মায়ের ফেটিস

সবার জীবনে অনেক না বলা ঘটনা থাকে, কিছু ঘটনা সুখের আবার কিছু ঘটনা প্রচন্ড সুখের। ঘটে যাওয়া এসব ঘটনা তখন বুঝতে না পারলেও এখন ভাবলেই সুখানুভূতি কাজ করে।

আমার পরিবারে আমি আর বাবা মা থাকতেন। আমাদের পরিবার মোটামুটি স্বচ্ছল ছিল।
আমার বাবা মা মায়ের মাঝে ভালই এজ গ্যাপ ছিলো। তাই তাদের মাঝে আমি কখন প্রচুর ভালোবাসা লক্ষ্য করিনি। আমার মা ছিলো সবগুনে সম্পন্ন অতীব সুন্দরী নারী। উনার বয়স ছিলো প্রায় ৩৯ এর কাছাকাছি কিন্তু ওনার ফিগার এবং মসৃন ত্বক দেখে তা বোঝার উপায় নেই।

আমার মা ছিলেন খুবই যৌনআবেদনময়ী, উনার তালগাছের মতো ভরাট পাকা স্তন, সুক্ষ্ম খেজুরের মতো লম্বাটে স্তনবৃন্ত, কিছুটা ঝুল খাওয়া ফ্লেক্সিবল ভাজখাওয়া কোমড় সমেত পেট আর সুগন্ধযুক্ত তীক্ষ্ণ গভীর নাভি।

ছোটবেলা থেকেই আমি মায়ের রুপে মুগ্ধ হতাম। মা বাসায় নাভির তিন ইঞ্চি নিচে শাড়ি পড়তেন কিন্তু পেটের একপাশ উন্মুক্ত থাকলেও নাভি ঢেকে থাকতো। আমি সুযোগ পেলেই মায়ের পেট নাভি দেখে সুখ নিতাম। প্রতিদিন কলেজ যাওয়ার আগে মা আমাকে চেয়ারে বসিয়ে যখন চুল আচড়ে দিতেন তখন মায়ের পেট একদম আমার মুখ বরাবর সেট হতো, তখন আমি মায়ের পেট নাভির গন্ধ শুকতাম।

মায়ের এতো রূপবতী হওয়ার পরো বাবাকে কখনো মাকে ঐভাবে ভালোবাসতে দেখিনি। সবসময় তাদের মাঝে একটা কমিউনিকেশন গ্যাপ দেখেছি।
প্রায়ই তাদের মাঝে ঝগড়া হতো আর মাও বোধ হয় বাবার কাছে সুখী ছিলো না।

এভাবে আমার অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়ে যায় কিন্তু হঠাৎ খবর আসে আমার বাবার চাকরি চলে গেছে। বাবার চাকরি চলে যাওয়ায় আমাদের পরিবার আর্থিকভাবে অসচ্ছল হয়ে পড়ে এবং বাড়ি ভাড়া আটকে যায়,তাই টাকা ইনকামের জন্য বাবা সিদ্ধান্ত নেন তিনি বিদেশে পারি জমাবেন।

বাবার বিদেশ পারি দেওয়া বিষয়ে মা একমত ছিলেন না কিন্তু বাবা নাছোড়বান্দার মতো অল্পদিনেই বিদেশে পাড়ি দেন। বাবা বিদেশে যাওয়ার পর থেকেই মা একা হয়ে পড়েন এবং মানুষিকভবে অস্বস্তিতে পড়ে যান।

মা বেশিরভাগ সময় মনমরা অবস্থায় থাকতো তাই আমার পড়াশোনার ব্যাপারে খেয়াল রাখছিলেন না।
মা আমার পড়াশনায় খেয়াল না রাখায় আমার এক্সামের রেজাল্ট খারাপ হয়।

একদিকে বাবা বিদেশে চলে যাওয়া, মায়ের মনমরা অবস্থা আবার আমার রেজাল্ট খারাপ হওয়া সবকিছু একটা দমবন্ধ পরিবেশ সৃষ্টি করে।
একদিন রাতে খবর আসে বাবা বিদেশে কাজ পেয়েছে এবং প্রতি মাসে টাকা পাঠাতে পারবে। এই খবর পেয়ে আমি কিছুটা স্বস্তি পেলেও মা তেমন একটা খুশি হননি, তখন আমি ভাবি টাকা পয়সার কারনে হয়তো মা মনমরা থাকেননা হয়তো অন্য কারনে মা অসুখী।

