এক অসম্ভব পরকীয়ার কাহিনী – ২

আগের পর্ব

পরের দিন সকাল ১০টা :

“গুড মর্নিং ! আপনার জন্য চা নিয়ে এসছি। ”

“আপনি ? অনিমেষ কোথায় ?”

“উনি তো সকাল সকালই দার্জিলিঙের জন্য বেরিয়ে গেছেন। আমি গাড়ির ব্যবস্থা করে দিলাম। রাস্তা এখন ক্লিয়ার হয়েগেছে। উনি বললেন অফিসের কাজে বেরোচ্ছেন , সন্ধ্যা নাগাদ চলে আসবেন। আপনি ঘুমোচ্ছিলেন বলে আপনাকে ডিস্টার্ব করেন নি। ”

রুহি এসব শুনে উদাস হয়েগেলো। ভাবলো অনিমেষ কি আদেও বেড়াতে এসছে নাকি শুধু অফিসের কাজই করতে এসছে।

“আই এম সরি। ”

আশুর দুঃখপ্রকাশে রুহির ভাবনা ভাঙলো। রুহি পাল্টা আশু কে জিজ্ঞেস করলো সে কেন দুঃখ প্রকাশ করছে রুহির কাছে।

আশু জবাব দিলো , “কালকে আমার কথাগুলো যদি আপনার খারাপ লেগে থাকে , তাহলে তার জন্য আমি আপনার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। আসলে আমার মাথা তখন আর কোনো উপায় খুঁজে পাচ্ছিলো না এই সমস্যার। তাই বলে ফেলেছি। কিছু মনে করবেন না। ”

“না না , ঠিক আছে।”

“আচ্ছা যদি আপনি চান তাহলে আমি আপনাকে এখানকার সাইড সীন গুলো ঘুরিয়ে নিয়ে আনতে পারি। আমি বুঝতে পারছি আপনি খুব উদাস হয়েগেছেন আপনার স্বামীর কাজে চলে যাওয়াতে। তাছাড়া আপনি সারাদিন করবেনই বা কি এখানে বসে থেকে। তার চেয়ে চলুন বেড়িয়ে আসি। আপনার মনটাও ভালো হয়ে যাবে। ”

রুহি একটু চিন্তা করতে লাগলো। সে যে পাহাড়ে নিজের স্বামীর সাথে ঘুরতে এসছে। একজন পরপুরুষের সাথে বেড়োতে স্বভাবতই তার কুন্ঠা বোধ হচ্ছে।

“দেখুন আপনি যদি আমার সাথে বেড়োন তবেই বুঝবো আপনি আমাকে ক্ষমা করতে পেরেছেন। ”

“আপনাকে আলাদা করে ক্ষমা করার কি আছে। আপনি তো কোনো অন্যায় করেননি। আপনার যেটা মনে হয়েছে সেটাই বলেছেন আমাকে কালকে। ওসব আমি কল্পনাও করতে পারিনা , সেটা অন্য ব্যাপার। কিন্তু আপনি তো কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে এসব বলেননি , যে আমি আপনাকে ভুল বুঝতে যাবো। ”

“বেশ। তাহলে রেডি হয়ে নিন।”

“হুমঃ। …… ঠিক আছে। ”

“আমরা তাহলে ব্রেকফাস্ট করেই বেড়িয়ে পড়ছি ?”

“ওকে। ..”

