সুইটহার্ট তানিয়া – ২

বাইরে গিয়ে আমি গাড়িতে উঠলাম। কিছুক্ষণ পরে তানিয়া গাড়িতে উঠলো। আমি সামনের সিটে ও তানিয়া এবং সোহান পিছনের সিটে বসলো।

আমি ড্রাইভারকে বললাম গাড়ি ছাড়তে। গাড়ি চলতে লাগলো। তানিয়ার কোন সাড়া শব্দ পেলাম
না, দম মেরে বসে আছে। সোহান ট্যাবে গেম খেলছে।

আমি সানগ্লাস চোখে দিয়ে গাড়ির
লুকিংগ্লাস দিয়ে তানিয়ার দিকে
তাকালাম দেখলাম মন ভার করে বাইরের দিকে তাকিয়ে আছে।

আমরা সকাল সাড়ে দশটায় নন্দন পার্কে পৌছালাম। গাড়ি থেকে নেমে গাড়ি পার্ক করতে বললাম ড্রাইভারকে।

আমি তিনজনের জন্য তিনটি টিকেট কেটে আনলাম। ঈদের ছুটিতে প্রচন্ড ভিড় এখন। আমি সোহানের হাত ধরে লাইনে দাড়ালাম। তানিয়া আমার পিছনে। এতক্ষণ আমাদের মধ্যে কোন কথাবার্তা হয়নি।

অবশেষে নন্দন পার্কের ভেতরে ঢুকলাম আমরা। ভেতরে ঢুকে বিভিন্ন রাইড নিতে লাগলাম। ভিড়ের মধ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে রাইড নেয়া খুবই কষ্টসাধ্য। তবুও প্রায় ১০–১২ টা রাইড নিলাম আমরা। সোহান দেখলাম খুব খুশি। তানিয়া মন ভার করে শুধু আমাদের সঙ্গ দিচ্ছে। দুপুরে একটা ক্যান্টিন থেকে সামান্য খাওয়া দাওয়া করলাম আমরা।

ঘুরতে ঘুরতে বিকেল হয়ে এলো। এমন সময় সোহান বায়না ধরলো ওয়াটার স্লাইডিং করবে ও পুলে গোসল করবে। তো কি আর করা
নেমে পরলাম ওয়াটার কিংডমে।

এক্সট্রা কোন কাপড় না নেয়ায় প্যান্ট পড়েই নেমে পরলাম আমি ও সোহান পুলে। সোহান ওর আম্মুকে পুলে নামানোর জন্য পা ধরে টান মারায় তানিয়া আমার উপর এসে পরে। আমিও ওকে ক্যাচ করে ফেলি ও সর‍্যি বলি।
কিন্তু সে কিছুই বলে না। আমি সোহানকে নিয়ে পুলে খেলা কর‍তে থাকি। আমি সোহানকে নিয়ে স্লাইডিং এর জন্য টিউব নিয়ে উপরে যাই এমন সময় দেখি নিচে কয়েকজন বখাটে ছেলে তানিয়াকে ঘিরে আছে নিয়ে আজেবাজে কথা বলছে যেমন ‘একা নাকি, আমরা আছি, কি মালরে ইত্যাদি‘

এসব দেখে সোহানকে বলি তুমি এখানে দাড়াও আমি আসছি।

আমি সোজা তানিয়ার কাছে চলে যাই। এবং গিয়ে ওকে আড়াল করে দাড়িয়ে এক বখাটের মুখে মারি ঘুষি। এই দেখে বাকি ৪/৫ জন আমাকে ঘিরে ধরে এবং আমাকে এলোপাথাড়ি মারতে থাকে। তা দেখে তানিয়া চিতকার
করলে সিকিউরিটি গার্ড রা এসে আমাকে উদ্ধার করে।

সিকিউরিটি গার্ড বলে যে কি হয়েছে। আমি বলি যে, “এই বখাটেরা আমার wife কে Harassment করছিল তাই ওদের বাধা দেয়ায় আমার উপর আক্রমণ করে।

তানিয়াকে আমার wife বলায় সে চমকে উঠে।

অতঃপর সিকিউরিটি গার্ডরা বখাটেদের নিয়ে যায় আর আমিও সোহান ও তানিয়াকে নিয়ে বের হয়ে আসি।

