সেক্সপ্লোরেশন পর্ব ৩

যাইহোক পৌঁছে গেলাম আমরা ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল। ওখানে গিয়ে খানিক ঘোরাঘুরির পরে ঘাসের ওপর একটু বসলাম আর ও আমার পাশেই বসল প্রায় আমার গা ঘেঁসেই।
-“কি আগে কখনও এখানে এসেছেন নাকি?”
-“হুম বহুবার আর আপনি?…”
-“একবার তাও ছোটবেলায় স্কুলে পড়তে…”
-“কেন বনানীর সাথে একবারও কোথাও ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করে না আপনার?…”
-“ইচ্ছে থাকলেও উপায় যে নেই ম্যাডাম…”
-“কেন ও চায় না বুঝি?”
-“ও যে অন্য একজনের ঘরণী ম্যাডাম সেটাও তো মাথায় রাখতে হবে নাকি?”
-“কেন ওর হাবি আর আপনি তো বন্ধু না কি?”
-“হুম আমরা যতই বন্ধু হই না কেন ও এই ব্যাপারটাকে অ্যালাউ করবে কি? ও সঙ্গে থাকলে না হয় তবুও একটা ব্যাপার ছিল। কিন্ত্ত ওর অবর্তমানে আমি চাই না আমাদের বন্ধুত্বে কোনও রকম ফাটল ধরুক। ও বনানীকে আমার সাথে শেয়ার করছে এটাই কি আমার কাছে যথাযোগ্য পাওনা নয় ম্যাডাম?”
-“বাহ্ আপনি তো মশাই বন্ধুত্ব, সম্পর্ক এসবকে সবার উর্দ্ধে রাখেন দেখছি…”
-“হুম কতটা পারি জানি না। তবে রাখার চেষ্টা করি। আমারও যে মন আছে, আবেগ আছে, আর আছে আবেগের বহিঃপ্রকাশও। কিন্ত্ত সেই বহিঃপ্রকাশটাকে স্থান কাল পাত্র বুঝে নিয়ন্ত্রণ করাই যে একজন মানুষের কর্তব্য ম্যাডাম। তাই সব কিছুর ওপরে আমি বন্ধুত্বের সম্পর্কটাকেই বেশী প্রাধান্য দিই…”
-“আপনাকে না আমি যত দেখছি, জানছি ততই আশ্চর্য হচ্ছি জানেন?”
-“আজকালকার দিনে না এমন মানুষের সান্নিধ্য লাভ করা অতীব দূর্লভ। নিজেকে রীতিমতো ভাগ্যবতী মনে হচ্ছে জানেন…”
-“কেন এমন মনে হওয়ার কারণ?”
-“দেখুন মশাই এখন এই জেট যুগে মানুষের হাতে সময় কম। অধিকাংশই শর্টকাট খোঁজে এমনকি সম্পর্কের মধ্যেও। তাই একটু মতের মিল হলেই চটজলদি ব্রেক-আপ আবার কিছুদিন পরেই আবার পুরনো সব কিছু ভুলে গিয়ে আবার নতুন কাউকে খুঁজে নেওয়া।”
-“হুম একদম ঠিক বলেছেন!!! এক্কেবারে ইউজ় অ্যান্ড থ্রো পেন বা জামা কাপড় বদলানোর মতো সঙ্গী বদলানো…”
-“হুম এই আমাকেই দেখুন না…” বলে ডুকরে কেঁদে উঠল চিত্রা।
আমি সান্ত্বনা দিতে ওকে কাছে টেনে নিলাম। আমার বুকে নিজের আশ্রয় খুঁজে নিল ও। আমি ওর মুখোমুখি বসে ওর চোখ দুটো মুছিয়ে দিলাম আমার দুই বুড়ো আঙুল দিয়ে। তারপর জিজ্ঞেস করলাম-
-“কষ্ট হচ্ছে? জল খাবেন? নিন জল নিন। নিজের মুখটা আগে ধুয়ে ফেলুন তো দেখি। লোকে অন্য কিছু ভাববে…” বলে আমি একটা জলের বোতল নিয়ে ওর দিকে এগিয়ে দিলাম।
-“আপনি বুঝেছেন আমার কষ্টটা তাই তার জন্য…” ফোঁপাতে ফোঁপাতে বলল চিত্রা।
-“আপনি কি আর একটু থাকবেন এখানে?” কথা ঘোরাতে জিজ্ঞেস করলাম আমি।
-“না চলুন আমরা এবার ফিরবো আর আমার সাথে যাবেন আপনিও…”
-“কোথায় যাচ্ছি এবার আমরা?”
