রহস্যময় দ্বীপ বারমুডা – পর্ব ১

আমার নাম শুভ। আমি একজন তরুণ বাঙালি নাবিক। আমি একটা বড় জাহাজ কোম্পানি তে চাকরি করি।চাকরির শুরুতে আমি আমাদের দেশেতেই একটা জাহাজ এর ক্যাপ্টেন ছিলাম। আমার কাজ ছিল জাহাজে করে বিভিন্ন রকম মাল পরিবহন করা। আসলে আমার জাহাজটা ছিল কার্গো শিপ। তো কিছুদিন আগে আমি কোম্পানি থেকে একটা প্রমোশন পাই। আমাকে ব্রাজিল এ একটা জাহাজ এর ক্যাপ্টেন এর পদ এ নিযুক্ত করা হয়। মাইনেটা বেশি এবং বিদেশ এ গিয়ে থাকতে পারবো তাই আমি ব্রাজিল এ চলে গেলাম।

খুব সুন্দর জায়গা ব্রাজিল। প্রথম কয়েকমাস ভালোই কাটলো আমার। যে জাহাজ এর ক্যাপ্টেন আমি সেই জাহাজটার নাম লিট্ল পার্ল। একদিন আমি আমার জাহাজ নিয়ে বেরিয়ে পড়লাম সমুদ্রে ,আমাকে কিছু মাল নিয়ে আফ্রিকা পৌঁছে দিতে হবে এটাই আমার কাজ। প্রথম দিন তেমন কিছু হলো না, সমুদ্র খুবই শান্ত। আমি খুব সহজেই আমার জাহাজ নিয়ে সমুদ্রের বুকে ভেসে বেড়াচ্ছি। আমার জাহাজ এ আমি ছাড়া আরো ২২ জন নাবিক আছে। সকলেই ভীষণ ব্যাস্ত নিজেদের কাজে।

হটাৎ রাতের বেলায় প্রচন্ড ঝড় উঠলো। মনে হলো যেন জাহাজ ডুবে যাবে। জাহাজ এর সবাই খুব ভয় পেয়ে গেলো।সবাই এদিক ওদিক ছোট ছুটি করতে লাগলো আতঙ্কে।আমি প্রানপন চেষ্টা করতে লাগলাম আমার জাহাজটা কে বাঁচানোর জন্য। কিন্তু জাহাজ কাত হয়ে ডুবে যেতে লাগলো। তারপর জাহাজ ডুবে গেলো ,আমি জলে পরে গেলাম। জলে পরে একটা কাঠের টুকরো পেলাম এবং সেটাকে ধরে জলে ভাসতে লাগলাম। আমার সঙ্গীদের কি হলো তা জানতে পারলাম না। কাঠের টুকরো করে ভাসতে ভাসতে দেখলাম আমার জাহাজটা ডুবে যাচ্ছে।তারপর আর কিছু মনে নেই আমার।

পরের দিন সকাল এ জ্ঞান ফিরলো। দেখলাম আমি এখন একটা দ্বীপ এ বালির মধ্যে শুয়ে আছি। বুঝতে পারলাম আমি সমুদ্রে ভাসতে ভাসতে কোনো এক নির্জন দ্বীপে চলে এসেছি।

বুঝলাম দ্বীপ টা খুব বড়ো আকৃতির দ্বীপ কারণ আমি দ্বীপ এর এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্ত দেখতে পাচ্ছিলাম না। দিগন্ত বৃস্তিত শুধু গাছপালা আর বনজঙ্গল। আমি দ্বীপ এর সমুদ্রের ধারে আছি। কিছুক্ষন সমুদ্রের সৈকত এ ঘুরে বেড়ালাম,তারপর জঙ্গল এ প্রবেশ করলাম কিছুক্ষন খোযা খুজির পর একটা ফলের গাছ দেখতে পেলাম। সেই ফলের গাছ থেকে কিছু ফল পারলাম এবং তারপর সেই ফলগুলো খেয়ে নিলাম। জঙ্গল এর আরো কিছুটা ভিতরে প্রবেশ করে দেখলাম যে এখানে একটা ছোট নদী আছে যেটা সমুদ্রে গিয়ে মিশেছে। বুঝতে পারলাম যে আমি কোনো দ্বীপ এ নয় কোনো অচেনা অজানা মহাদ্বীপ এ এসে পড়েছি। এখানে আমি সব কিছুই পাচ্ছি খাবার ,জল আর হয়তো মানুষ ও দেখতে পাবো। কিছুক্ষন পরেই সন্ধ্যা হয়ে এলো। আমি একটা বিশাল গাছ এর নিচে কিছু নারকেল গাছে এর পাতা দিয়ে একটা বিছানা বানিয়ে নিলাম,আর তার মধ্যেই শুয়ে পড়লাম।

