীলা ঝট করে উঠে দাঁড়িয়ে আমাকে বলল –

– ওহ শিট, আম্মু এসে গেছে, ভাইয়া জামা কাপড় পড়ে নাও তাড়াতাড়ি।

বলেই নীলা ঝটপট পড়ার টেবিলে বই নিয়ে বসে গেল। আর আমি জামা কাপড় পড়ে একটা গল্পের বই নিয়ে শুয়ে শুয়ে পড়ার ভান করলাম। উফ, শালার এ কি কপালরে বাবা! এবারও হতে হতেও হলো না!

এভাবেই দিন কেটে লাগলো। নীলার হাতে আমার বীর্যপাতের সেই অদম্য ইচ্ছাটা ইচ্ছাই হয়ে রইলো তখনও পর্যন্ত। শুধু মাঝে সাঝে ওকে আমার লিঙ্গ প্রদর্শন করেই দিন কাটতে লাগলো। এর মাঝে আমার মামা পরিবারসহ দেশের বাইরে চলে যাবার সব ব্যবস্থা করে ফেলল। শুনে আমার হৃদয়টা যেন ফাঁকা হয়ে গেল। এতদিনে নীলাকে আমার যৌনাঙ্গ দেখানোর যে নেশা সেটার সাথে আরেকটা অনুভূতিও যোগ হয়েছিল। সেটা হলো নীলাকে এর মাঝে মনে মনে আমি অনেক পছন্দও করে ফেলেছিলাম। মাঝে মাঝে মনে হত ও বড় হলে ওকেই বিয়ে করে বৌ বানিয়ে সারাজীবন খেঁচাবো। নীলাকে আমার প্রেমিকাও ভাবতাম মনে মনে। এইসব মিশ্র অনুভূতির ফলাফল হলো নীলাকে আমি মনে মনে ভালবাসতে শুরু করি আবার আমার যৌনাঙ্গ দেখানোর ইচ্ছাও ওকে দিয়েই পূরন করি। দেখতে দেখতে ওদের চলে যাবার সময় হয়ে এলো। আর খুব বেশীদিন নাই ওদের চলে যাবার।

একদিন বেলা এগারোটা কি সাড়ে এগারোটার দিকে আমি সোফায় শুয়ে শুয়ে নীলাকে ভাবছিলাম। ভাবছিলাম ও চলে গেলে আমি কাকে আমার লিঙ্গটা দেখাবো? কতবার যে ওকে দেখিয়েছি কিন্তু আঁশ মিটেনা কেন? একবার যদি মনমত ওকে দিয়ে লিঙ্গটা খেঁচাতে পারতাম! এমন সময় কলিং বেলটা বেজে উঠলো, আমি উঠে দরজা খুলতেই দেখি নীলা। এত খুশী লাগলো ওকে দেখে যে সেটা আর লুকাতেই পারলাম না। আর বুকের ভিতরে ধুকপুক করে হৃৎপিণ্ডটা অস্থির হয়ে আছে। আমার পুরো চেহারায় সেই ভাব ফুটে উঠলো। নীলা হাসি হাসি মুখ করে আমার দিকে চেয়ে আছে। ওকে ভিতরে আসতে দিয়ে আমি দরজাটা লাগিয়ে দিলাম। নীলা সোজা আমার রুমে ঢুকে গেল। দরজা লাগিয়ে আমিও আমার রুমে ঢুকে দেখি নীলা আমার জানালাগুলোর স্লাইডিং টেনে লাগিয়ে দিচ্ছে আর পর্দাগুলো সব টেনে দিচ্ছে। সবগুলো জানালার স্লাইড টেনে, পর্দা দিয়ে আমার বিছানায় বসল। টিউব লাইটের আলোয় ঘর আলোকিত হয়ে আছে। আমি কিছুই বুঝতে পারছিলাম না, নীলার পাশে বসে তাকিয়ে দেখলাম ও বেশ সাজগোজও করেছে। খুব সুইট লাগছে মেয়েটাকে। আমি একহাত দিয়ে ওর একপাশের গালে আলতো করে হাত বুলিয়ে দিতে দিতে বললাম –

– নীলা, তোমাকে তো অসাধারণ সুন্দরী লাগছে! এত সাজগোজ করে সুন্দরী সেজে এসে জানালা বন্ধ করে পর্দা টেনে দিলে যে? ব্যাপার কি বলোনা?
– ভাইয়া আজকে তোমার সাথে অনেকক্ষন এই রুমে থাকবো, দুপুরে তোমার সাথে খাবো, অনেক গল্প করব আর অনেক মজা করবো
– সত্যি নীলা? সত্যি বলছো? ওয়াও আমার তো বিশ্বাসই হচ্ছে না!
– সত্যি সত্যি সত্যি ভাইয়া