-“আমার বাড়ি। কেন কোনও সমস্যা আছে নাকি?”
-“নাহ্”
-“বেশ তাহলে চলুন…”
-“বেশ যাবো কিন্ত্ত একটা শর্তে…”
-“আপনি আর আপনার অতীত নিয়ে ভেবে কষ্ট পাবেন না বলুন? কথা দিন…”
-“বেশ আর কাঁদবোও না। কষ্টও পাবো না। হয়েছে?” নাক টেনে বলল চিত্রা।
-“না এখনও হয়নি আমি সেই হাসি খুশী এক চিত্রাকে দেখতে চাই…”
-“যাহ্ আপনি না একটা যা-তা!!!” বলে আমার বুকে মাথা রেখে ও খিলখিলিয়ে হেসে উঠে বলল-
-“হয়েছে আপনার শর্তপূরণ? এবার তো চলুন… আকাশের অবস্থা কিন্ত্ত ভালো নয়। তাড়াতাড়ি ফিরতে হবে…”
-“এই তো আমি সেই পুরনো চিত্রাকে দেখতে পেয়েছি। এবার চলুন তাহলে…”
বলে গাড়িতে চড়ে বসলাম আমরা দুজনেই। গাড়িও চলতে শুরু করল। তারপর ট্র্যাফিক জ্যাম ঠেলে ঘন্টা দুয়েকের মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছে গেলাম আমরা। একটা বাড়ির সামনে গাড়িটা দাঁড় করিয়ে ও বলল-
“আমরা এসে গেছি…”
আমি গাড়ি থেকে নেমে গেলাম আর চিত্রা গাড়িটা রেখে কলিং বেলটা বাজিয়ে দাঁড়িয়ে রইল। দরজা খোলার অপেক্ষা করতে লাগলাম আমরা দুজন। কয়েক সেকেন্ড বাদে ভেতর থেকে এক নারী কন্ঠের আওয়াজ ভেসে এল-
-“কেএএএ? আসছি…”
কিছুক্ষণ বাদে আরও এক বেশ সুন্দরী যুবতী (আন্দাজ মোটামুটি চিত্রার বয়সীই হবে) এসে দরজা খুলল আর খুলেই আমাকে দেখতে পেল। জিজ্ঞেস করল-
-“কাকে চাই?”
হঠাৎ করে চিত্রা ত্রাতা হয়ে আবির্ভূতা হয়ে বলে-
“ওয়ে সর সর ঢুকতে দে। সরি বস, ও বুঝতে পারেনি। কিছু মনে করবেন না আসুন, আসুন ও হলো আমার বন্ধু ঝিনুক…”
“ও-ও আগে বলবি তো? আরে আসুন আসুন!!!…”
যাইহোক এবার বেশ উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়ে বাড়ির ভেতরে ঢুকলাম আমি। ঢুকেই ডাইনিং টেবিলের পাশে দাঁড়িয়ে রইলাম আমি।
-“উফঃ এক গ্লাস জল দে ভাই ঝিনুক। বাইরে পুরো ভ্যাপসা গরম। বৃষ্টি হবে বোধহয় আসার সময় আকাশের রঙটা বেশ ময়লা দেখলাম। আরে মশাই আপনাকে কেউ শাস্তি দেয়নি বসুন বসুন…”
আমি যেতেই ওর ঠিক পাশেই একটা চেয়ারে আমাকে বসতে অফার করল এদিকে ঝিনুক দরজা বন্ধ করে আমাদের কাছে এসে আমারই পাশে একটা চেয়ার টেনে বসল।
-“তাহলে তুই এনাকেই…”
-“ইউ আর রাইট বেবি!!! আমি এনার জন্যই তো…”
-“আচ্ছা এনাকে তো ঠিক…”
-“হাই আমি প্রাঞ্জল, প্রাঞ্জল বাগচী আর আপনি?”
