কাজলীর উপাখ্যান (নিষিদ্ধ প্রেম-০১)

শ্রীলংকা থেকে ফেরার পর থেকে দারুণ ফুরফুরে মেজাজে আছি। কাজের মাঝে, অবসরে কঙ্কণার কথা খুব মনে পড়ে। সেও আমাকে মনে রেখেছে, মাঝেমাঝেই ভিডিও কল দেয়। আমার পরিবর্তনটা বড়ভাই মিলন খেয়াল করেছে। সে আমার দেড় বছরের বড় হলেও সম্পর্কটা তুইতোকারির। মিলন যখন বলে ‘কি ব্যাপার সিসি, লঙ্কা থেকে ফিরে তুই দেখছি একদম পাল্টে গেছিস’, তখন মনেহয় ভাইকে সবকিছু বলে দেই। বড়ভাই হলেও মিলন আমার খুবই কাছের মানুষ। তাকে হয়তো বলবো একদিন কিন্তু এখনই নয়।

ছোট থেকেই মিলন আমার খুব খেয়াল রাখে। ইদানিং একটা জিনিস লক্ষ্য করছি, যখন আমি ঘরের কাজ করি বা অন্যকোন সময়, সে আমার দিকে অদ্ভুত দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। না, কোনো যৌনাকাঙ্ক্ষা তার চোখেমুখে আমি দেখিনা। তবে খেয়াল করেছি মাঝেমাঝেই সে কিছুটা অন্যমনস্ক থাকে। হয়তো ফিয়ানসের সাথে মানঅভিমানের পালা চলছে তাই এই ভাবান্তর। ভাবলাম এটা নিয়ে মিলনের সাথে একদিন আলাপ করতে হবে।

এরমাঝে একটা ঘটনা ঘটলো। অফিসে যাওয়ার জন্য রেডি হচ্ছি। থং প্যান্টি আর ওটারই পেয়ার পুশ-আপ ব্রেসিয়ার পরে আয়নার সামনে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে নিজেকে দেখছি। চেহারা বাদ দিলে আমার সবকিছুই পার্ফেক্ট। ফিগারটা যথেষ্ট সেক্সি আর এখন এমন ব্রা-প্যান্টি পরায় সেক্স যেন সারা শরীর থেকে ঠিকরে বেরিয়ে আসছে। আয়নায় দেখতে দেখতে নিজের প্রতিই যৌনক্ষুধায় আক্রান্ত হলাম। যোনীতে হাত রেখে আয়নায় চোখের দিকে তাকিয়ে ফিসফিস করে বললাম এখন শান্ত হও। রাতে তোমাকে ডিলডো দিয়ে সুখ দিবো।

‘কাজলী, তুই কি রেডি?’ দরজাটা খুলেগেলো। দেখলাম একহাতে পর্দা সরিয়ে মিলন দাঁড়িয়ে আছে। আমি শরীর আড়াল করার সুযোগই পেলাম না। সেকেন্ডের মধ্যেই সে যেন অনেককিছু দেখে নিলো। সারাশরীরে চোখবুলিয়ে মিলনের দৃষ্টি আমার দুচোখে স্থির হলো, তারপরেই সে পর্দার আড়ালে চলেগেলো।