এভাবে বার্ষিক পরীক্ষা চলে আসে। মায়ের আচরনে কিছু পরিবর্তন আসতে থাকে, যেমন মা প্রায়ই আমার আশেপাশে থাকার ট্রাই করেন এবং এখন শাড়ি এমনভাবে পড়েন যাতে পেট নাভি পুরোটাই দেখা যায়।

মায়ের এরকম খোলামেলা চলাফেরা আমাকে অবাক করলেও মায়ের পেট নাভি দেখে ঠিকই সুখ নিতাম। বিশেষ করে তীক্ষ্ণ নাভিটা ছিলো নজরকরা।

এতো শৈল্পিক গভীর নাভি দেখলে যে কারো জিভে জল চলে আসবে৷ মা যখন আমাকে স্কুলের জন্য রেডি করতেন তখন ইচ্ছে করেই আমার সাথে ঘেষাঘেষি করতেন আর হঠাৎ আমার হাত তার পেটে ছোয়াতেন। একদিনের ঘটনা আমি স্কুলে যাওয়ার জন্য রেডি হচ্ছিলাম। মা আমার রুমে এসে আমাকে ডাকলেন, আমি মায়ের দিকে তাকাতেই আবার চোখ সরিয়ে নিলাম কারন মা শুধু ব্লাউজ আর ছায়া পড়া অবস্থাতে ছিলেন। মায়ের পেপের মতো স্তনদ্বয় আর সম্পুর্ন উন্মুক্ত পেট নাভি দেখে আমার মাথা কাজ করছিলো না। মা আমাকে এসে আমার গালে চুমু খেয়ে বললেন…..

—  চেয়ারে বস আমি চুল আচড়ে দেই, কি করেছিস চুলে হায়রে।

— কি করবো মা তুমি আর আগের মতো আমার যত্ন নাও না আমার খোজ খবরই রাখো না।

— আহারে আমার সোনামানিক ঠিকই বলেছিস, আমি কেমন যেনো ছন্নছাড়া হয়ে গিয়েছি কিন্তু এখন থেকে সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি আগের মতো আবার তোর আদর্শ মা হবো।

মা আমার চুল আচড়ে দিচ্ছিলেন আর মাথাটা ঠিক মায়ের পেট বরাবর সেট করা। আমি মায়ের নাভিটা আজকে খুব কাছ থেকে দেখছি৷ আহ কি সুন্দর নাভি। দেখেই বোঝা যায় নাভির ভেতরটা অনেক গভীর আর প্রশস্ত। সহজেই যে কারো জিভকে নাভিটা গিলে নিতে পারবে।

মা কেনো জানি আমার একদম মুখের কাছে তার পেট রাখছে। মায়ের নাভিটা এখন একদম আমার নাকের ডগার সামনে। নাভিটা থেকে একটা মাতাল গন্ধ আসছে। আমি নাক টেনে গন্ধটা নিচ্ছিলাম। নাভির গব্ধ নিচ্ছি আর মায়ের দিকে তাকিয়ে চেক করছি মা বুঝে ফেললো কিনা। খেয়াল করলাম মা কিরকম ঠোট কামরাচ্ছে। হঠাৎ মা হেচকা আমার উপরে পরে গেলো। আমি বিছানায় পরে গেলাম, মাও আমার উপর বিছানায় পড়ে গেলো৷ মায়ের পেট একদম আমার মুখের উপর পড়লো। আমি সহসায় কি হলো বুঝতে পারলাম না৷ মায়ের পেট আমার মুখে চাপা দিচ্ছে। মায়ের পেটের সাথে আমার মুখ আস্টেপিস্টে আছে। মায়ের মসৃন পেটের স্পর্শ আর চাপ আমার দম বন্ধ করে দিচ্ছিলো।

