বন্য প্রেম – ০১

“উফফফফফ, তুই না, একদম পাগল করে দিস জানিস তো!” আদিত্যকে ওপর থেকে ঠেলে নামিয়ে বলে উঠলো রিয়াঙ্কা।
“তুই মালটাই এমন যে আমি নিজেই পাগল হয়ে যাই, তো তোকেও পাগল করবো সেটাই স্বাভাবিক”, তখনও হাঁপাচ্ছে আদিত্য।
“তোর না কত্ত মাল, তা এভাবে ছুটে আসিস কেনো আমার কাছে?”, অভিমানী গলা রিয়াঙ্কার।
“সবাই শুধু মাল, আর তুই নেশা, তুই বন্য প্রেম আমার”, আদিত্য আবার জড়িয়ে ধরে রিয়াঙ্কাকে।
“আহহহহ আদি, আবার?”, আদুরে গলায় বলে ওঠে রিয়াঙ্কা।
“কেনো তুই চাস না?” দ্বিধাগ্রস্ত আদিত্য।
“চাই তো রে, ভীষণ ভাবে চাই” রিয়াঙ্কা নগ্ন শরীরটা তুলে দেয় আদিত্যর ওপরে। দুহাতে চেপে ধরে আদিত্যকে।

রিয়াঙ্কার দু’পায়ের খাঁজে পা ঘষে আদিত্য। ভেজা আদরমুখ রিয়াঙ্কার। ঠোঁটে ঠোঁট কামড়ে আদিত্যর দিকে নিজেকে ঠেলে দেয় রিয়াঙ্কা।
আদিত্য- ভালো লাগছে?
রিয়াঙ্কা- উমমমম, ভীষণ ভীষণ ভালো লাগছে। এভাবে আর মাসে একদিন ভালো লাগে না রে আদি। সপ্তাহে একদিন ম্যানেজ কর না। আগের মতো।
আদিত্য- আমি আমার বউকে ম্যানেজ করে নেবো। তুই পারবি তোর বরকে ম্যানেজ করতে?
রিয়াঙ্কা- ওটাকে নিয়েই তো জ্বালা। স্কুল টিচার না আইবি অফিসার বোঝাই দায়। এত্তো জাসুসি করে।
আদিত্য- আমার কাছে আসলেও প্রশ্ন করে?
রিয়াঙ্কা- সবকিছুতেই প্রশ্ন করে, ওর নাম কণিষ্ক না হয়ে কোশ্চেন মেসিন হওয়া উচিত ছিলো।
আদিত্য- আসল কণিষ্কের মতো ওর মাথাটা কেটে দে না।
রিয়াঙ্কা- তোকে পাওয়ার জন্য যদি তা করতে হয়, তাহলে তাই করবো রে আদি।
আদিত্য- উফফফফ, তুই সত্যিই অতুলনীয় দিদিভাই।
রিয়াঙ্কা- সব ফাটিয়ে শেষ করে দিয়ে এখন দিদিভাই?
আদিত্য- উমমমম।
রিয়াঙ্কা- বুঝেছি। দে ঢুকিয়ে সোনা ভাই আমার। এভাবেই দে না, পাশাপাশি।

আদিত্য দেরি না করে রিয়াঙ্কার আদরমুখে প্রবেশ করতে শুরু করলো আরও। রিয়াঙ্কা এগিয়ে দিলো তার নারীত্ব। “গেঁথে দে” হিসহিসিয়ে উঠলো রিয়াঙ্কা। আদিত্য তার দিদিভাইকে নিরাশ করলো না। গেঁথে গেঁথে প্রবেশ প্রস্থান শুরু করলো রিয়াঙ্কার ভেজা, পিচ্ছিল, ক্ষুদার্ত নারীঅঙ্গে। আবার তো প্রায় একমাস পর সেই। রিয়াঙ্কাও প্রতিটি মুহুর্ত উপভোগ করতে লাগলো আদিত্যর। প্রতিটি মুহুর্ত। প্রতিটি গাদন নিজের মধ্যে আত্মস্থ করে নিচ্ছে রিয়াঙ্কা।
রিয়াঙ্কা- খেয়ে ফেল আমাকে আদি।
আদিত্য- তোকে আজ শেষ করে দেবো রিয়া দি।
রিয়াঙ্কা- করে দে আদি করে দে শেষ। আহহহ আহহহ আহহহ।

