বন্য প্রেম – ০২

তনুজা যে শুধু আদিত্যকে দেখে অস্থির হয়, তাই নয়, আদিত্যও হয়। তাই তনুজা বেরিয়ে গেলে সে বাথরুমে ঢোকে। নিজেই নিজের সুখ মর্দন করতে ব্যস্ত হয়ে ওঠে তখন আদিত্য। মনে মনে ভাবে, তনুদি বড্ড বেশী হট। স্বামী মাতাল বলে সংসার চালাতে পারে না। তাই কাজ করে। কিন্তু স্বামী উপার্জন না করলেও নিজের দেহের সুখ ঠিকই হয়তো করে নেয় তনুদির সাথে খেলে। নইলে এমন ফিগার হয় কি করে?

আদিত্য কামুক হলেও এখনও ভার্জিন। শুধু কল্পনায় সবাইকে উলঙ্গ করে সে। বাস্তবে কোনো নারী শরীর চেখে দেখার সুযোগ এখনও হয়নি। আর এই অদ্ভুত কাম নিয়ে এভাবে থাকাও মুশকিল। আদিত্য সবচেয়ে বেশী অসহায় ফিল করে জ্বর আসলে। দুর্বল শরীরেই তখন কাম তাড়না ভীষণ বেড়ে যায়। অস্থির হয়ে ওঠে আদিত্য। তখন আর বাথরুমে যায় না। বিছানায় শুয়েই কোলবালিশে পুরুষাঙ্গ ঘষতে ঘষতে প্যান্ট ভিজিয়ে ফেলে।

এরকমই এক দিন আসলো আদিত্যর জীবনে। দু’দিন ধরেই বেশ জ্বর। রিয়াঙ্কা ইউনিভার্সিটি না গিয়ে ওর সেবা করছে। কিন্তু দুদিন পর প্র‍্যাক্টিকাল ক্লাস থাকায় রিয়াঙ্কার সমস্যা হলো। এই ক্লাসটা ওকে অ্যাটেন্ড করতেই হবে। বাড়ি থেকেও কেউ আসতে পারবে না বলে, তনুজা রাজি হলো সারাদিন আদিত্যর সাথে থাকতে। রিয়াঙ্কা প্রমিস করলো তনুজাকে ও কিছু এক্সট্রা ক্যাশ ধরিয়ে দেবে মাসের শেষে। সারাদিন থাকতে হবে বলে তনুজা এক সেট এক্সট্রা ড্রেস নিয়ে বাড়ি থেকে বেরোলো।

রিয়াঙ্কা ইউনিভার্সিটি বেরিয়ে যাবার পর তনুজা বাকী কাজকর্ম গুটিয়ে আদিত্যকে দেখতে এলো। আদিত্য ঘুমাচ্ছে দেখে নিশ্চিন্ত হয়ে ড্রয়িং রুমের সোফায় বসলো। ওখান থেকে আদিত্যকে দেখা যায়। ওভাবের তাড়নায় জীবনে কোনো শখ পূরণ হয়নি, কিন্তু তনুজার পড়াশোনার শখ ছিলো। রিয়াঙ্কা আর আদিত্যর বই-খাতা বেশ যত্ন করে, সুন্দর করে গুছিয়ে রাখে তনুজা। বাড়িতে প্রচুর ম্যাগাজিন। একটা গল্পের ম্যাগাজিন নিয়ে পড়তে শুরু করলো সে। গল্পের মধ্যে ডুবে গিয়েছিল তনুজা, হঠাৎ আদিত্যর গোঙানি শুনে চমকে উঠলো। এসে দেখে জ্বরে আদিত্যর শরীর পুড়ে যাচ্ছে। তনুজা তাড়াতাড়ি করে জ্বরের ওষুধ খাইয়ে দিয়ে মাথায় জলপট্টি দিয়ে দিলো। মিনিট দশেক পর একটু শান্ত হলো আদিত্য।
আদিত্য- তনুদি, একটু খাওয়ার জল দাও। কাঁচা জল খেতে ইচ্ছে করে না। একটু নুন চিনি গুলে দাও।
তনুজা তৎক্ষনাৎ তা বানিয়ে এনে দিলো।
তনুজা- একটু আরাম লাগছে?
আদিত্য- হ্যাঁ। মাথাটা আরাম লাগছে। শরীরটা এখনও গরম আছে।
তনুজা- একটু স্পঞ্জ করে দেবো?
আদিত্য- না না। তুমি আবার এতো কষ্ট কেনো করবে? ওষুধ খেয়েছি। কমছে আস্তে আস্তে। কমে যাবে।
তনুজা- ঠিক আছে। তবে আমরা গরীব মানুষ সব সময় ঘরে ওষুধ থাকে না। আমরা তো স্পঞ্জ করেই জ্বর কমাই।
আদিত্য- এই কিছু বললেই তোমার ধনী-গরীব শুরু হয়ে যায়। যাও নিয়ে এসো জল। দাও স্পঞ্জ করে।

