ছেলেকে ফিরিয়ে আনা

রাত্রি আন্দাজ এগারটা, শ্রাবনের অঝোর ধারায় বৃষ্টি চলেছে সকাল থেকে. রাহুল বিছানায় এসে শুল, ওপাশে বোন নিশা ঘুমাচ্ছে বয়স চৌদ্দ মাস. রাহুলের মা মানসী দেবী এখনো আসেননি. রাহুল শুয়ে শুয়ে পারমিতার কথা ভাবছিল. পারমিতা রাহুলের গার্লফ্রেন্ড ছিল, দিন পনের হল ব্রেকআপ হয়েছে. কিন্তু ও ছাড়তে চায়নি পারু কে. ছোটবেলা থেকেই ওরা এক স্কুলে পড়েছে তাই প্রেমটা যে ঠিক কতদিনের তা বলা যায় না. যাই হোক সিদ্ধান্ত টা যখন ওর ই ছিল তখন আর কাউকেই বা কি বলার আছে. এমন সময় দরজাটা বন্ধের শব্দ শোনা গেল. রাহুল চোখটা বন্ধ করে ঘুমের ভান করে পরে রইল. বছর ছত্রিশ এর মানসী দেবী বিছানায় উঠে এলেন. মানসী দেবী অপরূপ সুন্দরী নন, কিন্তু তার চেহারায় কোথায় যেন এক এমন আকর্ষণ আছে যার জন্য দশ জনের মধ্যে তাকে আলাদা ভাবে চোখে পরে. উনি বিছানায় উঠেই মশারি ভাল করে গুঁজতে লাগলেন. রাহুলের ওপর দিয়ে হামাগুড়ি দিয়ে ওই সাইডের মশারি টা গুঁজতে যাওয়ার সময় তার বাতাবিলেবুর মতো দুদু দুটো রাহুলের মুখের সামনে এসে ঠেকল. উফফফ পুরো দুধে ভরা মায়ের বুকদুটো. রাহুল ইচ্ছা করেই নাক দিয়ে একটু গুঁতো মারল মায়ের নরম তুলতুলে দুদুতে. “উফফফ একটু সহ্য হয় না নারে তোর,,,,,অসভ্য ছেলে একটা…”প্রশ্রয় মেশানো বিরক্তি শোনা গেল মানসী দেবীর গলায়.রাহুল কোনো কথা না বলে পাশ ফিরে শুল.

কিছুক্ষণ পর সব কিছু গুছিয়ে বিছানায় এল রাহুলের মা, বিছানা থেকেই সুইচ অফ করে দিল লাইট এর. সারা ঘরে নেমে এল নিশ্ছিদ্র অন্ধকার. মানসী দেবীর পরনে পাতলা সুতির শাড়ি, ব্লাউজ, ব্রা খুলে এসেছেন, রাতে ব্রা পরা পছন্দ করে না রাহুল. ওর নাকি অসুবিধা হয় , দুধ খেতে. মানসী দেবীর শরীরের গঠন একটু ভারীর দিকে. কিন্তু তার স্তন দ্বয় খুব সুন্দর. এখন বুকে দুধ আসার পর তো আরো সুন্দর হয়েছে, বোঁটা গুলো সবসময় খাড়া হয়ে থাকে. রাহুলের ঘুম আসেনি, সুন্দর গন্ধ আসছে মায়ের শরীর থেকে. এই সেন্টটা রাহুলের খুব প্রিয়. তাই ওর মা রাতে শোয়ার সময় মেখে আসে. রাহুল এবার উল্টো দিকে মুখ ঘুরিয়ে শুল. মা এর ওপর একটু অভিমান হয়েছে, যদিও সে জানে, এই অভিমান বেশিক্ষণ থাকার নয়. প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই মানসী দেবী রাহুল কে জড়িয়ে ধরলেন পেছন থেকে.”আমার সোনাটা কি রাগ করেছে??”

মানসী দেবীর গলায় সোহাগের ছোয়া.. সঙ্গে সঙ্গেই রাহুল এপাশে ঘুরে মায়ের বুক কামড়াতে লাগল ব্লাউজের উপর দিয়েই. ‘ এই বেয়াদব ছেলে মায়ের দুদু দুটো পেলে আর কিছু চাই না, নারে তোর?? ব্লাউজ ছিঁড়বি নাকি?” বলেই ব্লাউজ উল্টে একটা মাই বার করল ওর মা. রাহুল সঙ্গে সঙ্গে খপ করে কাল জামের মত দুদুর বোঁটাটা কামড়ে ধরল. “উফফফ…. রাক্ষস একটা, আমার এই নরম দুদু দুটোর ওপর এত অত্যাচার করিস কেন?? একটু রয়ে সয়ে খেতে পারিস না. তোর জিনিস কি অন্য কেউ নিয়ে যাবে?” হিসিসিয়ে বলে উঠল রাহুলের মা মানসী দেবী. “আস্তে আস্তে রসিয়ে রসিয়ে টান সোনা.”

