তনুশ্রী বৌদি ।। প্রথম অধ্যায়।।

” কি বলো ! এই পূজো টা প্রমীলা দের বাড়িতে কাটানো যাক ? ” বাবা বললেন । দিনটা ছিল চতুর্থী, আমি মা বাবা সন্ধ্যার সময় চা খেতে খেতে আলোচনা করছিলাম যে কি করা যায় এই বছর পুজোতে । ” মন্দ বললে না ” মা বললেন, ” এই বছর বেড়াতে যাওয়াটা ঠিক হবেনা “।

আমি আগে বলে দিই প্রমীলা হলেন আমার পিসি, আর মা বাবা এই বছর পূজোয় পিসির বাড়ি যাওয়ার কথা বলছেন । আসলে আমার পিসির বাড়িতে দুগ্গা পূজো হয় দীর্ঘ ৮৯ বছর ধরে । আমার পিসা মশাই এর দাদু এই প্রথা টি চালু করে গেছেন । প্রতি বছর পূজো হয় আর প্রতি বছর ই আমাদের নেমন্ত থাকে কিন্তু যাওয়া হয় না । এই বছর চারিদিকে এত বিধি নিষেধ তার জন্যই ঠিক হলো আমরা প্রমীলা পিসির বাড়ি যাবো ।

ঠিক হলো কালকেই রওনা দেব । পিসির বাড়ি হচ্ছে কাঁথি তে । সকাল সকাল জিনিস পত্তর গুছিয়ে রওনা হলাম হাওড়া স্টেশন এর দিকে । টেস্কি থেকে মাল নামিয়ে আমরা হাওড়া স্টেশন এ বসে ট্রেন আসার অপেক্ষা করছি । স্টেশন থেকে জলের বোতল আর কিছু শুকনো খাবার কিনে নিলাম ট্রেনের যাত্রার জন্য।

৮:৫০ এর ট্রেন। ট্রেন এ উঠলাম, হাওড়া থেকে দিঘা প্যাসেঞ্জার লোকাল। ট্রেন লেট আড়াই মিনিট। আমরা তিনজনে ট্রেনে উঠে জানালার সিট দখল করে বসলাম। মালপত্র ওপরে বাংকারে তুলে দিয়ে আমরা শান্ত হয়ে বসলাম। ট্রেন ছাড়লো ১৫ মিনিট পর।

সাড়ে ৩ ঘণ্টার পর ট্রেন থামল কাঁথি স্টেশন এ। আমরা হাতাহাতি করে সব মাল পত্তর নামালাম। পিসা মশাইকে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে আমরা পৌঁছে গেছি। পিসা মশাই আমাদের জন্য আগেই গাড়ির ব্যবস্থা করে ফেলেছিল। বাবা আমি আর গাড়ির ড্রাইভার কাকু আমরা তিনজন মিলে আমাদের সকল মাল পত্তর গাড়িতে তুললাম।

স্টেশন থেকে বাড়ি ঠিক ঘড়ি দেখে ৩৬ মিনিট লাগল। বাড়ির বাইরে আমার পিসি, পিসা মশাই, পারমিতা দিদি, বিকাশ দাদা, ঠাম্মা আরো অনেকে দাড়িয়ে ছিলেন যাদের আমি ঠিক করে চিনিও না। সবাইকে প্রণাম করলাম। বাড়ির ভেতরে দূর্গা পূজো হচ্ছে। আমরা ঢোকার সময় মা কে প্রণাম করলাম। যাক যাত্রা টা তো ভালো ভাবেই হলো।

পিসির বাড়িতে আসার পর কত পুরনো স্মৃতি সব মনে পড়ে গেল। আঙিনায় দাদার সাথে খেলা, ছাদে ক্রিকেট খেলা দাদা দিদির সাথে। এখন দিদির বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর সেই দিন গুলো খুব মনে পড়ে। আমি বাড়িতে এসেই প্রথমে গেলাম ছাদে দেখতে যে সব কেমন আছে, আগে কার মতন সব ঠিক ঠাক আছে কি না। দেখি ছোট বেলা কার সব স্মৃতি খুঁজে পাই কি না।

