এক টুকরো ভালোবাসা (২নং পর্ব )

সেদিন রাতে খাবার খেয়ে আমি একটু টিভি দেখছিললাম।..ওর ঘরের দিক উঁকি মেরে দেখলাম ও ল্যাপটপ এ কাজ করছে তাই ওকে ডিসটার্ব না করে ওকে একটা চুমু খেয়ে আমি ডাইনিং এ চলে আসি আর মোবাইল নিয়ে ঘেটতে থাকি আনমনে আর আমাদের পুরানো দিনগুলোর কথা ভাবছিলাম কিভাবে আমি আমার নিজের ছোট ভাইয়ের সাথে এরকম একটা প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ি….এই সম্পর্কটাই শুধু শরীর জড়িয়ে নেই…আছে নিঃস্বার্থ ভালোবাসা।

এখনো মনে আছে আমি তখন কলেজ এর ফাইনাল ইয়ারে আর ও জাস্ট মধ্যেমিক দিয়েছে। সেই সময় আমার একটা বয়ফ্রেইন্ড ছিল…যদিও তার সাথে আমার কিছুই হয়নি।..কিন্তু তবুও হঠাৎ ব্রেকপ হয়ে যাওয়াই বড্ডো কষ্ট হচ্ছিলো, ও একদিন আমার রুম এ হঠাৎ এসে দেখে আমি কাঁদছি।..ও তখন ভয় পেয়ে আমায় জিজ্ঞাসা করে কি হলো তুই কাঁদছিস কেন? আমি বললাম কিছু না তুই গিয়ে ঘুমিয়ে পর. কিন্তু ও বারবার জোর করায় ওকে শেষে সব খুলে বললাম। ও আমায় বললো কিছু হবে না দি, তুই দেখিস সব ঠিক হয়ে যাবে। তারপর বললো এদিকে আই তত মাথায় হাত নবুলিয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিচ্ছি।..আমি ব্যারন করলাম কিন্তু কে শোনে কার কথা…ও তাও আমার মাথাটা ওর কোলে নিয়ে খুব মন দিয়ে ম্যাসাজ করে দিতে লাগলো। আমি মনে মনে ভাবছিলাম সত্যি আমার ভাইটা বড্ডো ভালো মনের. আমি ওকে মজা করে বললাম তুই এতো ক্যারিং দেখিস অনেক ভালো একটা গার্লফ্রেন্ড পাবি, যে তোকে অনেক ভালোবাসবে। ও শুধু বললো হুম. আমি ওর দিকে তাকিয়ে দেখলাম ওর মুখ টা কেমন একটা।..আমি কিছু বুঝলাম না…ওকে বললাম যা অনেক রাত ভয়ে ঘুমিয়ে পর. ও চলে গেলো। পরের দিন সকালে ব্রেকফাস্ট করার পর আমার রুমে এসে জিজ্ঞাসা করলো দি তুই কি ওর জন্য কষ্ট পাচ্ছিস? আমি বললাম তা একটু পাচ্ছি বাট ও ঠিক আছে…ইনফ্যাক্ট ও যা বাজে ছেলে তাতে করে ভালোই হয়েছে বেশি কিছু হিয়ার আগেই সব শেষ হয়ে গেছে। তারপর ওর সাথে অনেক্ষন গল্প করলাম।..ওকে বললাম বিকালে শপিঙে যাবি? ও বললো সে যেতেই পারি যদি তুই ট্রেইট দিস. আমি হেসে বললাম উফফ এই ছেলেটা এতো খাই তাও দেখো একটুও মোটা হয় না….ও সেটা শুনে আমাকে ভ্যাঙাতে লাগলো,.পাগল একটা। সো প্ল্যান মতো আমরা সন্ধ্যার দিকে বের হলাম।..আমি দুটো টপ নিলাম আর একটা জিন্স।…আর ওকেও ওর জন্য টিশার্ট আর জিন্স পছন্দ করতে বললাম।….ও বললো তুই পছন্দ করে দে…তো আমি নিজের মতো দুটো চয়েস করলাম। বাড়ি এসে রাতে খাবার পর ও আমার রুমে আসলো এবং একটা প্যাকেট এগিয়ে দিলো।..খুলে দেখলাম একটা খুব সুন্দর চুড়িদার আছে ভিতরে।

