পদোন্নতির স্বার্থে গুদাহুতি – ২

পরের দিন থেকে আমি চাকরী আরম্ভ করলাম। এবং কিছুক্ষণের মধ্যেই স্যারের সাথে খূবই ফ্রী হয়ে গেলাম। স্যার সেদিনও আমার পেলব, মসৃণ এবং অর্ধ উন্মুক্ত দাবনা দুটির দিকে অনেকবার তাকিয়ে ছিলেন। হয়ত উনি মনে মনে নিজের রূপসী সেক্রেটারীর দাবনায় হাত বুলাতে চাইছিলেন কিন্তু মুখে কিছুই বলতে পারছিলেন না।

কাজের শেষে অফিসের সমস্ত কর্মী বাড়ি চলে গেল, অফিসে শুধুমাত্র আমি এবং স্যার রয়ে গেলাম। স্যার বললেন, “সারিকা, তোমার যদি বাড়ি ফেরার তাড়া না থাকে তাহলে চলো, আমরা দুজনে একটা সিনেমায় যাই, তারপর ভাল রেষ্টুরেন্টে ডিনার সেরে বাড়ি ফিরবো এবং তোমাকে তোমার মেসে নামিয়ে দেবো।”

স্যারের প্রস্তাবে আমি সাথে সাথেই রাজী হয়ে গেলাম। স্যার আমায় পাশে বসিয়ে নিজেই গাড়ী ড্রাইভ করতে লাগলেন। আমি ইচ্ছে করেই আমার উন্মুক্ত পা দুটি গাড়ির গিয়ারের সাথে ঘেঁষে রেখেছিলাম, যার ফলে গিয়ার পাল্টানোর সময় স্যারের হাত প্রতিবারেই আমার পেলব দাবনার সাথে ঠেকে যাচ্ছিল।

সিনেমা হলে ঢুকে আমি এবং স্যার পাশাপাশি বসলাম। ভাগ্যক্রমে আমাদের আসে পাসের সীটগুলি ফাঁকাই ছিল, তাই আমরা দুজনে বেশ ফ্রী হয়ে বসেছিলাম। সিনেমা আরম্ভ হয়ে যাবার পর হল অন্ধকার হয়ে গেল। আমি অনুভব করলাম স্যারের একটি হাত ধীরে ধীরে আমার দাবনা দুটি স্পর্শ করার পর সেখানেই থেকে গেল এবং স্যার আমার দাবনায় হাত বুলাতে লাগলেন।

আমার সারা শরীরে কামনার আগুন জ্বলতে লাগল। হয়ত স্যারের শরীরেও কামনার আগুন জ্বলছিল। আমি বিন্দুমাত্র প্রতিবাদ করিনি, কারণ আমি এটাই ত চাইছিলাম। আমাদের দুজনেরই মুখে কোনও কথা ছিলনা অথচ দুজনেরই নিশ্বাস ঘন হয়ে উঠছিল।

আমায় কোনও রকম প্রতিবাদ করতে না দেখে স্যার একটা হাত আমার ঘাড়ের পিছন দিয়ে কাঁধের উপর রাখলেন। আমিও স্যারের দিকে হেলান দিয়ে ওনার গা ঘেঁষে বসলাম।

স্যারের হাত আস্তে আস্তে কাঁধ থেকে সামনের দিকে নামতে লাগল এবং একসময় উনি ব্লাউজের উপর দিয়েই হাতের মুঠোয় আমার একটা স্তন ধরলেন। আমি কোনও কথা না বলে ওনার হাতটা ধরে আমার ব্লাউজের ভীতর ঢুকিয়ে দিয়ে স্তন টেপার মৌন আবেদন জানালাম। স্যারের বলিষ্ঠ এবং অনুভবী হাত একসময় ব্রেসিয়ারের ভীতর ঢুকে সোজাসুজি আমার পুরুষ্ট এবং খোঁচা হয়ে থাকা স্তন টিপে ধরল।