আশু রুহিকে নিয়ে কার্শিয়াং এর সাইড সিন্ দেখাতে বেরোলো। সারাদিন তারা ঘুরলো। লাঞ্চ আর টুকিটাকি খাবার বাইরেই খেলো। অনিমেষের অনুপস্থিতি যেন আশু বুঝতেই দিলোনা রুহি কে। রুহিও আশুর সাথে খুব কমফোর্টেবল হয়েগেছিলো। একজন ভালো বন্ধু হিসেবে দেখতে লেগেছিলো। কারণ আশু ওকে অনেক অনেক কথার মধ্যে এংগেইজ করে রেখেছিলো। ওরা সন্ধ্যের আগেই কটেজ এ ফিরে এলো। অনিমেষের ফিরতে ফিরতে রাত হয়েগেলো।

রাতে ডিনারের পর রুহি একজন সৎ আদর্শবতী পত্নীর মতো নিজের স্বামীকে সব খুলে বললো যে ও আজ আশু বাবুর সাথে বেড়িয়েছিল কার্শিয়াঙের সাইড সিন্ দেখতে। অনিমেষ রাগ করার বদলে উল্টে বললো , “এ তো বেশ ভালোই হলো , তোমার কার্শিয়াং দেখা হয়েগেলো। দিনটা ওয়েস্ট গেলো না।”

রুহি অবাক হলো অনিমেষের এরূপ প্রতিক্রিয়া দেখে। সে ভেবেছিলো অনিমেষ হয়তো রাগ করবে , কিন্তু সে তো শুধু লাভ ও লোকসানের কথাই ভাবলো। তার কাছে টাইম ইস মানি বাট ওয়াইফ ইস নাথিং !!

রুহি জিজ্ঞেস করলো কবে তারা দার্জিলিং যাচ্ছে , এখন তো রাস্তা ক্লিয়ার। তাদের তো সেখানেই যাওয়ার কথা ছিল। জবাবে অনিমেষ জানালো তাদের আর দার্জিলিং যাওয়ার দরকার নেই। তারা এখান থেকেই সবজায়গা যেতে ও ঘুরতে পারবে। ফালতু ফালতু কেন তারা এই বিনা পয়সার আশ্রয় ছেড়ে দার্জিলিঙের কোনো এক হোটেলে উঠতে যাবে। রুহি বুঝলো অনিমেষের কাছে টাকা ও টাকা সাশ্রয় করাটা কতোটা ইম্পর্টেন্ট।

অনিমেষ আজকে খুব টায়ার্ড ছিল , তাও সে রুহির সাথে রুটিন সেক্স করতে চাইছিলো। রুহিও বুঝেছিলো অনিমেষকে বাধা দিয়ে লাভ নেই। সে যেটা মনোস্থির করে সেটা সে করবেই , তাতে রুহির যতোই অনিচ্ছা থাকুক না কেন। অনিমেষ রুহিকে বিছানায় ফেললো। তারপর ধর্ষকের ন্যায় নিজের স্ত্রীয়ের যোনি খুঁড়ে খুঁড়ে চুদতে লাগলো। রুহি যেন জীবন্ত লাশের মতো অনিমেষের সবরকম শারীরিক যাতনা সহ্য করতে লাগলো। কারণ সে জানে এতো কিছু করেও অনিমেষ নিজের আশানুরূপ ফল পাবেনা। আর অনিমেষের এই যৌন অত্যাচার চলতেই থাকবে। তাই এখন থেকেই সে নিজের সহ্য শক্তি আরো বাড়িয়ে রাখছে ভবিষ্যতের ভবিতব্যের জন্য।

রাত তখন ১২টা বাজে ,

অনিমেষের যৌন ঝড় নিজের চরম সীমায় এসে থেমে গ্যাছে প্রায় আধ ঘন্টা হয়ে গেলো। অনিমেষ এখন চিত হয়ে ঘুমোচ্ছিলো। রুহির চোখে ছিলোনা ঘুমের কোনো চিহ্ন। রুহির মাথা খুব ধরে ছিল। আজকেও ঘরেতে জল ছিলোনা। সে বিছানা থেকে উঠে সিঁড়ি দিয়ে নেমে নিচে গেলো। রুহি আপন চিন্তায় এতো বিভোর ছিল যে তার খেয়ালই ছিলোনা সে শুধু নিজের শরীরে ব্লাঙ্কেট জড়িয়ে ঘর থেকে বেড়িয়ে এসছে। গোঁদের উপর বিষফোঁড়া সে এটাও জানতো না যে আশু এখনো জেগেই রয়েছে।