আমি অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করলাম ইটা কি? কখন কিনলি? ও বললো তুই পড়লে খুশি হবো. আমি অবাক হলেও মনে মনে বেশ খুশি হলাম। এর বেশ কিছুদিন পর আমার একদিন খুব জোর আসলো রাতে।..অনেক কষ্ট হচ্ছিলো তাই বাধ্য হয়ে ওকে মেসেজ করলাম: ভাই যদি জেগে থাকিস তো আমার রুমের এসে একটু জল দিয়ে যা প্লিজ। একটু পরেই ও আমার রুমে এসে আমার অবস্থা দেখে ভয় পেয়ে গেলো। তারপর সারারাত আমার মাথায় জলপট্টি দিয়ে দিলো। আমি ভোরের দিকে ঘুম ভেঙে দেখি বেচারা আমার পায়ের কাছে বসেই ঘুমিয়ে পড়েছে। দেখে লাগলো।..বেচারা সারারাত আমার জন্য ওই ভাবে জেগে ছিল. ওকে খাটে শুইয়ে দিয়ে ওর গায়ে একটা চাদর দিয়ে দিলাম। আমার জোর তখন একটু কমে এসেছে। তারপর সকালে উঠে থেকে ও সারাদিন আমার খোঁজখবর নিতে থাকলো।…ও এমনিতেই আমার কেয়ার করতো আগে থেকেই বাট এবার যেন একটু বেশি মনে হচ্ছিলো বেপার গুলো।…যেন সেই একটা পোসেসিভনেস ব্যাপার ছিল ওর মধ্যে। যাইহোক আমি কিছু বললাম না..ভাবলাম হয়তো আমাকে নিয়ে বেশি করছে। যাইহোক এইভাবেই সব চলতে থাকলো জাস্ট একটা জিনিস লক্ষ্য করলাম ওর আমার প্রতি কেয়ারিং আর পোসেসিভনেস জিনিসটা অনেকটা বেড়ে গেছে, মাঝে মাঝে মনে হচ্ছিলো ও আমার গার্জিয়ান। জিনিসটা আমার একটু ভালো লাগলেও একটু আজব লাগছিলো যেন কোনো বয়ফ্রেইন্ড তার গার্ফ্রেইন্ড কে শাসন করছে।

এর বেশ কিছুদিন পর একদিন রাতে আমি বাথরুমে যাওয়ার সময় দেখি ওর রুম থেকে কেমন একটা আওয়াজ আসছে।….ওকে ডেকেও কোনো উত্তর পেলাম না লাস্টে ওর রুমে ঢুকে দেখি ওর খুব বাজে ভাবে জ্বর এসেছে।..আর ওই জন্যই ও ভুল বকছে। আমি ওর কাছে গিয়ে ওর মাথার কাছে গিয়ে বসলাম।..দেখি ও ঘোরের মধ্যে বলছে: প্লিজ এভাবে আমায় ছেড়ে যাসনা।…আমি তোকে ছাড়া থাকতে পারবো না, তুই কেন বুঝিস না. আমি বেশ অবাক হলাম।..বাট এর পর যেটা বললো শুনে আমার মাথা ঘুরে গেলো।..দেখি ও বলছে: তুই ইটা কেন বুঝিসনা দি আমি তোকে ভালোবাসি।..আমি তোকে নিজের থেকেও বেশি ভালোবাসি। আমার মাথা কাজ করছিলোনা। আমি ওর মাথায় জল পট্টি দিয়ে জোর কমলে আমার রুমে চলে আসলাম, ভাবলাম ওর জোর কমলে পরে সকালে ইটা নিয়ে কথা বলতে হবে….আমার মাথা টাও গরম হয়ে গেছিলো তখন.
যাইহোক সকালে দেখলাম ও আগের থেকে অনেকটাই সুস্থ।…তাই মা,বাবা অফিস যাওয়ার পরে ওকে আমার রুমে ডাকলাম।