ভাইবোন দুই রুমের একটা ভাড়া বাসায় থাকি। প্রতিদিনকার মতোই আমরা একসাথে বাহির হলাম। মিলন একটা বিদেশী ফার্মে ফিনান্স ম্যানেজার হিসাবে জব করে। অফিস থেকে গাড়িও পেয়েছে। নিজেই ড্রাইভ করে। আমাকে এন.জি.ওতে নামিয়ে দিয়ে সে চলে গেলো। অফিস শেষে দুজন আবার একটা সুপারমার্কেটে মিলিত হলাম। কিছু কেনাকাটা আছে। একটা লেডিস সপের সামনে দিয়ে যাচ্ছি। দোকানে ব্রা-প্যান্টি আর হরেক রকমের সেক্সি ড্রেস ঝুলছে। একটা হটপ্যান্টে দিকে ইশারা করে মিলন বললো,‘এসব পরলেওতো পারিস।’
‘যে একখানা চেহারা, আমাকে এসব মানাবে না।’
‘তোর ফিগার কিন্ত খব সুন্দর। ভেরি এট্রাক্টিভ।’
‘আমি এসব পরে বাহির হলে সবাই টিটকারি মারবে।’ সকালের ঘটনা মনে করে একটু লজ্জাও পেলাম।
‘বাসাতেও কিন্তু এসব পরা যায়।’
‘তুই কিনে দিস, তাহলে পরবো।’ আমিও হাসির ছলে উত্তর দিলাম। এরপরে নিজেদের কেনাকাটা সেরে বাসায় ফিরলাম।

রাত গভীর হলে কঙ্কণার দেয়া বিশেষ উপহার ডিলডোটা বাহির করলাম। জিনিসটা বেশ কাজের। যোনীর অনেক গভীরে পৌঁছে ভালোই মজা দিতে পারে। কঙ্কণার পেনিসের চাইতে এটা অনেক বড় আর মোটা হলেও একটা রক্তমাংসের পেনিসের সাথে রাবারের পেনিসের অনেক পার্থক্য। তবে এখন এটাই আমার সঙ্গমের সাথী। যৌনক্ষুধা মিটানোর প্রধান অবলম্বন। অফিসেই ২/৪ জন কলিগ আছে যারা আমার সাথে সেক্স করার জন্য মুখিয়ে আছে। একটু ইশারা করলেই যোনী চুষার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়বে, কিন্তু আমাকে ভালোবাসেনা এমন কাউকে দিয়েই আমি যোনী চুষাতে রাজি নই।

দিগম্বর হয়ে বিছানায় উঠলাম। মোবাইলে ইংলিশ রোমান্টিক গান চালিয়ে দিয়েছি। গান শুনতে শুনতে ডিলডো ব্যবহার করতে ভালোই লাগে। একটা রোমান্টিক মুড চলে আসে। এসময় আমি শুধু লেডিবয় কঙ্কণাকেই অনুভব করি। দুই জঙ্ঘার মাঝে ডিলডোটা নিয়ে যোনীর সাথে চেপেধরলাম। কোনো লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করি না। ডিলডোর মাথা যোনিমুখে একটু ঘষাঘষি করলেই অন্দরে এতোটাই রস জমে যে, ঘণ্টাখানেক অনায়াসেই ওটা ব্যবহার করতে পারি। মনে পড়লো কঙ্কণা একাধারে চুষে খেয়েও আমার যোনীরস শেষ করতে পারতোনা।

কৃত্রিম পেনিস যোনীতে ঘষাঘষির সময় মনেহলো জায়গাটা যদি কোনো পুরুষকে দিয়ে চুষাতে পারতাম। এইসব ভাবতে ভাবতে রসসিক্ত যোনী গহ্বরে ডিলডোটা ঢুকিয়ে নিলাম। আট ইঞ্চি ডিলডোর পুরোটাই ঢুকে গেছ, শুধু গোড়াটুকু বেরিয়ে আছে। এবার ফোমের কোলবালিশটা নিয়ে দুই জঙ্ঘার মাঝে সজোরে চেপে ধরলাম। যোনীর ভিতর ডিলডোর উপস্থিতি শারীরের কোষে কোষে যৌনক্ষুধা ছড়িয়ে দিচ্ছে। অনুভূতিটা অবর্ণনীয়। বালিশটা দুই জঙ্ঘার মাঝে রেখে উপুড় হতেই ডিলডোটা যোনীর আরো গভীরে সেঁধিয়ে গেলো।

