রঙ নাম্বার পর্ব – ১

নমস্কার বন্ধুরা আসা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আবার আপনাদের মাঝে আরেকটি নতুন গল্প নিয়ে হাজির। আমার আগের গল্প – “বৌদির সাথে নিষিদ্ধ সম্পর্ক” – তে অনেক ভালো বাসা দিয়েছেন। আসা করবো এই গল্প টিতেও ঠিক সেরকমই ভালবাসা দেবেন। যাক আর দেরি না করে এই গল্প প্রারম্ভ করি ।

—–

কলকাতার এক বিলাস বহুল পরিবেশের মধ্যে আলিশান ফ্ল্যাটে বাস করেন এক পরিবার। পরিবারে তিনজন সদস্য – বাড়ির কর্তা বিমল রায় যে একজন শিল্পপতি , তার প্রথম পত্নী ৬ বছর আগে মারা যান ১২ বছরের ছেলেকে রেখে তার ৩বছর পর বিমল রায় আরেকজন কে বিয়ে করে বাড়িতে আনেন যাতে তার একমাত্র ছেলে মায়ের স্নেহ থেকে বঞ্চিত না হয়। তার দ্বিতীয় পত্নী শিলা রায় ৩২ বছর বয়স এবং তার তার একমাত্র ছেলে রকি রায়। শিলা দেবী একজন খুব ভালো মনের মানুষ রকি কে নিজের ছেলের মতোই ভালোবাসেন , কিন্তু রকি তার সৎ মা শিলা দেবী কে পছন্দ করতো না এমন কি বিয়ের এতদিন পরে ঠিক ভাবে শিলা দেবী সাথে কথাও বলেনি আর মা বলে ডাকা তো দূরেই থাক। রকি ভাবতো যে শিলা দেবী তার বাবাকে ভুলিয়ে ভালিয়ে ফাঁসিয়ে বিয়ে করেছে সম্পত্তির জন্য। কিন্তু বাস্তবে শিলা দেবী একজন খুব ভালো মানুষ তিনি বিয়ের আগে কলকাতার বড়ো স্কুল এ শিক্ষিকা ছিলেন বিয়ের পর চাকরি ছেড়ে দেন এবং এখন তিনি একজন সম্মানীয় শিল্পপতির অর্ধাঙ্গিনী।

শিলার জীবনে কোনো কিছুর অভাব নেই কিন্তু সে সুখী হয়েও সুখী নয়। সব সময় তার মনের মধ্যে একটা আকাঙ্খা ঘুরপাক খায় যে সে রকির মুখ থেকে সে কোনোদিন মা ডাক টা শোনেনি। বিমল মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি বিয়ে করার আগে শিলা কে বলে রেখেছিল যে সে তার থেকে কোনো বাচ্চা চায় না। শিলার মন সন্তানের ভালবাসা পাওয়ার জন্য ব্যাকুল থাকত। রকির মন জয় করার জন্য শিলা অনেক কিছুই করত প্রিয় খাবার রান্না করত কিন্তু রকি কিছুতেই শিলা দেবী কে পছন্দ করত না। বিমল এর রকির আচরণ দেখে শিলার প্রতি তারও করুন হত।

শিলা শুধু রকি কে নিয়েই মন খারাপ থাকত না বিমল তাকে প্রায় এক বছর থেকে ছুঁয়ে দেখে না। তার যৌন জীবনেও সুখ নেই। শিলা দেবীর শরীরের গঠন এমন প্রকৃতির যা যেকোনো পুরুষ কে উত্তেজিত করে তুলবে। ফর্সা ধবধবে গায়ের রং, দুধ গুলো বেশ বড় সাইজের আর হালকা চর্বি যুক্ত মাখনের মতো পেট, আর পিছনের দিকে হেই ডবকা বড় পাছা। ডিনার শেষে বেডরুমে গিয়ে বিমল শুয়ে পড়ল শিলা বিমল কে ডাকতে লাগল —

শিলা – কি গো শুনছো ?