ডেকে আমি রেগে ওকে বললাম তুই কাল রাতে এগুলো কি বলছিলিস? ও চোরের মতো মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে ছিল, ইটা দেখে আমার মাথা আরো গরম হয়ে গেলো। আমি ওকে আবার চিল্লিয়ে বললাম তোর লজ্জা করে না আমাকে নিয়ে এরকম ভাবতে? তোর মতো ভাই থাকার থেকে না থাকা অনেক ভালো।….তুই এক্ষুনি আমার সামনে থেকে বের হয়ে যা জাস্ট। একদম আমার সামনে আসবিনা আর কথা বলবি না. দেখলাম চোখে জল নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে গেলো। এরপর প্রায় দুই সপ্তা ওর সাথে কোনো কথা হয়নি এমনকি তেমনভাবে আমার সামনেও আস্তে দেখিনি। মা একদিন আমায় জিজ্ঞাসা করলো আচ্ছা নীলের কি কিছু হয়েছে? ছেলেটার শরীরটা ভালোনা আর বেশ কিছুদিন ভালো করে খাচ্ছেও না. ইটা শুনে আমার একটু খারাপ লাগলো।

সেদিন রাতে সবাই ঘুমানোর পর কিছু না বলে ওর রুমে ঢুকলাম।…দেখি ও বালিশে ফুঁপিয়ে কাঁদছে, একটু খারাপ লাগলো দেখে। ঐদিন ঐভাবে বলা উচিত হয়নি বাট ও যেটা যেটা করেছে সেটাও বা কিভাবে মেনে নেই. আমি ওকে ডাকলাম ও চোখ মুছে উঠে বসলো। আমি ওকে জিজ্ঞাসা করলাম তোর কি দাবি? শুনলাম খাচ্ছিসও না, কি হয়েছে তোর? ও বললো কিছুনা। আমি রেগে গিয়ে বললাম কি চাস তুই? ও বললো প্লিজ এইভাবে কথা বলিস না আমার সাথে, আমি জাস্ট আর নিতে পারছিনা। আমি তো তোর সামনে যায়নি।..তাহলে এরম করছিস কেন? নাকি তোর আমাকে সহ্য হচ্ছে না, আমি মরে গেলে তুই হ্যাপি থাকবি তো? ওর কাছ থেকে টি আমি এই ধরণের কথা বাত্রা আসা করিনি।..খারাপ লাগলো শুনে।

আমি ওকে বোঝালাম দেখ ভাই এইভাবে হয়না, আমি তোর দিদি হয়, তুই এগুলো কি ভাবসছিস আমাকে নিয়ে? তোর মাথা ঠিক আছে? আমার তো এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না. ওকে বললাম দেখ বাবু পাগলামি করিসনা তুই অনেক ভালো একজনকে পাবি যে তোকে সামলে রাখবে। ও বললো: আমার কাউকে লাগবে না, আমি তোকে ভালোবাসি।…নিজের সবটা দিয়ে। ও এই বলে কাঁদতে লাগলো। ও আমায় বললো প্লিজ আমায় ছেড়ে যাসনা কারো কাছে আমি পাগল হয়ে যাবো। আমি ওকে অনেক বোঝানোর চেষ্টা করলাম বাট কোনো কাজ হলো না. ওর সেই এক কথা. শেষে ও আমায় বললো বেশ তোকে আমায় ভালোবাসতে হবে না, আমি তোর জীবন থেকে থেকে চলে যাবো, আর কখনো আমাকে দেখতে পাবিনা। আমি ওকে বোঝালাম তুই কি বলছিস এসব? তোর মাথা ঠিক আছে তো…

শেষে আমি রেগে গিয়ে বললাম কি চাস তুই? আমার শরীর? এইটা পেলে তোর সব শখ মিটে যাবে তো? হয়ে যাবে তো তোর ভালোবাসা? তো নে আজ যা ইচ্ছা কর আমার সাথে, আমি বাধা দেবোনা, তোর পৌরষত্ব দেখিয়ে নে…আর চাপ নিস্ না আমি এখনো ভার্জিন, তোর জন্যই ভালো। আমি রাগে কাঁপতে কাঁপতে ওকে এসব বললাম, আমার চোখে জল চলে আসলো। এই বলে আমি এক টানে আমার টিশার্ট টা খুলে ফেললাম। আমি তখন আমার ছোট ভাইয়ের সামনে বাজারের মেয়েদের মতো জাস্ট ব্রা আর শর্টস পরে বসে আছি, নিজেকে কেমন একটা বেশ্যা মনে হচ্ছিলো। ওকে বললাম কি হলো বসে আছিস কেন চুপ করে? কর কি করবি।

