রসালো শাশুড়ি বৌমার স্ক্যান্ডাল পর্ব ৪

টিন্ডার্ থেকে ম্যাচ করে নেহা যাকে তার শাশুড়ি মার যৌন সঙ্গী রূপে সিলেক্ট করলো, সে ছিল একেবারে গভীর জলের মাছ। ভদ্রলোক এর নাম ছিল Sunny। উনি বিকেল চারটার সময় হাতে টিউলিপ ফুল এর একটা বুকে নিয়ে পরমা দের ফ্ল্যাটে এসে বেল টিপলেন। নেহা দরজা খুলে দিল। সানি কে ড্রয়িং রুমে বসিয়ে পরমা কে ডেকে আনলো। পরমা সে সময় কিচেনে ব্যাস্ত ছিল।

নেহা ডাকতে ড্রইং রুমে এসে সানি কে দেখে পরমা অবাক হয়ে গেল। তার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম ঝরতে শুরু করল। কারণ আর কিছুই নয়। নেহা টিন্ডারে ইতিমধ্যে সানি র ছবি পরমা কে দেখিয়েছিল। আর তার মতামত জানতে চেয়েছিল। নেহার কথায় মেতে উঠে ছেলেটাকে যে বেশ আকর্ষণীয় দেখতে সেটা পরমা সরল মনে স্বীকার করে নিয়েছিল। আর বয়স ও বেশি না। এই বয়স এর ছেলেদের মধ্যে একটা প্রাণ উচ্ছলতা থাকে, সেটা পরমার বয়সী নারী দের ভালই লাগে। নেহা যে ছবি দেখানোর পরের দিনই ওকে সত্যি সত্যি ডেকে নেবে এটা পরমা স্বপ্নেও ভাবেনি। যাই হোক বাইরের লোক এর সামনে তো নেহা কে এ বিষয়ে বকা যায় না। পরমা চুপ করে দাঁড়িয়ে রইলো।

আর পরমা কে ছবিতে দেখতে যত না ভালো লেগেছিল সামনা সামনি যে পরমা আরো হট দেখতে সেটা Sunny আন্দাজ করতে পারে নি। সে নিস্পলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইল পরমার দিকে।
নেহা ওদের সামনে ওয়াইন introduce করলো। পরমা কে লজ্জা না করে সানির পাশে গিয়ে বসতে বলল। পরমা নেহার কথা শুনে সানির কাছে এসে বসলো। এরপর পরমাকে ওদের সাথে মদের গ্লাসে সিপ নিতেও বাধ্য করা হলো। ড্রিঙ্ক নিতে নিতে নেহা আর সানি নানা বিষয়ে কথা বলছিল। পরমা চুপ চাপ সব শুনে যাচ্ছিল, sunny কিছু প্রশ্ন করলে, সেফ হ্যা আর না তে উত্তর দিচ্ছিল। তারপর sunny যেই সাহস করে, পরমার হাতের উপর নিজের হাত টা রাখলো। পরমা ভয় পেয়ে সোফা ছেড়ে উঠে দাড়ালো। নেহা আর sunny ke excuse me বলে পরমা উঠে নিজের বেড রুমে চলে আসলো। নেহা sunny কে , ফার্স্ট টাইম হে ইসস লিয়ে thoda nervous hain, মে দেখতি হুইন।” এই বলে পরমার পিছন পিছন ওর বেডরুমে আসলো।

পরমার রুমে ঢুকেই, নেহা দরজা টা ভেতর থেকে বন্ধ করে দিল তারপর পরমার পাশে দাড়িয়ে তার কাঁধে হাত রেখে তাকে আশ্বস্ত করল।

পরমা নেহা র হাত চেপে ধরে হাউ হাউ করে কেঁদে উঠলো। পরমা বলল, ” আমাকে এত তাড়াতাড়ি এতটা নিচে নামিয়ে দিও না। আমি আমার স্বামী কে চিট করতে পারবো না। আমাকে ছেড়ে দাও প্লিজ।”