নিচু লয়ে রোমান্টিক গান শুনতে শুনতে কাল্পনিক প্রেমিকের সাথে কখনো চিৎ, কখনো কাত, কখনোবা হাঁটুতে ভর দিয়ে দু’পায়ের গোড়ালিতে নিতম্ব চাপিয়ে রাবারের পেনিসের সাথে সঙ্গম করলাম। পুরুষ বঞ্চিত জীবনে এটাই এখন আমার একমাত্র যৌন বিলাসিতা। সারাদিন ধরে শরীরে যৌনকামনার জোয়ার বইছিলো। তাই সময়ও নিলাম অন্যদিনের তুলনায় বেশি। ধীরেধীরে কোমর নাচাতে লাগলাম। উত্তজনা বাড়ছে। আমি স্পীড বাড়িয়ে দিলাম। পাছা উঁচু করতেই ডিলডোটা অর্ধেক বেরিয়ে আসলো। ঝপাৎ করে পাছা নামিয়ে আনতেই পেনিসের মাথা যোনীর শেষপ্রান্তে ধাক্কা মারলো। উউফ! যৌনসুখের আওয়াজ মুখ ফসকে বেরিয়ে গেলো, চাপা দিতে পারলাম না। ঝপাঝপ কোমর নামাতে লাগলাম। একটু পরেই পাছা, দুই রান শক্ত করে ডিলডোটা যোনীর ভিতরে সমস্ত শক্তি দিয়ে চেপেধরলাম। কম্পন শুরুহতেই দুইপা টানটান করে দিলাম। যৌনসুখ শীর্ষ বিন্দুতে না পৌঁছানো পর্যন্ত পা দুইটা ওভাবেই টানটান করে রাখলাম।

আজ যোনীর কম্পন যেন রিখটার স্কেলে দশ নম্বর মাত্রা অতিক্রম করেছিলো। কারণটা ঠিকই বুঝতে পারলাম। সকালের ঘটনা আমার অন্তরকে যৌনসুখের রঙে রাঙিয়ে দিয়েছিলো। অনুভূতিটা একেবারেই নতুন। যৌনক্ষুধা নিবৃত্তির প্রশান্তি অনুভব করলাম ঠিকই কিন্তু একজন শক্তসমর্থ প্রেমিক পুরুষের পুরুষাঙ্গের আকাঙ্ক্ষা থেকেই গেলো।

বর্ষাকাল চলছে। কয়েকটা দিন ভাপসা গরমের পরে আজ আবার বিকেল থেকে অঝোর ধারায় বৃষ্টি নেমেছে। অফিস শেষে বাসায় ফিরতে ফিরতে কিছুটা ভিজে গেলাম। মিলন আজ আমার আগেই ফিরেছে। বেডরুমে ঢুকতে ঢুকতে বললাম,‘মিলু প্লিজ কফি করবি, একসাথে খাবো।’ রুমে ঢুকেই বিছানায় চোখ গেলো। একটা সুদৃশ্য গিফট বক্স রাখা আছে। দেখেই কৌতুহল হলো। কাপড় ছাড়ার আগে ওটা খুলে ভিতরের জিনিসগুলি বাহির করলাম।

একজোড়া টাইস, টি-শার্ট, নাইটি আর হটপ্যান্টের সাথে মিনি শার্ট। ওগুলোর সাথে একটা সাদা গোলাপ আর একটুকরো কাগজ রাখা আছে। দুই আঙ্গুলে গোলাপটা নিয়ে কাগজের লেখাগুলি উপড়লাম। ‘প্রিয় কালীর জন্য বিশেষ উপহার। পরলে খুবই খুশি হবো’। মনেহলো আমি যেন কয়েকটা হৃদস্পন্দন মিস করলাম। এটা কার কান্ড তাও বুঝলাম।