বিমল – (ঘুম ঘুম গলায়) কি হয়েছে কি ?

শিলা – তুমি আজকেও শুয়ে ঘুমিয়ে পড়লে । তুমি আমাকে আর ভালোবাসোনা ?

বিমল – কি জাতা বলছো অনেক রাত হয়েছে শুয়ে পরো তো। কাল অফিসে অনেক কাজ আছে।

শিলা মনের দুঃখে সে ঘরের লাইট অফ করে ওপাশ ফিরে শুয়ে পড়ল। পরের দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্রেকফাস্ট তৈরিতে ব্যাস্ত শিলা আজকেও রকির পছন্দের খাবার বানিয়েছে। রকি রুম থেকে বেগ নিয়ে কলেজে যাবার জন্য বেরিয়ে পড়তে লাগল। রকির বয়স এখন ১৮ বছর কলেজ এ ফার্স্ট ইয়ার এ ভর্তি হয়েছে। খাবার টেবিলে রকির বাবা বিমল এসে বসল। রকি কে বেরিয়ে আসতে দেখে শিলা বলল —

শিলা – রকি এসো খাবার রেডি।

রকি রুম থেকে বেরিয়ে হাঁটার মধ্যে থেকে একবার এপাস ফিরে ” আমার খিদে নেই ” বলে মেইন ডোর দিয়ে বেরিয়ে গেল।

বিমল – এই ছেলে কে নিয়ে যে আমি কি করব কে জানে।

শিলা – ( কাঁদো কাঁদো স্বরে) ও বোধহয় কোনোদিন আমাকে মেনে নেবে না বিমল।

বিমল – আহঃ তুমি দুঃখ পাচ্ছ কেন বলতো সময়ের সাথে সাথে সব বদলে যাবে। তুমি একটু ধৈর্য ধরো।

এর পরেই কিছুক্ষণ পর বিমল ও অফিসের জন্য বেরিয়ে পড়ল । শিলা কিছুক্ষন তার বেডরুমে গিয়ে চোখ বন্ধ করে শুয়ে রইল তার মন খুব ছিল। তারপর সে কিছুক্ষন পর বাড়ির কাজ কর্ম করতে লাগল। সে মনে মনে ভাবতে লাগল তার কপাল স্বামীর আদরের সুখ ও নেই আর সন্তানের ভালোবাসাও নেই। এসব ভাবতে ভাবতে সে রান্না ঘরে কাজ করছিল। কিছুক্ষন পর বাড়ির টেলিফোনে এ কল আসল। ফোন তুলে —

শিলা – হেলো , কে বলছেন।

ওপাশ থেকে কোনো আওয়াজ নেই। শিলা আর কয়েকবার হেলো হেলো বলে ফোনটা রেখে আবার কাজে চলে গেল। প্রায় আধ ঘন্টা পর আবার ফোনটা বেজে উঠল। শিলা গিয়ে আবার ফোনটা তুলল —

শিলা – হেলো কে বলছেন ?

এবার ওপরের থেকে আওয়াজ আসলো । ভারী গলায় এক পুরুষের আওয়াজ ভেসে আসল । শিলা এরকম গলার আওয়াজ সে কোনোদিন শোনেনি ।

অচেনা লোক – হেলো আপনি কি মিসেস শিলা রায় বলছেন ?

শিলা – ( একটু ইতস্তত হয়ে ) হ্যাঁ ! আ.. আপনি কে বলছেন ?

অচেনা লোক – আমি কে সেটা জেনে আপনার কি কাজ বলুনতো ?

শিলা – তাহলে আপনি ফোন কেনো করেছেন ?