আশুর ঘরের পাশ দিয়ে যেতেই রুহির চোখ পড়লো সেখানে। সে দেখলো আশু পুরো নগ্ন হয়ে একটি ছবির সামনে উপুড় হয়ে শুয়ে বালিশে ভর দিয়ে নিজের পুংলিঙ্গ কে বিছানার সাথে রগড়ে যাচ্ছে ! এই দৃশ্য দেখে রুহি যেন ৪৪০ ভোল্টের কারেন্ট খেলো। সে এমনভাবে চমকে উঠলো যে তার চমকে ওঠার আওয়াজ আশুর কান অবধি পৌঁছলো। আশুর চোখ রুহির উপর পড়তেই রুহি আরো নার্ভাস হয়েগেলো। সে তাড়াতাড়ি সেখান থেকে বেরোতে গিয়ে টেবিলের সাথে ধাক্কা খেয়ে পড়ে গেলো। সঙ্গে সঙ্গে তার ব্লাঙ্কেট-টাও শরীর থেকে খুলে গেলো। রুহি বুঝতে পারলো সে এক অসম্ভব লজ্জাজনক পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছে , যা সে কোনোদিনও কল্পনাও করতে পারেনি। একজন পরপুরুষের সামনে বস্ত্রহীন হয়ে পড়া ! ছিঃ ছিঃ ছিঃ , এ তো ভাবাই যায়না !! বিশেষ করে রুহির মতো মেয়ের পক্ষে।

আশু পরিস্থিতি বুঝে খুব স্মার্টলি ব্যাপারটা ট্যাকেল করলো। সে সঙ্গে সঙ্গে একটা চাদর নিয়ে রুহির দেহটা কে ঢেকে দিলো। নিজেও একটা তোয়ালে কোমড়ে জড়িয়ে নিলো।

“রিল্যাক্স। কিচ্ছু হয়নি। আমি কিচ্ছু দেখিনি। ভয় পাবেন না , আর লজ্জা পাওয়ারও দরকার নেই। মনে পাপ না থাকলে , কোনোকিছুই অশোভনীয় নয়। আপনি আস্তে আস্তে চাদরটা জড়িয়ে উঠুন”, আশু আশ্বস্ত করলো রুহিকে।

রুহি ধীরে ধীরে উঠলো। সে কিছু বলে ওঠার আগেই আশু বললো , “জানি আপনার মনে এখন প্রশ্নের ঝড় উঠেছে। তার উপর আপনি বেশ অউকওয়ার্ড সিচুয়েশনে পড়ে গ্যাছেন। আপনি আগে একটু রিল্যাক্স হোন। বসুন এখানে।”

এই বলে আশু একটা চেয়ার এগিয়ে দিলো রুহির দিকে। রুহি বসলো, তারপর অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো , “আপনি এটা কি করছিলেন ?”

আশু একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললো , “যেই ছবিটা দেখে আমি আমার শারীরিক চাহিদা পূরণ করছিলাম , সেই ছবিটা আর কারোর নয় , আমার প্রথম ও শেষ প্রেম অনিতার। এই ছবিটা আমি নিজের হাতে এঁকেছিলাম। আপনাকে বলেছিলাম না যে আমার জীবনকাহিনীর অনেক শাখা-প্রশাখা , ডালপালা রয়েছে। বন্ধুত্ব হলে আপনি আরো গভীরে যেতে পারবেন আমার জীবনের। আজকে আপনার সাথে ঘুরে আমার বেশ ভালোই লেগেছে। আপনাকে একজন বিশ্বস্ত বন্ধু হিসেবে মানাই যায়। তাই আপনার উপর বিশ্বাস করে নিজের জীবনের কথা বলাই যায়। তার আগে আপনি কি একটু জল পান করবেন ? আপনাকে দেখে খুব ভীত ও সন্ত্রস্ত লাগছে। ”