ও একটা চাদর নিয়ে আমাকে ঢেকে দিলো তাপর হঠাৎ আমায় জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলো। ও আমায় বললো দেখ আমার তোর শরীরে কিছু যাই আসে না…..তুই কেন করছিস আমার সাথে এরকম। আমি তোকে মন থেকে ভালোবাসি, আমি তোর কোলে মাথা রেখে ঘুমাতে চাই, আমি তোর কাঁধে মাথা রেখে আকাশ দেখতে চাই, আমি তোর হাত ধরে গঙ্গার ধারে হাটতে চাই কোনো নতুন প্রেমিক-প্রেমিকার মতো. তুই শুধু তোর হাতটা ধরতে দিস . আমি ওর কথা শুনে জাস্ট অবাক হয়ে গেলাম ওই বয়সে ওর ম্যাচুরিটি দেখে। হঠাৎ কি হলো আমি নিজেও জানি না….আমি ওকে নিজের কাছে টেনে আমার ঠোঁট দুটো ওর সাথে মিশিয়ে দিলাম। ও হকচকিয়ে গেলো আমার এই হঠাৎ আক্রমণে। অনেক্ষন পর ওর ঠোঁট থেকে নিজের ঠোঁটটা সরিয়ে ওর দিকে তাকালাম। ও বাচ্চাদের মতো ফ্যালফ্যাল করে আমার দিকে চেয়ে রইলো, ও এখনো বুঝতে পারছেনা যে কি হলো বা হচ্ছে, ওর ওই অবস্থা দেখে আমি রীতিমতো হেসে ফেললাম।

ওকে জিজ্ঞাসা করলাম: তা কবে থেকে আমার প্রতি এই ফিলিংস? ও বললো: অনেকদিন থেকে, ভয়ে বলতে পারেনি। তারপর তোর একটা বয়ফ্রেইন্ড হয়েছে শুনে খুব কষ্ট হয়েছিল। তোকে অন্য কারো সাথে দেখলে আমার সহ্য হয়না। এই প্রথম ওর কথা শুনে বেশ ভালো লাগলো আর লজ্জা লাগলো। ওকে জিজ্ঞাসা করলাম, নীল তুই কি সত্যি সিরিয়াস? নাকি শুধু আবেগের জন্য বা আমাকে পাওয়ার জন্য বলছিস। ও বললো আমার চোখের দিকে তাকিয়ে দেখ বুঝে যাবি। ওর মুখ থেকে এমন কথা আসা করিনি, মানে ছেলেটা সত্যি আমাকে নিয়ে সিরিয়াস। ও হটাৎ আমাকে বললো দি তোর কোলে একটু মাথা রেখে শুতে দিবি প্লিজ। আমি ওর মাথাটা আমার কোলে নিয়ে চুলে আদর করে দিতে লাগলাম।

বাট এই প্রথম বড্ডো আজব আর লজ্জা লাগছিলো, কারণ এতদিন যে কোলা মাথা রাখতো সে শুধু আমার আদরের ছোট ভাই ছিল….কিন্তু আজ? আজ যে কোলে মাথা রেখে শুয়ে আছে সে আমার কে? ভাই? প্রেমিক? পরকীয়ার সঙ্গী? আমি নিজেও জানি না এই সম্পর্ক টাকে কি বলবো।এর ভবিষ্যৎ কি সেটাও জানি না. ও তো ছোট, কিন্তু আমি তো ওর থেকে অনেক সিনিয়র। জানিনা এই প্রশ্রয় দেওয়াটা ঠিক হচ্ছে কিনা।যদি সত্যি ওর সাথে একটা সমপর্কে জড়িয়ে পড়ি কিভাবে সব সামলাবো? তখন মাথায় শুধু একটাই জিনিস কাজ করছিলো যে এই পাগলটা আমায় ভালোবাসে আর আমিও ওকে হয়তো ওর মতো করেই ভালোবেসে ফেলছি। ওর দিকে তাকিয়ে দেখলাম ও ঘুমিয়ে পড়েছে।..ওকে এইভাবে দেখে কেমন একটা লাগলো ওর কপালে একটা চুমু খেলাম আলতো করে. ভাবলাম শুরু যখন করেছি তখন দেখি সব কতদূর যায়…ওকে কোল থেকে নামিয়ে আমার টিশার্ট টা নিয়ে রুমে এসে ঘুমানোর চেষ্টা করলাম।..যদিও মাথায় অনেক কিছু ঘুরছিলো।