নেহা বলল, ” ফিরসে ওই বাত। আরে মাম্মি জি দুনিয়া কাহা সে কাহা পৌঁছ চুকি হে ওর তুম ওহী পুরাণে জমানে কি মিডল ক্লাস ঔরত কে জাইসে বাত কর রেহি হ। দেখো সিম্পল সি বাত হে, এক হি জিন্দেগি হে। খুলকে জিনা শিখো।
দেখো তুম cheat করো ইয়া না করো dad তো তুম কো ছরকে দুসরে লাদকী কি সাথ বেড share kiya hain, e Sach toh tume paata hain, Toh AB যাব তুমারে প্যস মওকা আই হে তো কিউ জানে দে রহে হো। Sunny is a decent guy, come on unko আপনা লো।”
দিবাকর এর এই তথ্য পরমা বিশ্বাস করতে চাইলো না। কিন্তু নেহা পরমার স্বামী দিবাকরের কিছু ডার্টি সিক্রেট রসিয়ে বসিয়ে এমন ভাবে পরমার কাছে পরিবেশন করলো। যা শুনে পরমার মনেও ওর স্বামীর প্রতি অভিমান এর সৃষ্টি হল। নেহার কথা শুনতে শুনতে পরমা নেহার হাত থেকে আরো তিন পেগ ওয়াইন পান করে ফেলল, আস্তে আস্তে নেহা পরমার মতন নারীর মনেও কাম বাসনা জ্বালিয়ে দিল।

নেহা বলল, যদি বাবা এটা করতে পারে, পুরুষ রা করতে পারে আমরা করলে কেন সেটা দোষ হবে মাম্মি জি বলো। তুমিও দেখিয়ে দাও তোমার লাইফ এও একাধিক সেক্স পার্টনার থাকতেই পারে। নেহার কথায় আর মদ এর নেশায় পরমার শরীরে সেদিন আগুন জ্বলে উঠেছিল, যা শান্ত করতে পরমা প্রথমবার নিজের স্বামী ছাড়া অন্য পুরুষের সাথে এক বিছানা য় শুতে রাজি হয়ে গেল। বর এর প্রতি অভিমান আর ওয়াইন এর নেশা পরমা কে সেদিন সম্পূর্ণ ভাবে নেহার কথা মানতে বাধ্য করেছিল।

নেহা সুযোগ মতন সানি কে নিজের শাশুড়ি মার বেড রুমে পাঠিয়ে দিয়ে দরজা টা বাইরে থেকে বন্ধ করে দিল। এটা নেহা করলো সাবধানতা অবলম্বন করতে, যাতে মাঝ পথে হটাৎ করে পরমার বিবেকের দংশন হয়ে সে রুম থেকে সানি কে ছেড়ে বেরিয়ে না আসতে পারে।
পরমা খুব মানষিক টানাপোড়েনে ভুগছিল। সানি এধরনের নারীদের সাথে ওঠা বসা করায় অভস্ত থাকায় আস্তে আস্তে পরমা কে মানিয়ে বিছানায় তুলতে বিশেষ বেগ পেল না।

Sunny বিছানায় পরমা কে শুইয়ে দিয়ে। তার ব্লাউজ এর বাধন আলগা করে পরমার উপর চড়ে তাকে আদর করতে শুরু করতেই, পরমার প্রতিরোধ একটু একটু করে দুর্বল হতে শুরু করলো। ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেতে খেতে sunny আই লাভ ইউ ডার্লিং , হাম তুমারে এ খুবসুরতী কি দেওয়ানা হো গয়া। আই হোপ we shall have a very long sex life together.. আজ সে তুমে হার ও খুশী দুঙ্গা জো তুমনে আপনি হাসব্যান্ড সে নেহি পায়া ” এই বলে যেই না পরমার ব্লাউজটা টেনে শরীর থেকে আলাদা করতে শুরু করল। পরমা কয়েক মুহূর্তের জন্য সানি কে বিরত করত করলো। সানি পরমার মনের কথা বুঝতে পেরে বলল,
কই বাত নেহি। পেহলিবার প্রব্লেম হোতা হে। আভি যাও না। তুম কো খুলকে প্যার করনা হে। মুঝে বি দিখনা হে কিতনা দিন তুম আপনে কো রোক কে রাখতে হো। ইসকে বাদ মেরে ঘর পে ভি তো তুমকো শোনে আনা হে।”

