শাশুড়ি ও কলেজ এর বান্ধবীকে আচমকা কাছে পাওয়া -২

আমার বুকে নাক ঘসতে ঘসতে এবার আমার বুকে চুমু খেতে শুরু করলেন আমার বুড়ি শাশুড়ি। আমার তো জাঙ্গিয়ার ভিতর তাবু তৈরি হয়েছে। আমার অবস্থা আন্দাজ করে আমার শাশুড়ি একটু দূরে সরে গিয়ে বললেন তুমি চেঞ্জ করে নাও।

আমি বললাম আপনি নিজে হাতে করিয়ে দিন। চৈতী হেসে বলে উঠলো..” তুমি কি বাচ্চা নাকি যে আমি তোমার জামা প্যান্ট খুলিয়ে বা আবার পড়িয়ে দেব?”

আমি বললাম..হম বাচ্চা ই তো, আমি তো আজ আপনার বুকের দুধ খাবো বলেই ত এসেছি।”

আমার শাশুড়ি বললো .. ” ইশ কি অসভ্য.. নিজের শাশুড়ির সাথে এই ভাবে কেউ কথা বলে? আর তাছাড়া এই বয়েসে বুকে দুধ আসবে কি ভাবে? হুঃ।”

আমি বললাম ” কেনো আসবে না আলবাত আসবে, আপনি আমার বাচ্চার মা হবেন আর তার পর আমি আর আমার বাচ্চা একসাথে আপনার বুকের দুধ খাবো।” আমি এক নিশ্বাসে কথা গুলো বলে ওর দিকে তাকাতে যাবো, তার আগেই আমার শাশুড়ি এসে আমার মুখে হাত দিয়ে চেপে ধরার চেষ্টা করলো।

“কি সব বাজে বকছ তুমি তোমার মাথা ঠিক নেই একদম, রিমি যদি শুনত তোমার কথা কত কষ্ট পেতো তুমি জানো? আজ কোথায় তোমরা এই সব ভাবনা চিন্তা করবে উল্টে তুমি এসব কথা আমায় বলছো? মন কে শান্ত করো রিমির সাথে ঝগড়া মিটিয়ে নাও।”

আমি সব শুনে বললাম..” আমি যা বলেছি সবটা ভেবেই, না ভেবে কিছু বলিনি। আপনার মেয়ের সাথে আমার সম্পর্কটা এতই দূরের এখন যে তার কাছে বাচ্চা চাওয়া টা আমার কাছে অসম্ভব। আর তাছাড়া আমার আপনার মত সুন্দর একটা বাচ্চা চাই। আমি চাই আপনার পেটে আমার বাচ্চা আসুক, তার পর বাকিটা আমি সামলে নেবো।” উনি সব টা শুনে চুপ করে মাথা নিচু করে বসে রইলেন।

আমি বললাম..”এত কিছু ভাবার নেই, ঠিক ভুলের বিচার আপনি করার কে, সেই বিচার সময় করবে।এখন আমি যেটা বলছি সেটা শুনুন।” বেশ জোর দিয়ে কথা গুলো বললাম। উনি চোখ টা তুলে আমার দিকে তাকিয়ে বললেন “বাবা আমি আজ কিছু তোমায় বলতে চাই। মনে হয় রিমি তোমায় বলেনি, আমি ওকে বলতে বারন করেছিলাম।কিন্তু আজ না বললেই নয়।” আজ সারাদিন পড়ে আছে সময় করে বলবেন এখন আমার কাছে আসুন একটু আদর খাই আপনার। “না জিত প্লিজ আগে আমার কথা গুলো বলতে দাও।” আচ্ছা বাবা বলুন শুনছি।