-“আমি ঝিনুক… ঝিনুক বিশ্বাস!!! আচ্ছা যদি কিছু মনে না করেন একটা কথা জিজ্ঞেস করি?”
-“হুম একটা কেন হাজারটা করুন না!!!”
-“হা-হা-হা!!! আচ্ছা আপনি কি লেখালিখি করেন?”
-“হুম ও-ই টুকটাক করি আর কি?”
-“তার মধ্যে গল্প-টল্পও লেখেন নাকি?”
-“হুম তাও লিখি অল্পবিস্তর!!!”
-“তার মধ্যে কি অ্যাডাল্ট স্টোরিও থাকে নাকি?”
-“হুম তাও থাকে বৈকি…”
-“আপনি কি বিসিকে তে নিয়মিত লেখেন?”
-“নিয়মিত কিনা ঠিক বলতে পারবো না তবে চেষ্টা করি বছরে অন্ততপক্ষে একটা অন্তত ঘটনা পোষ্ট করার…”
-“আচ্ছা আপনি যা লেখেন সেটা কি বাস্তব না কল্পনা? আপনার চরিত্ররা কি বাস্তবে আছে?”
-“বেশ তবে আমি এর উত্তরে কয়েকটা প্রশ্ন করি?”
-“আমার কটা গল্প আপনি পড়েছেন?”
-“সবকটাই…”
-“পড়ে কি মনে হয়েছে?”
-“মনে হয়েছে বাস্তবের মাটি থেকে তুলে আনা ঘটনা!!!”
-“আশাকরি আপনি আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছেন…”
-“হ্যাঁ তা আর বলতে?! অ্যাই চিত্রা তুই কোথায় রে?”
-“এই তো কিচেনে…আসবি? তো আয় না…”
-“দাদা আপনি না একটু বসুন বুঝলেন। আমি এই গেলাম আর এই এলাম ও ডাকছে!!!”
-“ওকে নো ইস্যু!!!”
কিছুক্ষণ পরে…
-“সরি অনেকক্ষণ বসতে হলো তাই তো প্রাঞ্জলদা? নিন খান…”
-“না না ঠিক আছে…”
-“খেতে খেতেই চলুক না আমাদের কথোপকথন ক্ষতি কি?…”
-“বেশ তো!!! কিন্ত্ত এই মাত্র খেয়ে এলাম যে!”
-“কি খেয়েছেন শুনি?”
-“ও-ই যে চিত্রা ম্যাডামের সাথে কোল্ড কফি আর পকোড়া সঙ্গে বাদামভাজা…”
-“আরে দাদা খাবার তো এই সবে শুরু না জানি আর আমাদের কি কি খেতে হয় আজকে?” চিত্রার দিকে তাকিয়ে দেখলাম ও মিটমিট করে হাসছে। তবু জিজ্ঞেস করলাম-
-“মানে?”
-“মানে অনেক খাবার দাবার আছে আর লোকজন বলতে আমরা এই তিনটে প্রাণী। নিন নিন খাওয়া শুরু করুন আর খেতে খেতেই না হয় আমাদের গল্প চলুক।”
-“আচ্ছা এই বাড়িটা কার?” জিজ্ঞেস করলাম আমি।
-“কেন আমার?” চিত্রা বলল।
-“আপনার সৌখিনতার তারিফ না করে পারছি না ম্যাডাম…”
-“এটা আমার পরম সৌভাগ্য যে আপনার মতো একজনের পদধূলি পড়ল আমার এই গরীব খানায়…”
-“এমন করে কেন বলছেন? এবার বলুন তো আমাকে এখানে ডেকে পাঠানোর হেতু!!!”
-“আপনাকে যে এখানে লুডো খেলতে যে ডাকিনি সেটা আশাকরি এতক্ষণে বুঝে গেছেন…”
-“হুম আমরা সেক্সপ্লোরেশনে যেতে চাই আপনার তরণী বেয়ে যার কান্ডারী হবেন আপনি!!!”
