New Bangla Panu Golpo – স্পার্ম ডোনার (পর্ব ২ )

সেদিনের ঘটনার পর সপ্তাহখানেক কেটে গেছে, একদিন দুপুর বেলা আমি আর দিদি খাচ্ছি দিদি বলল ,
“তোর জামাইবাবুকে রাজি করিয়েছি টেস্ট করানোর জন্য অনেক কষ্টে। আমি যে টেস্ট করিয়েছি সেগুলো ও দেখিয়েছি, তবে তুই যে ছিলিস এসব এ সেটা কিন্তু ও জানেনা ওকে?”
আমি- আমি কিছু বলব না চাপ নিসনা সে ব্যাপারে।
দিদি- হ্যাঁরে। তোর জামাইবাবুর এখন কেমন রিপোর্ট আসে দেখি, পরশু যাচ্ছি টেস্ট করাব আগে তারপর রিপোর্ট পেলে ডাক্তার দেখাব।
আমি মনে মনে খুশি হলাম যে কিছু তো কাজ এগিয়েছে এদের। ৩-৪ দিন কেটে গেছে, ওরা টেস্ট করিয়েছে, রিপোর্ট দেখিয়েছে ডাক্তারকে, তারপর দেখি দিদি আবার আগের মত ঝিমিয়ে রয়েছে যেন আবার।আমি বুঝলাম যে রিপোর্ট ভালো আসেনি। তাও একদিন সুযোগ পেয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “কিরে রিপোর্ট কেমন এল? ডাক্তার কি বলল?”
দিদি- রিপোর্ট একদম ভালো নয় রে ভাই। ওর স্পার্ম কাউন্ট খুব কম। ডাক্তার ওষুধ দিয়েছে কিন্তু বলেছে চান্স খুব কম প্রেগন্যান্ট হওয়ার। বলেছে বেটার হবে স্পার্ম ব্যাংক এর সাথে যোগাযোগ করলে। ওকে তো জানিস ও এটা কিছুতেই মেনে নেবে না। জানি না রে কি হবে। আমি বোধহয় আর কোনদিন মা হতে পারবো না। আর সবাই আমাকেই কথা শোনাবে সুযোগ পেলেই।
দিদির চোখ গুলো ছলছল করছিল। আমি কি বলব বুঝতে না রে চুপচাপ ফিরে এলাম নিজের রুমে। মনটা ভীষণ খারাপ হয়ে গেল কিন্তু কিছু করার ছিল না।
এরপর মাস দুয়েক কেটে গেছে। দিদি একটু চুপচাপ হয়ে গেছে ,সারাক্ষণ নিজের ঘরে বা রান্নাঘরে থাকে, কথাই বলে না প্রায়। যখন একটু হাসি আসে মুখে তখন বোঝা যায় সেটার পিছনে কতটা কষ্ট চাপা আছে।
খুব খারাপ লাগতো দিদিকে দেখে।খুব আসহায় লাগতো নিজেকে,তাই ঠিক করলাম আর দিদির বাড়িতে থাকবো না। একদিন চুপ করে বসিয়ে দিদিকে বুঝিয়ে বললাম আমার মনের কথা। দিদি আচমকা ভীষণভাবে কেঁদে ফেলল!
দিদি- প্লিজ ভাই এরম বলিস না। আমার যতটুকু খুশি আছে জীবনে সে তো তোকে নিয়েই। তোর জামাইবাবুর সাতে সম্পর্কটা তো বিছানায় ওই রাতটুকু সেক্স এর টাইম টা, সেটাও এখন বিরক্ত লাগে। তুই চলে গেলে আমার কি হবে বল! প্লিজ!
আমি- আমি তোকে এভাবে দেখতে পারছি না রে আর। খুব অসহায় লাগে, কিছু করতে পারিনা আমি তোর কষ্ট কমাতে!
দিদি- ভাই তোকে একটা কথা বলব? তুই আমায় খারাপ ভাববিনা তো?
আমি- বল।আমি কিছু মনে করব না।
দিদি- তোর থেকে আমার একটা হেল্প চাই রে। তোকে জোর করব না।ডিসিশন টা তোর। তুই না বলতে চাইলে না বলিস কিন্তু আমায় খারাপ ভাবিস না প্লিজ।
আমি- আচ্ছা তুই বল আমি কিচ্ছু মনে করব না।
দিদি- প্রমিস তো? পাক্কা তো?
আমি- হ্যাঁ রে, প্রমিস!
দিদি- বলছি কি… শোন না… তোর তো স্পার্ম কাউন্ট খুব ভালো। তুই আমায় স্পার্ম ডোনেট করবি? যার তার স্পার্ম আমি নিতে চাইনা, কিন্তু তুই তো যে সে নয়। তোকে আমি ভরসা করতে পারি।
আমি- কি সব বলছিস! আমি তোকে স্পার্ম ডোনেট করব?তোর কি মাথা খারাপ? আমি না তোর ভাই!
দিদি- তুই ই আমার শেষ আশা রে! আমি এটা নিয়ে অনেক ভেবেছি বিশ্বাস কর! এটা ছাড়া আর আমার কোনো রাস্তা নেই মা হওয়ার!
আমি- আচ্ছা তর্কের খাতিরে ধর আমি রাজি হয়েও গেলাম। কিন্তু তারপর? তোর বর তো এটা একদম চায়না! ও এটা মেনে নেবে? তোর বাচ্চা বড় হলে আমি যখন তার সাথে কথা বলব, খেলবো , তোর বর সেটা দেখে রাগে জ্বলে যাবে না!?