“না না , আমি ঠিক আছি। আপনি বলুন। ”

“একটি ছবির এক্সহিবিশনে আমার সাথে দেখা হয়েছিলো অনিতার। সেখান থেকে আলাপ , তারপর বন্ধুত্ব। বন্ধুত্ব সম্পর্কের দিকে গড়ালো তো বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পরিকল্পনা করলাম দুজনে। সেও ঠিক আপনার মতোই ছিল। খুব লাজুক , ঘরোয়া , অপরিচিত ব্যক্তিদের সাথে কম কথা বলতো , ইন্ট্রোভার্ট। এবং আপনার মতোই সামাজিক অনেক নিয়ম ও রক্ষনশীলতা মেনে চলতো। এই যেমন ধরুন , সে ঠিক করেই নিয়েছিল যে বিবাহপূর্বে সে কোনোরকমের শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হবেনা। কুমারীত্ব সে বিয়ের পরেই ঘোচাবে। কিন্তু আফসোস , সেটা আর হলোনা। ”

“মানে ?”

“বিয়ের প্রথম রাতে আমি ওর এই নগ্ন পেইন্টিং টা বানিয়েছিলাম। আপনারা যেই রুমে এখন থাকছেন , সেখানেই এই পেইন্টিং টা বানানো। সেই রুমেই আমাদের ফুলশয্যা হওয়ার কথা ছিল। বিয়ের পর আগামী তিনদিনের সব প্ল্যান সর্টেড ছিল। আমাদের প্রথম সেক্স কে আমরা স্মরণীয় করে রাখতে চেয়েছিলাম। তাই ধাপে ধাপে এগোচ্ছিলাম। প্রথম রাতে তাই ওকে নগ্ন করে ওর ছবি আঁকলাম। পরদিন ঠিক ছিল একসাথে বাথরুমে স্নান করে মিলিত হবো। দুই শরীর এক আত্মায় পরিণত হবে। কিন্তু তার আগেই ……..”, এই বলে আশু কেঁদে ফেললো।

“কিন্তু তার আগেই কি ? আশু বাবু। …..”

আশু চোখের জল মুছতে মুছতে বললো , “কিন্তু তার আগেই সবকিছু ওলট-পালট হয়েগেলো।”

“কিভাবে ? আর কিই ওলট-পালট হলো ?”

“সকালে আমরা এক মনোরম পরিবেশে একটু ঘুরতে বেড়িয়েছিলাম। ফেরার পথে রাস্তা পেরোতে গিয়ে একটা গাড়ি এসে ধাক্কা মারে। তারপর তিন দিন আমার কোনো জ্ঞান আসেনি। যখন জ্ঞান ফিরলো , নিজেকে হসপিটালের বেডে পেলাম , শুনলাম আমার অনিতা এই পৃথিবীতে আর নেই।”

এই বলে আশু ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে লাগলো। আশুর কথা শুনে রুহিরও খুব খারাপ লাগলো। সে বুঝতে পারছিলোনা এরকম পরিস্থিতিতে সে কিভাবে আশুকে শান্ত্বনা দেবে।

আশু আরো বলতে লাগলো, “ভেবেছিলাম যে তিন দিন আমার জীবনের সবচেয়ে সুখকর তিন দিন হবে , সেই তিন দিন আমার জীবনের সবচেয়ে কষ্টকর তিন দিনে পরিণত হলো। তাই বলি মানুষের জীবন কখন কোন বাঁক নেয়, কিচ্ছু বলা যায়না। অনিতার সাথে মধুচন্দ্রিমা করা আমার হলোনা। নিজের ভালোবাসার মানুষের সাথে সঙ্গমে লিপ্ত হতে পারলাম না। স্বপ্ন অধরাই থেকে গেলো। এই পৃথিবীতে যে যেটা চায় , সে সেটাকেই প্রথমে হারায়। আপনি নিজের অবস্থাটাই দেখুন একবার। আপনি মা হতে চান , মা হতে পারবেনও। কিন্তু আপনার কাছে মাতৃত্বের স্বাধ নেওয়ার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ নিজেকে এক আদর্শ পতিব্রতা স্ত্রী হিসেবে প্রমাণ করা।”

“আপনি ঠিক কি বলতে চাইছেন ?”