অচেনা লোক – আপনার সাথে কথা বলার জন্য ।

শিলা – কি সব জাতা বলছেন ।

শিলা তারপর রং নম্বর বলে ফোন রেখে দেয়। শিলার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে এটা কে হতে পারে । তারপর শিলা আবার কাজে চলে যায় । দশ মিনিট পরে আবার টেলিফোন বেজে উঠল এবার শিলার মনে একটু ভয়ের সঞ্চার হল। শিলা গিয়ে ফোনটা তুলে —

শিলা – হে হেলো ;

অচেনা লোক – কি মেডাম ফোন টা রেখে দিলেন কেন ?

শিলা – ( এবার একটু রেগে গিয়ে ) কে আপনি বার বার ফোন করছেন ?

অচেনা লোক – আহঃ মেডাম আপনি রেগে যাচ্ছেন কেন ? আমি কে সেটা নাহয় পরে জানবেন ।

শিলা – আপনি ফোনটা রাখুন নইলে কিন্তু আমি পুলিশের কাছে কমপ্লেইন করতে বাধ্য হব।

অচেনা লোক – আহঃ আপনার গলাটা কি মিষ্টি আপনি দেখতেও মনে খুব সুন্দর আর আপনার শরীরটাও বোধহয় আরো অনেক সুন্দর ।

শিলা – কি বললেন ? আপনার সাহস তো কম না একজন বিবাহিত মহিলার সাথে আপনি এইভাবে কথা বলছেন , আপনার সাহস তো কম নয়।

এই বলে ফোনটা রেখে দিল। তারপর আর সেদিন ফোন আসল না। রাতে রকি নিজের ঘরে পড়াশোনায় ব্যস্ত , বিমল এখনও বাড়ি আসেনি তার পর কিছুক্ষন পরে কোলিং বেল বেজে উঠল । দরজা খুলতেই দেখা গেল বিমল আরেকজনের উপর ভর করে আছে । বিমল ড্রিংক করে এসেছে, তারই একজন এমপ্লয়ী তাকে নিয়ে এসেছে তার নাম রুদ্র। শিলা জিজ্ঞাসা করাতে রুদ্র বলল আজ অফিসে এ মিটিং এর পর একটু পার্টি হয়েছিল সেখান থেকেই বিমল স্যার একটু বেশি ড্রিঙ্ক করে ফেলেছেন।

বিমল কে নিয়ে রুদ্র ভিতরে প্রবেশ করল তারপর বেডরুমে নিয়ে শুয়িয়ে দিবে তখনি বিমল নীচে পরে যায় রুদ্র তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে এবং সে প্রায় প্রায় শিলার উপরে পরে যায় আর তার হাত গিয়ে লাগে শিলার একেবারে বড়ো দুধের উপর । রুদ্র তৎক্ষণাৎ হাত সরিয়ে ফেলে এবং উঠে দাঁড়িয়ে পরে। বিমল কে বেড এ শুয়িয়ে দেয়। তারপর শিলার কাছে রুদ্র এরকম সিচুয়েশন এর জন্য ক্ষমা চায়।

শিলা – না না ঠিক আছে ।

তারপর রুদ্র চলে যায়।

শিলার শরীরে প্রায় ১ বছর পর কোনো পুরুষের হাত পড়েছে এই ভেবেই তার শরীরে শিহরণ খেলে গেল। কিন্তু সে একজন সম্মানীয় শিল্পপতির স্ত্রী আর সে এক ১৮ বছরের ছেলের মা। এইসব কথা তার মনে আনাও পাপ । পরের দিন বিমল আর অফিস এ যায় নি ড্রিঙ্ক করার ফলে আজকেও তার মাথা ভারী ভারী । দুপুর বেলা শিলা বাড়ির কাজে ব্যস্ত তখন আবার টেলিফোন বেজে উঠল । শিলা আবার চমকে উঠল । এবার শিলার মাথা গরম হয়ে গেল যে আজকে একে উচিত শিক্ষা দেবে। এই ভেবে সে গিয়ে ফোনটা তুলে –

শিলা – কি পেয়েছেন কি আপনি আমি বলেছিলাম না আপনি আর এই নম্বরে ফোন করবেন না ।

ওদিক থেকে রুদ্রের গলা –

রুদ্র – হেলো আমি রুদ্র বলছি মেডাম স্যার আছেন বাড়ীতে ?

