সীমাহীন (অন্যভাবে) – ষষ্ঠ ভাগ

“আমার এই সুখ আমি যতবার মনে করব, তুলি, তোমার শরীর আমি ততবার এভাবেই গিলে খেয়ে যাবো” ।
চিঠিটার কথা গুলো এখনো অবধি তুলির কান গরম করে দিচ্ছে। সকাল থেকেই তুলি নিজের উপর প্রচন্ড ঘৃণায় জর্জরিত। শুধুই ভাবছে কাল রাতে যা হল এটা তো তুলির কাম্য কখনোই ছিলনা। সম্পূর্ণ ধর্ষিতা হত সে, তাহলেও অপরাধ বোধ থাকতো না। কিন্তু যেটা হল তাতে তার নিজের এতদিনের ধারনা ধুলোয় মিশে যাচ্ছে। বরাবরের স্বাধীন চেতা তুলি একটাই কথা মেনে চলেছে বরাবর। যৌনতা আসলেই ভাত ডাল ইত্যাদি আর পাঁচটা খাবারের মতোই, মানুষের যেমন পেটের ক্ষিদে আছে, তেমনই শরীরেরও। কিন্তু তার শরীর কে কেউ ভোগ করবে তেমন সস্তার শরীর তো তার না, খারাপ টা লাগছে কারণ, মন থেকে তুলি একটা বারের জন্যও চায়নি রিষভ এর সাথে যৌন খেলায় মাততে, অথচ কি ভাবে সে রিষভের হাতের পুতুলের মত তার নিজের যৌনতার উপর আয়ত্ত রাখতে পারলো না।
এর একটা হেস্তনেস্ত আজ সে করেই ছাড়বে। ও জানে চিঠিটার আগামী প্রতিফলন আজই হবে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছে, সেই নৌকার মাঝির সেই উদ্দাম যৌনতা তুলি আজ সে ভাবে অনুভব করতে পারে না যেভাবে ঠিক তার পরের কয়দিন পাগল প্রায় হয়ে অনুভব করেছে। তাই টাটকা টাটকা স্বাদ নিতে রিষভ আবারও আজ আসবে।