“সেটাই , যেটা আপনি শুনতে চাইছেন না।”

“মানে ?”

“মানে আবার কি। আপনাকে তো কালকেই আপনার সমস্যার সমাধান খুঁজে দিলাম। সেটা শুনে তো আপনি একপ্রকার তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলেন।”

“আচ্ছা ধরুন আমি আপনার কথা মেনেও নিলাম। তাহলেও কে আছে যে আমার জন্য নিঃস্বার্থ ভাবে কোনোরকম কোনো কামুকচাহিদা না রেখে আমাকে সাহায্য করবে ?”

“আপনি খুঁজলেই পেতে পারেন এমন কাউকে। অসম্ভব কোনো কিছুই নয়। ”

“নাহঃ। আপনার সমাধান শুনতে ও বলতে ভালো লাগে , কিন্তু বাস্তবে এ অসম্ভব। ”

“অসম্ভব নয়। একটা সত্যি কথা বলবো। কিছু মনে করবেন না তো ?”

“বলুন। ”

“আপনার স্বামী অনিমেষের শুধু পয়সা চাই , ভালোবাসা নয়। তাই তো সে ঘুরতে এসেও কাজের জন্য আপনাকে ছেড়ে দার্জিলিং চলে যাচ্ছে। আর আমার কাছে অঢেল পয়সা আছে , কিন্তু ভালোবাসা নাই। তাই জন্যই তো বললাম মানুষ যেটা চায় সেটাই মানুষ পায়না। কারণ আমরা নিজের তৈরী করা নিয়মের বেড়াজালে ফেঁসে যাই সবসময়ে। মিথ্যে বলবোনা , সত্যি বলছি , আপনার সামনেই বলছি , কোনো রাখঢাক না রেখেই, যে আমার আপনাকে ভালো লাগে। আপনার মধ্যে আমি অনিতা কে খুঁজে পেয়েছি। আপনাকে দেখতে ঠিক অনিতার মতোই। তাই যখন আপনারা আমার বাড়ির দোরগোড়ায় এলেন এই অচেনা জায়গায় আশ্রয়ের খোঁজে , আমি বিনা শর্তে রাজি হয়েগেলাম আপনাদের থাকতে দিতে। নাহঃ , আমার কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নেই আপনাকে নিয়ে। আপনাকে শুধু দূর থেকে চোখ ভোরে দেখতে চেয়েছিলাম , কারণ আপনি ঠিক আমার অনিতার মতোই সুন্দরী , রূপবতী। ”

আশুর কথা শুনে রুহী একটু হকচকিয়ে গেলো। আশু সেটা বুঝতে পেয়ে ওকে আশস্ত করার চেষ্টা করলো।

“আমার কথা শুনে ভয় পাবেন না। আমার ফিলিংস টা একটু বোঝার চেষ্টা করুন। আমি কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে এসব কথা বলছি না। আমি চাইলেই এই মুহূর্তের ফায়দা তুলতে পারতাম। কিন্তু আমি সেটা করবো না , কখনোই করবো না। হ্যাঁ , অনিতার সাথে বহুকাঙ্খিত সেক্স টা আমার আর হয়নি। তারপর কোনো মেয়েকেও আমি আমার জীবনে নিয়ে আনিনি। আপনার মতো আমিও অনেক দিক দিয়েই অতৃপ্ত। আমরা চাইলেই একে অপরের বহুদিনের চাহিদা পূরণ করতেই পারি। আপনি আপনার মাতৃত্বের স্বাধ পেতে পারেন , আর আমি আমার ভালোবাসার। হোক না তা একদিনের জন্য। কিন্তু সেটা হবে কি হবেনা তা আমি আপনার উপর ছেড়ে দিলাম। আপনার অনিচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে আমি আপনাকে টাচ পর্যন্ত করবো না। এইটুকু কথা আমি দিতে পারি আপনাকে। ”