জন্মের পরে আমার চোখ দেখে সবার মনে হয়েছিলো যে, দুচোখে কাজল পড়ানো আছে। তখন থেকেই আমার নামকরণ হয়েছিলো কাজলী। ছোটবেলায় আমাকে অনেকেই কালী বলে খেপাত। যারা বলতো তাদেরকে আমিও আঁচড়ে কামড়ে দিতাম। কিন্তু মিলন মানে আমার দেড়বছরের বড়ভাইকে কখনোই কিছুই বলতাম না। এখন একমাত্র সে-ই আমাকে মাঝেসাঝে কালী বলে ডাকে। ওর এই ডাকের মাঝে কী পরিমান আদর, স্নেহ আর ভালোবাসার ছোঁয়া থাকে তা আমি সবসময় টেরপাই। আমিও ভাইকে সবসময় মিলু বলেই ডাকি।

কিছুটা দোনোমনার পরে স্কিনটাইট থ্রী-কোয়ার্টার টাইজ পরলাম। প্যান্টি আগেই পরেনিয়েছি। মনের মধ্যে একটু দুষ্টুমি চাপলো। ভাইকে একটু সিডিউস করলে কেমন হয়? তাই ব্রা পরতে গিয়েও পরলাম না। লুজ টি-শার্ট গায়ে চড়ালাম। ওটার গলা বেজায় বড়। ‘কাজলী, কফি রেডি, ড্রইংরুমে চলে আয়’ ডাকপড়তেই আমি সেদিকে হাঁটা দিলাম। দোরগোড়ায় আমাকে দেখেই মিলনের দৃষ্টি থমকে গেলো। মুখ থেকে পায়ের আঙ্গুল পর্য্যন্ত চোখ বুলালো। ওর দুচোখে মুগ্ধতা। মনে হলো চোখ দুটো যেন বেশ কয়েকটা মূহুর্ত আমার বুকের উপরে আঁটকে রইলো। দুদিন আগেই মিলু পলকের জন্য হলেও আমার স্তন দর্শন করেছে। এখন হয়তো ভাবছে টিশার্টের আড়ালে লুকানো নগ্ন দুধ দুইটা নিশ্চয় খুবই আকর্ষণীয় আর মনোমুগ্ধকর হবে।

‘পেত্নী পরেছে আধুনিক ড্রেস।’ নিজেকে ইজি করার জন্য আরো বললাম,‘নোকমেন্টস প্লিইজ।’
‘কালী তোকে দেখতে সত্যিই খুব সুন্দর লাগছে।’ মিলুর কন্ঠে নিখাদ প্রশংসা। ‘আয় কাছে বোস।’
কথাটা আমি বিশ্বাস করলাম, কারণ মিলু আমাকে কখনো মিছে কথা বলে না। তাছাড়া ওর মুখের কালী ডাক ছোটবেলা থেকেই আমাকে আপ্লুত করে। তবে অন্যকেউ কালী বলে ডাকলে তার চোখ তুলে নিতে ইচ্ছা করতো।

এমন ড্রেসে কিছুটা শরম লাগলেও আমি সামনে এগিয়ে মিলনের গা ঘেঁষে বসলাম। অলস চোখে টিভি দেখতে দেখতে কফির কাপে ছোটছোট চুমুক, টুকটাক কথা, কখনোবা মৃদু হাসি। হাসাহাসির মাঝে শরীরের ছোঁয়াছুঁয়ি। এটা আমাদের বরাবরের অভ্যাস। কিন্তু আজ শরীরে ছোঁয়া লাগলেই একটু প্রতিক্রিয়া হলো। গল্পে গল্পে সময়টা সুন্দর কেটে গেলো। বড়ভাই মিলুর সাথে গল্প করতে আমার সবসময়ই ভালোলাগে। আজ আরো ভালোলাগলো। সময়টা আমরা এভাবেই পার করলাম।