তনুজা এক বালতি জল নিয়ে এলো। একটা টাওয়েল ভিজিয়ে নিলো।
তনুজা- নাও গেঞ্জিটা খোলো।
আদিত্য গেঞ্জি খুলে দেওয়ার পর তনুজা ভেজা টাওয়েল দিয়ে আদিত্যর শরীর মুছে দিতে লাগলো। আদিত্যর পুরুষালী শরীর। চওড়া কাঁধ, চওড়া পুরুষালী বুক এর কাছাকাছি এসে তনুজার হাত ঈষৎ কাঁপতে লাগলো। কিন্তু সে নিজেই স্পঞ্জ করার জন্য অনুরোধ করেছিলো বলে সরেও আসতে পারছে না। স্বামী তার সাথে যৌনখেলায় মাতলেও মাতাল শরীরটা ইদানীং ভঙ্গুর হয়েছে যথেষ্ট। এরকম একটা বলিষ্ঠ পুরুষালী শরীরের নীচে পিষ্ট হতে চায়না এমন নারী খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। তনুজার নিশ্বাস নিজের অজান্তেই ঘন হয়ে আসতে লাগলো। আদিত্যর জ্বর শরীরটাকে মোছার ফলে যে গরম ভাপ বেরিয়ে আসছে, তাও যেন বড্ড বেশী। ঘাড় আর পিঠের দিকটা ভালো করে মুছে দিয়ে, তনুজা সামনের দিকে এসে বুকটা মুছে দিতে লাগলো। নিয়মিত শরীরচর্চা করা আদিত্যর বলিষ্ঠ বুক তনুজার দুই পায়ের মাঝখানটা নিমেষে ভিজিয়ে দিলো। দুটো আঙুল যেন তনুজার আপত্তি সত্বেও তনুজার কথা না শুনেই ভেজা কাপড়ের পরিসীমার বাইরে চলে গেলো। আঙুলদুটো আদিত্যর পুরুষালী বুকটা ছুঁতে চায়। তনুজা অনেক চেষ্টা করেও আটকাতে পারলো না। ভেজা কাপড়ের বাইরে দিয়ে ঘোরা তনুজার আঙুলগুলো আদিত্যর শরীরেও নিজেদের প্রভাব বিস্তার করলো। দুই চোখ বন্ধ করে তনুজার স্পঞ্জ করে দেওয়ার আরাম নিচ্ছিলো আদিত্য। হঠাৎ আঙুলের ডগাদুটো বুকের ওপর ঘুরতে থাকায় চোখ খুলেই চমকে উঠলো আদিত্য। সামনে থেকে স্পঞ্জ করতে থাকা তনুজার ডাগর শরীরের উঁচু বক্ষস্থল আদিত্যর চোখের একদম সামনে তখন বিরাজমান। চুড়িদারের ওপরে ক্লিভেজের হালকা দৃশ্যমান। তনুজার ভারী হয়ে থাকা নিশ্বাসের তালে ওঠানামা করছে বুকের দুটো ডাব। আদিত্যর ক্ষুদার্ত দৃষ্টি নজর এড়ালো না তনুজার। ভেতরটা আরও বেশী কিলবিল করে উঠলো। অজান্তে দুই পা একটু চেপে এলো তনুজার। বুকটা মুছে দিয়ে আদিত্যর পেটের জায়গাটা মুছে দিতে লাগলো তনুজা। আদিত্য আর চোখ বন্ধ করতে পারছে না। ফলতঃ একদম কাছ থেকে দেখা ডাবগুলো তার উত্তেজনা ক্রমশ বাড়িয়ে তুলছে। আর উত্তেজনার প্রতিফলন ঘটছে পায়ের ফাঁকে। বারমুডা প্যান্টের মাঝখানটা ক্রমশ ফুলে উঠছে। তনুজা ঘাড় ঘুরিয়ে মুচকি হাসলো। আগুন দুপক্ষেই লেগেছে তাহলে। তনুজা পেট থেকে নেমে পা গুলো মুছে দিতে লাগলো আদিত্যর। আড়চোখে বারবার দৃষ্টি চলে যাচ্ছে আদিত্যর ফুলে থাকা বারমুডার দিকে। আর আদিত্যর দৃষ্টি নিবদ্ধ তনুজার ডাবের দিকে।

