bangla illicit sex story বশীকরণ-১

কাউকে বশীভূত করে তাকে নিজের ইচ্ছে মত নিয়ন্ত্রণ করা যা, তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাদের অজান্তেই তাদেকে দিয়ে কাজ করানোও যায়, কিন্তু একে প্রকৃত বশীকণ বলা যায় না। জোর করে কাজ করলে তুমি মানুষ নয় যন্ত্রমানবকে নিয়ন্ত্রণ করছ। কিন্তু যদি বশীকণের মধ্যমে যদি কারও বিবেক, বুদ্ধি সংস্কারকেই corrupt করে দেওয়া যায়, তার হলে Brain washed সৈনিক পাওয়া যায়। এই বশীকরণের শক্তি কারও কাছে থাকলে সে জগৎসম্রাট হয়ে উঠতে পারে, ভগবানও হয়ে উঠতে পারে। এটাকে অলিক কল্পনা বলে মনে হতে পারে অনেকের, কিন্তু সত্য কল্পনার চেওে অদ্ভূত। যুগ যুগ ধরে মানুষ এই সব অতিপ্রাকৃতিক শক্তিতে বলবান হয়ে উঠতে চেয়েছে মানুষ, কোন মানুষ হয়ত পেয়েছে এই অপার্থিব শক্তির ও জ্ঞানের অংশ।

আমার নাম সুদিপ্ত নাগ, অতিসাধারন ছেলে আমি , ছাপোষা বাঙালির একমাত্র সন্তান। শখ অনেক কিন্তু পূরণ করার উপায় নাই, অর্থভাব। ২১ বছর বয়সেও বিশেষ কিছু নেই আমার জীবনে দেখতে সুন্দর (উচ্চতা 6’ফুট, রীতিমতো পেটানো শরীর, স্ট্যামিনাও কম নয় 90 মিনিট টানা ফুটবল এখনও খেলতে পরি, পেনিস লম্বায়-8 ইঞ্চি আর বেড – 4 ইঞ্চি, আত্মবিশ্বাসের অভাব নেই) কিছু তবুও আমি Virgin।

অর্থভাব থাকায় নিজের খরচ চালানোর জন্য টিউশন পড়াই আর চাকরি চেষ্টা করি,দেশে চাকরির যা অভাব। চিরকালই পড়াশোনায় ভালো কিন্তু অর্থাভাবে বেশীদুর এগতে পারিনি। সাধারণ B.Sc. Pass। পাড়ায় থাকতেন একজন কোটিপতি ব্যবসায়ী প্রচুর টাকা তার কিন্তু থাকতেন একা, বংশধরা সব বাইরে, একাকীত্বেই তিনি হঠাৎ মারা যান। এত বড় বাড়ি রাখতে বংশধরেরা কেউ চাইলেন না, তাই বাড়ি বেচে দিতে চাইল, বড়িতে ছিল প্রচুর বই বলতে গেলে ছোটখাটো একটা লাইব্রেরী পাড়ার লাইব্রেরীতে দান করার। এই কাজের দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হল কোন বই লাইব্রেরীতে রাখা হবে তার বাছার জন্য, আসলে এই সব ধুলো ঘাটা কাজ কেউ নিতে চাইনি তাই আমার একার উপর ঝেড়ে ফেলা হল, বই পরতে আমার ব ভালো লাগে তাইনা করলাম না। কি বই নেই সেখানে, ইতিহাস, বিজ্ঞান, তন্ত্র,Hypnosis আরও কত কী। এই Hypnosis এর বই প্রচুর ছিল, শুধু পড়াশোনার বই নয়, রীতিমতো Resgarch paper. উনি যে শুধু ব্যবসায়ী ছিলেন না রীতিমতো hypnosis এর উপর Researcher ছিলেন।একটি চামড়ায় বাঁধানো diary তে তার এই research এর final form absolute Hypnosis অর্জন করার পদ্ধতি লেখা ছিল, প্রথম প্রথম পড়লে এটাকে একটি কল্পবিজ্ঞানের গল্প মন হবে, কিন্তু একটি গল্প লেখার জন এত Detailing সেটা আশ্চর্য জনক, বাড়ির লোকের হয়ত এটাকে বুড়োর কল্পনা বলে ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু আমার তা মনে হল না, মনে হল এসব সত্যি হতে পারে ,হয়ত বাস্তব জীবনের ব্যর্থতা আমাকে এটা মানতে বাধ্য করছে।