আশু আরো বললো , “আপনার স্বামী আপনার কাছ থেকে শুধু একটা বাচ্চা চায়। আপনি যদি মা হতে পারেন তাহলে রোজকার এই বৈবাহিক নির্যাতন থেকে আপনি মুক্তি পাবেন। আপনার শশুড়বাড়ির লোক উঠতে বসতে যে আপনাকে কথা শোনায় তার থেকেও রেহাই পাবেন। এবার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পালা আপনার , আপনি কি করবেন। হাতে সময় খুব কম। যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার , দয়া করে তাড়াতাড়ি নেবেন। আপনার একটা ছোট্ট অথচ সাহসী সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে আপনার আগামী দিনের জীবন। ক্ষনিকের পাপ করে কি সারাজীবনের জন্য সুখী হতে চান , নাকি আদর্শ বউয়ের পর্দা নিজের শরীরে জড়িয়ে সারাজীবন লাঞ্ছনার সম্মুখীন হতে চান। ভয় নেই , যদি আমাদের মধ্যে কিছু হয় , তা হবে আপনার স্বামীর অগোচরেই , তার নিরাপদ গ্যারান্টি আমি আপনাকে দিচ্ছি। সে জানবে সন্তানটির বাবা সে নিজেই। ভাবুন কি করবেন। ”

“নাহঃ , আমি আমার স্বামীকে ঠকাতে পারবোনা। কিছুতেই পারবো না। তার জন্য যদি সারাজীবন আমাকে এরূপ লাঞ্ছনা সহ্য করে যেতে হয় , আমি রাজি আছি। কিন্তু এসব ভাবনা আমি আমার কল্পনাতেও আনতে পারিনা। নাঃ , কিছুতেই পারিনা। ”

“ঠকাচ্ছে তো অনিমেষ তোমাকে। ও তোমার সাথে ঘুরতে এসে , কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়লো। অ্যাফেয়ার তো ও করছে নিজের কাজের সাথে , তোমাকে সময় না দিয়ে। ও খুব ভাগ্যবান তোমার মতো আদর্শ বউ পেয়ে , কিন্তু তুমি , অভাগী , সবচেয়ে বড়ো অভাগিনী , এরকম একজন পত্নীবিমুখ স্বামী পেয়ে। যাই হোক , আমার যা বলার আমি বলে দিলাম । এবার তুমি কি করবে না করবে সেটা তোমার ব্যাপার। রাত অনেক হয়েছে , এবার ঘুমোতে যাও। জানিনা আর কতোদিন আছো তোমরা। অনিমেষের অফিসের কাজ শেষ তো তোমারও এই সো কল্ড ট্যুর শেষ। যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার , তাড়াতাড়ি নিও , ভেবেচিন্তে নিও। অনিমেষ এখন গভীর নিদ্রায় মগ্ন। আমি চাইলে এর সুযোগ নিতেই পারতাম। কিন্তু আমি আমার নয় , তোমার ভালোর কথা ভাবছি , শুধু তোমার। ….. যাই একটু জল খেয়ে এসে ঘুমোতে যাই। গুড নাইট। ”

