সাধারন মায়ের দুশ্চরিত্রা নারী হবার কাহিনী- পর্ব ৯



আমাদের পিসেমশাই আর তার বন্ধুর সঙ্গে সিনেমা দেখতে যাওয়ার ঘটনার একসপ্তাহ কাটলো না, পিসেমশাই মার সঙ্গে আবারও কথার খেলাপ করল। মা কে এই অভিশাপ থেকে মুক্তি দিল না। বার বার কাকুতি মিনতি করলেও পিসেমশাই শুনলো না। ঠাণ্ডা গলায় শাসানি দিয়ে আরো একবার তার বন্ধু স্থানীয় এক জন এর সঙ্গে মা কে এক বিছানায় শুতে বাধ্য করল।

পিসেমশাই এর বক্তব্য ছিল নিজের স্বার্থ রক্ষার পরিপন্থী, মার অসহায় একা
থাকার পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে বোঝালো, ” লোকটা এসেই যখন পড়েছে , শুয়েই পড়। এ কিন্তু রগচটা লোক আছে হ্যা, ওর চাহিদা না মেটালে একটা বাজে সিন ক্রিয়েট হবে, প্রচুর চিল্লা মিল্লি হবে, আমি ভয় পেয়ে যাবো , প্রতিবেশীরা বেশি আওয়াজ হলে ছুটে আসবে, সব জানাজানি হয়ে যাবে, পরিবারের মান সন্মান যাবে, তোমাদের এই পাড়াতে টেকা দায় হবে। কি দরকার তার থেকে লক্ষ্মী মেয়ের মতন আপ্যায়ন কর। যা যা বলছে শোনো, ওকে খুশি করে দাও। দেখবে আজকের পর থেকে আর কোনো অস্বস্তিতে পড়তে হচ্ছে না।”

আমাদের পরিবারের মান সন্মানের কথা চিন্তা করে মা আরো একবার দাতে দাত চেপে পিসেমশাই এর বন্ধু সাজিয়ে আনা ঐ অচেনা মানুষ এর সঙ্গে দুই ঘন্টা দাদু ভাই এর ঘরে বন্ধ দরজার ভেতরে কাটাতে বাধ্য হল।

মাঝরাতে জল তেষ্টা পাওয়ায় আমার ঘুম ভেঙে গেছিল পিসেমশাই তখনও আমাদের ঘরে বসে রঙিন পানীয় পান করে যাচ্ছিল। ঐ সব খাওয়ার পর পিসেমশাই সুস্থ স্বাভাবিক থাকত না, তাকে পাল্টে যেতে দেখতাম উনি ঐ সময় নিজের মধ্যে থাকতেন না। আমি জিজ্ঞেস করলাম, মা কোথায় গেল? আমি জল খাব। পিসেমশাই জল এর বোতল এগিয়ে গিয়ে একটা রহস্যময় হাসি হেসে পাশের ঘর এর দিকে ইশারা করলো। আমি এক লাফে বিছানা থেকে নেমে পাশে দাদু ভাই এর ঘর এর দিকে ছুটলাম। দরজা ছিটকিনি আটকানো ছিল, হাতল ধরে টান মারলে যদিও ঐ ছিটকিনি আমি চেষ্টা করলেই খুলতে পারতাম কিন্তু সাহসে কুলালো না। ভেতর থেকে মার চাপা গলায় “আআহ উমমম মাগো পারছি না, ছাড়ুন, আমার ভেতরটা ছিড়ে যাচ্ছে। উমমম মা গো…..” শব্দ ভেসে আসছিল।

মা যে ঘরের ভেতর খুব একটা ভালো নেই সেটা ঐ বয়সেই বুঝতে আমার বাকী ছিল না।পিসেমশাই কিছুক্ষন পর এসে আমার পাশে দাঁড়ালো, দরজায় নক করলো, সাথে সাথে মার গলার শব্ধ কমে গেল। ভেতর থেকে ঐ ব্যক্তি বিরক্ত স্বরে বলল, “what’s??”

