তিন নারী কথা পর্ব ১

নমস্কার পাঠকবর্গ আমি আপনাদের আমল ( ঋতম ) আপনাদের কাছে আবার একটি নতুন উপন্যাস তুলে ধরার চেষ্টা করছি ! বালিকা বধূ উপন্যাস টা আশা করি আপনাদের ভালো লেগেছে ! এবার আমার এই নতুন প্রচেষ্টা ৩ জন সোসাইটি তে বসবাস কারিনী আধুনিকা গৃহবধূ দের নিয়ে ! যাজ্ঞসেনী , নৈঋতা আর অলিভিয়া কে নিয়ে ! এবার শুরু করা যাক !

প্রতিদিনের মতো আজ ৩ জন বান্ধবী , না বান্ধবী ঠিক নয় , সোসাইটিতে বসবাসকারি একটি মহিলা গ্রূপ সন্ধে বেলা তে সোসাইটি ভ্রমণে বেড়িয়েছেন ! যাদের এটা একটা প্রাত্যহিক অভ্যেস ! পুরো দুনিয়া এদিক ওদিক হয়ে গেলেও এনাদের এই সান্ধ্যকালীন ভ্রমণটা জীবনের এক অবিছ্যেদ্য অঙ্গ !
যাজ্ঞসেনী : এই আজ আমাকে একটু তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরতে হবে ! আজ কিন্তু বেশি দেরি করলে হবে না আমার
অলিভিয়া : কুল.. এতো তারা কিসের আজ?
নৈঋতা : হয়তো বাড়িতে শাশুড়ি তাড়াতাড়ি ফিরতে বলেছেন
যদিও এটা যাজ্ঞসেনীর ক্ষেত্রে এটা অস্বাভাবিক কিছু নয় ! তবু নৈঋতার আপাতত এই অন্ধকারে তীর চালানোটা ব্যর্থ গেলো !
যাজ্ঞসেনী : না, আজ আমার ছোট মেয়ের জন্মদিন ! সবই তৈরী আছে কিন্তু গিয়ে কেক কাটার প্রস্তুতি নিতে হবে
অলিভিয়া : বাইরে থেকে কেক অর্ডার করলেই তো হয় , নিজে কষ্ট করে বানানোর কি দরকার?
যাজ্ঞসেনী : আসলে আমার শশুর শাশুড়ি বাইরের খাবার পছন্দ করেন না ! বাইরের খাবার ঢুকতেও দেন না বাড়িতে ! আর যখন আমি নিজেই বানাতে পারি তাহলে বাইরের খাবার বানানোর কি দরকার?
নৈঋতা : যাজ্ঞ তো রান্নাটা ভালোই করতে পারে আর ভালোবাসে , যাই হোক, যাজ্ঞ কাল কিন্তু কেক টা নিয়ে আসবি আমাদের জন্য !
যাজ্ঞসেনী : তোমাদের জন্য অবশ্যই নিয়ে আসবো, তোমাদের না দিয়ে খেতে পারি আমি?
এই বলে যাজ্ঞসেনী বিদায় নিলো ! বাড়ি ঢুকে ঢুকেই শাশুড়ি সৌদামিনী দেবীর মুখ ঝামটা খেতে হলো !
সৌদামিনী দেবী : আজকের দিনে বাইরে না গেলে কোন মহাভারত অশুদ্ধ হতো? এতো দেরি করে ফিরলে বৌমা ! যায় তাড়াতাড়ি সব রেডি করো !
যাজ্ঞসেনীর কাছে এটার উত্তর ছিল, কিন্তু উত্তর না দেওয়া তাই শ্রেয় , নাহলে বরের কাছেও গঞ্জনা শুনতে হবে রাতে ! সব কিছু তৈরী ! যাজ্ঞসেনীর বড়ো মেয়ে প্রিয়ম্বদা বয়স ৭ বছর , ছোট করে প্রিয়া বলে উঠলো, মা সাগর চাচুকে একবার ফোন করবে? তাড়াতাড়ি ডাক চাচু কে ! অনুসূয়া , যাজ্ঞসেনীর ছোট মেয়ে , যার বয়স ৪ বছর, বলে উঠলো, সাগর চাচুকে ছাড়া কেক কাটবো না আমি ! ছোট মেয়ের জেদ দেখে যাজ্ঞসেনীর মেজাজ সপ্তমে চড়ে গেলো, কিন্তু শশুর শাশুড়ির সামনে কিছুই বলতে পারলো না ! প্রিয়াকে বললো, ফোন কর তোর সাগর চাচুকে !