— মা উঠো আমার উপর থেকে সরো, আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে।
— আহ হঠাৎ কোমড়ে টান খেয়েছি, কোমড়ে ব্যাথা লাগছে উঠতে পারছি না।
— তোমার পেট আমার মুখ থেকে সরাও আমার দম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।
— আচ্ছা আচ্ছা একটু সবর কর।

মা নিজেকে সামলে উঠে গেলো। আমিও আবার স্বাভাবিক হলাম৷ ভালো করে কয়েকটা দম নিয়ে দেখলাম মা তার পেট নিজের হাত দিয়ে টিপছে আর কেমন আহ আহ করছে।

— কি হয়েছে মা ব্যাথা পেয়েছো?
— না খোকা তেমন কিছু হয়নি, একটু টান পড়েছে ঠিক হয়ে যাবে।

মা কোমড় টিপছে পেটে হাত বুলাচ্ছে। মায়ের এরকম রুপ দেখতে ভালোই লাগছিলো। ইচ্ছে হচ্ছিলো মায়ের জেলির মতো মসৃন পেটটা টিপে দেই কোমড়ে মালিশ করি কিন্তু সাহস হলো না।

— কিরে এভাবে ড্যাব ড্যাব করে তাকিয়ে আছিস কেন?
— না মা কিছু না আমি স্কুলে গেলাম।

আমি কথাটা বলেই স্কুলে রওনা হলাম। স্কুলে গিয়ে আজকের সকালের ঘটনা গুলা একে একে ভাবছি। মায়ের এরকম রুপ আগে কখনো দেখিনি।
মায়ের মোলায়েম পেটের ঢেউ, নাভির ভেতরটা উফ কি দৃশ্য। ভাবছি হঠাৎ মা আজকে এতো খোলামেলা ভাবে আমার সামনে কেনো আসলো? আগেতো কখন এরকম হয়নি। বাবা দেশ ছাড়ার পর থেকেই মা অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। মা হঠাৎ কিভাবে আমার উপর ঢেলে পড়লো এরকম হবার তো কোন কারন দেখছিনা। মা ইচ্ছে করেই আমার মুখের উপর তার পেট আস্টেপিস্টে রেখেছিলো। অনেক প্রশ্ন মাথায় ঘুরছিলো৷ সারাদিন ভেবেও এসব প্রশ্নের উত্তর পেলাম না৷ মায়ের পেটে নিজের মুখের আস্টেপিস্টে থাকার ক্ষনটা মনে পড়তেই কেমন যে শিহরণ কাজ করছিলো। ইচ্ছে হচ্ছে মায়ের পেটে মুখ ঘষি আর চুমু খাই। এভাবে সাতপাঁচ ভাবতে ভাবতে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরলাম। মা আমাকে দেখেই উচ্ছল্যের হাসি দিল বলল….

— কিরে তুই এসেছিস, স্কুল কেমন গেলো?.

— ভালোই মা ( মাকে তো আর বলতে পারছিনা তার পেট নাভি স্তন আমার মাথা হ্যাং বানিয়ে দিয়েছে।)

— তর বাবা আজকে টাকা পাঠিয়েছে। বাড়ি ভাড়া এখন আর সমস্যা হবে না। বহু দিন পর অনেক খুশি হচ্ছে জানিস।

— তাই নাকি মা তাহলেতো বেশ আর মা তোমার কোমড়ের ব্যাথাকি গিয়েছে? ( মাকে দেখে মনে হচ্ছে না কোমড়ে ব্যাথা, সুস্থই লাগছে।)

— ওহ হ্যা রে আগের থেকে একটু কমেছে কেউ মালিশ করে দিলে ভালো লাগতো।

মা বোধ হয় চাচ্ছিলো আমি যাতে নিজে থেকে বলি যে আমি মালিশ করে দেই৷ কিন্তু কোন অজানা ভয়ে আমার মালিশ করতে চাওয়ার কথা বলা হলো না। আমার রেসপন্স না দেখে মা কিছুটা আশা হতো হলো।
— সমস্যা নেই তুই খাবার টেবিলে বস তর জন্য খাবার বেরেছি। আজকে তর পছন্দের বিরিয়ানি বানিয়েছি।

— তাই মা! অনেক দিন হলো তোমার হাতের বিড়িয়ানি খাইনা বাহ বিরিয়ানির গন্ধে ঘর ভরে গেছে।

