বন্য প্রেম – ০৩

তনুজা নিজের মনের সাথে যুদ্ধ করে, শরীরের সাথে যুদ্ধ করে আর পেরে না উঠে আস্তে আস্তে আদিত্যর খুব কাছে এসে দাঁড়ালো। বুকটা ভীষণ ধুকপুক করছে দুজনেরই। তনুজা আদিত্যর দুই চোখে চোখ রাখলো। আদিত্যর দুই চোখ কামাতুর হয়ে আছে। তনুজা ঠোঁট এগিয়ে দিলো। আদিত্যর জ্বর ঠোঁট স্পর্শ করলো তনুজার পাতলা ঠোঁট। তনুজার ঠোঁটের স্পর্শ পেয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠলো আদিত্য। প্রথমে এমনিতে এলোমেলো চুমু দিতে দিতে আস্তে আস্তে দুই হায়ে তনুজার মাথা চেপে ধরলো দু’দিকে। তারপর অনভিজ্ঞ, হিংস্র, এলোপাথাড়ি চুমুতে ভরিয়ে দিতে লাগলো গোটা মুখ।

তনুজা আদিত্যর মতো আনাড়ি নয়। আদিত্য দু’হাতে দু’দিকে তার মাথা চেপে ধরলেও সে কিন্তু ধরলো না। এক হাত আদিত্যর পিঠে বোলাতে বোলাতে আর এক হাত ঢুকিয়ে দিলো আদিত্যর চুলের ভেতর মাথার পেছন দিকটায়। চুলগুলো খামচে ধরে জিভ আর ঠোঁট দুটোই সেঁধিয়ে দিতে লাগলো আদিত্যর মুখে। আদিত্যর চুমুগুলো এলোপাথাড়ি ও হিংস্র আর তনুজার চুমুর প্রত্যুত্তর গুলো মাপা ও কামোত্তেজক। ঠোঁট আর জিভের লড়াই চলতে চলতে তনুজা আদিত্যর ঠোঁট কামড়ে ধরলো এক মুহুর্তে। আদিত্য জোরে শীৎকার দিয়ে উঠলো। আদিত্যর পুরুষালী শীৎকারটাই অপেক্ষাতেই হয়তো ছিলো তনুজার শরীর। মুহুর্তে দাবানল লেগে গেলো সারা শরীরে তনুজার। তনুজা আদিত্যর কাঁধ, গাল, ঘাড়, কানের লতি, কানের পেছনটা চেটে চেটে চুমু দিয়ে দিয়ে অস্থির হয়ে উঠলো। আদিত্য পিছিয়ে রইলো না। তনুজা তার ঘাড়ের বাঁদিকে চুমু দিলে সেও ঠোঁট আর জিভ লেলিয়ে দিচ্ছে তনুজার ডান কাঁধে। ভীষণ ভীষণ আদর করতে লাগলো আদিত্য। তনুজা হারিয়ে যেতে লাগলো সোহাগের আদরে। মাতাল বরটা এসে তো শুধু দু’পায়ের ফাঁকে ঢুকে যায়। বিয়ের পর পর এসব রোম্যান্স করতো। আদিত্য একদমই আনাড়ি। অহেতুক তাড়াতাড়ি কর‍তে লাগলো উত্তেজনার বশে। তনুজা বুঝতে পেরে আদিত্যকে একটু স্থির করার চেষ্টা করতে লাগলো। কিন্তু আদিত্য উত্তেজনায় থরথর করে কাঁপছে। অস্থির আদিত্য তার পুরুষাঙ্গটা ভীষণভাবে ঘষছে তনুজার পায়ের কাছে। কি বীভৎস লাগছে ওটার আকার তনুজার কাছে। তনুজা আরেকটু রোল প্লে চায়। কিন্তু ওটার বীভৎস আকার তনুজাকে দোটানায় ফেলে দিলো। তনুজাও চুমুর তালে তালে নিজের কোমর এগিয়ে দিয়ে ঘষতে লাগলো আদিত্যর পুরুষাঙ্গটা। যত ঘষছে, তত যেন ওটা আরও বেশী বীভৎস হচ্ছে। আদিত্যর এবার লোভ বাড়লো, লালসা বাড়লো। তবে তনুজার মাথা চেপে ধরা হাতগুলো সরিয়ে তনুজার পিঠে ঘষতে লাগলো। খামচে ধরতে লাগলো পিঠ। পর্ন দেখে আর চটি পড়ে পড়ে সারা নারী শরীরের প্রতিটি খাঁজ সম্পর্কে ফ্যান্টাসি করা আদিত্য আস্তে আস্তে হাত বাড়ালো তনুজার পাছার দিকে। পাছার ওপর আলতো করে হাত বোলাতে লাগলো। বেশ ভারী ছড়ানো পাছা তনুজার। বেশ ছড়ানো। আদিত্যর হাতের পরশে তনুজা কামোত্তেজনায় চোখ বন্ধ করলো। কিলবিল করতে লাগলো শরীরটা। আদিত্য পাছার ডান দাবনাটা খামচে ধরতেই তনুজা আদিত্যর ডান দিকের গলা আর ঘাড়ের সংযোগস্থলটা কামড়ে ধরলো। আদিত্য বুঝতে পারলো তনুজা ভীষণ অস্থির হয়ে উঠেছে। সে পড়েছে, শুনেছে মেয়েরা অস্থির হয়ে গেলে লাগাতে হয়। আদিত্য তাই লাগানোর প্রস্তুতি নিলো। তনুজা কিন্তু চাইছে না। সে চাইছে আদিত্য আরও খেলুক তার সাথে। কিন্তু আদিত্যর প্রচন্ড উত্তেজনা তাকে বিবশ করে দিচ্ছে।