– খুব ব্যথা লাগছে। ক্লিনিকে চলো
যাই

আমি বললাম, আরে না কিছু হয়নি আমার।

এসময় পার্ক কমিটির কিছু লোক আমাদের সামনে এসে বলে যে আপনারা চাইলে ওই বখাটেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে পারেন এবং আমরা ওদের নামে থানায় মামলা করবো।

আরো খবর  মতাজের দিন – ২

আমি বললাম থাক এত ঝামেলার দরকার নেই বলে আমরা চলে এলাম।

গাড়িতে উঠে রওয়ানা দিলাম বাড়ির উদ্দ্যেশ্যে। সন্ধ্যা হয়ে এসেছে আবার আকাশ কালো হয়ে বজ্রপাত হচ্ছে। মনে হলো ঝড় হবে।।

মাঝপথে বিশাল বৃষ্টি শুরু হলো।বাসায় পৌছলাম ততক্ষণে রাত ৮ টা বাজে। গাড়ি থেকে নেমে সোহানকে কোলে নিয়ে ওদের বাড়িতে ঢুকলাম।

পুলে গোসল করে ও এখনের বৃষ্টিতে সবাই পুরো ভিজা।।

সোহানকে নামাতেই দেখি গাড়ি ওয়ালা গাড়ি নিয়ে চলে গেল। আমি পিছন থেকে ডাকলাম ওই থামো আমি বাসায় যাবো কিভাবে?

তানিয়া তখন বললো, বাইরে খুব ঝড়, রাতও অনেক হয়েছে। আজ রাতে এখানে থেকে যাও। তাছাড়া এমন সময় এত দূরে যেতেও পারবেনা।

আমি বললাম, না থাকা সম্ভব না বলে ফোন খুজতে লাগলাম।।

oh shit প্যান্টের পকেটে যে ফোনটা ছিল খেয়ালই করেনি। পানিতে ভিজে নষ্ট হয়ে গেলো।

অগত্যা তানিয়াদের বাসায়ই আজ রাত থাকতে হবে।

তানিয়া আমাকে দোতলায় একটা রুম দেখিয়ে বলল

–এই রুমে থাকো তুমি। আগে বাথরুমে গিয়ে গোসল করে আসো।

– কাপড় তো পুরা ভিজা। পড়বো কি

– তুমি বাথরুমে যাও আমি ব্যবস্থা করছি।

আমি বাথরুমে কাপড় খুলে গোসল সেরে বাইরে এসে দেখি একটা তোয়ালে আর তানিয়ার টি–শার্ট রাখা বিছানায়। কি আর করার টি–শার্ট পরে তোয়ালে লুঙ্গির মতো পড়লাম। খিদে পেয়েছে খুব। মারামারি করায় মাথায় সামান্য ব্যথা করছে। দেখলাম তানিয়া হাতে করে খাবার নিয়ে এসেছে। বলল, বাসায় রান্নাকরা কিছু ছিলনা তাই এই ডিমপোজই করলাম। কিছু মনে করো না। আমি বললাম কোন সমস্যা না। আপনি খেয়েছেন। তানিয়া খেয়েছি বলে বাইরে গেল। আমি খাওয়া শেষ করলাম। এমন সময় তানিয়া ফার্স্টএইড বক্স নিয়ে এলো আমাকে বললো অভি দেখি সামান্য মলম লাগিয়ে দেই। বলে সে আমার ঘাড়ে ও হাতে মলম লাগিয়ে দিল। আমাকে বিছানায় শুয়ে পরতে বলল।
আমি বিছানায় শুয়ে পরলাম।

সোহানও ঘুমিয়ে পরেছে

তানিয়া বলল কিছু মনে না করলে তোমার মাথাট ম্যাসাজ করে দেই।
আমি ঘাড় নাড়লাম।

তানিয়া আমার ঘাড় ম্যাসেজ করতে লাগলো।

– অভি সকালের ঘটনার জন্য I’m sorry

আমি চুপ রইলাম।

– মনে কিছু নিও না অভি। আমি একাকী থাকতে থাকতে অসহ্যকর যন্ত্রনায় ভুগতে ছিলাম। তাই তোমাকে দেখে নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারিনি। সর‍্যি।

– It’s Okay. আমিও তোমাকে সবার সামনে আমার wife বলে ফেলেছি। I’m sorry also

– তুমিতো আমাকে বাচানোর জন্যই সব করেছো। I’m really thankful to you..