তৃতীয় দিন সাদা হটপ্যান্ট আর লাল স্লিভলেস শার্টটা পরলাম। দুটোই বেশ টাইট। ছোট্ট হট প্যান্ট যোনীর উপর টাইট হয়ে সেঁটে আছে। এটাকে হটপ্যান্ট কেনো বলে তা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে বুঝলাম। আমারই উত্তজনা লাগছে, মিলন দেখলে উত্তেজিত হবেই হবে। চারভাগের তিনভাগ রান আর নাভিকূপের নিচে ছ’সাত আঙ্গুল বেরিয়ে আছে। ভাগ্যিস দুদিন আগে যোনী কেশ ক্লিন করেছি নয়তো এটা পরাই যেতোনা। ভি-নেক শার্টের বোতাম শুরু হয়েছে ঠিক দুই স্তনের গিরিখাদের কাছ থেকে। ফলে বুকের বেশকিছু জায়গা একদমই ফাঁকা থাকছে। বড়ভাইএর সামনে এমন প্রায় উলঙ্গ অবস্থায় যাবো কি না এমন ভাবনা ক্ষণিকের জন্য মাথায় এলেও কৌতুহলী মন বললো দেখাই যাকনা কী হয়?

আমাকে দেখে মিলু আজও মুগ্ধ, কৌতুহলী দৃষ্টিতে তাকালো। আমার রানের উপর একটা কালো তিল আছে। নগ্ন রানের ওখানে মিলুকে তাকাতে দেখে শরীরটা শিরশির করে উঠলো।
‘বিয়ার এনেছি, খাবি?’ পাশে বসতেই মিলু জানতে চাইলো।

‘খাওয়া যায়।’ বিশেষ কোনো উপলক্ষে বা মাঝেমধ্যে দুজন একআধটু খাই। আমিই উঠেগিয়ে ফ্রীজ থেকে বোতল দুটো বাহির করে আনলাম। ওর হাতে দেয়ার সময় এতোটাই সামনে ঝুঁকলাম যে শার্টের ফাঁক দিয়ে মিলু আমার দোলায়মান স্তনজোড়া দেখতে পেলো। মনে হলো ওর চোখ দুটো যেন আজ খুশিতে নাচছে। ওই মূহুর্তে আমারও মনে হলো মিলুকে একটা চুমুদিয়ে দেই। কিন্তু অনেক কষ্টে নিজেকে ঠেকিয়ে রাখলাম।

গ্লাসে চুমুক দিতেদিতে টুকটাক গল্প করছি। দুজনেই টের পাচ্ছি আজ আমাদের মধ্যে এক ধরনের টেনশন কাজ করছে। বিয়ার পেটে যাওয়ায় আমি কিছুটা উষ্ণতাও বোধ করছি। আমার শরীরের ভার মিলুর শরীরে চাপিয়ে দিলাম। স্বল্প বসনা হলে বোধহয় মনের দরজাও খুলেযায়। অথবা এটা বিয়ারের প্রভাবও হতেপারে। আমি কঙ্কণার ট্রান্সজেন্ডার পরিচয় আর ওর সাথে আমার যৌনাচারের পুরোটাই মিলনকে বলে দিলাম। সব শুনে মিলন যখন বললো যে,‘তুই সঠিক কাজটাই করেছিস’ তখন কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে পড়লাম। নরম হাতের মুঠিতে ওর হাত চেপে ধরলাম। মনে হলো আমার স্পর্শে মিলুর শরীর উষ্ণ হয়ে উঠছে।

বিয়ার শেষ করে মিলন উঠে গেলে আমিও নিজের রুমে চলে আসলাম। খাণিকবাদে টের পেলাম মিলন আমার পেছনে এসে দাঁড়িয়েছে। আমি অপেক্ষা করছি। একসময় অপেক্ষার অবসান হলো। মিলুর উষ্ণ দুটি হাত আমার কোমর জড়িয়ে ধরলো। এরপর একটা হাত ঘাড়ের উপর উঠে এলো তারপর চুলগুলি সরিয়ে দিয়ে উন্মুক্ত ত্বকে চুমু খেল। এরপর নিস্তব্ধতা আবার দুজনকে গ্রাস করলো। আমি ঘুরে মিলনের মুখোমুখী হলাম। সে নির্নিমেষে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। ওর দু’চোখে কামনা, দৃষ্টি আমার সারা মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে যেন এই প্রথম দেখছে।
‘কী দেখছিস? চেহারাটা খুবই কুৎসিত তাইনা?’
‘আমি তোর অন্তরের খবর রাখি। ওটা তোর চোখের মতোই সুন্দর?’