ব্যাঙ্ক সেরে তুলি পুলিশ অফিসে গেলো। একজন লেডি কনস্টেবল এর সাথে সমস্ত বিষয়টি আলোচনা করলো। অনেক ভাবনা চিন্তা করে লেডি অফিসার টি তুলি কে বেশ কিছু আইডিয়া দিলেন। তুলি অনেক মনের জোর নিয়ে বাড়ির পথে রওনা দিলো। তুলি জানতো আজও তুলির ঘরে ঢোকা মাত্র এমন কিছু হতে পারে যা তুলির চিন্তা ভাবনার অতীত। তুলি তালা চেঞ্জ করে এসেছে আজ সকালেই। তালা খুলে নিজে বাড়িতে ঢুকতে যাবে এমন সময়,
“সে কি তালা পরিবর্তন করে ফেলেছেন দেখি ! এতে কি আপনি পারবেন আমাকে আটকে রাখতে, আপনার ব্যাঙ্কের সব্বাই মিলে বসে আপনার আর আপনারই ব্যাঙ্কের ক্লার্কের শারীরিক কসরত দেখবে সেটা কি খুব ভালো দেখাবে! “
না না, এ মা কি বলেন এসব রিষভ বাবু! আপনি বোধ হয় খেয়াল রাখেন নি, শুরুতে যাই করি না কেন শেষে কিন্তু আমি প্রচন্ড উপভোগ করেছি আপনার যৌন আদর। আসুন ভেতরে। জল নেবেন তো, না কি অন্য কিছু! বলেই আলতো করে তুলি নিচের ঠোঁট টা চেপে ধরে আড়চোখে চেয়ে রইলো রিষের দিকে। তারপর বললো, “দেখুন, আপনাদের ঘর আমার থেকেও বেশি ভালো করে আপনি জানবেন, কামরা মাত্র একটাই, তায় আবার দরজা বলে কিছু নেই, শুধুমাত্র হল তাকে সেপারেট করে রুম বানিয়ে দিয়েছেন আমাদের মত সিঙ্গেল দের জন্য। ফলে আমি ড্রেস চেঞ্জ যে করব সেটার সুযোগও আপনাদের মত কিছু ধূর্ত শেয়াল নিয়ে যাবে। “
– “ক্ষতি কি! আপনি চেঞ্জ করুন আমি বসছি। “
– “তাহলে প্রভুর ইচ্ছেতেই কর্ম হউক আর কি! “
তুলি ড্রেস চেঞ্জ করতে রুমে যাওয়া মাত্রই রিষভ চেয়ার টা টেনে রুমের ঠিক সামনে এসে বসলো। ও চোখ মেলে দেখতে থাকলো তুলির নৈসর্গিক শরীরের প্রতিটি স্বাভাবিক চড়াই উৎরাই এর ভৌগোলিক আলোড়ন। তুলির শরীর সত্যি বড়ই নৈসর্গিক, ৩৪-২৬(২৮)-৩৬। আসলে ২৬(২৮) এর ব্যাপার টা হল এমন, তুলির কোমর ২৮, কিন্তু পেটের পরিধি ২৬। ফলে পেছন থেকে বা সামনে থেকে দেখে মনে হয় জলপরী। মেরুদন্ড পুরো টা ভেতরের দিকে যেন সুক্ষ্ম একটা নদীগর্ভ, দুই পাশে উঁচু পাড়। পশ্চাৎ প্রলম্বন প্রসারিত নয়, স্ফীত। ফলে নিতম্ব বিভাজন টাও খুব গভীর। দুই হাত দিয়ে একটু আড় করে যখন ব্রা এর হুক টা তুলি পিছনে দুই হাত করে খোলার চেষ্টা করছে, কাঁধ থেকে পিঠ ধনুকের আকার ধারন করতেই, স্তনদ্বয় আর পশ্চাৎ প্রদেশ আরও ঊর্ধ্বমুখী হয়ে গেলো। এপাশ থেকে উন্মুক্ত পাছা আর আড়াল থেকে উঁকি মারছে উন্মুক্ত স্তনদ্বয়। রিষভ নিজের অজান্তেই নিজের হাত চালিয়ে দিল প্যান্টের ভেতর। আয়না থেকে তুলি সে দৃশ্য দেখামাত্র লাস্যময়ী ভঙ্গিতে মুচকি হাসি হেসে রিষভের দিকে ঘুরে দাঁড়ালো। কি রুপ! পড়নে শুধু প্যান্টি, মাৎস্যন্যায় নাভীর ঠিক নিচ থেকে সুক্ষতর প্রায় দৃশ্যান্তর রোমের রেখা প্যান্টির ভেতর মিলিয়ে গেছে। তুলি নামের সঙ্গতিতে গড়ে ওঠা তুলতুলে জাঙ গুলো দুলকি চালে এগিয়ে আসছে রিষভের দিকে।
“এটা কি করছেন! আমি তো আজ অতিথি সৎকার করব ভেবে রেখেছি। আপনি হাত মেরেই ক্ষান্ত হয়ে গেলে আমার জীভ আর ঠোঁট গুলো যে হাহাকার করবে।“ বলেই ঝুঁকে পড়লো নিচে। দুধে আলতা স্তন গুলো ঝুঁকে গেলো রিষভের দুই হাঁটুর খাঁজে। রিষভ দুই হাত ভরে ওইগুলোকে ধরে চটকাতে লাগলো আর পরম সুখে অস্থির একটা চাপা আওয়াজ ওর মুখ থেকে বের হতে থাকলো। তুলি প্যান্টের ভেতরে হাত টা চালিয়ে পুরো হাতের তালু ফেলে রিষভের টাঁটিয়ে ওঠা দণ্ডটা টেনে বের করে এনে কালচে বাদামী মুন্ডি টা জীভ দিয়ে গোল করে ঘোরাতে থাকলো। একই সাথে দন্ডের গোড়ার দিকের চামড়া টা ওঠা নামা করাতে থাকলো। দন্ডের ডগা থেকে শিরশিরানি টা একদম গোটা শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে রিষভের। অস্থির হয়ে উঠে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা না করে নিজে পুরো উল্লঙ্গ হয়ে জাপটে ধরে তুলিকে চুমু খেতে খেতে বিছানার দিকে নিয়ে যেতে লাগলো। ঠিক বিছানায় তুলিকে আছড়ে ফেলবে এমত সময় তুলি নিজেকে পালটি খাইয়ে রিষভ কে বিছানায় চিত করে ফেলে দিয়ে রিষভের জাঙের উপরে দুই দিকে দুই পা করে বসে পড়লো। এবার নিজের স্তন জোড়া রিষভের বুকের উপর চেপে রেখে নিজের পাছা টা কে গোল করে দুলিয়ে দুলিয়ে রিষভের দণ্ডটা কে রগড়ে দিতে শুরু করলো। রিষভ একবার বলার চেষ্টা করলো, “তোমার প্যান্টি টা খুলে ঘষে দাও প্লিজ। “ সুযোগ দিল না তুলি। ওর উপরে চেপে বসে নিজের ঠোঁট গুলো দিয়ে রিষভের ঠোঁট গুলো কে নিংড়ে খেতে শুরু করলো তুলি। ক্রমাগত রিষভের দন্ডের ঘষা তুলির যোনী মুখে আলোড়ন তুলছে। তুলি বুঝতে পারছে ওর প্যান্টি টা পর্যন্ত আসতে আসতে জলে ভেজা কাকে পরিণত হচ্ছে। শুধু ঠোঁট টা তুলে তুলি বলল, “ এত তাড়া কিসের আমাকে উল্লঙ্গ করার, বাকি তো শুধু এইটুকু একটা প্যান্টি আছে মাত্র যেটা এখনো খোলা হয় নি। আজ তো তুমি না, আমি তোমাকে খাবো সোনা। তোমার এই রোমশ শরীরের প্রত্যেকটা রোম থেকে আমি আমার নামের ঘাম চাই।“ তুলি ধীরে ধীরে দুর্নিবার হয়ে উঠছে রিষভের উপর। রিষভের দণ্ডটাও তখন থেকে ঘষা খেতে খেতে এতটাই তেতে উঠেছে যে প্রবল আক্রোশে তুলির খালে বর্ষণ করে খাল ভরিয়ে দিতে চাইছে। তুলি ওর জাঙের খাঞ্জের কাছে প্যান্টির গার্ডার টা একটু ফাঁকা রিষভের দণ্ডটা নিয়ে গার্ডার টা দিয়ে চেপে ধরল। রিষভের দন্ডের মুন্ডি টা এতক্ষন পরে চামড়ার আস্বাদ পেয়ে লাফিয়ে উঠে ঘোঁত ঘোঁত দুটো ধাক্কা মারলো তুলির বস্থি দেশে।

চলবে…

আরো খবর  মৌচাক – ১