তানিয়ার কথা শেষ হওয়ার আগেই বিদ্যুৎ চলে গেল। পুরো ঘর অন্ধকার হয়ে গেল। আমি বিছানায় শুয়ে, তানিয়া আমার
মাথার পাশে বসা। বাইরে প্রচন্ড বৃষ্টি হচ্ছে। এমন সময় প্রকান্ড এক বজ্রপাত হলো তানিয়া সঙ্গে সঙ্গে আমাকে জাপটে ধরলো। বজ্রপাত থামলে তানিয়া আমাকে ছেড়ে দিল। বলল, আমি মোমবাতি নিয়ে আসি। তানিয়া মোমবাতি আনতে গেল আর আমি তানিয়ার কথা চিন্তা করতে লাগলাম।

আরো খবর  Jonmodatri Mayer Joubon Ros Upovog - 8

“যুবতী একটা মেয়ে। ২৪/২৫ বছর বয়স। বিয়ের পর থেকেই স্বামী বিদেশ, দুই বছর পরপর দেখা হয়। স্বাভাবিক ভাবেই ভয়াবহ যৌন জীবন পাড় করছে। তারও কামনা বাসনা আছে। আমি কি তাকে একটু সুখ দিতে পারিনা। সে বিবাহিতা। তবুও তার ভালোবাসার অধিকার আছে। আমার প্রতি তার একটা দুর্বলতা আছে। সেতো আমায় বলেছে যে সে আমায় ভালোবাসে। আমি কি তাকে একটু ভালোবাসা দিতে পারবো না!”

ভাবতে ভাবতে তানিয়া মোমবাতি নিয়ে টেবিলে রাখলো। আমি বিছানা ছেড়ে দাড়ালাম

– তানিয়া তোমাকে একটা কথা বলতে চাই!

– কি বলো

– I Love You Too

আমার একথা শুনে তানিয়া হতবিহ্বল হয়ে গেলো।

– সত্যি?
আমি তানিয়ার সামনে এগিয়ে এলাম। আমার দু হাত দিয়ে ওর মুখে ধরে বললাম

– হ্যা। সত্যি আমি তোমাকে ভালবেসে ফেলেছি I really started loving you..

বলেই দুহাত দিয়ে ওর মুখমন্ডল ধরে আমার জিহবা ওর মুখের মধ্যে পুড়ে দিলাম।

তানিয়ার জিহবায় আমার জিহবা দিয়ে কিসিং করতে লাগলাম। ওর ঠোঁট দুটো চুমুতে লাগলাম। এরকম passionate kiss জীবনে এই প্রথম করছি। তানিয়া কিসিং ছেড়ে বললো ovi i need you now! বলে তানিয়া আমাকে বিছানায় ফেলে দিলো।

তারপর আস্তে করে মুখ নামিয়ে আনল গলার পাশে।
জিহ্বা ছোঁয়াল ওখানে।
উফফ! চুমু
খেতে খেতে নেমে এল আমার স্কন্ধ সন্ধিতে।
হাল্কা হাল্কা লাভ বাইটসে ভরিয়ে দিতে থাকল তানিয়া আমাকে।

অনেক হয়েছে আর না… টান দিয়ে তানিয়াকে আবার নিয়ে এলাম মুখের কাছে। ঠোঁট নামিয়ে দিলাম তার ঠোঁটে। আহ কি উষ্ণ আর কি মিষ্টি। এমন ঠোঁট পেলে সারা জীবন চোষা যায়। তানিয়াও সাড়া দিল চুমুতে। আস্তে করে তার জিহ্বা ঠেলে দিল আমার মুখের ভেতর। মুখের ভেতর নিয়ে আলতো চাপ দিতে দিতে চুষতে লাগলাম তার জিহ্বাটা। কতক্ষণ এভাবে ছিলাম বলতে পারবো না। পুরোপুরিই হারিয়ে গিয়েছিলাম তার মাঝে। তানিয়া নিজেই ঠোঁট ছাড়িয়ে নিল। চুমু খেল আমার নাকের ডগাতে। তানিয়ার গায়ের সুবাস যেন আমাকে পুরোই পাগল করে তুলছে।

বিছানায় শুইয়ে দিলাম তাকে। মুখ ঘষতে লাগলাম তার গলাতে। চুমু আর লাভ বাইটসে ভরিয়ে দিলাম তার ঘাড়।
অভি এমন পাগল করে তুলোনা আমায়…’ তানিয়া কাতরে উঠল। কিন্তু তাকে কিভাবে পাগল না করি।
আমি নিজেই যে পাগল হয়ে গেছি।

সঙ্গে থাকুন …