সেইসব দিনরাত্রি – ১

আমি ইমন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ছাত্র। ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ায় বেশ ভালো ছিলাম, নামাজ-রোজা হতে শুরু করে সকল প্রকার ভালো কাজের আইডল ছিলাম আমি। আমাদের ঢাকায় নিজস্ব বাসা রয়েছে, আব্বু বিজনেস করেন, আম্মু প্রাইমারি স্কুলে পার্টটাইম শিক্ষকতা করেন, সময় কাটানোর জন্য। আমার কোনো ভাইবোন নেই, বাবা মায়ের একমাত্র আদরের সন্তান আমি।

সবকিছু ঠিকঠাকভাবে চলছিলো, আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার আগ পর্যন্ত। খুলনায় কোনো আত্মীয় স্বজন নেই আমাদের, আম্মু খুব চাইছিলো যেনো আমাকে ঢাকার মধ্যেই কোনো প্রাইভেট ভার্সিটিতে ভর্তি করে দেয়া হয়, কিন্তু আমি বা আব্বু তা চাইনি। দূর্ভাগ্যবশত আমার ঢাকার কোথাও চান্স না হওয়ায় অগত্যা এখানেই ভর্তি হতে হয় এবং ভার্সিটি এলাকার কাছাকাছি একটা বাসা ভাড়া করে আমি আর আমার আরো দুইজন ক্লাসমেট একসাথে থাকা শুরু করি। প্রথম দিন থেকেই বুঝতে পারলাম, আমার রুমমেট রা মোটেও সুবিধার নয়। একদিন টিভির ঘরে গিয়ে দেখি, দুজন ব্রাজার্সের প্রিমিয়াম মিল্ফ ভিডিও টিভিতে স্ট্রিম করে দেখছে। ডিভাইস গুলো আমার, কিন্তু আমাকে জিজ্ঞাসা করারও প্রয়োজন তারা মনে করে নি। আমি গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম,

– কি হচ্ছে এসব?
– আরে দোস্ত তুই কি লজ্জা পাইতেসোস? নাকি ভদ্র সাজতেসোস?
– উল্টাপাল্টা বকবি না খবরদার! আমার জিনিসে আমার পার্মিশন ছাড়া হাত দিলে হাত কেটে দিবো তোদের কসম।
– মামা চেতোস ক্যান? আচ্ছা যা আর ধরুম না। ভার্সিটিতে গিয়া খালি কমু যে তোর নুনু নাই, এইলাইগা তুই এডি দেখোস না হাহাহা! লিজার সামনে এডি কইলে তো তোর চান্সই নাই আর হো হো হো…
– এইসবে ভার্সিটি টানোস ক্যান? আচ্ছা যা করতেসোস কর, কিন্তু যা যেমনে ছিলো সেভাবে রাখবি। (লিজা আমার ক্রাশ, ওকে আমি পটানোর ধান্দায় আছি এটা লিজাও জানে)
– ওকে মামা প্যারা নাই।

এভাবেই শুরু। কৌতুহল বশত আমিও ওদের সাথে দেখা শুরু করি এসব নিয়মিত। সময় ভালোই কাটে, অনেক অবৈধ, নিষিদ্ধ বিষয় নিয়ে আমরা আলাপ করি৷ সেখান থেকেই আমার আম্মুকে নিয়ে আমার মধ্যে ফ্যান্টাসি তৈরী হয়, ধীরে ধীরে এই চিন্তা আরো গভীরভাবে মাথায় গেঁথে বসে। ইতিমধ্যে ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হয়ে গেছে, রেজাল্টও বেশ ভালো এসেছে। এবার নিজ বাসায় যাবো প্রায় ১ মাসের জন্য, মাথার মধ্যে একটাই চিন্তা, এই একমাসে আম্মুকে কিভাবে আমার বাড়ার ডগায় নিয়ে আসবো।