-“বেশ সেটা বুঝতেই পেরেছি। কিন্ত্ত তার আগে আমি আপনাদের থেকে আপনাদের এসম্পর্কে পূর্ব অভিজ্ঞতার বিষয়ে জানতে চাই। আশাকরি আপত্তি নেই…”
-“না আমাদের আপনার কাছে কিছুই লোকানোর নেই। সব বলছি…”
-“তুই-ই শুরু কর ঝিনুক তুই ভালো গুছিয়ে কথা বলতে পারিস!!!”
-“বেশ আমি বলবো কিন্ত্ত তার আগে আমায় জানতে হবে আপনি আমাদের সম্পর্কে কতটুকু জানেন?”
-“আমি যতটুকু জানি তা শুধু চিত্রার পূর্ব জীবন সম্পর্কে। ওর যৌন চাহিদা সম্পর্কে ব্যস এটুকুই এই এক-দেড় মাস যাবৎ জানতে পেরেছি। মানে উনি এতটুকুই জানিয়েছেন…”
-“মানে আপনি জানেন যে ওর বয়ফ্রেন্ড আর ওর গার্লফ্রেন্ড দুজনেই ওকে ছেড়ে চলে যায় কি তাই তো?”
-“একদম এই পর্যন্তই আমি জানি এবার বাকিটা শুনতে চাই…”
এবার পূর্ব কথা…
-“বেশ আমাদের দুজনেরই বয়স ২৫, এবং আমি আর ও ছোট থেকে একসাথেই বড় হয়েছি পড়াশোনাও করেছি একসাথেই। পড়াশোনা খতম করে দুজনে পার্টনারশীপে নিজেদের বুটিক খুলেছি আর সাথে টুকটাক মডেলিংও করি। আমার সাইজ ৩২-২৮-৩৬।”
-“বেশ আর ওনারটা?”
-“ও ৩২-২৮-৩৪ বুঝতেই পারছেন। বলতে দ্বিধা নেই আমরা ছেলে মেয়ে দুজনের সাথেই শুয়েছি। যখন আমার বয়স ২৩ বছর তখনই আমরা দুজনেই বুঝতে পারছিলাম যে আমরা উভকামী ও তো তবুও একটা মেয়ের সাথে শুয়েছে। কিন্ত্ত আমি? আমার আমার প্রথম লেসবো সেক্স পার্টনার ইন ক্রাইমও হল এই চিত্রাই। যদিও আমাদের চারপাশে প্রচুর বয়ফ্রেন্ডও আর মিথ্যে বলব না তাদের দু-এক জনের সাথে বেড শেয়ারও করেছি। বিশেষ করে আমি…ও তো তবুও মাত্র দুজনের সাথে কিন্ত্ত আমি অনেকের সাথেই সম্পর্কে জড়িয়েছি। কিন্ত্ত সেক্স এখনও পর্যন্ত মাত্র দুজনের সাথেই হয়েছে আমার…”
-“একজন তো আপনার বিজ়নেস পার্টনার বা পার্টনার ইন ক্রাইম যাই বলেন না কেন চিত্রা ম্যাডামই আর বাকি?”
-“বাকি একজন আমার বয়ফ্রেন্ড…”
-“বেশ তাহলে এবারে বাকি অংশটা বলুন…”
-“এবারে তাহলে মূল গল্পের এগোনো যাক কি বলেন?”
-“হুম স্বচ্ছন্দে…”
-“বেশ আমার ছোটবেলার বন্ধু এই চিত্রা আর আমার মধ্যে আছে এক অভিন্নহৃদয় বন্ধুত্ব। আগেই বলেছি আমরা সব সময় একসাথেই কাজ করি, আড্ডা দিই একসাথে, ছোট থেকেই অনেক দুষ্টুমিও করেছি তাও আবার এক সাথেই। ও ছোট থেকেই দেখতে শুনতে বেশ ভালো ছিল, স্লিম ফিট আর যত দিন যাচ্ছে ততই মাগী যেন আরও সেক্সি হয়ে উঠছে, আমরা দুজনেই খুব খোলামেলা জামাকাপড় পড়তে ভালোবাসি জানেন?”