আমার সারা মুখ নিঃশব্দ হাসিতে ফেটে পড়ল। আমি বিশ্বাস করলাম। কারণ মিলু কখনো আমার মিথ্যা স্তুতী করে না। সে দু’হাতের তালুতে আমার মুখখানা বন্দী করে কাছে টেনে নিলো। তারপর ঠোঁটজোড়া আমার গালে তারপর ক্ষুধার্ত ঠোঁটে শক্ত করে চেপে ধরল। তাকে খ্যাপাটে দেখাচ্ছে। ভাইবোন এসব কী করছি? আজীবনের সংষ্কার আর নারীসুলভ প্রবৃত্তি তাকে সরিয়ে দিতে চাইলেও শরীরের জেগেওঠা কামনা আমাকে বাধা দিল। আমি মিলুকে বুকে চেপে ধরলাম। ওকে সরিয়ে দেওয়ার বদলে রাক্ষুসীর মতো চুমাখেতে শুরু করলাম।

‘ভেবেছিলাম আমার প্রতি তোর কোনো আকর্ষণ নেই।’ আমি এখনো তাকে দুহাতের বাঁধনে জড়িয়ে ধরে রেখেছি।
‘তুই ভুল ভেবেছিলি।’ মিলু আমার শার্টের বোতাম খুলতে শুরু করলো। বাধা না দিয়ে আমিও দুহাত লাগিয়ে ওরপ্যান্টের বাকল খুলে ফেললাম। মিলুর যেন তর সইছে না। সে ঝটপট প্যান্ট খুলে উলঙ্গ হলো তারপর আমার হটপ্যান্ট টেনে নিচে নামিয়ে দিলো। কামোত্তজনায় আমারও বেহাল দশা। নিজেই প্যান্টি খুলে ফেললাম। প্যান্টির বাধা সরে যেতেই মিলনের আঙ্গুলগুলি আমার যোনী আর ক্লাইটোরিসের উপর কিলবিল করে উঠলো। একইসাথে আমার মুখ চুম্বন চলছে। ভাইএর সাথে যৌনলীলা, এটা নোংরামো নয় বরং আমার কাছে খুবই কাঙ্খিত মনে হলো। আমি মিলনের নগ্ন পাছা আঁকড়ে ধরলাম।

আমাকে পাঁজাকোলা করে মিলু আমারই বেডরুমে চলে এলো। অফিস ফেরত ব্যবহৃত ব্রা-প্যান্টি বিছানার ওপর ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে। মিলন আমাকে ওখানে ছুড়েদিল। তারপর পা দুইটা ফাঁক করে দুই উরুর মাঝখানে, পিচ্ছিল ভেজা জায়গায় জিভ দিয়ে হামলা চালালো। আমি গুঙিয়ে উঠলাম। কঙ্কণার পরে আরকেউ আমার যোনীতে মুখ রাখেনি। মিলনের জিভ বাইন মাছের মতো আমার যোনীতে কিলবিল করছে। যোনীর পেশিগুলি মোচড় খাচ্ছে, আমার শরীর বাঁকা হয়ে যাচ্ছে।

প্লিজ প্লিজ বলে বাধা দিতে চাইছিলাম কিন্তু পারলাম না। কারণ আমিও সাংঘাতিকভাবে ওরালসেক্স চাইছিলাম। তবুও মোচড় খেতে খেতে যোনী থেকে মিলুর মাথাটা ঠেলে সরানোর চেষ্টা করলাম। নয়তো এখনই আমার রেতঃপাত হয়ে যাবে। কিন্তু লাভ হলো না। যোনীর উপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারলাম না। আমার পিঠ বাঁকা হয়ে গেল, তারপর একের পর এক রাগমোচন হতে লাগলো। আহ! কি সুখ! দুনিয়ার সব সুখ যেন ওখানেই জড়ো হয়েছে।