পরেরদিন সকালে উঠে ব্রেকফাস্ট করতে গিয়ে দেখলাম ও আগে থেকেই বসে আছে…আমায় দেখে একটা হালকা হাসি দিলো, যেটা দেখে আমি লজ্জায় লাল হয়ে গেলাম।..ওর দিকে তাকাতেই পারলাম না. মা বাবা চলে যাওয়ার পর আমার রুমে এসে বললো দি কি করছিস? আমি রেগে ওর দিকে তাকিয়ে বললাম আমি তোর কি হই?ও বললো কেন দি হোস আমার। আমি বললাম এবার থেকে যখন এক থাকবি আমায় নাম ধরে ডাকবি। ও বললো সে ডাকতেই পারি বুট তও তোকে দি বলেই ডাকবো। আমি রেগে বললাম আজব বানচোদ তো, কালতো কান্না কাটি করছিলি প্রেমিকা হিসাবে পেতে চাস বলে তাহলে এখন এতো নাটক কেন. ও বললো তুই আমার হলেও তোকে দি বলতে ভালো লাগে।

ওকে জিজ্ঞাসা করলাম তা এই নতুন গার্লফ্রেইন্ড এর জন্য কি করতে প্যারিস? ও বললো, তুই যা বলবি সেটাই করবো। এরপর ওর সাথে অনেক্ষন গল্প করতে করতে দেখলাম দুপুর হয়ে গেছে, ওকে বললাম স্নান করে আই খেতে হবে. ও বাদ্ধ ছেলের মতো তারপর এসে খেতে বসলো।..হটাৎ আমায় বললো দি আমায় খাইয়ে দিবি? বড্ডো বাচ্চাদের মতো, তো দিলাম খাইয়ে। খেয়ে গল্প করছিলাম আমরা।..হঠাৎ কথা বলতে বলতে ওর একটা হাত আমার বাম দুধের উপর লাগলো। ওর দিকে রেগে তাকাতে ও বললো সরি দি, আমি ইচ্ছা করে করিনি। ওর মুখের দিকে তাকিয়ে দেখি বেচারা ভয় পেয়ে গেছে। আমি হেসে ফেললাম ওর অবস্থা দেখে। তারপর ওর একটা হাত আমার জামার উপর দিয়েই আমার দুধের উপর রাখলাম, ওকে বললাম এগুলো এখন থেকে তোর যা ইচ্ছা কর. ও বাচ্চাদের মতো টিপতে লাগলো জোরে জোরে।….আমি বললাম আস্তে, লাগছে।

এরপর আমার টিশার্ট তা খুলে ওকে বললাম নে ভালো করে দেখ…ও বললো কি সুন্দর রে তোর দুধ দুটো। শুনে লজ্জায় আমি লাল হয়ে গেলাম আমি বুঝতে পারছিলাম যে নিজেকে আর সামলাতে পারবো না. ও আমায় শুইয়ে দিয়ে আমাকে পাগলের মতো দেখতে লাগলো। আমি হাত বাড়িয়ে ওর টিশার্ট টা খুলে ওকে কাছে টেনে নিলাম। ঠোঁট দুটো আবার এক হয়ে গেলো। এরপর ও আস্তে আস্তে আমার কানের পাশে চাটতে লাগলো, যেটা আমায় পাগল করে দিলো। আমি লজ্জা শরমের মাথা খেয়ে ওকে বললাম নীল আমাকে নে প্লিজ, পরে আদর করিস, আর পারছিনা। এটা বলার পরেই নিজের হাত দিয়ে লজ্জায় মুখ ঢেকে নিলাম।..কি নির্লজ্জ আমি নিজের ভাইকে কিনা চোদার জন্য আমন্ত্রণ দিচ্ছি। ও আস্তে করে নিচে এসে আমার শর্টটা নামিয়ে দিলো। আমি তখন নিজের ছোট ভাইয়ের সামনে সম্পূর্ণ ন্যাংটো হয়ে শুয়ে আছি. এরপর ও নিজের ওয়ান্ট তা খুলে আমার দিকে তাকালো, আমি বললাম প্লিজ ঢোকা ভাই. ও আস্তে করে ওর পুরুষাঙ্গের মাথাটা ঢুকিয়ে দিলো, আমি একটু ব্যাথা পাওয়ায় ও তাড়াতাড়ি বের করে নিয়ে বললো দি ঠিক আছিস? আমি বললাম হ্যাঁ। তুই ঢোকা টেনশন করিস না. এরপর ও সব জোর দিয়ে ওর পুরো জিনিসটাই আমার মধ্যে ঢুকিয়ে দিলো।