-“বেশ…”
-“লোকেরা আমাদের সম্পর্কে কী ভাবছে সে সম্পর্কে আমরা থোড়াই কেয়ার করি। বাইরে যাওয়ার সময় আমরা প্রায়শই ক্রপ টপ, মিনিস্কার্ট এবং শর্টস বিশেষ করে হটপ্যান্ট এসবই পরতে ভালোবাসি আর ক্লাবে পার্টি করার সময় আবার ব্যাকলেস ড্রেসও পড়ি। আমরা নিজেদের মধ্যে সবকিছু শেয়ার করি জানেন কি?”
-“না জানতাম না…”
-“তবে জেনে রাখুন আমাদের মধ্যে এমনই এক গভীর বন্ধুত্ব যে অবলীলায় নিজের নিজের বয়ফ্রেন্ডের আমাদের দুজনকে পটানো থেকে শুরু করে তাদের প্রপোজ়াল কখন অ্যাক্সেপ্ট করব সেসব নিয়ে একে অন্যকে পরামর্শ দিয়েছি। তারপর আমাদের বয়ফ্রেন্ডরা বিছানায় কিরকম পারফর্ম করল সেসব ফিরে এসে একে অন্যকে শেয়ার করা। সবই করেছি আমরা।”

-“আচ্ছা! তাই নাকি?”
-“হুম তবে কি জানেন তো?”
-“কি?”
-“এত কাছাকাছি থাকার পরেও আমি না ওকে বা ও আমাকে সেই নজরে দেখতাম না বা নিজেরা একে অন্যের প্রতি কোনও আকর্ষণ করিনি। অথচ আমরা না দুজনে একই বছরে জন্মেছি জানেন?”
-“ওঃ তাই নাকি?!”
-“হুম তাই, ও আমার থেকে মাত্র দু মাসের বড়। কিন্ত্ত ও যেবার ২৫ এ পা দিল ঠিক তখনই নাকি ও ফিল করে ওর মধ্যে নাকি বাইসেক্সুয়ালিটি বা উভকামিতা জেগে উঠছে। একদম নাকি আমারই মতো। ও-ও নাকি আমার মতো ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েদের শরীরের প্রতিও আকর্ষণ অনুভব করতে শুরু করে জানেন?”
-“এতটা না বললেও উনি বলেছিলেন যে ওনার বয়ফ্রেন্ডের সাথে ব্রেক-আপ হওয়ার পরে নাকি উনি ডিপ্রেশনে চলে গিয়েছিলেন সেখান থেকে একটা মেয়ে ওকে ওই অবস্থা থেকে উদ্ধার করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনে। যার সাথে উনি নাকি বেডও শেয়ার করেছেন। তবে আমার আন্দাজ সেই মেয়ে আপনি নন।”
-“কিভাবে বুঝলেন?”
-“এটুকু না বোঝার কি আছে শুনি? প্রথমত আপনি এখনও বিয়ে করেননি…”
-“বেশ বিয়ে যে করিনি মানলাম। কিন্ত্ত আপনি কি করে বুঝলেন?”
-“বুঝলাম কারণ আপনার কপালে সিঁদুর নেই। যেটা নাকি এয়ো স্ত্রী-দের একটা এস্থেটিক সিম্বল…”
-“কেন সে-তো আজকালকার মেয়েরা আর কজন মানে?”
-“বেশ মানছি আপনার কথা, সবাই মানে না। কিন্ত্ত এছাড়া তবুও সামান্য চিহ্নও কিন্ত্ত থাকে। সেসবও মিসিং আপনার শরীরের কোনও অংশে…”
-“গ্রেট আপনি তো পুরো দস্ত্তর গোয়েন্দা দেখছি।”
-“ওসব গোয়েন্দা-টোয়েন্দা জানি না। তবে চোখে যা দেখছি সেটাই বলছি।”
-“বেশ এবার নেক্সট?”

আরো খবর  পারিবারিক গ্রুপ খেলা পর্ব ২