পিসেমশাই, ” দুই ঘণ্টা হয়ে গেছে স্যার, এবার ওকে তো ছাড়ুন..। গাড়ি ড্রাইভার সমেত অপেক্ষা করছে। ”

এই বলে পিসেমশাই আবার দরজায় নক করল, ব্যক্তি দরজা খুললেন টপলেস হয়ে শুধুমাত্র একটা আন্ডার ওয়্যার পরে এসে, দরজা খুলে মেজাজ দেখিয়ে এক তাড়া নোট পিসেমশাই এর হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলল , “দুই ঘণ্টা হয়ে গেছে তো কি হয়েছে আমি আরো দুই ঘণ্টা থাকবো। এরকম মাল খুব নসীব করে পাওয়া যায়। গলা একদম শুকিয়ে গেছে তুমি ড্রাইভার কে নিয়ে যাও তেল নিয়ে এসো।”

পিসেমশাই : ” ঠিক আছে আপনার যখন এত পছন্দ হয়েছে মন ভরে আনন্দ করুন। তবে দুই ঘণ্টা না আর একটা ঘন্টা যা ইচ্ছে তাই করুন। আর এত রাতে ওসব দোকান খোলা পাওয়া যাবে না। আমার কাছে যতটুকু স্টক আছে পাঠিয়ে দিচ্ছি, ঐ টা নিয়ে ম্যানেজ করুন।”

ঐ ব্যক্তি পিসেমশাই এর কথা মেনে নিল। পিসেমশাই পাশের ঘর থেকে একটা বোতল নিয়ে আসলো তাতে অর্ধেক পানীয় তখনও অবশিষ্ঠ ছিল। বোতলটা হাতে নিয়ে ঐ লোকটি খুশি হয়ে ঘরের ভেতর খাটে চলে গেল তারপর গ্লাসে ঢেলে চুমুক দিয়ে ঐ পানীয় খেতে লাগল। পিসেমশাই বোতল দিয়ে ঐ ব্যক্তির দেওয়া টাকা গুলো গুনতে গুনতে আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো। তারপর ঘাড় বাকিয়ে ঘরের ভেতরে খাটের উপর ইশারা করল।

আর ঐ লোকটা পিসেমশাই এর হাত থেকে বোতল পেয়ে এতটাই বিভোর ছিল। দরজা বন্ধ করতেই ভুলে গেছিল। পিসেমশাই টাকা গুনতে গুনতে ঘরে চলে আমাকে ওখানেই রেখে। আমি খোলা দড়জা পেয়ে ঘরের ভেতর উকি দিলাম। দেখলাম খাটে মাথার দিকে হেলান দিয়ে বসে ঐ ব্যক্তিটি এক মনে গ্লাসে পানীয় ঢেলে পান করছে। মা লোকটার পায়ের দিকে মাথা দিয়ে লোকটা যেখানে বসে আছে সেখান পা রেখে হাঁটু উচু করে শুয়ে ছিল। লোকটা মাঝে মাঝে মার অনাবৃত থাই এর উপর হাত বোলাচ্ছিল। মার মাথার চুল গুলো ছিল খোলা কিছুটা চারপাশে ছড়িয়ে ছিল, আর বেশির ভাগ অংশটা নিচে মেঝের দিকে ঝুলছিল। মার হাঁটু উচু করা ছিল থাই আর পায়ে কোনো কাপড় ছিল না, ব্লাউজ আর সায়া খাট এর নিচে পড়ে ছিল। শাড়ীটা জড় করে বুক আর পেটের অংশটায় ঢেকে রেখেছিল।

লোকটা বোতল থেকে পানীয় দুই গ্লাস ঢক ঢক করে অল্প সময়ের মধ্যে খেয়ে গ্লাসে বোতল এর অবশিষ্ঠ পানীয় গ্লাসে ঢেলে নিজে চুমুক দিয়ে সেই এতো করা গ্লাস মার মুখে ধরল। মা প্রথমে সরিয়ে দিলে ও দুই হাত দিয়ে জোর করে চেপে ধরায় বেশিক্ষণ প্রতিরোধ করতে পারল না। কাশতে কাশতে গ্লাসে থাকা পানীয় টা গিলে নিতে বাধ্য হল। গ্লাস খালি হতেই ঐ ব্যক্তি গ্লাস টা খাটের পাসে টেবিলের উপর বোতল এর পাসে শব্দ করে রেখে, বলা নেই কওয়া নেই হুট করে ঝাঁপিয়ে পড়ল মার বুক লক্ষ্য করে, মার বুকের উপর জড় করা কাপড়টা টেনে সরাতে চাইল। কিন্তু মা খুব শক্ত করে ধরে রেখেছিল। ওটা সরাতে পারলেই মার বুক পেট উন্মুক্ত হয়ে যাবে। মার সঙ্গে বিছানার উপর ধস্তা ধস্তি শুরু হল। খাটের উপর ধস্তা ধস্তি শুরু হতেই খাটটা খুব জোরে জোরে নড়তে লাগলো।