এই সাগর হলো সৌদামিনী দেবীর কনিষ্ঠ পুত্র , মানে যাজ্ঞসেনীর একমাত্র দেবর ! সৌদামিনী দেবীর নয়নের মনি ! যাজ্ঞসেনীর বর অমিতেশের দু চোখের বিষ ! কেন জানি না নিজের ছোট ভাইকে একদম সহ্য করতে পারে না অমিতেশ ! হতে পারে অমিতেশ প্রথমে সংসারের একচ্ছত্রাধিপতি ছিল, কিন্তু ভাই সাগর আসার পর অমিতেশের সব কিছুতেই ভাগ বসিয়েছে ! মায়ের দুধ থেকে শুরু , তারপর আদর, আবদার, বায়না, খেলনা, পড়াশোনা, খেলাধুলা সবকিছুই ! বাড়ির ছোট ছেলেরা একটু বেশি তীক্ষ্ণ ও বুদ্ধিমান হয় ! সাগর সব কিছু বুঝেও না বোঝার ভান করে থাকে তাই নিজেই দাদার কেনা ফ্লাট ছেড়ে নিচের তলাতেই ষ্টুডিও এপার্টমেন্টে নিজের অবিবাহিত জীবনযাপন করে ! আজ অমিতেশের কাছে এটাও এক ধরণের পরাজয় যে অমিতেশের মেয়েরা আজ অমিতেশের খোঁজ না করে সাগর চাচুর খোঁজ করছে !

সাগর বাড়িতে ঢুকতেই ছোট্ট অনু দৌড়ে চাচুকে জড়িয়ে ধরলো, আর সাগর হাটু মুড়ে মাটিতে বসে অনুকে বুকে জড়িয়ে ধরলো ! সাগর নিজের দাদার খোঁজ করলো, বৌদি যাজ্ঞসেনী জানালো যে জরুরি কোনো একটা কাজে আটকে গেছে অমিতেশ তাই আসতে দেরি হবে ! যদিও সাগর জানে এটা কোনো নতুন ব্যাপার নয় ! প্রতিদিনই অমিতেশ রাত ৯ টায় বাড়িতে ঢোকে ! কেক কাটা হলো , আজ অমিতেশ নিজের মেয়ের জন্মদিন ভুলে গেলেও সাগর ভোলেনি আর ভাইঝির জন্মদিন ! সে আসার সময় অনুর জন্য সুন্দর একটা ছবি অনেকের বই নিয়ে এসেছে ! অনুর কেক কাটার থেকেও বেশি আকর্ষণ ছিল চাচুর দেওয়া উপহারটা নিয়ে বসার ! কেক কাটার পর সাগর তার মা বাবার সাথে গল্প করছে ! যাজ্ঞসেনী নিজের মেয়েদের নিয়ে ব্যস্ত , আর মাঝে মাঝে উনানে চাপানো রাইতার দিকে খেয়াল রাখছে ! যাজ্ঞসেনী একটা ট্রে তে করে এক টুকরো কেক নিয়ে এলো নিজের দেবর সাগরের জন্য ! সাগর বৌদিকে নিজের ভাগ থেকে একটু কেক ভেঙে দিলো, সাগর সবই লক্ষ্য করেছে, কেক এর ভাগ সবার জন্য হয়েছে, দাদার জন্য কেকটা আলাদা করে রান্না ঘরে ঢাকা আছে, আর বাকি কেক টিফিন বক্সে ! সাগরের বাড়ানো কেক যাজ্ঞসেনী নিজের হাতে নিয়ে খুব সুন্দর মন থেকে একটা মিষ্টি হাসি হাসলো ! দেবর বৌদি তখন গল্প শুরু করেছে !

অনু ছুটে এসে চাচুর কোলে চেপে বাইরে ঘোরার বায়না করতে লাগলো ! এমন সময় এক টুকরো কেক সাগরের পছন্দের সাদা কুর্তাতে পড়লো ! সাগর সেই কুর্তাটা জলে ধোয়ার জন্য আরো ছড়িয়ে পড়লো ! শেষে যাজ্ঞসেনী সেটা খুলে ওয়াশিং মেশিনে দিয়ে দিলো ! সাদা গেঞ্জি পড়া অবস্থাতে সাগরের পেশীবহুল শরীরে যাজ্ঞসেনীর নজর গেলো ! কি সুন্দর পেশী বহুল ছিমছাম পেটে করা চেহারা, আর গেঞ্জির বুক থেকে কালো কোঁকড়ানো লোমশ বুকের কিছুটা দৃশ্যমান ! পরক্ষনেই সে উঠে রান্নাঘরে চলে গেলো রাইতার কাছে ! সাগর অনুকে নিয়ে ঘোরাতে চলে গেলো !