ছাদের ওপর উঠলাম, আগেই বলে দিই ৩ তোলা বাড়ি, সামনে একটা উঠোন, তুলসী মঞ্চ, একটা আস্ত জমিদার এর আমলের বাড়ি। এক ধরে জলের রিজার্ভ, এক পাশে ছোট্ট একটা বসার জায়গা। কই না তো এই স্থানটার তো কোনো পরিবর্তন আসেনি। হ্যাঁ একটু বেশি পুরনো হয়েগেছে কিন্তু ঠিক আছে।

এই ছাদটা আমার একটা খুব প্রিয় জায়গা। কতই না স্মৃতি জড়িয়ে আছে এই জায়গাটিতে। আমার ওঠাবসা, পড়া খেলা, খাওয়া সব এখানেই হত। আসলে আমার ছোটবেলায় গ্রীষ্মের ছুটিতে আমি চলে আসতাম পিসির বাড়ি ছুটি কাটাতে। আর এখানে এসে দাদা দিদির সাথে খেলা করতাম।

ছাদের রেলিং উঠে বসলাম। বিকেলের হাওয়া বইছিলো। পাশে একই মাঠে কাশফুলের গাছ হয়েছে। আর এমনিতেই দুর্গা পুজো বলে কথা, বাতাসে তো পুজো পুজো ভাব লেগেই আছে। ঠিক মনের মতো, যেমনটা আমরা সন্ধান করি কিন্তু পাইনা। আর পেলেও তার মর্যাদা খুঁজেই পাইনা।

” এ বাবা ! তিনি কি করছেন । ” সামনে বাড়ি থেকে ৫-৬ মিটার দূরে নোংরা ফেলার জায়গা। আর সেখানে ছেলেরা প্রস্রাব করে। ” একি তিনি এখানে প্রস্রাব করবেন ” আমি আতঙ্কিত হলাম। আসলে একজন মহিলা এসে শাড়ি তুলে বসে প্রস্রাব করতে শুরু করলেন। আমি ভাবলাম ” কি অবস্থা ” । আমি খুব ভালো করে তার যৌনাঙ্গ দেখতে পারছিলাম। এক অপূর্ব দৃশ্য, বড় হয়ে এইটা আমার প্রথম জনন অঙ্গ দেখার ঘটনা।

এর আগেও একবার দেখেছিলাম বলে মনে হয়। সেটা ছিল পারমিতা দির। আমার মনে আছে ছোটবেলায় পারমিতা দিয়ে স্যার তাকে বাড়িতে পড়াতে আসতেন। আর দরজা বন্ধ করে পড়াতেন। পিসা মশাই তো অফিসে যেতেন। আর পিসি পাশের বাড়ির কাকিমার সাথে কথা বলতে চলে যেতেন তাদের বাড়ি। রহিতাম শুধু আমি।

একবার আমি খেলতে খেলতে তাদের পড়ানোর ঘরে ঢুকে পরি দরজা খুলে। ঢুকে দেখি পারমিতা দিদি নিজের ফ্রকটা তুলে স্যারের কোলে বসে আছে। আমি তো অবাক হয়ে যাই যে তারা কি করছে ! মনে হাজার ভাবনা চিন্তা আসে। আর এখন আমি বুঝে গেছি আমি যা ভাবতাম সেটাই। আর সেই শিক্ষক হলেন আজ পারমিতা দিদির স্বামী। তিনি দিদিকে বিয়ের আগেই গর্ভবতী করে ফেলেছিলেন। বাড়িতে অনেক অশান্তির পর তার সাথে দিদির বিয়ে হয়, তাও আবার অনেক লোক চক্ষুর আড়ালে।

সেই মহিলার নিজস্বী অঙ্গ দেখে আমার সারা শরীরে উত্তেজনার সীমা ভেঙে গেল। বন্যার সময় বাঁধ দিয়ে যেই ভাবে জল ছেড়ে দেওয়া হয়, যেই ভাবে সারাদিন না খেতে পাওয়া সেই ভিখারি টা হঠাৎ করে খেতে পেয়ে যায় সেই রকম আনন্দের অনুভূতি আমার সারা শরীরে অনুভব হচ্ছিল। হয়তো কামনা, তাকে কাছে পাওয়ার কামনা, হাত দিয়ে স্পর্শের কামনা, ঠোঁটে চুম্বনের কামনা, আমার শরীরকে বশীভূত করে ফেলছে।