রাগমোচন শেষ হতে না হতেই মিলন গামাগুড়ি দিয়ে আমার উপরে উঠে এলো। মুখের সামনে ওর মুখ। আমি ওর চোখে চোখ রাখলাম। সেখানে উত্তেজনা, কামনা এবং আনন্দ ও লজ্জা সবই দেখতে পেলাম। যোনীতে পেনিসের ঘষা লাগছে। আমি দুই পা ছড়িয়ে দিয়ে ভাইকে সাদরে আমন্ত্রণ জানালাম। মিলন আমার দুই উরুর মাঝে উত্তপ্ত গহ্বরে পুরুষাঙ্গটি ঢুকিয়ে দিয়েই করতে শুরু করলো। ওর পেনিসটা দেখা বা ধরার সুযোগ হলো না। যোনীতে ঢুকার পরে অনুভব করলাম এটা একটা বিশাল সাইজের পুরুষাঙ্গ। কঙ্কণার চাইতে অনেক অনেক বড়, মোটা আর জোয়ান-তাগড়া। একাধারে পেনিস চালাতে চালাতে মিলন একসময় গুঙিয়ে উঠল। যোনীর ভিতরে উষ্ণ তরলের ধাক্কায় বুঝলাম তার বীর্যস্খলন শুরু হয়েছে। আমার বাহুডোরে বাঁধাপড়ে মিলন গোঙাতে থাকলো।

সঙ্গম শেষে ভাইবোন পাশাপাশি শুয়ে আছি। ভাইএর সাথে সেক্স করেছি, কিন্তু ভয় বা টেনশন কিছুই বোধ করছিনা। একটু আগে দুজনেই হাঁপাচ্ছিলাম, এখন শান্ত। ওর বুকে মাথারেখে ডানপা রানের উপর তুলে দিলাম। মিলন আমাকে জড়িয়ে ধরলো। হাঁটুতে পেনিসের ছোঁয়া লাগছে। ওটা কাৎ হয়ে নেতিয়ে পড়ে আছে। জিনিসটা আমার যোনীর ভিতর প্রচন্ড তান্ডব চালিয়েছে। সঙ্গম বঞ্চিত ক্ষুধার্ত যোনীকে শান্ত করার জন্য এমন তান্ডবের প্রয়োজন ছিলো। এবার পেনিসটা খুব চুষতে ইচ্ছা করলো। লেডিবয় কঙ্কণার পেনিস চুষে অনেক মজা পেয়েছিলাম। পুরুষ মানুষের পেনিস চুষতে নিশ্চয় আরো মজা লাগবে।

মাথা নামিয়ে পেনিসটা চুষতে শুরু করলাম। ওটা তখনো ধোয়া হয়নি বলে মিলন বাধা দেয়ার চেষ্টা করলো। কিন্তু পারলো না। আমার রাক্ষুসে আর জংলী আচরণ সে মেনে নিলো। একটু চুষতেই সঙ্গম ক্লান্ত ঝিমিয়েপড়া পেনিস মুখের ভিতরে জেগে উঠলো। কঙ্কণার লেডিবয় পেনিস আমার মুখের মধ্যে সুন্দরভাবে এঁটে যেতো। কিন্তু খাড়া হতেই মিলুর বিশাল পেনিসের অর্ধেকটা মুখ থেকে বেরিয়ে পড়লো। তবে অর্ধেকই সহি। ললিপপের মতো পেনিস চুষতে চুষতে ভাইকে পাগল করে দিলাম। মিলন আবারও হাঁপাচ্ছে..ওহ..ওহ..আহ..আহ..আর না..আর না..। মিলু আমাকে সতর্ক করার চেষ্টা করলো,‘কালী..আহ..আহ..মাল বেরিয়ে যাবে..তোর মুখে পড়বে।’