অমিতেশ বাড়ি ঢুকলো ঠিক পৌনে দশটার দিকে ! শুনলো অনু সাগরের সাথে গেছে, বাড়ি ঢুকেই যাজ্ঞসেনীর ওপর নিজের কর্মজীবনের হতাশার প্রতিশোধ নিলো , এমনকি ও নিজের বাড়িতেই নাইটি পড়ে থাকার জন্য তাকে কথা শুনতে হলো ! সাগর এসেছিলো আর যাজ্ঞসেনী নাইটি পড়ে ছিল এই অপরাধে তাকে অনেক কথা শুনতে হলো ! নীরবে কোনো প্রতিবাদ না জানিয়ে সে রান্নাঘরে চলে গিয়ে নিজের চোখের জল ফেললো ! অপরাধ যারই হোক, অফিসের নিজের কাজের ভুল , বসের ধাতানি , মায়ের বকুনি , রান্নাতে নুন কম বা বেশি , সাগর বাড়িতে এলে, অনু আর প্রিয়ার সাগরের ওপর স্নেহ ভালোবাসা , সব কিছুর ভর্ৎসনা গঞ্জনা যাজ্ঞসেনীর ওপর ! এমন সময় কানে এলো, শাশুড়ি সৌদামিনী দেবী ছেলেকে বলছেন, মেয়ের জন্মদিনে যাজ্ঞ বড্ডো বাড়াবাড়ি আর বাজে খরচ করেছে ! ছেলে হলে কোনো অসুবিধা ছিল না ! এমন সময় অনুকে বাড়ি দিয়ে গেলো সাগর ! আজ যাজ্ঞসেনী সব রাগ ঝেড়ে দেবেন নিজের ছোট মেয়ের ওপর, কিন্তু বাড়ি ঢুকেই মা মা করে জড়িয়ে ধরাতে মেয়ের নিষ্পাপ মুখটা দেখে উনি কিছুই বলতে পারলেন না মেয়েকে !

আবার রান্নাঘরে এবার খাবার বাড়তে লাগলো, অমিতেশ এখন টিভি তে খবর চালিয়ে বাবা মার সাথে কথা বলছে ! টেবিলে খাবার বেড়ে শশুর, শাশুড়ি, প্রিয়া, অমিতেশকে পরিবেশন করে অনুকে খাইয়ে দিতে লাগলো ! এর পর অমিতেশ বিছানাতে গিয়ে শুয়ে পড়লো ! সব কাজ মিটিয়ে যাজ্ঞসেনী শয়ন কক্ষে প্রবেশ করলো ! নিজের নাইটি ছেড়ে , অন্তর্বাস ছেড়ে গাউন পড়তে লাগলো ! হঠাৎ করে আয়নাতে চোখ পড়লো, গাউনের ফিতেটা তখন বাঁধা হয়নি ! অমিতেশের প্রিয় লাল রঙের গাউনের মাঝে যাজ্ঞসেনীর ফর্সা ফুটফুটে শরীরটা একদম ফুটে উঠেছে ! বয়স এখন প্রায় ৩৫ , দুই বাচ্চার মা, কিন্তু এখনো বুক দুটো সুগঠিত এবং সুডোল ৩৪ সাইজের , যে কোনো পুরুষকে আকৃষ্ট করতে সক্ষম, ফিতে টা বাঁধতেই নিজের কোমর পাছা গাউনের সাথে টাইট হয়ে লেগেছে, কোমরটা এখনো ৩০ আর পাছাটা একটু বড়ো ৩৬ সাইজের ! একবার বিছানাতে শুয়ে থাকা অমিতেশের দিকে তাকালো !