এই বলে সানি সরাসরি সাহসী একটি এটেম্পট নিল। পরমার শাড়িটা অপরে তুলে, সায়ার ভেতর হাত ঢুকিয়ে পরমার কালো রঙের প্যান্টি টা টান দিয়ে খুলে বের করে আনলো। তারপর সেটা সারা মুখে বুলিয়ে একটা তৃপ্তি সূচক আওয়াজ বের করে পরমা কে শুনিয়ে শুনিয়ে বলল, ” আ মস্ত হে। আভি সে এ তুমারে প্যান্টি অভ মেরে আমানত হে। ক্যা তুম আভি মে রা মেশিন দেখনা চাও গে।?”
পরমা এর উত্তরে কিছু বলার আগেই সানি নিজের জিন্স এর আন্ডার ওয়্যার খুলে তার ৮ ইঞ্চি লম্বা পেনিস টা বার করে পরমার মুখের সামনে খাড়া করে উচিয়ে ধরল। এ দেখো আবসে এহি চিজ তুমারই দেখভাল করেগি। ক্যা মে রা সাইজ পছন্দ আয়া না? অর দেরি কিস বাত ক্যা আব আভি যাও না।

এই বলে পরমার ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেতে আরম্ভ করলো সানি, চুমু খেতে খেতে পরমার ব্লাউজটা টান দিয়ে খুলতে শুরু করলো। একটু একটু করে sunny র সামনে পরমার প্রতিরোধ দুর্বল হচ্ছিল একটা সময় পর পরমা আর সানির সামনে পেরে উঠলো না। তাকে নিজের শরীর এর সাথে আকরে জাপটে ধরলো। সানি ছিল পুরো দস্তুর মেয়ে মানুষ নিয়ে খেলা অভিজ্ঞ পুরুষ। পরমা কে সে আর ফিরবার জন্য উপায় সে রাখলো না। প্রটেকশন ছাড়াই পরমা কে তারই বেডরুমের বিছানায় খোলা পেয়ে মন প্রাণ খুলে সেক্সচুয়াল ইন্টারকোর্স করলো।। পরমা কে তার জীবনের অন্যতম সেরা একটা যৌনতা মুখর সন্ধ্যে উপহার দিল।

সেক্স করার পর পরমা কে জাপটে জড়িয়ে ধরে ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেয়ে বলল, আমি অনেক মেয়ের সাথে শুয়েছি, আই মাচ সে, ইউ আর ডিফারেন্ট ফ্রম অল লেডি.. তুমনে লাগানে কে টাইম গালি ভি নেই দিয়া.. আই অ্যাম সারপ্রাইজড।। অভি তুমারে সাথ বার বার শোনে কি মন কর রহা হে।
কাল তুম ফ্রী হো তো মে সেম টাইম ইধার আ যাও??

পরমা সানির কথা শুনে নেশার ঘোর অনেকটা কেটে গেল, সে বিছানার ওপর উঠে বসে, তড়িঘড়ি ব্লাউজটা গায়ে জড়িয়ে নিয়ে বলল, নেহি জরুরত পরেগী তো কল করে নেব। এখন তুমি আসো। Mera patideb aate hi hoga..
সানি হাসতে হাসতে বলল, তোমাকে দেখে মনে হচ্ছে তোমার জড়তা কাটাতে সময় লাগবে। ওকে আমিও দেখবো.. কতদিন তুমি তোমার মন মর্জি মতন থাকো।
এই ঘটনার পর পরমা ভীষন রকম অপরাধ বোধে ভুগছিল। নেহা যদিও স্বান্তনা দিচ্ছিল পরমা র মনের কষ্ট দুর হচ্ছিল না।