আদিত্য হাত বাড়িয়ে তনুজার প্যান্টের নাড়া খুলে দিতেই প্যান্ট টা আলাদা হয়ে গেলো শরীর থেকে। তনুজার থলথলে উরুতে আলতো করে হাত ছুঁইয়ে দিলো আদিত্য। তারপর চুড়িদার খুলতে উদ্যত হলো সে। তনুজা বাধা দিলো না। হাত তুলে সাহায্য করলো। চুড়িদার খুলে দিতেই তনুজার ক্রিম কালারের ব্রা আর কালো প্যান্টিতে ঢাকা শরীরটা আদিত্যকে আরও আরও হিংস্র করে তুললো। নিজের হাতে একটানে বারমুডা নামিয়ে দিলো সে। ভয়ংকর তাঁবুটা দেখে লোভ সামলাতে পারলো না তনুজা। হাত বোলাতে লাগলো আদিত্যর খয়েরী রঙের জাঙিয়ার ওপর থেকে।
আদিত্য- পছন্দ হয়েছে তনুদি?
তনুজা- বীভৎস দেখতে তোমার এটা আদিত্য।
আদিত্য- ধরো না ঠেসে। কচলে দাও।

শুধু কথাটা বলা অপেক্ষা, তনুজা আদিত্যর ডান্ডাটা জাঙিয়ার ওপর থেকে খামচে ধরে কচলাতে লাগলো। আর আদিত্য তনুজার বুকে হাত দিলো। ক্রিম কালারের ব্রা এর ভেতর থেকে ফেটে বেরিয়ে আসতে চাওয়া তনুজার ডাবগুলোতে হাত লাগালো। যে ডাব আজ ওকে অস্থির করেছে, সেই ডাব দুটো হাতের মুঠোয় নিয়ে কচলাতে শুরু করলো তনুজা। আদিত্য এতোটাই অস্থির হয়ে গিয়েছে যে বেশী রয়েসয়ে করতে ইচ্ছে করছে না। নিজের ফ্যান্টাসিকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে একটানে ছিঁড়ে ফেললো ব্রা।
তনুজা- কি করলে এটা আদিত্য। বাড়িতে কি বলবো?
আদিত্য- কিছু বলতে হবে না।
তনুজা- ওর বাবা যদি জিজ্ঞেস করে?
আদিত্য- করবে না। সারাদিন তো মাল খেয়ে টাল হয়ে থাকে। ওর কি ওতো সেন্স থাকে?
তনুজা- তবুও। আজকাল জিনিসের কি দাম!
আদিত্য- তোমাকে ওরকম দুটো ব্রা কিনে দেবো। সেক্সি ব্রা গুলো কিনে দেবো। যেগুলো পরে তুমি কাজে আসবে তনুদি।
তনুজা- উমমমমম আদিত্য।