আমি Diary গুলো বাড়িত নিয়ে এসে practice শুরু করি (হয়তো কোন আশা নেই কিন্তু আশায় মরে চাষা), ভাষার ব্যবহার,শব্দ ব্যবহার, চোখের মনির গতিবিধি, হাতের গতিবিধি, বিভিন্ন ইশারা, ইত্যদি বিভিন্ন জিনিস নিয়ে লেখা ছিল। সাথে লেখাছিল কীভাবে এই পদ্ধতিত তিনি জীবনের সব সুখ ভোগ করছেন। এক মাস লেগে গেল সামান্য কিছু শিখতে। একসঙ্গে একাধিক লোককে Hypnosis/ বশীভূত করা গলেও আমি যেটুকু শিখেছি তাতে একজনকে একসময়ে সম্পূর্ণ বশীভূত করতে পরব। একটা test drive করা দরকার, একটা test Subject পেতে অসুবিধা হল না ,পাড়ার মুদিখানার মালিকে টার্গেট করলাম। একদিন ভরদুপুরে গেলাম যখন অন কোন খরিদ্দার আসে না তারপর 5 মিনিটে তাকে বশীভূত করেনিলাম এবং বিনা মূল্যে বাজার করে আনলাম, তার চিন্তারমূলে বসিয়ে দিলাম তে সে আমার ইশারায় তার মধ্যে থাকা ‘slave’ জেগে উঠবে ও ঘুমিয়ে পড়বে। তারপর আরও এক মাস বিভিন্ন ভাবে একে পরীক্ষা করলাম কোন ভুল নেই এই দোকানদরকে আমি আমার নিয়ন্ত্রণে নিসে এসেছি সে আমার ‘Undercover slave’।

এই সব তো Diary-এর লেখক আগেই করেছে তাই আমি এটাকে অন্য স্তরে নিয়ে যেতে চাইলাম, চাইলাম এই vergin এর তকমাটা টাকে মুছে ফেলতে। টার্গেট আগে থেকেই বাছাছিল বুড়ো শিবতলার দীপু আন্টি, ওনার ছেলেকে আমি পড়াতে যাই, স্বামী বদলির চাকরিতে আছে বলে ওরা একাই থাকে। বেশ ধনী, বাড়িটা পুরো এসি ছেলেকে অসৎসঙ্গের হাত থেকে বাঁচাবার জন্য বাড়িতেই পড়ায়। ছেলে বুবাই ক্লাস সিক্সে পড়ে তাই একজনই সব বিষয় পড়াতে পারে যেটা করি আমি। দিপু আন্টির বয়স 30 এর মাঝামাঝি হলেও নিজেকে এমন মেন্টেন করেছেন যে 25 এর কাছাকাছি মনে হয় আর এমন curve বডি যে ছেলে বুড়ো সকলের চোখে লালসার দেবী হয়ে থাকেন। এই দলে আমিও আছি এতদিন চোখে গিলে খেয়েছি, দুধের স্বাদ ঘোলে মিটিয়েছি এবার পুরো মালাই খাব।