সানিকে যে পরমা সহজে ঝেড়ে ফেলতে পারবে না এটার আশঙ্কা ওর কথা শুনে পরমার মনে প্রথম দিন এসে গেছিল।।ওর ওভার স্মার্ট এটিচুড, ডবল মিনিং কথা পরমার ভালো লাগে নি। সে হয়তো আর নিজে থেকে কোনোদিন সানি কে কল করার কথা ভাবতে ভাবত না। কিন্তু সানি পরমার সাথে একবার শুয়ে যা স্বাদ পেয়ে গেছিল সেটা ছেড়ে যাওয়া ওর মতন মেয়ে বাজ play boy টাইপ পুরুষ এর পক্ষে অসম্ভব ছিল। সকালে স্বামী দিবাকর আর পুত্রবধূ নেহা দুজনেই ডিউটিতে বেরিয়ে যাওয়ার পর পরমা আগের দিন এর সন্ধ্যার ঐ ঘটনার কথা ভুলে যেতে চাইলো।। সে সব কিছু ভুলে দিব্যি ঘরের কাজ নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছিল। কিন্তু বেলা তিনটের সময় হটাৎ করে calling বেল শুনে পরমা অবাক হয়ে গেল। এই অসময়ে আবার কে এসেছে। যাই হোক বেডরুম থেকে উঠে এসে দরজা খুলে সানিকে হাসি মুখে দেখে পরমার শরীরে আশঙ্কার একটা হিমেল স্রোত খেলে গেল।
পরমা সানি কে হাসি মুখে দরজার মুখে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে বলল, তুমি কি করছো এখানে। নেহা বাড়িতে নেই।। ও থাকলে আসবে..! এখন যাও ।।

সানি পরমার কথা শুনে গেল তো না, উল্টে পরমা কে ঠেলে ভেতরে ঢুকে বলল, ” আরে নেহার সাথে দেখা করতে আসি নি আমার তো দরকার তোমার সাথে।। Why are you scare watching me? তোমার সাথে আমার অনেক কিছু হতে পারে। আমরা একে অপরের প্রয়োজনে লাগতে পারি। চলো তোমার বেডরুমে..আমি আমার তোমার প্রতি ভালোবাসা দেখাচ্ছি।

পরমা সব শুনে চমকে গেল। ও না না করে বলে উঠল। যা হয়েছে এক বার এর জন্য ঠিক আছে বার বার আমি ভুল করতে রাজি নই। প্লিজ চলে যাও এখান থেকে।। আমি আর এটা কন্টিনিউ করতে ইচ্ছুক নই।

সানি কিছুতেই খালি হাতে ফিরে যেতে রাজি হল না।। উল্টে আরো একবার ওর সাথে শোওয়ার জন্য পরমা কে কনভিন্স করে তুললো। সানি সেক্স না করে কিছুতেই যাবে না শেষ মেষ বুঝতে পেরে পরমা ওকে বাধ্য হয়ে সেকেন্ড টাইম এর জন্য.. নিজের বেড রুমে ঢোকাতে বাধ্য হল। বেড রুমে ঢুকেই, সানি দরজাটা বন্ধ করে দিল ভেতর থেকে..।

তারপর পরমা কে জড়িয়ে ধরে ওর বুকে র মাঝে মুখ গুজে আদর করতে শুরু করলো। Sunnyr মতন কিউট প্লে বয় কম বয়সী ছেলে র স্পর্শ পেয়ে পরমার শরীরের বাধন খুব তাড়াতাড়ি আলগা হয়ে পড়ল। পরমা নাইটী তা খুলে ফেলে sunny কে। নিয়ে জড়াজুড়ি অবস্থায় বিছানায় গিয়ে শুলো। আধ ঘন্টা পর যখন পরমা আর Sunny বেড রুম এর দরজা খুলে বের হল পরমা শরীরী ভাষা বদলে গেছে। সে বিছানায় সানির সঙ্গে শুয়ে সম্পুর্ন ভাবে তৃপ্ত হয়েছিল, তার পর নিজের হাতে কফি বানিয়ে সানি কে কফি বানিয়ে পরিবেশন করলো।