আরো খবর  Bangla sex story – ডায়েরি অফ এ ব্ল্যাক এঞ্জেল

স্যার পালা করে আমার দুটো স্তনই ধরে টিপতে লাগলেন। আমার স্তনবৃন্ত দুটি ফুলে শক্ত হয়ে উঠল! পরমুহুর্তে স্যার প্যান্টের চেন নামিয়ে আমার একটা হাত ধরে নিজের জাঙ্গিয়ার ভীতর ঢুকিয়ে দিলেন। আমিও স্যারের ঘন গুপ্তলোমে আবৃত্ত ঢাকা ছাড়ানো সিঙ্গাপুরী কলায় হাত দিলাম …

আমি স্যারের লিঙ্গে হাত দিতেই চমকে উঠলাম!! এ কি …. সামনের ঢাকাটাই ত নেই! অর্থাৎ ছুন্নত করা লিঙ্গ! তাহলে স্যার মুস্লিম নাকি? একজন মুস্লিম আমার অক্ষত যোনি উন্মোচন করবে! যদি তাই হয়, তাহলে ত হেভী মজা লাগবে! আমি শুনেছিলাম ছুন্নতের ফলে মুস্লিম ছেলেরা অত্যধিক কামুক হয়ে যায়! সেজন্যই কি স্যার এত সময় ধরে আমার স্তনমর্দন করছিলেন?

স্যারের জিনিষটাও ত যেমনই লম্বা তেমনই মোটা! অণ্ডকোষটাও খূবই লোভনীয়! এই এত বড় জিনিষটা আমি আমার ছোট্ট, নরম, অব্যাবহৃত যৌবনদ্বার দিয়ে ঢুকিয়ে নিতে পারব ত? শেষে আমার কচি যৌবনদ্বারটাই জখম হয়ে যাবে না ত? তাছাড়া শুনেছি, মুস্লিম ছেলেরা নাকি অনেকক্ষণ ধরে …. করতে পারে! অবশ্য সমস্ত মুস্লিম মেয়েরাই ত তাদের শৌহরের যন্ত্রটা আনন্দ সহকারেই সহ্য করে! তাই একবার কোনও ভাবে ঢুকিয়ে নিতে পারলে মজাই মজা!!

আমাদের দুজনেরই মুখে কোনও কথা ছিলনা অথচ অন্ধকারের সুযোগে হাতের কাজ চলছিল। কাজের প্রথম দিনেই যে আমি আমার মনের মানুষের জাঙ্গিয়ার ভীতর হাত দিতে পারব, আমি স্বপ্নেও ভাবিনি! আমার নরম হাতের ছোঁওয়া পেয়ে স্যারের জিনিষটা আরো বেশী শক্ত এবং লম্বা হয়ে গেল এবং তার ডগা থেকে রস গড়াতে লাগল। আমার স্তনের উপর স্যারের হাতের চাপটাও বাড়তে লাগল। একসময় আমার মনে হল আমার হাতেই স্যারের বীর্য স্খলন হয়ে যাবে, তাই আমি স্যারের জাঙ্গিয়ার ভীতর থেকে হাত সরিয়ে নিলাম।

স্যারও বোধহয় ধরে রাখতে খূব কষ্ট পাচ্ছিলেন, তাই উনিও আমার স্তন ছেড়ে দিলেন। আমরা দুজনেই নিজেদের পোষাক ঠিক করে নিলাম।