বিকালে গিয়ে পৌঁছলাম কর্মক্ষেত্রে ঘণ্টা বাজাতে দরজা খুলল কামনা সুন্দরী দীপু আন্টি। দুধে আলতায় গায়ের রং তার তার ওপর পড়েছে বাদামী রঙের ম্যাক্সি তার বুকের ওপর বিছিয়ে থাকা চুলের সাথে মিশে এক হয়ে গেছে। ম্যাক্সিটা যেন শরীরটাকে কামড়ে ধরে আছে শরীরের প্রতিটা খাঁজ এর গভীরতা যেন ওই কাপড়ের টুকরো টারই অধিকার। দরজা খোলার সাথে সাথে যাতে চোখ আটকে যায় তা হল কাপড়ের বাধা না মেনে বেরিয়ে আসতে চাওয়া উন্মুক্ত বক্ষ, ম্যাক্সির বাইরে থেকে সেই খাঁজ কোন গভীর গিরিখাত এর মত মনে হয় যেখানে কখনো সূর্যের আলো প্রবেশ করেনি যা মানব চোখের অন্তরালেই থেকে গেছে।
-এসো, তোমার ছাত্র যে পথ চেয়ে বসে আছে।

বলে আমার দিকে পিছন ফিরে এগিয়ে গেল বুবাইয়ের ঘরের দিকে। কিন্তু আমার চোখ আটকে আছে তার মাংসল পাছার দিকে হাটার সময় প্রত্যেক পদক্ষেপে ওটা নেচে নেচে উঠছে ইচ্ছা করছে যেন দুই হাতে খামচে ধরি , কামড়ে ধরি‌। সংযত করলাম নিজেকে একপা একপা করে করতে হবে আজি সোনার খনির দখল আমাকে নিতে হবে।
বুবাইয়ের ঘরে ঢুকলাম, সে বই নিয়ে বসে আছে একে আগে পথ থেকে হঠাতে হবে, বাড়ির মালিক কে বাড়িতে নেই আগামী দুই সপ্তাহে ও আসার কোন কথা নেই। যার মানসিক গভীরতা কম তাকে বশীভূত করা যত সহজ, বুবাইয়ের মত বাচ্চাকে 1 মিনিটে নিজের পাশে নিয়ে নিলাম কিন্তু কোন চারিত্রিক পরিবর্তন ঘটালামনা কারণ তাকে নিয়ে আমার কোন প্ল্যান নেই, সে আপাতত যন্ত্রমানবের মত আমার জন্য কাজ করবে।

উঠে গেলাম আসল শিকারের দিকে চায়ের কাপ নিয়ে দুজন ডাইনিং এ বসলাম বললাম বুবাইয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে কিছু আলোচনা করার আছে। কথার ফাঁকে নিজের কাজ চালিয়ে গেলাম 5 মিনিটের মধ্যেই hypnosis ফল দেখা দিল সে বুঝতেও পারল না সে কখন আমার নিয়ন্ত্রনে চলে এসেছে। কোন যন্ত্র মানবের সাথে সেক্স করার ইচ্ছা আমার নেই তাই এ চারিত্রিক পরিবর্তন ঘটাতে হবে এর বর্তমান চরিত্রের ভিতরে একটি গোপনীয় দ্বিতীয় চরিত্রের সৃষ্টি করতে হবে। ওই দ্বিতীয় চরিত্রের বিবেকের মধ্যে চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য লিখলাম-‘যৌনতা তোর জীবনের প্রধান কর্ম। তোর সামনে বসে থাকা ব্যক্তির যৌন কামনা পূরণ করা তোর ধর্ম। তোর যৌনজীবন সার্থক করার জন্যই তার আবির্ভাব। তিনিই তোর আরাধ্য। তার সেবাই তোর মুক্তির পথ, তার আদেশ শিরোধার্য।’

এই চরিত্রটাকে তালা দিলাম ওর ভিতরে আর চাবি রাখলাম নিজের কাছে। এই চাবি একটা voice code-এর মত আমার আওয়াজ বা আমার ইশারা ছাড়া একে খোলা যাবে না একটা জোরে হাততালি দিয়ে আমার সেই সৃষ্টিকে বের করে আনলাম।

আরো খবর  অন্য রকম ভালোবাসা – পার্ট ৭