এখন গভীর ঘুমে নাক ডাকছে অমিতেশ ! লাইট টা বন্ধ করে নাইট বালব জ্বালিয়ে শুয়ে পড়লো চুপচাপ ! ঘুম আসছে না যাজ্ঞসেনীর ! চোখের জলটা তখন পুরোপুরি মুছে যায়নি ! চোখ দুটো ছল ছল করছে ! এই চোখের জলটাই একমাত্র সম্বল যাজ্ঞসেনীর , একমাত্র এটার কাছেই নিজের মান অভিমান ব্যক্ত করতে পারে ! হঠাৎ মনে পরে গেলো সাগরের কুর্তিটা এখনো ওয়াশিং মেশিনের ভেতরেই থেকে গেছে, বিছানা থেকে উঠলো যাজ্ঞসেনী, কিন্তু ওটা বের করলেই ওকে বরের কাছে কৈফিয়ত দিতে হবে বলে আর বের করলো না ! আবার শুয়ে পড়লো !

শুয়ে শুয়ে সাগরের কথা ভাবতে লাগলো ! একই মায়ের পেট থেকে দুজন ছেলে পুরোপুরি দুই রকম ! সাগরের পেশীবহুল শরীরটা আর লোমে ঢাকা বুকের ছবি ফুটে উঠলো ! এসব ভাবতে ভাবতেই যাজ্ঞসেনী ঘুমের দেশে ঢলেপড়লো ! আর পড়বে না কেন? কম খাতা খাটনি গেছে আজ যাজ্ঞসেনীর? হঠাৎ গভীর রাতে পেছন থেকে কেউ যেন যাজ্ঞসেনীর গাউনটা ধরে টানছে আর ওকে ঘুম থেকে তুলে দিচ্ছে ! ঢুলু ঢুলু চোখে তাকালো, অমিতেশের কাছে এখন নিজেকে সপেঁ দিতে হবে ! অমিতেশ গাউনের ফিতেটা খুলে মাঝ বরাবর ফাঁকা করে নিজের ভারী শরীরটা নিয়ে যাজ্ঞসেনীর ওপরে, কিছুক্ষন নিজের পুরুষত্ব দেখিয়ে আবার নিস্তেজ হয়েই শুয়ে পড়লো ! যাজ্ঞসেনী ওই অবস্থাতেই আবার অমিতেশের ঘুমিয়ে পড়ার পর আবার পেছন দিকে ঘুরে শুয়ে রইলো, ঘুম আসছে না তার ! সকালে ঘুম ভাঙলো অ্যালার্ম ঘড়িতে ! কখন ঘুলিয়ে গেছিলো মনে নেই তবে, তবে ঘন্টা দুয়েক জেগে ছিল পতি পরমেশ্বরের ভালোবাসার পর !

সকালে উঠে বরের টিফিন, অনুর প্লে স্কুল , আর প্রিয়ার স্কুলের টিফিন তৈরী করে গুছিয়ে দিয়ে শশুর মশাই আর শাশুড়ির জন্য চা আর জলখাবার হাতে নিয়ে ঢুকলো ! শাশুড়ি সৌদামিনী দেবীর মুখ ভার, আজ শশুর মশাইকে প্রাতঃভ্রমণ থেকে ফেরার পর ২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হয়েছে জলখাবারের জন্য !

সন্ধে ৭ টার অপেক্ষা করতে করতে লাগলো যাজ্ঞসেনী ! এটাই টার একমাত্র নিজের সময়, চারদেয়ালের থেকে ছাড়া পেয়ে খোলা হওয়ার আস্বাদনের সময় এটা ! বেরিয়ে ঠিক এক স্থানে নৈঋতা আর অলিভিয়ার সাথে দেখা ! দেখা হতেই কেকের বাক্স খুলে দিলো ওদের সামনে ! ওরা কাড়াকাড়ি করে বাচ্ছাদের মতো খেতে লাগলো ! গোগ্রাসে খাবার পর
অলিভিয়া : কেকে ডিম্ দিস নি ?
নৈঋতা : ও কি করে ডিম্ দেবে কেকে? ওর শশুর শাশুড়ি অনুকূল ঠাকুরের শিষ্য ! ওদের বাড়িতে আমিষ একদম নিষিদ্ধ ! ভুলে গেছিস?
অলিভিয়া : ও হ্যাঁ মনে পড়েছে ! কি করে থাকিস তুই নিরামিষের ওপর?
যাজ্ঞসেনী : কেন? আমিষ খেতেই হবে? নিরামিষ খাওয়াটাই সব থেকে ভালো , ভাগাড়ে মাংস খাবার থেকে !
যাজ্ঞসেনীর মনে পরে গেলো সে আমিষ খেয়েছে প্রায় ১ মাস আগে , সাগরের ফ্ল্যাটে লুকিয়ে লুকিয়ে চিকেন বিরিয়ানি আর কোল্ড ড্রিঙ্কস খেয়েছিলো ! ভাগ্গিস সেদিন শাশুড়ির কথায় ঠিক সময়ে পৌঁছে গেছিলো সাগরকে বাসন্তী পোলাও দেওয়ার জন্য ! উফফ সেদিন যা জমেছিলো না খাবারটা ! জাস্ট অসাধারণ ফাটাফাটি !