মানসী দেবী রাহুলের মাথার চুলে বিলি কেটে দিতে দিতে বললেন. রাহুল কোনো কথা না বলে চো চো করে মায়ের বুক টানতে লাগল. অদ্ভুত প্রশান্তি আজ মানসী দেবীর মনে. তার বুকের ছেলে আবার তার বুকেই ফিরে এসেছে. এই প্রশান্তি শুধু নিজের ছেলেকে আবার ফিরে পাওয়া নয় এ প্রশান্তি ইগোর লড়াইয়ে হাঁটুর বয়সী একটা মেয়েকে হারানোর ও. পারমিতার সাথে রাহুলের প্রেম কোনো দিনই মেনে নিতে পারেননি তিনি বা রাহুলের বাবা. রাহুলের বাবা মার্চেন্ট নেভিতে চাকরি করেন নমাসে ছমাসে একবার বাড়ি আসেন, কিন্তু যেদিন রাহুলের প্রেমের ব্যাপার বাড়িতে জানা জানি হল, রাহুলের বাবা ওনার স্ত্রীর ওপর বেশি অসন্তুষ্ট হয়েছিলেন. তার অবর্তমানে ছেলেকে ঠিক মতো মানুষ করতে পারেননি মানসী দেবী এই ছিল অভিযোগ. এমন কি পরের বার বাড়িতে আসার আগে ছেলেকে যেকোন মূল্যে এই পথ থেকে ফিরিয়ে আনার নিদান দিয়েছিলেন তিনি. গভীর চিন্তায় মানসী দেবীর রাতের ঘুম নষ্ট হয়ে গিয়েছিল. নরমে গরমে কোনো ভাবেই বুঝিয়ে যখন কোনো কাজ হচ্ছিল না. মানসী দেবী তখন চরম পথ টি বেছে নিলেন. প্রথমে মনে অনেক দ্বিধা দ্বন্দ কাজ করেছিল, কিন্তু নিজের ছেলেকে বাঁচাতে এই একটি পথই খোলা ছিল তার কাছে. তিনি জানেন ওর ছেলের কত লোভ ওর বুক জোড়ার ওপর.

তিনি ঠিক করলেন এই শরীরের লোভ দিয়েই ওই শুটকি মাগীর কাছ থেকে নিজের ছেলেকে ফিরিয়ে আনবেন. পরদিন থেকেই তিনি আস্তে আস্তে তার জাল বিছানো শুরু করলেন, রাহুলের সামনেই যখন তখন মেয়েকে উদলা বুকে মাই খাওয়াতেন মানসী দেবী. তার ওই সুডোল ফর্সা স্তন তার ওপর কাল জামের মতো বোঁটা যেকোন সাধু সন্ন্যাসীদের পাগলা করে দিতে পারে, রাহুল তো বাচ্চা ছেলে. মানসী লক্ষ্য করতে লাগল রাহুল ধীরে ধীরে তার শরীরী মায়াজালে জড়াচ্ছে. এর মধ্যে আবার রাহুলের শোয়ার ঘর রং করার জন্য ওকে মা বোনের সাথে এক বিছানায় শুতে হয়েছিল. মানসী দেখলো এই সুযোগে মাছ ছিপে তুলতে হবে. সে রোজ পাতলা সুতির একটা কাপড় গায়ে জড়িয়ে শুতে যেত. ও লক্ষ্য করত কিভাবে রাহুল ওর বুকের দিকে ড্যাব ড্যাব চোখে তাকিয়ে থাকত. আর অপেক্ষা করত কখন ওর মায়ের বুক থেকে পাতলা কাপড় একটু সরে যাবে আর মায়ের ফর্সা স্তনটা একটু দেখতে পাবে. মানসী রোজ রাতে বিছানায় উঠেই মেয়েকে বুকের দুধ খাওয়াত তারপর রাহুলের মাথা টিপে দিত, চুলে হাত বুলিয়ে দিত. আবার কখনো খোলা পিঠে নখ দিয়ে খুটে দিত. রাহুল বেশ আরাম পেত,,, মাকে মাঝে মাঝে জড়িয়ে ধরত, তখন মা এর ডবকা দুধ গুলো ওর বুকে পিষত,,, ও আরো জোরে মাকে জড়িয়ে ধরত. মানসী বুঝতে পারত ওর নিজের ছেলে ওর শরীরের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে. এই সময় ও বলত “বাবা, তুই ওই বাজে মেয়েটির কাছ থেকে ফিরে আয়, তোকে আমি কি কম ভালোবাসি বাবা? ” রাহুলের মন খারাপ হয়ে যেত ,, পারমিতাকে ঠকানোর কথা ও স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারত না .কিন্তু বান্ধবীর প্রতি প্রেম এক জিনিস আর এমন ডবকা যুবতী নারী শরীরের মোহ অন্য জিনিস. প্রেম ভুলে শরীরী মায়াজালে জড়িয়ে যেতে রাহুলের বেশিদিন লাগল না.