আদিত্য মাতাল করে দিতে লাগলো রিয়াঙ্কাকে মিলনসুখে। রিয়াঙ্কা সুখ সাগরে নিমজ্জিত হয়ে চলেছে অবিরত। অস্ফুটে বলে উঠলো, “সব খেয়ে নিস না আদি, সামনের মাসের জন্য কিছু রাখ”। আদিত্য হিসহিসিয়ে উঠলো, “সামনের মাসে নতুন রিয়া আসবে আমার কাছে। আসবে না?”
রিয়াঙ্কা- আসবে আসবে, নতুন রিয়া আসবে, শুধু তোর রিয়া আদি, শুধু তোর রিয়া আমি। কণিষ্ক ইদানীং রিয়াঙ্কা ছেড়ে রিয়া করে ডাকতে চায়। আমি দিই না ডাকতে। আমি শুধু তোর রিয়া আদি।
আদিত্য- তুই শুধু আমার। শুধু আমার।

নীলাচল হোটেলের ফোর্থ ফ্লোরের ৪০৮ নম্বর রুমের বিছানা তখন আদিত্য আর রিয়াঙ্কার প্রবল সঙ্গমে থরথর করে কাঁপছে। বিছানার মতোই থরথর করে কাঁপছে আদিত্য আর রিয়াঙ্কা। কারণ সময় হয়ে এসেছে দুজনেরই। আঁকড়ে ধরলো একে ওপরকে। এক ফোঁটা যৌনরসও আজ অবদি আদিত্য আর রিয়াঙ্কা নষ্ট করেনি বাইরে। আজও তাই। একে ওপরের যৌনরসে নিজেদের সঙ্গমযন্ত্রগুলোকে স্নান করিয়ে তবে শান্ত হলো দু’জনে।

কি ভাবছো তোমরা? কে এই রিয়াঙ্কা আর আদিত্য? আদিত্য হলো আদিত্য হাজড়া, বয়স এখন ৩০, প্রাইভেট ফার্মে কর্মরত। আর রিয়াঙ্কা হলো রিয়াঙ্কা ঘোষ, বয়স এখন ৩১, একটি প্রাইভেট স্কুলে পড়ায়। সময়টা আজ থেকে প্রায় ১০ বছর আগের। আদিত্য তখন বিএসসি থার্ড ইয়ারের ছাত্র, বয়স ২০, আর রিয়াঙ্কা এমএসসি ফার্স্ট ইয়ার, বয়স ২১। দু’জনেই তখন হোস্টেল নিবাসী। দু’জনের সম্পর্ক হলো দুজনে মামাতো ভাই-বোন। গ্রামের ছেলে মেয়ে দু’জনেই। বয়সের পার্থক্য কম থাকায় এবং বাড়ি থেকে দূরে একই শহরে দু’জনে দু’টো হোস্টেলে থাকার কারণে দু’জনের মাঝে ভাই-বোনের সখ্যতার চেয়েও বড় হয়ে উঠেছিলো বন্ধুত্ব। দু’জনে একই সাবজেক্টের হওয়ায় সুবিধে বেশী। সেই সময় রিয়াঙ্কার যদিও বয়ফ্রেন্ড ছিলো। তবে মতের অমিল হওয়ায় সম্পর্কটা টেকেনি। ফলতঃ রিয়াঙ্কা বেশীর ভাগ সময় মন খারাপের দেশেই বসবাস করতো।