আমিতো সেটাই চাইছি। মুখের আরো গভীরে পেনিস ঢুকিয়ে নিয়ে দ্রুতবেগে চুষতে লাগলাম। মিলু একটু পরেই মুখের ভিতরে বীর্য্যপাত করলো। পেনিস কাঁপছে, ফুলেফুলে উঠছে। আমি না থেমে চুষতেই থাকলাম। ধারাবাহিক বীর্য্যপাতে আমার মুখ ভরে যাচ্ছে। পরিমানে কঙ্কণা্র চাইতেও বেশি আর ঘণ এবং স্বাদেও আছে ভীন্নতা। ভাইএর বীর্য্যের স্বাদ খুবই ‘ইয়াম্মি’ মনেহলো।

ভোররাতে যখন তৃতীয় বারের মতো সেক্স করার জন্য ভাইকে উত্যক্ত করলাম সে সহজেই সাড়া দিলো। মিলুর জিভ আমার যোনী আর ক্লাইটোরিসের চারপাশে বিচরণ করতে লাগলো। জিভ আর ঠোঁটের ব্যস্ততার মাঝেই সে যোনীর ভিতরে আঙ্গুল ঢুকিয়ে নাড়তে লাগলো। ওর আঙ্গুল আমার জি-স্পটের হদিস পেয়ে গেছে। সে দক্ষ হাতে যোনী, ক্লাইটোরিস ম্যাসাজ করছে। কখনো যোনী চুষতে চুষতে ছোট ছোট কামড় দিচ্ছে। একজন পুরুষ যোনী চাটলে কেমন লাগে তা অনুভব করছি। আমার উত্তজনা বাড়ছে। কঙ্কণার সাথে সেক্স করার সময় শিখেছি যোনীতে পেনিস নেয়ার এটাই মোক্ষম সময়।

পেনিস কখন ঢুকাতে হবে, মিলুও দেখছি সেটা ভালোই জানে। যোনীর উপর পেনিসের ঘষাঘষি শুরু হতেই আমি দুই পা ছড়িয়ে দিয়ে নিতম্ব চেঁড়ে তুললাম। তারপর ডান হাতের কয়েকটা আঙ্গুলে পেনিসের ঘাড় ধরে ওটার মাথা যোনিমুখে চেপেধরলাম। মিলু চাপ দিতেই পিচ্ছিল যোনিপথ বেয়ে জিনিসটা নিশ্চন্তে ভিতরে ঢুকে গেলো। এরপরে কাজতো একটাই। ভাইবোন সঙ্গমে মেতে উঠলাম।

খুবই ধীরলয়ে শুরুহলো। সঙ্গম করতে করতে চুমাচুমি করছি, পরস্পরকে আদর করছি। একে অপরকে ভালোবাসার কথা শুনাচ্ছি। মিলু পেনিস চালাতে চালাতে দুধ চুষছে। আস্তে আস্তে দুজনের উত্তজনা বাড়ছে। উত্তজনা বাড়তে বাড়তে যখন চড়া মেজাজ ধারণ করলো, আমি চেঁচিয়ে উঠলাম,‘ফাক মি হার্ডার..হার্ডার..।’ কথা তখনো শেষ হয়নি, মিলুর পেনিস আমার যোনীর ভিতরে ধ্বংসাত্মক খেলায় মেতে উঠলো। আমিতো এতদিন এমন বিধ্বংসী সঙ্গমের অপেক্ষাতেই ছিলাম। আসল পুরুষাঙ্গের সাক্ষাত পেয়ে আমিও সাড়া দিলাম। ঝড়ো গতিতে দুজনের সঙ্গম চলতে থাকলো।

(চলবে)

আরো খবর  শেষে এসে শুরু -৪৬

[email protected]