লোকটা জোর জবরদস্তি বুকের উপর থেকে কাপড় সরিয়ে দিতে বল প্রয়োগ করতে লাগলো। মা ভয় পেয়ে পিসেমশাই এর নাম ধরে ডাকতে লাগল। পিসেমশাই এর নাম দুবার ডাকার পরেও সারা না পাওয়ায় মা আস্তে আস্তে কেমন যেন একটা হাল ছেড়ে দিল।মার হাতের মুঠো আলগা হয়ে যেতেই, ঐ ব্যক্তি বুকের উপর থেকে কাপড়টা সরানোর মওকা পেয়ে গেল। ঐ লোকটা মার বুকের ওপর জড় হওয়া কাপড় নিয়ে ছুড়ে দরজার সামনে ফেলল, ঠিক আমি যেখানে দাঁড়িয়ে আছি তার সামনে এসে শাড়িটা উড়ে এসে পড়ল। তারপর খাটটা খুব জোরে নড়তে লাগলো। মার চাপা স্বরে ফোপানি ভেসে এল। মা কে ঐ প্রথম উদম নগ্ন দেখলাম, সেই দৃশ্য মনে করলে আজও গায়ে কাঁটা দেয়, পিসেমশাই আর ঐ ধুমসো লোকটার উপর খুব রাগ হয়, মার ফরসা শরীর, মেদ হীন কোমর , উন্নত বাতাবি লেবুর মতন এক জোড়া স্তন গোলাপী ঠোট, ঐ কুৎসিত লোকটার হাতে বিছানার উপর পিশ্ ছিল। লোকটা মার বাদামি স্তন এর বোটা দুটোকে জিভ লাগিয়ে চুষছিল। মার কাধ হাত জোড় ঠোট চিবুক গলা বগল কোনো কিছুই লোকটার জিভ আর ঠোটের হাত থেকে বাঁচল না। দেখতে দেখতে খাট নড়া বেড়ে গেল, মা যন্ত্রণায় কষ্টে মৃদু স্বরে চিৎকার করছিল।আমার আর এসব দেখতে ভালো লাগছিল না।

ঐ ধুমসো লোকটা এত ভারী চেহারা নিয়ে মার উপর চড়ে মা কে কষ্ট দিচ্ছিল, লোকটা কোমর টা নাড়াচ্ছিল, তার সাথে খাটটা নড়ছিল। আমার এই দৃশ্য দেখতে ভাল লাগছিল না। আমি এক ছুটে আমাদের ঘরে এসে বিছানায় এসে শুয়ে পড়লাম। পিসেমশাই জেগেই ছিল।

আমাকে দেখে পিসেমশাই হাসলো, বলল, ” তোমার মা কিরকম আনন্দ করছে দেখলে, তোমার মা একটা জিনিস। যে একবার ওকে নিয়ে শোবে না সে বার বার করতে চাইবে। আচ্ছা এইসব কথা আর কাউকে বলবে না কেমন? ”

আমি: “পিসে লোকটা খুব বাজে, খুব বাজে, মাকে আটকে রেখে খালি কষ্ট দিচ্ছে। মা তো ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাদছে। এটা কি ধরনের আনন্দ?”

পিসেমশাই : “না বাবু, বড় মেয়েদের যখন আনন্দ পায় তখন তারা এরকম করে আওয়াজ করে। তুমি কাউকে এসব বলো না কেমন..? মা কেও না।”

আমি: “ঠিক আছে পিসে কাউকে বলবো না। আচ্ছা মা কি আজকেও আমার পাশে ঘুমোতে আসবে না?”

পিসেমশাই: ” না বাবু তুমি তো বড় হচ্ছ, কয় মাস পরে নতুন ক্লাসে উঠবে, এখন মা কি সবসময় তোমার সঙ্গে ঘুমাবে বল? কদিন পর বাবা ফিরলে তোমরা আমাদের বাড়ির কাছাকাছি নতুন বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করবে। রোজ আমি পিসি দুজনেই তোমাদের সঙ্গে দেখা করতে আসবো, এত এত খাবার গিফট নিয়ে আসবো, ওখানে তোমার জন্য আলাদা একটা ঘরও থাকবে। কত মজা হবে বলো তো।”

আমি: ” সত্যি আমরা নতুন বাড়িতে যাবো?”