ওই সময় প্রথমবার নিজেকে পরিপূর্ণ মনে হচ্ছিলো। ওকে বললাম এবার ওঠানামা কর. ও সেটাই করতে থাকলো।….আমার প্রায় বের হওয়ার একটু আগেই ও মাল ফেলে দিলো আমার মধ্যে। ও আমি বললো সরি দি আমি অনেক চেষ্টা করেও সামলাতে পারলাম না. i am really sorry di. আমি বললাম ঠিক আছে, প্রথমবার এরকম হয় ইটা নরমাল। ও আমায় বললো বাট তুই তো satisfied না. এই বলে ও হঠাৎ আমার ওখানে মুখ দিয়ে দিলো।..আমি বলে উঠলাম কি করছিস তুই…কিন্তু কিছু বলার আগেই ও ওর জিভ টাই ঢুকিয়ে দিলো আর খুব মন দিয়ে চাটতে লাগলো।..এই সুখ বেশিক্ষন সহ্য হলোনা।…আমি প্রায় চরম মুহূর্তে চলে আসলাম।..আমি ওকে বললাম নীল মুখ সরা প্লিজ, আমার বেরোবে। কিন্তু ও আমার কথা না শুনে চেটে যেতে লাগলো ফলে আমার পুরো জলটাই ওর মুখে এসে পড়লো, ও সেটা পুরোটা চেটে নিয়ে বললো কি সুন্দর খেতে রে. আমি লজ্জা পেয়ে বললাম ধ্যাৎ কি সব বলছিস। দুজনেরই অর্গাজম হওয়ার ফলে খুব তিরেদ ছিলাম, তাই ওকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে পড়লাম। ও আমায় বললো দি তোর ভিতরে ফেলেছি কি হবে? আমি মজা করে বললাম তুই বাবা হবি আর আমি মা. ও একটু টেনশনে পরে গেলো আমায় বললো কিন্তু আমি তো চাকরি করি না, কি হবে? আমি হেসে বললাম পাগল একটা, চাপ নিস্ না, পিল নিয়ে নেবো।

আমি শুয়ে ভাবছিলাম আজ ওর সাথে সেক্স করে ফেললাম, নিজের সব সম্পদ ওর হাথে তুলে দিলাম।..ওর কি এরপর আমার প্রতি আর কোনো ইন্টারেস্ট থাকবে? নাকি ওর মোহটা কেটে যাবে? কিন্তু ও আমার মনের অবস্থা বুঝতে পেরে আমায় অবাক করে বললো, দি আমাদের মধ্যে একবার সেক্স হয়েছে বলে ইটা না যে ভালোবাসা কমে যাবে।..বরং আরও বাড়বে। তারপর হটাৎ বললো ‘রিয়া’ তুইও কি সত্যি আমাকে আমার মতো করে ভালোবাসিস? আমি এই প্রথম ওকে নাম ধরে ডাকতে শুনলাম।..কি যে ভালো লাগলো কি বলবো। আমি ওকে আরো জড়িয়ে ধরে বললাম হ্যা রে পাগল।

এই ছিল সব কিছুর শুরু, তারপর আজ এতটা বছর একসাথে পথ চলা…আছে হাজারো মান -অভিমান, রাগ,ক্ষোভ , দুঃখ কিন্তু সব কিছুর থেকেও বেশি আছে ভালোবাসা, হারিয়ে ফেলার ভয়, আগলে রাখার চেষ্টা.
চলতে থাকবে……….

আরো খবর  সুখ সাগরের খোঁজে….. ১