দিদি- জানি রে ও কিছুতেই রাজি হবে না। তাই আমি ঠিক করেছি ওকে কিছু জানাবোই না । শুধু আমি জানবো আর তুই।
আমি- দিদি তুই এত ভাবলি আর এটা ভাবলি না যে এটা এক ঘণ্টায় ডাক্তার দেখানো নয় যে তোর বর কে লুকিয়ে করা যাবে। অনেক নিয়ম আছে। নিশ্চয়ই স্বামী স্ত্রী দুজনের সই ও লাগবে, তখন কি করবি?
দিদি – শোন, আমি সব ভেবেই তোকে বলছি। তোকে যেটা বলব তুই প্লিজ খারাপ ভাবে নিবি না! আমি জানি ওভাবে করতে গেলে হবে না। তাই আমরা কাজ টা করব যে ভাবে নরমাল কাপলরা করে সেভাবেই!
আমি- মানে?
দিদি- মানে তুই যা বুঝছিস তাই!
আমি- মানে তুই বলছিস…তুই আর আমি…সেক্স…না না আমি পারবো না এটা তুই প্লিজ আমায় এই অনুরোধ টা করিস না!
দিদি- ভাই আমি জানি তোকে আমি এমন একটা জিনিস বলছি যেটা তুই হয়ত কোনদিন কল্পনাও করিস নি যে আমি বলব। বিশ্বাস কর আমিও ভাবিনি যে তোকে এটা বলার মত পরিস্থিতি তৈরি হবে। কিন্তু এখন আমি যা করতে হয় করব মা হওয়ার জন্য। তোর সাতে সেক্স করতে হয় তাও করব আমি! প্লিজ তুই আমার উপর রাগ না করে একটু ভেবে দ্যাখ কথাটা। আমি বলছিনা যে তোকে এখনি সিদ্ধান্ত নিতে। সময় নিয়ে ভাব। তুই না বললে আমি তোকে আর কোনদিন এটা নিয়ে জোর করব না।কিন্তু আমি চাই তুই হ্যাঁ বলিস
আমি – আমার মাথা কাজ করছে না! আমায় এখন যেতে দে আমি পরে ঠাণ্ডা মাথায় ভেবে দেখব!
দিদি- ঠিক আছে রে। প্লিজ আর যাই কর আমার উপর রাগ করে চলে যাস না ।প্লিজ…
কোনো রকমে ওই পরিস্থিতির থেকে বেরিয়ে এলাম। টিউসান ছিল কিন্তু পড়ানোয় মন ছিল না। দিদির কথা গুলো মাথায় ঘুরছিল শুধু। শরীর খারাপ এর আজুহাত দিয়ে একটা পড়ানো কামাই করে বাড়ি ফিরে এলাম। জামাইবাবু ফিরে এসছে ততক্ষণে। ওর সামনে আমরা দুজনেই নরমাল থাকার প্রানপণ চেষ্টা করছিলাম। দুজনের চোখাচোখি হলেই দুপুরের কথা গুলো মনে পড়ে যাচ্ছিল। কোনও রকমে খাওয়া শেষ করে নিজের রুম এ ফিরে এলাম। হাজার রকম চিন্তা ঘুরছিল মনে। ভাবতে ভাবতে কখন ঘুমিয়ে গেছি জানিনা। ঘুমের ঘোরে স্বপ্ন দেখলাম , একটা বিছিনায় আমি আর দিদি সেক্স করছি আর পাশে একটা বাচ্চা শুয়ে দোলনায় দোল খাচ্ছে!
পরদিন আমি দিদির প্রতি আলাদা একটা শারীরিক আকর্ষণ অনুভব করলাম! দিদি কাজ করছিল আমি লুকিয়ে ওর শরীরটা দেখলাম ভালো ভাবে! আমি রাজি হলেই এই শরীরটা পেয়ে যাব আমি !দিদি কে দেখে পুরুসাঙ্গ শক্ত লোহার মত হয়ে যাচ্ছিল বারবার! দিদির পুরনো ছবি মোবাইল এ দেখে মৈথুন করলাম দুবার! দিদির সাতে সেক্স করার জন্য ভিতর ভিতর পাগল হয়ে গেলাম! মনে হচ্ছিল দিদিকে আমার সারা জীবনের মত করে চাই নিয়মিত ভাবে! এক নতুন চিন্তা পেয়ে বসলো! দিদি হয়ত ৩-৪ বার সেক্স করবে আমার সাথে কিন্তু তারপর যদি ও প্রেগন্যান্ট হয়ে পড়ে তাহলে আর কোনোদিন ওর সাথে সেক্স করা হবে না! ঠিক করলাম আমার টার্গেট শুধু দিদিকে প্রেগন্যান্ট করাই নয় , সঙ্গমের সময় ওকে এতটা সুখে পাগল করে তোলা যাতে ও আমার সাথে শোয়ার জন্য তার পরেও ছটফট করে!
(চলবে)
প্রথম বার লিখছি , কোনও মতামত থাকলে কমেন্ট এ জানাতে পারেন বা মেইল করতে পারেন আমায় । আমার আইডি

আরো খবর  আমার সেক্সী মা ও তার বান্ধবীর দেবরের বন্ধু