বলেই নীলা আমার কাঁধের দুপাশে দুহাত রেখে দুইগালে বেশ কয়েকটা চুমু খেলো। আমি তো অতি আনন্দে রীতিমত পাথর হয়ে গেলাম। আমার ঠোঁট দুটো অল্প হা হয়ে রইল অপ্রত্যাশিতভাবে নীলার চুমু খেয়ে। এবার নীলা আনাড়ীভাবে আমার ঠোঁটে ওর ঠোঁট ছুঁইয়ে চুমু খেল। তারপর লজ্জায় মাথা নিচু করে ফেলল। আমি ওর থুতনি ধরে মাথা উঁচু করে ওর ঠোঁটে দীর্ঘ একটা চুমু দিলাম। তারপর বললাম –

– কি ব্যাপার নীলা, হঠাৎ তোমার কি হলো বলো তো? আজকে তুমি আমাকে এত আদর করছো যে?
– ভাইয়া যত আমাদের চলে যাবার সময় ঘনিয়ে আসছে ততই না আমার মনটা কেন জানি খুব খারাপ হয়ে যাচ্ছে, খুব কান্না পাচ্ছে
– আমারও তো একই অবস্থা নীলা, তোমাকে আর কাছে দেখতে পাবো না, এটা ভাবলেই আমারও খুব মন খারাপ হচ্ছে
– সুযোগ পেলেই তুমি যে পাগলামীটা করতে, সেটা আর দেখতে পাবো না, এটা মনে হলেই খুব খারাপ লাগতে শুরু করে। অনেক কষ্ট হবে তোমার ঐসব পাগলামীগুলা ভুলতে।
– সত্যিই নীলা তুমি চলে গেলে আমি কার সাথে এই পাগলামী করবো বলো? আমারও খুব কষ্ট হবে ভুলতে।
– জানো ভাইয়া, প্রথমদিকে রাগ আর বিরক্ত হলেও পরে কিন্তু আমিই মনে মনে অপেক্ষায় থাকতাম কবে তুমি তোমার ঐটা দেখাবে। যদি অনেকদিন গ্যাপ দিতে আমার কেমন অস্থির লাগতো। মনে হত ইশ ভাইয়া যে কবে আবার দেখাবে।
– সত্যি বলছো নীলা? সত্যি তুমি মনে মনে আমার সব কিছু দেখতে চাইতে?
– হ্যা ভাইয়া সত্যি, এখনো চাই। দেখতে দেখতে তোমার পুরো শরীরটা আমার অনেক চেনা হয়ে গেছে। বান্ধবীরা ন্যাংটো ছেলেদের ছবিওয়ালা বই নিয়ে আসতো, আমাকেও দেখাতো কিন্তু ভাইয়া, তোমার শরীরের মত এত সুন্দর একজনেরটাও লাগতো না। তুমি এত এত বার দেখিয়েছো যে তোমারটাই আমার সবচাইতে ভাল লাগে।

আমার তো মনটা একেবারে চনমনে হয়ে উঠলো। নীলাকে আবার জড়িয়ে ধরে চুমু খেলাম। নীলাও বেশ করে সাড়া দিল। এ কয়বছরে নীলাও অনেক পরিপক্ক হয়েছে। বেশ ভালই লাগছিল আমার। নীলা আমার একটা হাত ওর দুইহাতে ধরে বলল –

– ভাইয়া, আজকে আম্মুর বাসায় আসতে সেই সন্ধ্যা হবে, আর তোমার বাসাও সেই বিকেল পর্যন্ত ফাঁকা থাকবে। তো বিকেল পর্যন্ত আমি আছি তোমার সাথে। যতক্ষন মন চায় আজকে তুমি আমাকে সব দেখাতে পারো।
– শুধুই দেখবে নীলা, একটু ধরবে না? আমার গোপন জায়গাগুলাতে কখোনো কেউ হাত দেয় নাই। কেউ হাত দিয়ে ধরলে কেমন লাগে খুব জানতে ইচ্ছা করে। আমার খুব ইচ্ছা তোমার হাতটাই আমার ঐসব জায়গায় প্রথম স্পর্শ করুক। এই, চুপ করে আছো কেন নীলা? বলো না প্লিজ একটু ধরবে, শুধু একবার?
– উমমমম হ্যা আজ ধরবো ভাইয়া, সত্যি ধরবো
– ওওওহ! সত্যি নীলা? আর আউট করে দিবে না?
– হুমমম দিব ভাইয়া, আজ তুমি যা বলবে সব করব
– ওহ নীলা, ওহ তুমি আমার সুন্দরী নীলা, আই লাভ ইউ নীলা

আরো খবর  পরকীয়া প্রেমের রহস্য-২