তনুজা আদিত্যর জাঙিয়ার ভেতর হাতটা ঢুকিয়ে দিলো। আর চমকে উঠলো আদিত্যর শশাটার সাইজ দেখে। ভীষণ গরম। একদম কামারের আগুনে পোড়ানো হাতে পেটানো লোহার মতো। আর কি ভীষণ মোটা। বাজারের হাইব্রিড শশাগুলোর মতো। পুরো ধনুকের মতো বেঁকে আছে। তনুজা কামে গলে যেতে লাগলো। হাতের মুঠোয় নিয়ে চামড়াটা ওপর নীচ করতে লাগলো সমানে। অস্থির লাগতে লাগলো তনুজার। কামে চোখ বন্ধ হয়ে আসতে লাগলো ক্রমশ। তনুজার কাজ করা হাত। তবুও কি নরম। তনুজার হাত শুধু নরম নয়, ভীষণ অভিজ্ঞ।
আদিত্য- আহহহহ তনু দি। পাগল করে দিচ্ছো।
তনুজা- উমমমম। ভালো লাগছে আদিত্য? এভাবে ওপর নীচ করে দিলে ভালো লাগছে?
আদিত্য- ভীষণ ভীষণ ভালো লাগছে গো। তুমি সেরা।
তনুজা- ইসসসস। ক’জনের সাথে শুয়েছো যে সেরা বাছতে বসেছো?
আদিত্য- একমাত্র তোমার সাথে। তুমি শুধু।
তনুজা- তাহলে আর সেরা কি করে হলাম। আমি তো কাজের মেয়ে। তোমার যা জিনিস আছে না আদিত্য। একবার এই শহরে চাউর হয়ে গেলে আমার কথা আর মনে থাকবে না।
আদিত্য- কিসব বলছো তনু দি। তোমাকে ভেবে কত রাতে বিছানা ভিজিয়েছি তুমি জানো?
তনুজা- তুমি একা ভিজিয়েছো বুঝি? তোমার জাঙিয়া গুলো ধোবার সময় আমি যে অস্থির হয়ে উঠতাম আদিত্য। রাতের জাঙিয়াগুলো পরদিন দুপুর পর্যন্ত তোমার পৌরুষের গন্ধে ম ম করতো।
আদিত্য- কি করতে?
তনুজা- ঘষতাম। তোমার জাঙিয়া নিয়ে আমার তলপেটে ঘষতাম। আর যতবার ঘষতাম। বান ডাকতো নীচে।
আদিত্য- আহহহ তনু দি। এতো চাইতে আমাকে?
তনুজা- ভীষণ।

আদিত্য তনুজার প্যান্টির ভেতর কাঁপা কাঁপা হাত ঢুকিয়ে দিলো। তনুজা কেঁপে উঠলো। আদিত্য শুধু পর্ন দেখে আর চটি পড়ে এতোকাল অ্যাজাম্পশন করেছে। আজ সত্যিকারের হাত দিয়ে পাগল হয়ে গেলো। এতো আবেগ মেয়েদের যৌনাঙ্গে। হরহর করে জল কাটছে তনুজার। আদিত্যর আঙুল যেন সেই জলের তোড়ে কুল পাচ্ছে না।
তনুজা- আরেকটু আরেকটু পেছনে নাও আঙুল গুলো।
আদিত্য- উমমমমমম।
তনুজা- এই তো পেয়েছো আদিত্য। ঢুকিয়ে দাও। একটা আঙুল দাও।
আদিত্য- একটু এলোমেলো যে।
তনুজা- ওটা এলোমেলোই হয়। ঢুকিয়ে দাও। ঢুকে যাবে। দাও প্লীজ।

আদিত্য তর্জনী চালিয়ে দিলো ভেতরে। বাইরের এলোমেলো জায়গাটা ভেদ করে আঙুলটা ভেতরে ঢুকে গেলো। ভেতরটা একটা জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ড। আদিত্য আঙুল নাড়াতে লাগলো অস্থিরভাবে। তনুজার শরীর সুখে কাঁপতে লাগলো।
তনুজা- আরেকটা আঙুল আদিত্য।
আদিত্য- ওকে তনু দি। দিচ্ছি গো। উফফফফ কি উষ্ণ তুমি।