আমার এই বাড়ির আসে পাশে অন্য কোনো ঘর – বাড়ি নেই অতএব আমাকে কেও দেখতে পারবে না যদি আমি কিছু করতে চাই। কিছু বোঝাতে আমি যদি এখানে হস্তমৈথুন করার চেষ্টা করি তবে কেউ দেখতে পারবে না। কিন্তু আমার এই কাকিমা কে দেখে কিছু করার কোনো ইচ্ছে নেই। তার বিভিন্ন কারণ আছে সবচেয়ে বড় কারণ আমার লিংগ দাঁড়ায়নি। তাই হাত না মেরে আমি দৃশ্যটি উপভোগ করলাম।

সূর্য ডুবে গেলো, পরিবার এর সকলে মিলে দাওয়াতে পাটি পেতে বসলাম। আছে মুড়ি, চানাচুর, শশা আর চপ। আমরা সকলে মিলে বসে কথা বলতে শুরু করলাম। গত বছর গুলির কথা হতে শুরু হলো। আজ অনেকদিন পর সবাই খুশি। আর হবে না কেন, কতদিন পর পুর পরিবার একসাথে এক জায়গায় হয়েছে।

আমি বসে মুড়ি খাচ্ছিলাম আর বাবা – পিসি র ছোটবেলার কথা শুনতে মগ্ন ছিলাম। হঠাৎ আমার পাশ থেকে পারমিতা দি উঠে চলে গেল। তার বুঝি ফোন এসেছিল সেই জন্য দিদি ঘরে গেলো। মুড়ি খাওয়ার পর জল এর বোতল আনতে আমি ঘরে যখন যাবো তখন পিসি বললেন একটু দিদি কে ডেকে আনতে। আমি ” ঠিক আছে ” বলে চলে গেলাম ঘরে।

রান্না ঘরে জল ছিল, জল বের করে খেলাম। তার পর পারমিতা দির ঘরে গেলাম। ” যা! ” দিদি নেই। হয়তো ছাদে গেছে জামাই বাবুর ফোন আসতেও পারে তাই একাকীত্বে কথা বলতে গেছে। আসলে আমার জামাইবাবু অর্থাৎ পারমিতা দির বর সাঁতরাগাছি তে একটা সরকারি স্কুলের শিক্ষক। এই বছরের মার্চ মাসে তার ট্রান্সফার হয় সেখানে। এই বছর দেরি করে আসবেন, হয়তো সপ্তমীতে।

ছাদে উঠে দেখলাম দিদি ফোনে কথা বলছে। যথা রীতি দিদি একটা পাতলা নাইটি পরে ছিল। গ্রামের রাতে চন্দ্রিমা এ তাঁর রূপটা দেখার মতন ছিল। ভগবান এর অসীম মহিমা এই রূপ আমি চাক্ষুস দেখতে পেলাম। দূর থেকে ডাকলাম ” দিদি ! এই দিদি ! ” দেখি দিদি কোনো সারা দিচ্ছে না। আসলে এতই মগ্ন আছে তো তাই। একটু কাছে গিয়ে ডাকলাম, দিদি সারা দিল।

” থাকনা রে কিছুক্ষন ” দিদি বলল।
” আচ্ছা ! কিন্তু পিসি ডাকছিল ”
” ধুত বাদ দে তো, কিছু ক্ষন পর তো চলেই যাব ”
” আচ্ছা ঠিক আছে ”

আমি দাড়িয়ে রইলাম দিদির সাথে একা কিছুক্ষন। আমার তো ভালই, যতক্ষন থাকবো তত ভালো। দিদি আবার ফোনে কথা বলতে শুরু করে দিলো। আমি সামনের কাঁঠাল গাছে ঢিল মারতে লাগলাম। শুধু আমি আর দিদি আছি আর কেউ নেই আর এই অনুভব এর তুলনা হয় না। হ্যাঁ দূরে কিন্তু কাছে।

ধন্যবাদ বন্ধুরা আজ এই পর্যন্ত।

আমার এটি প্রথম গল্পও এই প্লাটফর্মে তাই comment করে আপনাদের রায় দিতে ভুলবেন না।

আরো খবর  ইতিঃ এক কামপরী (পর্ব -১৫)