— জলদি ফ্রেশ হয়ে টেবিলে বস।

আমি ফ্রেশ হয়ে টেবিলে বসলাম। মা আমার খাবার বেড়ে দিচ্ছে। মা একটু লম্বা হওয়ায় একটু ঝুকে খাবার বেড়ে দিচ্ছে এতে মায়ের শাড়ির আচলটা অসুবিধা করছিলো৷ মা শাড়ির আচকলটা খুলে ফেলল আর তার পেট নাভি সম্পুর্ন উম্নুক্ত হয়ে গেলো।
মায়ের পেট নাভি এতোটাই মহনীয় ছিলো আমি নিজেকে নিয়ন্ত্রন করতে পারছি না ।
মা খাবার বেড়ে দেওয়া শেষ আমার ঠিক পাশেই দাড়ালো। মায়ের ঢেউ খেলানো পেট ঠিক আমার মুখের পাশেই।
আমি একটু সুযোগ পেলেই মায়ের পেটে নজর দিচ্ছিলাম আর বিরিয়ানি খাচ্ছিলাম। মা আমাকে সালাদ দেওয়ার জন্য একটু ঝুকতেই তার নাভি ঠিক আমার নাকের ডগার সামনে চলে আসে আর আমিও নাভির গন্ধ নেওয়ার চেষ্টা করি৷
নাভির মাতাল করা গন্ধ পেয়ে কেমন যেনো লাগছিলো।

— কিরে তোকে নার্ভাস দেখাচ্ছে কেনো ঠিকমতো খা

— না মা কিছু না, বিরিয়ানিটা অনেক মজা হয়েছে তো তাই আস্তে আস্তে স্বাদ নিয়ে খাচ্ছি।

— আর নাক টেনে যে গন্ধ নিলি, গন্ধটা কেমন? ( মুচকি হেসে চোখ টিপে বলল)

— কোন গন্ধ মা? ( কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে)

— আরে বিরিয়ানির গন্ধটা কেমন?

— ওহ আচ্ছা হ্যা অনেক সুন্দর গন্ধ, বিরিয়ানিটা একদম সেরা হয়েছে একটা রাইসো আজকে থাকবে না প্লেটে।

— তাই সোনা তর পছন্দ হয়েছে।

মা আমার প্রশংসায় খুশি হলো আমার গালে চুমু একে দিলো। খাওয়ার প্রায় শেষে আমার আচমকা হাচি আসলো। মা আমাকে সামনে নিলেন। আমি বিরিয়ানির প্লেট একদম সাফ করে দিলাম৷
আমি উঠতে যাবো মা আমায় থামিয়ে দিয়ে বললেন…..

— কি ব্যাপার উঠে যাচ্ছিস যে তুই না বললি বিরিয়ানি অনেক মজা হয়েছে একটা রাইসো রাখবি না। কিন্তু এখনো তো তিনটা রাইস বাকি।

— কোথায় প্লেট তো সাফ।

— প্লেট সাফ হলে কি হবে তুই যখন হাচি দিয়েছিলি তখন তিনটা রাইস উড়ে এসে আমার নাভির ভেতরে চলে গেছে। এই দ্যাখ একটা রাইস বাহির থেকে দেখা যাচ্ছে।

আমি মায়ের কথার কিছু বুঝতে পারলাম না। মা আসলে কি চাচ্ছে। আমি বোকার মতো কি করব ভাবছিলাম। মায়ের নাভির ভেতরে রাইস কখন গেলো এটাতো বেশি কাকতালীয় হয়ে গেলো।

— কিরে কি ভাবছিস এই তিনটা রাইস খাবি না।

— মা তিনটা রাইসতো নাভির একদম ভেতরে কিভাবে খাব, তুমি রাইসগুলো বের করো।

— না বাবা তোর উচ্ছিষ্টে আমি হাত লাগাবো না তুই যা করার কর।

আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না। মা আমাকে শুধু কনফিউজড সিচুয়েশনে ফেলছে৷ মা নিরবতা ভেঙে বলল… .

— কিরে রাইস খা কি হলো?

— কিভাবে খাবো?