আদিত্য তর্জনীর পাশ দিয়ে মধ্যমাটাও চালিয়ে দিলো।
তনুজা- আহহহহহহহহহহহহহহহহহহ। দুটো আঙুল দিয়ে করে দাও আদিত্য। প্লীজ। আরও আরও জোরে। আরও জোরে।
আদিত্য আঙুল দুটো একসাথে ভেতর বাহির করতে লাগলো। প্রচন্ড স্পীডে।

তনুজা নিজের ঠোঁট কামড়ে ধরে আদিত্যর হাইব্রিড শশাটাকে খামচে ধরে হেলে পরতে লাগলো আদিত্যর দিকে।
আদিত্য- বিছানায় উঠবে তনু দি?
তনুজা- যেখানে ইচ্ছে নিয়ে চলো। যেখানে ইচ্ছে। সাথে শুধু তোমার এই শরীরটা চাই আমার আদিত্য।
আদিত্য- আহহহ তনু দি! তুমি না পাগল করে দেওয়া কথা বলো জানো তো।

তনুজা আদিত্যর পুরুষাঙ্গ আরও বেশী করে খিঁচতে লাগলো।
তনুজা- তোমার এটার যা সাইজ না আদিত্য! পাগল না হয়ে যাই কোথায় বলো?

আদিত্য তনুজাকে নিয়ে বিছানায় উঠলো। বর বাদ দিয়ে এই প্রথম কোনো পরপুরুষের বিছানায় উঠলো তনুজা। এতোটাই কামাতুরা হয়ে গিয়েছে সে যে, অবলীলায় আদিত্যর বিছানায় উঠে পরলো তনুজা। বিছানায় শুইয়ে দিয়ে আদিত্য পা তুলে দিলো তনুজার ওপর। উরু দিয়ে ঘষতে লাগলো তনুজার উরুগুলো। তনুজা দু’হাতে চেপে ধরলো আদিত্যকে। নিজে উদ্যোগী হয়ে নিজের শরীর ঘষতে লাগলো আদিত্যর শরীরে। যে ডাবগুলোর জন্য আদিত্য অস্থির হয়ে উঠেছিল। সেই ডাবদুটো ডলে ডলে ঘষে দিতে লাগলো তনুজা।
তনুজা- কেমন লাগছে আদিত্য?
আদিত্য- আহহহহ তনু দি। স্বর্গীয় সুখ। এরকম সুখ হয় জানতাম না।
তনুজা- গরম পরলে ডাবেই তো সুখ আদিত্য। তোমার এখন জ্বর শরীর। গরম শরীর। ডাবের জলেই তো তুমি ঠান্ডা হবে। বোঁটায় মুখ দিয়ে চোষো। এই নাও। খাও ভাই।

তনুজা তার দুই বোঁটা এক এক করে আদিত্যর মুখের ভিতর ঠেসে ধরতে লাগলো। আদিত্য প্রথমে দুই বোঁটা আলাদা চুষলেও একটু পরেই দুই হাতে দুই ডাব ধরে দুটো বোঁটা একসাথে জোড়া লাগিয়ে একসাথে মুখে ঢুকিয়ে চো চো করে চুষতে শুরু করলো। তনুজা সুখে চিৎকার করে উঠে শরীর বেঁকিয়ে দিলো। তলপেট এগিয়ে দিলো আদিত্যর ফুটন্ত জাঙিয়ার দিকে। তনুজাকে পাগল করতে পেরে আদিত্য আরও উৎসাহিত হয়ে উথাল-পাথাল চুষতে শুরু করলো। তনুজা হিসহিসিয়ে উঠলো।
তনুজা- এবার এসো আদিত্য। এবার ভেতরে এসো। এসো আমার ভেতরে। এরকম সুখ তুমি আরও অনেক দিন দিতে পারবে। নিতেও পারবো। কিন্তু আজ, আজ এক্ষুণি তোমাকে আমার ভেতরে চাই। আমার ভেতরে তোমাকে চাই৷ একটা পুরুষ চাই। একটা লাঙল চাই। আমার ভেতরে চাষ করবার জন্য। প্লীজ আদিত্য, প্লীজ।

চলবে…..

আরো খবর  Bengali Porn Story করোনা কাহিনি -১