আমাদের দুজনেরই সিনেমায় মন লাগছিল না, তাই আমরা দুজনে হাফ টাইমে বেরিয়ে এলাম। স্যার ডিনারের জন্য আমায় একটা দামী রেষ্টুরেন্টে নিয়ে গেলেন এবং খূবই দামী দামী ডিশ খাওয়ালেন। স্যর বেশ কয়েকবার আমায় খাইয়েও দিচ্ছিলেন। খাওয়া দাওয়ার ফাঁকে স্যার আমায় বললেন, “সরি সারিকা, আজ প্রথম দিনেই সিনেমা হলে যা ঘটল, তার জন্য তুমি যেন কিছু মনে করিওনা। আসলে তোমার মত সুন্দরী নবযুবতীকে পাশে পেয়ে আমার মাথা ঠিক ছিলনা, তাই আমি বেসামাল হয়ে গেছিলাম।”

আরো খবর  শালী দুলাভাই রোমান্টিক ঘটনা 2

আমি সাথে সাথেই মাদক হাসি দিয়ে বললাম, “না না স্যার, মনে করবো কেন! আমি ত আপনার প্রাইভেট সেক্রেটারী, তাই আপনি বা আমি পরস্পরের প্রাইভেট পার্টসে হাত দিতেই পারি! আমি নিজেও ত আপনার স্পর্শ উপভোগ করছিলাম! তাই আমি স্বতস্ফূর্ত ভাবেই আপনার জাঙ্গিয়ার মধ্যে হাত ঢুকিয়ে দিয়েছিলাম! আচ্ছা স্যার, আপনি কি …?”

স্যার আমার মুখের কথা কেড়ে নিয়ে বললেন, “হ্যাঁ সারিকা, তুমি যা জানতে চাইছো ঠিকই তাই, আমার নাম ইমতিয়াজ় খান। আমি মুস্লিম, …. তাতে তোমার কি কোনও অসুবিধা আছে?”

আমিও সাথে সাথে জবাব দিলাম, “না স্যার, কখনই নয়! আমার কোনও অসুবিধা নেই! আমি শুনেছি, মুস্লিম ছেলেরা নাকি অত্যধিক কামুক হবার কারণে ভীষণ রোমান্টিক হয়। তাই তাদের পক্ষে একসাথে একাধিক মেয়েকে তৃপ্ত করা কোনও ব্যাপারই নয়। স্যার, আপনার বাড়িতে ত ম্যাডাম আছেন, উনিও আপনার স্ত্রী হয়ে নিশ্চই খূবই পরিতৃপ্ত।”

স্যার বললেন, “হ্যাঁ, আমার স্ত্রীর নাম পরভীন, এবং সেও যঠেষ্ট সুন্দরী, তবে তোমার মতন সুন্দরী নয়। তুমি ত সিনে তারকা শিল্পা শেট্টী। তোমাকে পাসে পাওয়া ত ভাগ্যের কথা! পরভীন আমার আর তোমার সম্পর্ক কখনই জানতে পারবেনা।”
আমি হেসে বললাম, “যাক, তাহলে কলেজের পর কর্ম্মস্থলেও আমি শিল্পা শেট্টী! স্যার, আপনি নিজেও ত প্রসেনজিতের মতই রূপবান! আপনার সঙ্গ পেয়ে আমি খূবই খুশী!”

আমি রাত্রিবেলায় বাড়ি ফিরে আয়নার সামনে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে দাঁড়ালাম। আমার মনে হচ্ছিল যেন স্যার তখনও আমার স্তন টিপছেন। আমার ফর্সা স্তনদুটি অতক্ষণ স্যারের মুঠোর মধ্যে থাকার ফলে তখনও যেন লাল এবং খয়েরী স্তনবৃন্ত দুটি শক্ত হয়ে ছিল। আমিও নিজের হাতের নরম মুঠোয় স্যারের পূর্ণ আস্ফালিত শক্ত লিঙ্গের স্পর্শ অনুভব করছিলাম। সত্যি, ভদ্রলোকের লিঙ্গটা অসাধারণ! এটাই আমার সমস্ত কামবাসনা তৃপ্ত করতে সক্ষম! আমি কোনও একদিন সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে স্যারের সাথে যৌন সংসর্গ করবোই করবো!

Pages: 1 2