— হায়রে বোকা ছেলে কিছু বুঝে না। আমার দিকে ঘুরে বস কাছে আয়।

আমি মায়ের কথা মতো মায়ের দিকে ঘুরে বসলাম আর একদম মুখের সামনে মায়ের নাভিটা।

— রাইসটা দেখা যায়?

— হ্যা একটা দেখা যায় বাকি দুইটা একদম নাভির তলদেশে।

মায়ের নাভিটা এতো মহনীয় লাগছিলো।মায়ের নাভি যে এতো গভীর আর প্রশস্ত যা আমার কল্পনার বাহিরে। এতো শৈল্পিক আর গভীর ছিলো নিজের অজান্তেই জিভে জল চলে আসছিলো। ইচ্ছে করছিলো জিভটা মায়ের নাভিতে ঢুকিয়ে নাচাই। মা হঠাৎ বলল….

— আচ্ছা তাহলে ফার্স্টে যে রাইসটা কাছে আছে সেটাতে তোর ঠোট সেট কর এরপর চুষ।

— আচ্ছা মা ( নাভিতে এই প্রথম আমি ঠোট লাগানোর সুযোগ পেলাম। নাভির মহনীয় গন্ধে মাথা ঝিমঝিম করছে। মনে হচ্ছে আমি সম্পুর্ন মায়ের বশে চলে এসেছি। মায়ের কথা মতো নাভিতে ঠোট সেট করার সাথে সাথেই কোন এক অন্য জগতে চলে গেলাম।নাভি সজোরে চুষতে শুরু করলাম।
চুষতে খুব সুখ পাচ্ছিলাম। আমার চোষনে একটা রাইস আমার মুখে চলে আসে কিন্তু বাকি দুইটা রাইস এখন নাভির তলদেশে ছিলো। দুই মিনিট টানা চুষে একটু ক্লান্ত কয়ে গেলাম। আমি চুষা থামিয়ে একটু দম নিলাম।)

— কিরে থামলি কেনো জোরে জোরে চুষলে সব রাইস চলে আসবে। ( একটু রাগান্বিত স্বরে জোরে জোরে শ্বাস নিতে নিতে বললো)

— না মা একটা রাইস এসেছে, বাকি দুটো নাভির একদম গভীরে তলদেশে আছে।

আচ্ছা আঙ্গুলটা নাভিতে ঢোকা দেখ কতটা গভীরে রাইস আছে।

— ঠিকাছে মা। ( নাভির ভেতরে আমার বুড়ো আঙ্গুলের পাশের আঙ্গুলটা ঢুকিয়ে দিলাম। মা ও চোখটা বন্ধ উম উম করতে লাগলো। মায়ের নাভির গভীরতায় আমার আঙ্গুল হারিয়ে গেলো। মায়ের এতো গভীর নাভি তা আমি ভাবিনি। এই গভীর নাভিতে জিভ ঢোকালে স্বর্গ থেকেও বেশি সুখ পাওয়া যাবে৷
আমি আঙ্গুল নাভির ভেতর ঢুকিয়ে নাভিতে উঙ্গলি করতে লাগলাম। আঙ্গুলের কারনে রাইস দুটো কিছুটা কাছে আসলো। এরপর নাভির ভেতরে ভালো করে লক্ষ্য করে দেখলাম রাইস দুটো অনেক কাছে চলে আসছে।)

— উম উম উম আহ আহ

— মা রাইসটা এখন কাছে আছে।

— আচ্ছা তাহলে এবার নাভিতে একটা রাম চোষন দে সোনা।

— আচ্ছা মা, ( আমি নাভিতে ঠোট ঠেসে ধরে শক্তি দিয়ে চুষা শুরু করলাম। টানা এক মিনিট চুষে কোন লাভ হলো না। আমি চোষন থামিয়ে দিলাম)

— কিরে চোষ আরো জোরে জোরে চোষ।

— যতোই জোরে চুষি লাভ নেই মা।

— আচ্ছা তাহলে এবার ঠোটটা নাভিতে একদম শক্ত করে ঠেসে ধরবি এরপর চোষার সাথে তোর জিভটা নাভিতে ঢুকিয়ে দিবি। জিভটা নাভিতে ঢুকিয়ে রাইসটা জিভে নেওয়া চেষ্টা করবি। আমি তোর মাথা আমার পেটে চেপে ধরবো যাতে তোর সুবিধা হয়। তুই রেডি?