এবার আম্মুর বর্ণনায় আসি। নাম শারমিন আক্তার কেয়া। আম্মুর বয়স ৪০ প্রায়। বড়োলোকি মেয়ে, কোটিপতি স্বামী, পড়াশোনায়ও অনেক উঁচু, তাই আম্মুর হাঁটাচলা, কথাবার্তার ধরণেই খানিক মডার্ন ছাপ। আম্মু ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন, স্কুলে পড়ান, বাসায়ও নানা কাজ করেন তাই আম্মুর শরীর বয়সের তুলনায় বেশ টেকসই। হাল্কা মেদ, নেই বললেই চলে শরীরে। গায়ের রং ফর্সা, ৩৪-২৮-৩৬ সাইজের নধর হৃষ্টপুষ্ট শরীর। আম্মু পর্দা না করে বাহিরে গেলে এলাকার প্রত্যেকটা যুবক রাস্তায় খেচতে খেচতে বন্যা বানাই দিতে সক্ষম হতো। যদিও আমি কখনোই আম্মুকে এভাবে ভাবতাম না, কিন্তু খুলনায় এই দুই বন্ধুর পাল্লায় পড়ে নিজের বিবেক কে গোল্লায় ভাসিয়ে দিলাম।

আজ ঢাকায় নিজের বাসায় এসেছি। রাত হয়ে গিয়েছে, আব্বু আম্মু দুইজনই উপস্থিত ছিলো। আব্বুর সাথে হ্যান্ডশেক করলাম, আম্মুর সাথে কোলাকুলি করে গালে চুমু খেলাম। ছাড়ার সময় দুধের মধ্যে আলতো করে ঘষা দিয়ে এলাম, এমন ভাবে দিলাম যাতে আব্বু টের না পায়। আম্মু চমকে গেলেও কিছু প্রকাশ করলেন না। অ্যাক্সিডেন্ট ভেবে উড়িয়ে দিলেন। একসাথে ডিনার করতে বসে আমার খুলনার লাইফ, ঢাকার হালচাল, আব্বুর বিজনেস এসব নিয়ে আলাপ করতে থাকলাম। আলাপের মাঝে সেক্সি লুক দিয়ে প্রায়ই আম্মুর দিকে তাকাচ্ছিলাম, তবে আব্বু খেয়াল করেননি। আম্মুর চেহারা খুব ফ্যাকাশে হয়ে গেলো।

খাওয়া দাওয়া শেষে আমরা গেস্ট রুমে কিছুক্ষণ আড্ডা দিতে বসলাম। আব্বু হঠাৎই বড়ো একটা উপকার করে বললেন, উনি আজ সারাদিন কাজ করে টায়ার্ড, এখন ঘুমিয়ে যাবেন। ব্যাস, গেস্ট রুমে এবার আমি আর আম্মু একা। কিছুক্ষণ এটা সেটা নিয়ে গল্প করার পর দুজন একসাথে সোফা ছেড়ে উঠলাম। আম্মুকে হঠাৎ পিছন থেকে জড়িয়ে ধরে আম্মুর বুকে দুইহাত দিয়ে আলতো চাপ দিয়ে ধরে বললাম,

– আম্মু আমি তোমাকে ভালোবাসি।
– এভাবে ধরে আছিস কেনো, ভালো তো আমিও তোকে বাসি রে পাগল।
– আম্মু এটা এই ভালোবাসা নয়। তোমাকে আমি অন্যভাবে ভালোবাসতে চাই, যেমনটা আব্বু তোমাকে এককালে বাসতো। যেভাবে আমি হয়েছি। এখন যে আব্বু পারেন না, সেটা তো আমি জানি আম্মু।
– তুই কি বলছিস এগুলো! (আম্মু আমার হাত দুটো নিচে নামিয়ে ঘুরে দাঁড়ালেন)
– আমি জানি আমি কি বলছি আম্মু। তোমার একটা চাহিদা রয়েছে। এখনই উত্তর দিতে হবে না। তুমি ভেবেচিন্তে বোলো আমায়। আমি তো আর উড়ে যাচ্ছি না!

এই বলে আম্মুর ঠোঁটে একটা চুমু দিয়ে আমার রুমে চলে আসলাম। আম্মু ওখানে কিছুক্ষণ হতভম্ব হয়ে দাঁড়িয়ে রইলো। আমি নিজের ঘরে শুয়ে বারবার চিন্তা করছিলাম, এভাবে অ্যাপ্রোচ করা টা কি ঠিক হলো কি না। কিন্তু আমি জানি আম্মু আব্বুকে বলবেন না। কারণ আমি ছোটবেলা থেকে খুবই বাধ্য ছেলে ছিলাম, আমাকে আম্মু সম্পূর্ণ ভিন্নরুপে চেনেন। তাই এই রুপ টা দর্শন করার পর খানিকটা হিমশিম খাওয়াই স্বাভাবিক। পয়সা মাটিতে ফেলে দিয়েছি, এখন দেখি কতদূর পর্যন্ত গড়ায়।