আদিত্য বরাবরই মেয়ে চাটা। আসলে কিন্তু সমাজের চোখে সে ভদ্র, ট্যালেন্টেড একটা ছেলে, কিন্তু রাতে নিজের রুমে একলা বিছানায় ব্যাচের মেয়ে থেকে শুরু করে পাড়ার বৌদি-কাকিমা বা কলেজের ম্যাম কাউকেই সে কল্পনায় উলঙ্গ করতে ছাড়ে না। আদিত্য এই জিনিসটাকে বলে বন্য প্রেম। যদিও রিয়াঙ্কাকে সে কখনও ওভাবে দেখেনি। ভালো লাগে এই যা। কিন্তু পরিস্থিতি সবসময় এক থাকে না। ব্রেকআপের পর রিয়াঙ্কা একটু আনমনা হয়ে পড়ে। নিয়মিত খাওয়া-পরা হতো না, ফলে কিছুদিনের মধ্যে সে অসুস্থ হয়ে পড়লো। বাড়ির লোকজন চিন্তিত। অতঃপর গুরুজনেরা মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো যে, দু ভাই বোন একসাথে থাকবে। একটা বাড়ি ভাড়া নেওয়া হবে, দুটো রুম। একজন রান্নার লোক রাখা হবে। যেমন সিদ্ধান্ত তেমন কাজ। বাড়ি খোঁজা শুরু হলো। দুই ফ্যামিলিই যথেষ্ট বড়লোক হওয়ায় এদিক সেদিক ঘুরে শেষে একটা ফ্ল্যাটই ভাড়া নেওয়া হলো, থ্রীবিএইচকে। দু’জন দুই রুমে থাকবে। বাড়ি থেকে কেউ এলে অন্য রুমে। দুজনে হোস্টেল থেকে শিফট হয়ে গেলো।

আসল ঘটনার সূত্রপাত ঘটেছিলো সেই সময় থেকেই। দু’দিন পর বাড়ির লোকজন চলে গেলে দু’জনে একা হয়ে পড়লো। এমনিতেই দু’জনের মধ্যে মিষ্টি সম্পর্ক। ফলে পড়াশোনা, ক্লাস, খাওয়া আর প্রচুর আড্ডা। বেশ সময় কেটে যাচ্ছিলো। তবে আদিত্যর একটু অসুবিধে হয়ে গেলো। নিজের রুম থাকলেও হোস্টেল রুমের মতো স্বাধীনতা নেই। রিয়াঙ্কা যখন তখন রুমে এসে পড়ে। দিনে-রাতে। একটু যে আয়েশ করে কাউকে নিয়ে ভেবে গরম হয়ে ঠান্ডা হবে, তার উপায় নেই। ফলে নিজেকে হালকা করতে না পেরে আদিত্য অস্থির হয়ে উঠতে লাগলো। আর নজরও খারাপ হতে শুরু করলো আদিত্যর। রিয়াঙ্কা বাড়িতে খোলামেলা ড্রেসেই থাকতো বেশীর ভাগ। কখনও বা টপ আর হট প্যান্ট, কখনও বা হাটু অবধি লম্বা একটা ফ্রক পড়ে থাকতো ঘরে। যখন লেগিংস পড়ে থাকে রিয়াঙ্কার ভারী থলথলে দাবনাগুলো দেখে আদিত্যর ভেতরটা চিনচিন করে ওঠে। কিন্তু দিদি তো, তাই নিজেকে সামলে নিতো প্রায়ই।

কাজের লোক রাখা হয়েছে, প্রতিদিন সকালে আসে সাড়ে সাতটায়। এসে ঘরদোর পরিস্কার করে দুজনের রান্না চাপায়। দু’জনে খেয়ে বেরিয়ে গেলে কাজের লোকের ছুটি। দুপুরের খাবার দু’জনে প্যাক করে নেয়। সন্ধ্যায় আবার এসে রাতের রুটি করে দিয়ে যায় তনুজা, অর্থাৎ কাজের লোক। বয়স বেশী না ২৮-২৯, অল্প বয়সে বিয়ে হয়, বাচ্চা আছে একটা। স্বামী মাতাল। বাধ্য হয়ে সংসার সামলাতে কাজে নামতে হয়। সপ্তাহে দুদিন আদিত্যর ১২ টায় ক্লাস। সেই দুদিন তনুজা কাপড় চোপড় ধুয়ে দেয়, কারণ আদিত্য দেরীতে বেরোয়। আদিত্যর জাঙিয়ার সাদা সাদা দাগগুলো সাবান দিয়ে ঘষে ঘষে তোলার সময় তনুজার শরীর কেঁপে ওঠে। কি অদ্ভুত সুন্দর গন্ধ। এক অদ্ভুত মাদকতা। কখনও কখনও ওই সাদা জায়গাটা নিজের শরীরে ঘষে তনুজা। এতো কড়া গন্ধ আদিত্যর পৌরুষের। পুরুষের স্বাদ পাওয়া তনুজার শরীর কিলবিল করে ওঠে আদিত্যর পুরুষাঙ্গের বীভৎসতা কল্পনা করে। হয়তো বড্ড বড়। যেভাবে জাঙ্গিয়া ফুলে থাকে। উফফফফ। কাজ করতে করতে আড়চোখে প্রায়ই তাকায় তনুজা।