অলিভিয়া : আমার তো রোজ আমিষ লাগে ! খাবারেও , বিছানাতেও
নৈঋতা : তুই না একদম যা তা ! আগে যদিও আমারও সেরকমই ছিল
যাজ্ঞসেনী : (মুখের মধ্যে একটা মিথ্যা হাসি এনে বললো ) খাবার টা নিরামিষ সহ্য করে নেবো কিন্তু বিছানাতে নিরামিষ না হলে আমার চলে না
অলিভিয়া : শুনলি আমাদের এখানে সোসাইটির ক্লাবে সপ্তাহে ২ দিন যোগা ক্লাস হবে
নৈঋতা : বাও দারুন ব্যাপার
যাজ্ঞসেনী : না না আমার ওসব একদম ভালো লাগে না ! এমনিই সারাদিন আমার যা ধকল যায়
অলিভিয়া : ওই জন্যই তো বললাম, যোগা করে বেদম ফ্রেশ হয়ে জাবি
নৈঋতা : ইচ্ছা আমারও আছে কিন্তু আমার বরের ব্যবসাতে মন্দ চলছে আমার হবে না মনে হয়
যাজ্ঞসেনী মনে মনে ভাবলো সাহস করে অমিতেশকে বলবে? না থাকে বললে আবার মুখ ঝামটা খেতে হবে !
যাজ্ঞসেনী : তোর কত ভালো তুই নিজে চাকরি করিস , তোর যা খুশি তাই করতে প্যারিস ! তুই তো বিভিন্ন শহরে ঘুরে বেড়াতে পারিস !
অলিভিয়া : কর্পোরেট চাকরির মজাই আলাদা , কত রকম লোক, কত নতুন নতুন জায়গা ! কত নতুন নতুন কত সঙ্গী !
নৈঋতা : আমিও যখন এয়ার হোস্টেস ছিলাম তখন কত জায়গাতে কত শহরে ঘুরে বেড়িয়েছি ! কত পার্টি কত মজা ফুর্তি !

অলিভিয়া একজন বেসরকারি কর্পোরেটে কর্মরতা ! বয়স ৪২ ! ওনার বর একটা বেসরকারি অধিষ্ঠানের এম ডি ! খুব কম বয়সেই বিয়ে করে নিয়েছেন অলিভিয়া ! সত্যি বলতে কি উনি বিয়ে করেন নি, বাধ্য হয়ে বিয়ে করতে হয়েছে ! তখন বয়স ২৩ , সবে যৌবনে পা দিয়েছেন, বাড়ির অবস্থা বেশ সচ্ছল ! নিজের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য বাড়ির অমতে চাকরিতে যোগদান করেন ! বেশ সুন্দরী, চাকুরী জীবনটা শুরু করেছিলেন প্রদীপ বাবুর অফিসের রিসেপশনিস্ট হিসাবে ! আসতে আসতে প্রদীপ বাবুর সাথে ভাব জমে ওঠে, তারপর প্রদীপ বাবুর অনুগ্রহে উনি চাকরিতে স্থায়ী কর্মচারী নিযুক্ত হন প্রদীপ বাবুর পি এ হয়ে ! যদিও সেটার কারণ অজ্ঞাত হয়েও সর্বজ্ঞাত ছিল ! প্রদীপ বাবুর সাথে ওঠা বসা শুরু হয় ! ওঠা বসা থেকে শোয়াটা হতে বেশিদিন সময় লাগে নি ! শোয়ার জন্য তো অলিভিয়া প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিল প্রদীপ বাবুর কাছে ! হয়তো নামিদামি সাদা কলারের কর্পোরেটের উচ্চপদস্থ ক্ষমতাধারী নির্ণায়ক কর্মচারীদের এটাই অলিখিত নিয়ম এবং বর্তমান সমাজের এক কালিমা লেপিত কটু সত্য ! দরকারে অদরকারি প্রদীপ বাবুর ট্যুরের সঙ্গিনী হয়ে যান !

আরো খবর  প্রতিদান