শিলা খুব লজ্জিত হল।

শিলা – হ্যা রুদ্র বাবু বিমল বাড়িতেই আছে একটু ধরুন ডাকছি।

বিমল এসে ফোন তুলে কথা বলতে লাগল। শিলা এদিকে ভাবতে লাগল যে রুদ্র বাবু কি না কি ভাবলেন । তারপর এইভাবে দেখতে দেখতে কয়েকদিন পার হয়ে গেল রকি কলেজে চলে গেল কিছু না খেয়েই আর বিমল বরাবরের মতো শিলাকে সান্তনা দিয়ে অফিসের জন্য বেরিয়ে পড়ল। এই দুপুরে বেলায় বাড়ি ফাঁকা থাকে শিলা এই সময়টায় নিজে প্রাণখুলে বাঁচতে চায় কিন্তু পারে না । সে বাড়ির কাজ কর্ম সেরে টিভির সামনে বসে সেই সময় টেলিফোন বেজে ওঠে সে গিয়ে ফোনটা তুলে —

শিলা – হেলো … কে বলছেন ?

অচেনা লোক – হেলো মেডাম ।

শিলা এই ভারী গলা সোনার জন্য মোটেও প্রস্তুত ছিল না তার শরীর এ যেন বিদ্যুৎ খেলে গেল।

অচেনা লোক – আমি জানি আপনি আমাকে মিস করেছেন তাই আর থাকতে পারলাম না ফোন না করে।

শিলা – কি বলছেন আপনার সাহস তো কম না আপনি আবার ফোন করেছেন ।

অচেনা লোক – আপনার মত রূপসীকে কি ফোন না করে থাকা যায়। আপনার সাথে শুধু ফোন না আর অনেক কিছু করতে চাই।

শিলা – এই শুনুন আপনি কিন্তু আমার সহ্য ক্ষমতার পরীক্ষা নিচ্ছেন। আমি আপনাকে পুলিশে দেব।

অচেনা লোক – আমি আপনার জন্য পুলিশের কাছে যেতেও রাজি মেডাম।

শিলা – দেখুন আমি অনেক সহ্য করেছি আপনার এইসব নোংরা কথা আর না । আপনি কি চান শুনি ?

অচেনা লোক – আহ মেডাম আমি কি চাই সেটা আপনিও আন্দাজ করেছেন ( এই বলে খেক খেক করে হাসতে লাগল ) ।

শিলা – মানে ?

অচেনা লোক – আমি জানি আমি সুখী নন । স্বামী আপনার শরীরের চাহিদা মেটাতে পারে না। আমি আপনাকে সেই হারিয়ে যাওয়ার সুখ দিতে পারি। আপনি চাইলে আমি আপনাকে সাহায্য করতে পারি ( এই বলে লোকটি এক শয়তানের মতো হাসি দিয়ে উঠল ) ।

শিলা দেবী এইসব কথা শোনার জন্য একদমই প্রস্তুত ছিল না । শিলা দেবীর নিঃস্বাস এখন অনেকটা ভারী হয়ে এসেছে ।

অচেনা লোক – আমি আপনার জন্য একটা উপহার পাঠিয়েছি মেডাম দরজাটা খুলে দেখুন আপনার দরজার সামনেই রাখা আছে ।

শিলা – কি মা.. মানে ।

শিলা মনে মনে ভয় পেতে লাগল । তারপর শিলা দরজাটা খুলল ।।।।।।

তো বন্ধুরা গল্পটা লাগল সেটা অবশ্যই জানাবেন।

• পাশে থাকবেন

আমাকে মেইল করার জন্য 👇

টেলিগ্রাম আইডিতে যোগাযোগ করুন @iaks121

আরো খবর  Tor Bogoler Gondho Amake Pagol Kore Tuleche - 2