এই বলে আশু জল খেতে রান্নাঘরের দিকে যাচ্ছিলো কি তক্ষুনি ভুলবশত আশুর তোয়ালে টা অসুর কোমড় থেকে খুলে গেলো , এবং সে নগ্ন হয়েগেলো। সঙ্গে সঙ্গে রুহির হার্টবিটও দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পেলো আচমকা চোখের সামনে দানবাকার পুংলিঙ্গ টি দেখে। আশুও একটু লজ্জা পেয়ে গেলো। সে এরকম অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটার জন্য রুহির কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলো , এবং পূনরায় নিজের তোয়ালে টা কোমড়ে জড়িয়ে নিজের লজ্জা নিবারণ করলো। রুহিও সঙ্গে সঙ্গে সিঁড়ি দিয়ে উঠে নিজের ঘরে চলে গেলো।

সারাটা রাত রুহি ঠিকমতো ঘুমোতে পারলো না। না চাইতেও আশুর বলা কথা গুলি রুহির কানে যেন ভাঙা ক্যাসেটের মতো বেজে যাচ্ছিলো। পরের দিন সকালে ব্রেকফাস্ট সেরে অনিমেষ ও রুহি ঘুরতে বেড়োলো। বিকেলে ফেরার পর আবার অনিমেষের কাছে অফিস থেকে ফোন এলো। অফিসের আর্জেন্ট কাজ পড়ে গ্যাছে , তাই তাকে এক্ষুনি দার্জিলিং রওনা দিতে হবে। সে ডিনার না করেই বেরিয়ে গেলো। এখন বাড়িতে শুধু রুহি আর আশু ছিল। সেই জন্য রুহির খুব অকওয়ার্ড ফিল হচ্ছিলো। সে আশুর সাথে বেশি কথা বলছিলোনা। এড়িয়ে যাচ্ছিলো। চুপচাপ গিয়ে নিজের ঘরে বসেছিলো।

রাতের বেলা আশু দোতলায় রুহির ঘরে গিয়ে রুহিকে ডিনারের জন্য ডাকলো। আশুর প্রতি রুহির অহেতুক ভয় একটু হলেও কমলো , কারণ আশু যদি একজন খারাপ মানুষ হতো তাহলে রুহিকে একা পেয়ে সে এতোক্ষণে অনেক কিছু করে ফেলতে পারতো। কিন্তু আশু তা করেনি , নিজের কথা রেখেছে।

রাতে আশু ও রুহি একসাথে ডিনার করলো। ডিনারের পর রুহির খুব ঠান্ডা লাগছিলো , আশু তাই রুহিকে বিয়ার অফার করলো। রুহি প্রাথমিকভাবে না করছিলো। কিন্তু আশু তাকে বোঝালো যে এইসময়ে এতো ঠান্ডায় এটাই পাহাড়ের ওষুধ , ঠান্ডা নিবারণের। তাই সে যেন এটা কে ওষুধ হিসেবেই পান করে। আশুর কথামতো রুহি অল্প গ্লাসে বিয়ার নিলো , এবং পান করলো। তারপর রুহি দোতলায় নিজের ঘরে চলে গেলো। কিচ্ছুক্ষণ পর আশু গিয়ে রুহির ঘরে একটা বিয়ার এর বোতল ও একটি গ্লাস রেখে এলো , এবং বলে এলো যে ঠান্ডা লাগলে যেন সে নির্দ্বিধায় সূরা পান করে। পাহাড়ে সূরা বা মদ্যপান আমোদপ্রমোদের প্রতীক নয় , বরং জরুরি একটি উপাদান।

রাতে রুহির ঘুম আসছিলো না। সে তাই অল্প অল্প করে বিয়ার এর বোতল থেকে সূরা নিয়ে পান করছিলো। তবে সে জানতো না যে মদ শুধু ঠান্ডা থেকে মুক্তি দ্যায়না, এই প্রক্রিয়ায় তার সাথে সাথে শরীরকে গরমও করে তোলে। সেই ঠেলায় তার মনে এক অদ্ভুত কৌতূহলের সৃষ্টি হলো। তা হলো এখন আশু কি করছে ? সে কি কালকের ন্যায় একই কাজে লিপ্ত হয়ে আছে ?

আরো খবর  কামলা ভোগ