আমি মায়ের কথা শুনে সুখে হাসবো নাকি কি করবো বুঝতে পারছিলাম না। মা আমার মুখটা তার পেটে চেপে ধরলো এরপর আমিও ঠোটটা তার নাভিতে ঠেসে ধরে চুষা শুরু করলাম। আমার লালায় মায়ের নাভি ভিজে গেলো। চুষনের টানে মা আহ আহ করতে লাগলো। মা আমার মাথায় একটা চাপড় দিয়ে জিভের খেলা খেলতে বলল। আমিও জিভটা মায়ের নাভিতে ঢুকিয়ে দিলাম। মায়ের প্রশস্ত ও তীক্ষ্ণ হওয়ায় খুব সহজেই আমার জিভকে গিলে নিলো৷ জিভটা মায়ের নাভিতে ঢোকাতেই মা পাগলের মতো আহ উহ করতে লাগলো আমিও জিভটা লাগলের মতো নাভির ভিতরে নাড়াচ্ছিলাম। জিভটা দিয়ে নাভির ভেতরের সম্পুর্ন অংশ চাটছিলাম। জিভটা নাভিতে অনবরত নাড়াচ্ছি আর চুষছি। এভাবে টানা ৫ মিনিট অনাবরত নাভি চোষন আর নাভির ভেতরে চাটাচাটিতে আমার লালায় নাভি পুর্ন হয়ে গেলো। লালায় রাইসদুটো ভেষে আমার মুখে চলে আসলো। রাইসটা খাওয়ার পরো আমি চোষ চাটাচাটি চালাচ্ছিলাম। মা আমার মুখটা তার পেটে একদম ঠেসে ধরে আছে।

আমি আমার নাক মায়ের পেটে তলিয়ে যাচ্ছে। আমি শ্বাস নিতে পারছিলাম না। এভাবে দশ মিনিট চাটাচাটি চোষনের পর শ্বাস প্রশ্বাসে কষ্ট হওয়ায় আমি মুখটা সরিয়ে ফেলি৷
মা ও চেয়ারে বসে পড়লো। দুজনেই দম নিতে থাকলাম। মা এখন চোখ বন্ধ করেছিলো।

— মা বাকি দুইটা রাইস খেয়েছি।

— হ্যা অবশেষে

— হ্যা মা অনেক ভালো লেগেছে আজকের খাবারটা। স্পেশালি শেষ তিনটা রাইস অমৃত লেগেছে।

— হা হা হা তা বেশ ভালো বলেছিস। ভালো তো লাগবেই শেষ তিনটা রাইসে আমার নাভির ফ্লেভার ছিলো তো তাই।

— হ্যা..

— যখন তুই আমার পেটের ভেতর ছিলি তখন এই নাভি থেকেই তোর শরীরে খাদ্য গেছে। যেভাবে আজকে আমার নাভি থেকে খেলি আগের স্মৃতি মনে পড়ে গেলো।

— ওহ আচ্ছা মা। ঠিকাছে মা আমি তাহলে স্যারের বাসায় পড়তে গেলাম দেরি হয়ে যাচ্ছে।

— আচ্ছা যা কিন্তু দেরি করিস না।

— আচ্ছা মা।

আমি একটু আগের ঘটে যাওয়া ঘটনায় সুখ পাবো নাকি কনফিউজড হবো বুঝতে পারছিলাম না। ভাবছিলাম এটা কি স্বাভাবিক ঘটনা। মা আজকে এভাবে তার নাভি চুষতে দিবে এটা আমার কল্পনার বাহিরে ছিলো। যাই হোক নাভি চেটে চুষে আনন্দতো পেয়েছি এটাই অনেক বড় পাওয়া।
কিন্তু একটা বিষয় ছোট বেলায় পেটে থাকতে নাভির মাধ্যমেই খাবার খেয়েছি তাহলে বড় বেলায়ও কি এইজন্য মায়ের পেট নাভির চুষার ইচ্ছা জাগে। আর অন্যান্য ছেলেরাও কি আমার মতো তার মায়ের পেট নাভি উপভোগ করতে চায়? কোন প্রশ্নের উত্তর মিলাতে পারছিলাম না। এসব ভাবতে ভাবতে স্যারের বাসায় পড়তে চলে গেলাম। ভেবেছি আজকের ঘটনা বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবো কিন্তু সময়ের কারনে করা হলো না।