আরো খবর  ইনসেস্ট সেক্স স্টোরি – জন্মদাত্রী মায়ের যৌবন রস উপভোগ – ১২

সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে দেখি আমার উপর এ দুটো সুন্দরী মেয়ে ঝুকে আমাকে দেখছে। মেয়ে দুটিকে খুব সেক্সি দেখতে। দুজনেই হাত এ বন্দুক নিয়ে আছে। আমি তো বুঝে উঠতে পারলাম না এই বন্দুক ধরা মেয়ে দুটো এই নির্জন দ্বীপ এ কি করে এলো। তারা আমাকে স্পষ্ট ইংরেজিতে বললো

-who are you?

-how did you come here?

আমি বললাম

-আমার নাম শুভ। আমার একটা জাহাজ দুর্ঘটনা হয় এবং আমি এই দ্বীপ এ ভাসতে ভাসতে চলে আসি।

মেয়েগুলো আমায় বললো

-আমরা হলাম এখান কার পুলিশ।আমরা সকালে এখানে সমুদ্রের ধারে জঙ্গলে এসে তোমাকে দেখতে পাই।

আমি বললাম

-আচ্ছা এটা কোন জায়গা আমাকে বলবেন ?

-এটা হলো বারমুন্ডা দ্বীপ, এখানে কিছু দূর এ শহর আছে।

-আচ্ছা তাহলে আমাকে শহর এ নিয়ে চলুন আপনারা।

মেয়ে পুলিশ গুলো আমাকে তাদের সাথে চলতে বললো। কিছু দূর যাওয়ার পর আমি একটা কাঁচা পাকা রাস্তা দেখতে পেলাম। সেখানে একটা পুলিশের গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। আমি ভগবান কে ধন্যবাদ জানালাম যে এতো বড় দুর্ঘটনার পর আমাকে লোকালয়ে পৌঁছে দিয়েছে। মেয়ে পুলিশ গুলো আমাকে গাড়িতে উঠতে বললো। আমি গাড়িতে উঠে পড়লাম ,একটা মেয়ে পুলিশ আমার পাস এ বসলো পিছন দিকের সিট এ আর একটা পুলিশ সামনের দিকে ড্রাইভার এর সিট এ বসলো।

গাড়ি চলতে শুরু করলো জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে। প্রায় ২ ঘন্টা পর আমরা লোকালয় এ পৌছালাম। মেয়ে পুলিশ গুলো বললো

-এইটা একটা ছোট্ট শহর ,এখানে তুমি থাকতে পারো।

ও রা আমাকে পুলিশ স্টেশন এ নিয়ে গেলো। পুলিশ স্টেশনে ঢুকেই ওদের হেড পুলিশ এর সাথে আমায় পরিচয় করিয়ে দিলো।

লোকটা বেশ মোটা এবং কালো। লোকটা আমাকে বললো

-তুমি তাহলে সেই লোক যে জাহাজ দুর্ঘটনা থেকে বেঁচেছো।

আরো খবর  মুখোমুখি বধু বিনিময় – ২

-হ্যা আমি শুভ।

-আমার নাম জন জোসেফ ,আমি এই ছোট শহর এর হেড পুলিশ।

-আপনার সাথে দেখা হয়ে খুব ভালো লাগলো।আপনি কি আমার বাড়ি ফেরার ব্যাবস্তা করতে পারেন ?

-হ্যা নিশ্চই ,আমি তোমার বাড়ি ফেরার বেবস্তা করবো কিন্তু তার জন্য কিছু দিন সময় লাগবে। আমাকে সরকারি অফিসে সব জানাতে হবে,তারপর তুমি আমাদের শহর থেকে অন্য শহর এ গিয়ে প্লেন ধরে বাড়ি ফিরতে পারবে।

-ধন্যবাদ। কিন্তু এতো দিন আমি কোথায় থাকবো।

-কিছু চিন্তা করো না আমি তোমার থাকার বেবস্তা করে দেব,চলো আমার সাথে।

আমি আর জন জোসেফ একটা পুলিশ গাড়িতে উঠলাম। জন গাড়ি চালাতে লাগলো আর কিছুক্ষন বাদে শহরের এক নিরিবিলি জায়গায় একটা বাড়ির সামনে এসে গাড়ি থামালো।

-শুভ তুমি এই বাড়িটাতে থাকবে ,এই নাও চাবি আর আমি এই সামনের একটা রেস্তোরাঁ তে বলে যাচ্ছি। ওই রেস্তোরাঁ এর মালিক আমার বন্ধু। ওখানে গেলেই তুমি খাবার পেয়ে যাবে।

এই বলে চলে গেলো সে