আরো খবর  বায়ো কেমিস্ট্রি পড়ুয়ার যৌন কেমিস্ট্রি- ভাইয়ের সাথে – ৪

” জিত রিমি আমার নিজের মেয়ে না। আমি ওর সৎ মা। ওর বাবার দ্বিতীয় পক্ষের বিয়ে করা স্ত্রী। ওর মা মরে গেলে ওর বাবা আমাকে বিয়ে করে আনে। আমি ওর বাবার কাছে একটা সন্তান চাই কিন্তু উনি সোজাসুজি মুখের উপর বলেন রিমিকে দেখাশোনার জন্য উনি আমায় বিয়ে করেছেন। আমি খুব কষ্ট পাই , সব মেয়েই মা হতে চায়, কিন্তু আমার ইচ্ছেকে উনি কোনো গুরুত্ব দেন নি। এমন স্বামী হিসেবে ওনার কোনও কর্তব্য ই উনি করেন নি। বাড়ির কাজের লোক ছাড়া আর আমি কিছুই ছিলামনা। তাই এতদিন বাদে তোমার মুখে ওই কথা শুনে মনে একবার লোভ হয়েছিল, নিজের পরিচয় তোমার সাথে আমার সম্পর্ক সব ভুলে গেছিলাম। কিন্তু পরের মুহূর্তে আমি নিজেকে সামলে নি। তাই তোমায় থামানোর চেষ্টা করি। আমি জানি আমি এর আগে দুবার তোমার কাছে হেরে গেছি আত্মসমর্পণ করেছি তোমার পুরুষত্বের কাছে, তাই তোমায় অনুরোধ করছি তুমি আর এই সব চিন্তা মাথায় এননা। কারণ তুমি জোর করলে আমার ক্ষমতা নেই তোমায় আটকানোর, শুধু শারীরিক জোর এর জন্য বলছিনা মানসিক ভাবে ও আমি তোমার প্রতি দুর্বল হয়ে পড়েছি। আজ তোমার বাচ্ছা র মা হবার কথা বলে তুমি আমাকে আরো দুর্বল করে দিয়েছ। বুড়ি টাকে কিছুক্ষনের জন্য সপ্ন দেখানোর জন্য আজ আমি আমার জামাই টাকে খুব আদর করবো।”

এত গুলো কথা একসাথে বলে থামলেন।আমি ওনার কাছে গিয়ে মুখটা টা কাছে টেনে ঠোঁটের উপর জোর করে নিজের ঠোঁট টা বসিয়ে দিলাম। জিভ টা ভিতরে ঢুকিয়ে আমার শাশুড়ির জিভ টা চুসতে লাগলাম। উনিও সাড়া দিতে লাগলেন। এবার একটু থেমে শাশুড়ি মা র মুখটা হাতে ধরে বললাম..” আপনার সপ্ন আমি পূর্ণ করবো আপনার মা হবার ইচ্ছে আমি মেটাবো, আপনি মানসিক ও শারীরিক ভাবে এখনো মা হতে পারেন। শুধু আপনি আপনার ভালোবাসা দিয়ে আমায় কাছে টেনে নিন। আমিও আপনাকে মন থেকে আমার স্ত্রী এর মর্যাদা দিলাম। শুধু আমার সন্তানের এর মা হতে রাজি হয়ে যান। আমি আপনার সায় চাই মন থেকে, জোর করে মত আদায় করতে চাই না অন্তত এই ব্যাপারটা।”

আরো খবর  লকডাউনে আমার মায়ের দৈনন্দিন যৌন জীবন – ৪

কথা গুলো বলে ওনার ঠোঁটে একটা কিস করলাম। আমার শাশুড়ি চৈতী চোখ টা আমার দিকে একবার তুলে শক্ত করে আমাকে জরিয়ে ধরলো। আমি আস্তে আস্তে চৈতির ঘাড়ে কিস করতে শুরু করলাম আর চুলের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে হালকা করে টানতে লাগলাম। শাশুড়ি মা বুকের মধ্যে মুখ গোঁজা অবস্থাতেই বললো..” জিত এটা ঠিক হচ্ছে না, তুমি যেটা চাইছো সেটা রিমির কথা ভেবে তুমি কি একবারও বলছো? ও কে তুমি অস্বীকার করবে কি ভাবে? আমি যদি তোমার কথা মেনে নিও কিন্তু এর ভবিষ্যত কি? হয়না জিত এভাবে সম্ভব না। তোমার যা ইচ্ছে আমার কাছে চাওয়া র চাও, তুমি আর যা বলবে আমি সব করবো তোমার জন্য কিন্তু এমন কিছু চেও না যার ভবিষ্যত টা অনেক কঠিন। প্লিজ বোঝো একবার।” কথা গুলো বলে চৈতী এবার নিজে থেকে আমার ঠোঁটে ঠোঁট রেখে চুমু খেল। এর পর আমার সারা গালে আমার শাশুড়ি জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো।

এর পর কি হলো চেষ্টা করবো যাতে দ্রুত পোস্ট করতে পারি সঙ্গে থাকুন আর কেমন লাগছে জানান। ও আগের পর্ব টাও অবশ্যই পড়বেন এবং আমার অন্য লেখা গুলো পড়বেন।