পরদিন আমি ঘুম থেকে উঠলাম খুবই সকালে। কিন্তু বাসায় এখনো সেটা কেউ টের পায়নি। আম্মু আব্বুকে নাস্তা করিয়ে বিদায় দিয়ে দিলেন। এরপর আম্মুর ঘরে উঁকি দিলাম। দেখলাম আম্মু একটা হিজাব পরে রয়েছেন। আম্মু কখনোই ঘরের মধ্যে হিজাব পরেন না। নিশ্চয়ই আমার জন্য এমন কাজ। আম্মু বিড়বিড় করে নিজের সাথে কথা বলছিলেন।

“আমি নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছি না আমার নিজের গর্ভের ছেলে আমাকে এভাবে অন্যায় প্রস্তাব দিতে পারে। আমি কি ওর আব্বুকে জানাবো? না না, থাক। ওর আব্বুর এমনিই হার্টে প্রব্লেম, এসব বললে কোন সময় কি করে বসে! হে আল্লাহ আমাকে শক্তি দাও, এসব অপকর্ম হতে আমাকে রক্ষা করো।”

আমি নিজের রুমে চলে এলাম। পরবর্তী চাল খুব সাবধানে ফেলতে হবে। আম্মুকে দেখলাম বাহিরে চলে গেলেন। সম্ভবত পড়াতে, স্কুলে। অন্যসময় আম্মুর ১২ টায় চলে আসার কথা, কিন্তু আজ দুটো বেজে গেলো তাও আসছেন না। অবশেষে উনি এলেন। আমি হাসিমুখে দরজা খুলে দিলাম, ওইসব প্রসঙ্গে আসতেই দিলাম না। বললাম,

– আম্মু তুমি কি শপিং এ গিয়েছো?
– হ্যাঁ বাবা, দেখ তোর জন্য কিছু টিশার্ট এনেছি
– থ্যাঙ্কিউ আম্মু। দাও ব্যাগগুলো আমার হাতে, তুমি রেস্ট করো।

আম্মু একটু প্রশান্তির হাসি দিয়ে চলে গেলেন। আমি আম্মুকে ঠান্ডা পানি খাওয়ালাম। খুব গরম পড়েছে। আম্মু তখন বোরকা খুলছিলেন। আমাকে দেখে থেমে গেলেন।

– আম্মু তুমি এই গরমে কিভাবে এতকিছু গায়ে দিয়ে আছো? তোমার তো সিদ্ধ হয়ে যাওয়ার কথা!

আম্মু কিছু বললেন না। সংকোচবোধ করতে লাগলেন। আমি আম্মুর কাছে এসে বললাম,

– আম্মু আমি তোমাকে আর জ্বালাবো না প্রমিজ৷ যদি এখন তুমি আমাকে একটু ধরতে দাও
– বাবা এমন করিস না প্লিজ
– আম্মু এখানে কোনো জোরাজুরি নেই। আমি সামান্য একটু ধরতে চাই তোমায়, আম্মু। আমি তো বাইরের কেউ না!
আম্মু কিছুক্ষণ চুপ করে রইলেন। এরপর বললেন,
– ধর, কিন্তু এই ধরা পর্যন্তই, আর কিছু না খবরদার।
-আমার লক্ষী আম্মু!

এই বলে আলতো করে আম্মুর ঘাড়ে হাত রেখে ম্যাসাজ শুরু করলাম। আম্মুর চোখ আরামে বন্ধ হয়ে গেলো। এরপর কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে আম্মুর স্তনযুগলে হাত রাখলাম। আস্তে আস্তে টিপতে থাকলাম, আর নিপল ধরে টিপ দিয়ে মোচড় দিলাম। উল্লেখ্য, আম্মুর শরীরে তখনও বোরকা ছিলো। কাজেই আমি ভালোভাবে ফিল নিতে পারছিলাম না। এরপর হুট করেই আমি টেপা অফ করে দিলাম। বললাম,

– আম্মু অনেক ধন্যবাদ! দেখেছো, তুমি অকারণেই ভয় পাচ্ছিলে! আমি কি তোমাকে কোনো কষ্ট দিয়েছি বলো?
আম্মু চুপ করে রইলেন। নীরব সম্মতি।  টেলিগ্রামে বার্তা @iaks121

চলবে…

আরো খবর  আমার মা নার্স নাকি মাগী – পর্ব ১