আরো খবর  শিবানীর দিনলিপি (১ম পর্ব)

স্পঞ্জ করিয়ে দিয়ে তনুজা জল ফেলতে বাথরুমে গেলো। গিয়েই চুড়িদারের প্যান্ট খুলে ডান হাতের মধ্যমাটা ঢুকিয়ে দিলো প্যান্টির ভেতর। ভীষণ অস্থির ভাবে হাতাতে লাগলো তার পটলচেরা গোলাপি আদরমুখ। ভীষণ ভীষণ ভীষণ অস্থিরভাবে। শেষদিকে কিরকম বীভৎসভাবে ফুলে উঠেছিলো আদিত্যর বারমুডা। তনুজা আর স্পঞ্জ করতে পারছিলো না। প্রায় মিনিট পাঁচেকের চরম ঘষাঘষির পর তনুজার রাগমোচন হবার পর তনুজা বেরিয়ে এলো বাথরুম থেকে। অনেকটা শান্তি লাগছে। আদিত্যর দরজার কাছে গিয়ে দেখলো আদিত্য তখনও চিৎ হয়ে শুয়ে আছে, তখনও একইরকম বীভৎস, বিস্ফারিত তার ফোলা বারমুডা পরে। তনুজার ভেতরটা মোচড় দিয়ে উঠলো। সে তো নিজের সুখ করে নিলো। কিন্তু আদিত্যর জ্বর শরীর। ওঠার মতো হয়তো এনার্জি পাচ্ছে না। মায়া হলো তনুজার। তনুজা আদিত্যর রুমে ঢুকলো।
তনুজা- এখন কেমন লাগছে আদিত্য?
আদিত্য- অস্থির লাগছে। পিপাসা পেয়েছে খুব।
তনুজা- জল দেবো?
আদিত্য- দাও। ডাবের জল দাও তনু দি।
তনুজা- ডাবের জল? ডাব কোথায় পাবো এখন? নুন চিনি দিয়ে দিই?
আদিত্য- ডাবে জল না থাকলে ডাবই দাও। কিন্তু ডাবই চাই আমার।

আদিত্যর তার বুকের দিকে তাকিয়ে ডাব ডাব বলাতে এবার তনুজার শুধু যে খটকা লাগলো, তা নয়, অস্বস্তিও হলো। তনুজা কাছে এলো।
তনুজা- এখন কোথায় ডাব পাবো আদিত্য? ভাই আমার আবদার করে না। আমি রিয়াঙ্কাকে ফোন করে দিচ্ছি। আসার সময় নিয়ে আসবে।
আদিত্য- তুমি বুঝতে পারছো না তনু দি আমি কি চাইছি?
তনুজা- হ্যাঁ। ডাব চাইছো।
আদিত্য- দোকানের ডাব না। আমি তোমার ডাব চাইছি।

তনুজা ছিটকে সরে গেলো আদিত্যর থেকে। তারমানে সে ঠিকই ধরেছিলো।
তনুজা- আমার ডাব? কিসব বলছো?
আদিত্য- হ্যাঁ তোমার ওই ডাব জোড়া।
তনুজা- জ্বরে তোমার মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে আদিত্য। উল্টোপাল্টা বকছো। দাঁড়াও আমি নুন চিনি জল আনছি।
আদিত্য- স্পঞ্জের জল ফেলতে বাথরুমে ঢুকে দশ মিনিট পর বেরোলে তাও ঘেমে নেয়ে। আমি কি কিছু বুঝি নি তনু দি?
তনুজা- মা-মানে মানে মানে টা কি?