পিসেমশাই: ” তবে আর বলছি কি দেখবে কত মজা হবে আমরা একসাথে বেড়াতেও যাবো। তুমি আমি মা আর পিসি আর একটা আঙ্কেল। ঘুমিয়ে পড় তো। তুমি যদি এখন না ঘুমাও দেখবে মা তোমাকে নতুন বাড়িতে নিয়ে যাবে না।”

আমি চোখ বন্ধ করে ঘুমানোর চেষ্টা করলাম। কিছু খন পর মার গলার আওয়াজ পেলাম। পিসেমশাই উঠে পাশের ঘরে চলে গেল। কিছুক্ষন পর বাইরে একটা গাড়ি থামার শব্দ হল, দরজা খুলার শব্দ পেলাম আবার দরজা বন্ধ করে দেওয়ার শব্দ পেলাম।

আরো কিছুক্ষন কান খাড়া করে শোনার পর মার গলার আওয়াজ পেলাম, মা পিসেমশাই কে বলছিল, ” আমাকে পাশের ঘরে ছেলে তার কাছে যেতে নিন। আর পারছি না আমি। ক্লান্ত বিধ্বস্ত, ঐ লোকটা আমাকে পুরো নিংড়ে নিয়েচে। আপনার সঙ্গে এখন করতে পারবো না। আমি দাড়িয়ে থাকতে পারছি। ঐ সব ছাই পাশ খাইয়েছে দাড়িয়ে থাকতে পারছি না। মাথা ঘুরছে, আমার হাত ছাড়ো। আমাকে যেতে দাও।”

মার গলার আওয়াজের পর পিসেমশাই এর গলার আওয়াজ ও স্পষ্ট পেলাম পিসেমশাই বেশ জোরে মা কে দাবড়ে দিয়ে বলছে, ” ভালো কথা বলছি ঘরের ভেতর ঢোকো, দরজায় দাড়িয়ে রোজ এই নাটক ভালো লাগে না আর। কি হল ভেতরে ঢুকবে না তো। ঠিক আছে চল ঐ ঘরে যাই ছেলের সামনেই সব কিছু করি। বলি মুখ দিয়ে ভুর ভুর করে হুইস্কির স্মেল বেরোচ্ছে এই অবস্থায় ছেলের পাশে গিয়ে শুলে ও যদি জিজ্ঞেস করে তুমি কি খেয়েছ মা? আমিও খাবো, তার জবাব দিতে পারবে তো?”

মা চুপ করে গেল। ঠিক আছে আসছি, একবার পাশের ঘর থেকে ওকে দেখে আসছি।

পিসেমশাই: ” এই তো সোনা মেয়ে, দাবড়ানি দিয়েছি অমনি লাইনে এসেছ। কেন এরকম করো বলো তো? ভাল করে ভদ্র ভাবে বললে কানে কথা ঢোকে না নাকি। তোমার সাথে গলা উচিয়ে আমার কথা বলতে ভালো লাগে না। তাও রোজ রোজ একি জিনিস করতে বাধ্য কর।ঠিক আছে কী হয়েছে? আবার চোখে জল কেন? ছেলের কাছে যাবে তো । ঠিক আছে যাও চট করে এসো। আর শোনো আমার ব্যাগ তার ভেতরে একটা দিশি মালের বোতল আছে। নিয়ে এসো তো।

মা: ” এই তো গিললেন। আর না খেলেই নয়?”

পিসেমশাই: ” তুমি তো জানো মাল না খেলে আমি করতে পারি না। আজকের এই লোকটার বায়নাক্কা সামলাতে সামলাতে পুরো নেশা চটকে গেছে মাইরি। একটু গলা ভিজিয়ে নিয়ে একটু আদর করে তোমাকে ছেড়ে দেব। আমার কাধের ঝোলানো ব্যাগের ফার্স্ট চেইনটা খুললেই বোতলটা পেয়ে যাবে, উমমমমমা আর জেদ করে না সোনা, নিয়ে আসো। তোমাকেও টেস্ট করাবো। না না বললে হয়? এই তো বললে শরীর দিচ্ছে না। খেলে দেখবে তেজী ঘোড়ার মতন টগবগ করে শরীরটা ছুটছে। যাও নিয়ে এসো।”

চলবে……

( এই গল্প কেমন লাগছে কমেন্ট করুন সরাসরি মেসেজ করতে পারেন আমার টেলিগ্রাম আইডি @SuroTann21)

আরো খবর  মুখোমুখি বধু বিনিময় – ২