এদিকে এমনিতেই রিয়াঙ্কার ভরা যৌবন দেখে অবস্থা খারাপ হয় আদিত্যর, তার ওপর তনুজা। তনুজাকে দু’জনেই তনুদি করেই ডাকে। যখন নজর খারাপ হতে শুরু করে তখন সম্পর্ক বা স্ট্যাটাস কোনো কিছুই মাথায় থাকে না। পুরুষের হাত পড়া, এক বাচ্চার মা তনুজার ২৮ বছরের ভরা যৌবনবতী চেহারাটার দিকে স্বভাব বশত ভাবে চোখ চলে যায় আদিত্যর। তনুজা যখন রান্না করে, আদিত্য মাঝে মাঝে ড্রয়িং রুমের সোফায় বসে তনুজার ভারী পাছা দেখে। কেমন অদ্ভুত ভাবে উঁচু হয়ে থাকে উফফফফ। আঁচলের ফাঁক দিয়ে খাড়া বুক নজর এড়ায় না আদিত্যর। আদিত্য মনের দিক থেকে ভীষণ নোংরা আর ভীষণ মেয়ে চাটা হলেও সেরকমভাবে সময় সুযোগ কোনোদিন পায়নি কারও সাথে। যা হয় কল্পনায়। পোষাকের ওপর থেকেই বান্ধবী বা পাড়ার বৌদি-কাকিমা বা কলেজের ম্যাম সবার শরীরের প্রতিটি অঙ্গ কল্পনা করে সে। আদিত্যর মনে হয় অনেক বড়লোকের মেয়ে বউরা তনুজার শরীরের মাদকতার কাছে হার মানতে বাধ্য। সপ্তাহে দুদিন তনুজাও একটু বেশি ছাড় দেয় আদিত্যকে। এমনিতে কাজের সময় আঁচল গুটিয়ে পেট ঢেকে রাখলেও রিয়াঙ্কা বেরিয়ে যাবার পর আঁচলটা ছেড়ে দেয় তনুজা। আদিত্য হাঁ করে তাকিয়ে দেখে তনুজার ফর্সা মসৃণ পেট। তনুজা আদিত্যর পাগল করা চোখের দৃষ্টিতে অস্থির হয়ে ওঠে। আদিত্যর জাঙিয়ার কথা মনে পড়ে যায়। অস্থিরতা কাটাতে বাথরুমে ছুটে যায়৷ সাদা দাগযুক্ত জায়গাটা শাড়ি তুলে চেপে ধরে ঘষতে থাকে দু’পায়ের ফাঁকে। ইচ্ছে ভীষণ প্রবল হয়ে ওঠে তনুজার কিন্তু সাহস হয় না। কিজানি কিভাবে নেবে আদিত্য সে অ্যাপ্রোচ করলে? রিয়াঙ্কা টের পেলে কি হবে? তার কাজটা থাকবে না। তাই ইচ্ছে প্রবল হলেও নিজেকে দমিয়ে রাখে তনুজা। নিজেকে ঝরিয়ে দিয়ে আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসে বাথরুম থেকে। তারপর ঘরের কাজ সামলে বেরিয়ে যায়।

চলবে…..

আরো খবর  রঙ নাম্বার পর্ব – ১২