রাত আটটার দিকে বাসায় চলে আসলাম। হঠাৎ খেয়াল করলাম মা কার সাথে যেনো ফোনে লাউডস্পিকারে কথা বলছে। আমি একটু কান পেতে কথপোকথন শুনলাম…..

— হ্যা রে তোর আইডিয়াটা জমপেশ কাজে লেগেছে।

— হা হা হা বলেছিলাম না, তুই শুধু শুধুই ভয় পাচ্ছিলি দেখলিতো তর আশা পুরন হয়ে গেলো।

— হ্যা রে আর আমার ছেলেটা যে এতো বোকা কিছু বুঝে না। কয়েকদিন যাবৎ ওকে পেট নাভি দেখাচ্ছি কিন্তু কোন রেসপন্স পেলাম না। আজকে তোর আইডিয়া কাজে লাগাতেই আমার বোকা ছেলেটা যেভাবে নাভি খেল রে ওফ সেই সুখ পেয়েছি।

— হা হা হা বলেছিলাম না তোর ছেলেও তোর মতো ফেটিস হবে। তোর বর তো আর তোর ফেটিস পুরন করবে না তোর ছেলে ঠিকই পুরন করবে।

— হ্যা যেভাবে আজকে নাভিটা টেনে টেনে চুষেছে নাভির ভিতরে যেভাবে জিভ গেথে চাটাচাটি করেছে আমার তো অর্গাজম হয়ে গিয়েছিলো। আমার নেভেল ফেটিস আর বুবস ফেটিসের ব্যাপারে আমার বর কোন আগ্রহ দেখায়নি তার শুধু ঢোকানো আর বের কর করতে পারলেই হলো।

— ভালোই হয়েছে তর বর বিদেশে, এখন ছেলে দিয়ে তর সব ফেটিস ফিলাপ করতে পারবি।

— হ্যা ঠিক বলেছিস। কিন্তু ও যদি বাহিরের কাউকে বলে দেয়?

— না এরকম করবে না তুই ওকে ভালো করে বুঝিয়ে বললেই হবে।

— আচ্ছা তোর ছেলে আজ পর্যন্ত সবকিছু গোপন রেখেছে তুই শিউর?

— হ্যা অবশ্যই আমার ছেলে আমার একটা কথার অমান্য করে না, আমার শরীর দিয়ে ওকে আমার হাতের পুতুল বানিয়েছি।

— তুই খুব ভাগ্যবাতীরে এরকম মান্য করা ছেলে পেয়েছিস। তোর ছেলে এখন কোথায়?

— ওহ আমার ছেলে, ও তো আমার পেটে চুমু খাচ্ছে। অবসর সময় পেলেই আমার পেটেই চুমু খায়। তোর সাথে কথা শেষ হলেই ওর জিভ নাভিতে পুরে নিবো।

— বাহ তোরই সুখ বোন। দেখি আজকে আমারটার কি করা যায়। আচ্ছা বোন ফোন রাখ তাহলে আমার ছেলে হয়তো চলে আসবে তুই আনন্দ কর রাখি৷

তাদের কথোপকথন শুনে আমার মাথা হ্যাং হয়ে যাচ্ছে৷ তার মানে প্রতিটা ছেলেই তার মায়ের পেট নাভির চুষার ইচ্ছা জাগে। মা কি তাহলে আমাকে তার পেট নাভি খাওয়াতে চায়? আমর চোষন চাটাচাটি উপভোগ করতে চায়? কি হচ্ছে এগুলা। কিছুই মাথায় ঢুকছিলো না।

আমি যে তাদের কথোপকথন শুনেছি বুঝতে দিলাম না। আমি আমার পড়ার রুমে গিয়ে পড়তে লাগলাম।

আরো খবর  মামি শাশুড়ি ০৩