এমনি এক আবেগঘন মুহূর্তে রাহুল একদিন হাত বাড়াল ওর মায়ের পুরুষ্ঠ স্তনে, পাতলা সুতির কাপড়ে ঢাকা, ব্লাউজ পড়া নেই. খাড়া বোঁটাটা হাতে লাগল. সঙ্গে সঙ্গে মানসী দেবী ছেলের হাত নিজের স্তন থেকে সরিয়ে দিলেন. “না সোনা দুটো জিনিস তো একসাথে হবে না. এটা পেতে গেলে তোমায় পারমিতা কে ছেড়ে আসতে হবে…” রাহুল বাধ্য হয়ে রাজি হল. ঠিক হল কাল থেকেই ও পারমিতার সাথে ব্রেক আপ করবে, কিছুদিন পর মানসী দেবী নিশ্চিত হলে রাহুলকে কাছে টেনে নেবেন. এভাবে কিছু দিন গেল ….. পারমিতার সাথে ব্রেক আপ হয়েছে বেশ কিছুদিন. কিন্তু মায়ের দিকে থেকে কোনো সাড়া পেল না রাহুল. রোজই মা বোনকে মাই খাওয়াতে খাওয়াতে ঘুমিয়ে পড়ে. না পেরে একদিন বলেই বসল,,, ” মা….. আমায় কি দেবে না.??” “কি দেব রে তোকে,, দামড়া ছেলে একটা!!! এই বয়সে বাবুর আবার মা এর বুক টানার শখ হয়েছে??” তুমি কিন্তু কথা দিয়েছিলে…” “ওটা তো তোর জীবন বাঁচানোর জন্য…..” আর কোনো কথা রাহুলের কানে গেল না, ও প্রতারিত হয়েছে,,,, তাও আবার নিজের মা এর কাছে…..কোনো কথা না বলে অন্যদিকে ফিরে শুল রাহুল চোখ দিয়ে ঝরঝর করে জল ঝরছে. সেটা কতটা মায়ের কাছে প্রতারিত হওয়ার দুঃখে, কতটা পারমিতা কে ঠকানোর দুঃখে ,সেটা শুধু সেই জানে. এমন সময় মানসী দেবীর কন্ঠ সোনা গেল,” কিরে সোনা ঘুমিয়ে গেলি নাকি??? রাহুল কোনো উত্তর দিলো না,”নে অনেক হয়েছে এবার এদিকে ফের, সেই ছোটবেলার মতো মায়ের দুদু খা. ” চমকে উঠল রাহুল. এর মানে মা তার কথা রাখবে. সে ঝট করে ঘুরে গেল মা এর দিকে. পাতলা শাড়ির ওপর দিয়ে বোঁটা খাড়া হয়ে আছে. ও কাপড় টা সরাল,,, সেই প্রথম মা এর বুক দেখল সামনে থেকে. উফফ কোনো নারীর স্তন এত সুন্দর হতে পারে? পারমিতার মাই কয়েক বার টিপেছে রাহুল পার্কে গিয়ে বা সিনেমা দেখতে গিয়ে কিন্তু ওর বুকের সাথে ওর মায়ের বুকের কোনো মিল নেই, আজ ও সত্যিই সুখী, প্রেম ছেড়ে আসার কোনো কষ্টই আর ওর মধ্যে রইল না. মানসী এবার একটু খোঁচা মেরেই বলল “কি মায়ের বুক পছন্দ হয়নি বুঝি..?” রাহুল চোখ বন্ধ করে মুখ ডোবাল মায়ের নরম স্তনে. চুকচুক করে টানতে থাকল মায়ের নরম বুক. মায়ের বুকের অমৃত সুধা তার কলিজা জুড়িয়ে দিচ্ছিল. এভাবে প্রতি রাতে রাহুল চুষে চুষে খেত ওর দুগ্ধবতী মাকে. দিনের বেলায় অবশ্য ওরা স্বাভাবিক আচরণই করত. এসব সাতপাঁচ ভাবতে ভাবতে একটু অন্যমনস্ক হয়ে পড়েছিল মানসী. সম্বিৎ ফিরল স্তনের বোঁটায় ছেলের কামড় খেয়ে. “উফফফফ, তোকে হাজার দিন বলেছি না, বোঁটায় কামড় দিবি না. এমনি করলে আর কিন্তু মাই দেব না বলে দিলাম.” “ইসস দেবনা বললেই হবে?? জোর করে কামড়ে খাব তোমার দুধ.” “এই তোর লজ্জা করে না???? দামড়া ছেলে এখনো মায়ের দুধ খাস.”…..আলহাদের সুরে বলল মানসী. “মায়ের দুধ যদি ছেলেই না খেতে পারে তবে ওটার আর কাজ কি?…..বলে উঠল রাহুল.

আরো খবর  পারিবারিক মধু পান সবাই মিলে