আরো খবর  ছেলের বাড়া

তনুজা ধরা পরে তোতলাতে লাগলো।
আদিত্য- মানে সেটাই। যেটা বললাম। প্লীজ তনু দি। ফিরিয়ো না আজ। কতদিন ধরে তোমার স্বপ্ন দেখেছি। কত কত রাত-দিন তোমার কথা ভেবে বারমুডা ভিজিয়েছি, জাঙিয়া ভিজিয়েছি। আজ আর ফিরিয়ে দিয়ো না তনু দি প্লীজ।

আদিত্যর কাতর অনুনয় তনুজার পা ভারী করে দিলো। রুম থেকে বেরিয়ে যেতে চেয়েও আটকে গেলো যেন। সে ভেবেছিলো সেই আদিত্যর পুরুষালী শরীরটা ফ্যান্টাসি করে। কিন্তু আদিত্যও যে তাকে এই লেভেলের ফ্যান্টাসি করে সেটা ভাবতে পারেনি।
আদিত্য বিছানা থেকে উঠে দাঁড়ালো। ভেতরে জাঙিয়া না থাকায় বারমুডা একটা তাঁবু তৈরী করলো। পুরো শরীরের সাথে ৯০° করে উত্তুঙ্গ হয়ে আছে আদিত্যর পুরুষাঙ্গ। তাকিয়েই শিউরে উঠলো তনুজা। আদিত্য তনুজার কাছে এলো। ভীষণ কাছে।
আদিত্য- তোমার অনুমতি ছাড়া তোমাকে ছোঁবো না তনু দি। কিন্তু তুমি নিজেই দেখো কি অবস্থা হয়েছে আমার তোমাকে দেখে। স্পঞ্জ করার সময় তোমার আঙুলের ছোঁয়া পেয়ে। তোমার ভারী ডাব গুলো যখন নিশ্বাসের তালে ওঠানামা করছিলো তখন। আজ আমার বারমুডা উঁচু হয়ে আছে শুধু তোমার কারণে তনু দি। ইদানীং কত কথা শোনা যায় চারপাশে। বাড়ির মালিকরা সুন্দরী কাজের লোক পেলে জোর করে সুখ করে নেয়। কিন্তু আমি তোমায় জোর করবো না তনু দি৷ তুমি নিজেই বিচার করো। আমাকে এ অবস্থায় ফেলে গেলে তুমি কি নিজে সুখী হবে?
তনুজা- আদিত্য ভাই প্লীজ। এটা খুব খারাপ হবে। রিয়াঙ্কা জানতে পারলে খুব খারাপ হবে। আমার কাজটা চলে যাবে।
আদিত্য- কে জানাবে ওকে? তুমি?
তনুজা- না। মেয়েরা টের পায়।
আদিত্য- ও পাবে না৷ না জানালেই হলো তনু দি। প্লীজ তনু দি। একটিবার তোমাকে ছুঁতে দাও প্লীজ।

তনুজা স্থির হয়ে গেলো। এভাবে কেউ কাতরভাবে তাকে চাইবে সে কখনও ভাবেনি। আদিত্যর কথাও ঠিক। সে চাইলে জোর করে যদি তনুজাকে চেপে ধরে তনুজা বাধা দিতে পারবে না। কিন্তু আদিত্য চাইছে তনুজাই তার কাছে ধরা দিক। তনুজা কামাতুর চোখে আদিত্যর দিকে তাকালো। আদিত্যর দুই চোখ তনুজার শরীরে নিবদ্ধ।
তনুজা- শুধু একবার। মনে থাকবে?
আদিত্য- মনে থাকবে। তুমি যেভাবে বলবে, সেভাবেই হবে।
তনুজা- তুমি বড্ড নাছোড়বান্দা আদিত্য।

তনুজা আদিত্যর দিকে এগিয়ে গেলো।

চলবে….