পরের দিন আবার সেই তিনটের সময় পরমাদের ফ্ল্যাটের বেল বেজে উঠলো। পরমা আবার দড়জা খুলে সানি কে দেখে আবার ও হতবাক হয়ে গেল। ও বলল, কি ব্যাপার কাল তুমি প্রমিজ করেছিলে আর আসবে না।। আবার কেন এসেছো বল।
সানি হেসে বলল, ” আমাকে দেখে তুমি কি একেবারেই খুশি হও নি। সত্যি করে বলো তো।”

পরমা এই প্রশ্নের কোন উত্তর দিতে পারলো না। সানি বলে চলল, ” ইউ নো হোয়াট, আমি ভেবেছিলাম আর আসবো না কিন্তু কাল তুমি আমাকে যেভাবে সুখ দিয়েছ, সেটা কি করে ভুলি বল, সারা রাত সেফ তোমার কথা ভেবেছি। আর দেখো, না এসে থাকতে পারলাম না, আর এই বেবিডল ড্রেস টা আমি পছন্দ করেছি। আমার ইচ্ছে তুমি এক্ষুনি চেঞ্জ করে এসে এটা পরে দেখাবে। প্লিজ পরমা আজকে আরেক বার তোমাকে আদর করেই চলে যাবো। আই লাভ ইউ ডার্লিং।”
পরমা: ” আমি তোমাকে আগের দিন বলেছি আমার পক্ষে এভাবে তোমার সাথে দিন এর পর দিন সেক্স করা পসিবল নয়। আমি ঐ ধরনের নারী নই যাদের তুমি মিট করে অভ্যস্ত। প্লিজ চলে যাও। আর আসবে না এখানে কখনো না।”

সানি: তুমি ভয় কেন পাচ্ছো ডার্লিং। মুখ টা শুকিয়ে গেছে। আরে আমি তো চেনা লোক আছি। আমার সামনে এরকম পর এর মত ব্যাবহার কর না প্লিজ। যাও এটা পড়ে আসো। আজকে করে আর তোমাকে disturb করবো না। কথা দিচ্ছি। আমি চেষ্টা করবো আজকের পর তোমার থেকে দূরে থাকার।।

পরমা না না করে উঠলো, সানি ও তাকে মানানোর জন্য অনেক কথা বলল, শেষে একটা সময় পর সানির নাছোড়বান্দা জেদ এর সামনে আরো এক বার পরমা নতি স্বীকার করতে বাধ্য হল। সানি বলল, এহী লাস্ট টাইম হোগা। কসমসে.. মান ভী যাও না। আজ কফি নেহি ওয়াইন পিনে কি মুড হে। মুঝে আপনি হাত সে ওয়াইন পিয়াও না ।। পরমা সানির আবদার রেখে ফ্রিজ থেকে নেহার আনা ওয়াইন এর বোতল বের করে আনলো। গ্লাসে ঢেলে সামান্য স্নাকস এর সাথে পরিবেশন ও করলো। তারপর সানি মিষ্টি কথার জাদুতে পরমার মতন সরল নারী র মন ভিজিয়ে ওকে সানির আনা সেক্সী babydoll ড্রেস টা পড়তে কনভিন্স করলো। পরমা ওর কথা শুনে চেঞ্জ করে আসতেই, সানির চোখের দৃষ্টি মুখের ভাব সম্পূর্ণ পাল্টে গেল।

চলবে…
*****

আরো খবর  মালতী-র দুই পতি– পর্ব ৩