তিন নারী কথা পর্ব ৩

অলিভিয়া বুক ঘষতে ঘষতেই দক্ষ অভিজ্ঞ হাতে গাউনের তলায় নিজের হাত অন্তর্ধান করে সেই তাঁবুর ভেতরে নিজের হাত দিয়ে তাঁবুর উচ্চতা বাড়িয়ে দিতে লাগলো ! এবার বেবিডল পোশাকটা হাত দিয়ে তুলে ধরে নিজের যোনিটা প্রদীপবাবুর লোমে ঢাকা শরীরে ঘষতে লাগলো আর প্রদীপবাবুর সারির থেকে গাউনটা সরিয়ে প্রদীপবাবুকে বিবস্ত্র করে দিলো ! বরের লোমে ঢাকা পুরুষ শরীরটা আরেকবার অনাবৃত উন্মুক্ত অবস্থাতে অলিভিয়ার সামনে , অলিভিয়ার বেবিডল তোলা অবস্থাতে প্রদীপবাবুর মুখে গালে দাড়ির মধ্যে নিজের যোনির পাপড়ি গুলো ঘষতে লাগলো আর দাড়ির সুড়সুড়িতে অলিভিয়ার যৌবনেও সুড়সুড়ি লাগলো, যৌন খেলা ত্বরান্বিত হলো আর প্রদীপ বাবুর বিচলতা বেড়ে গেলো ! অলিভিয়ার যৌনাঙ্গের ঘ্রানে প্রদীপবাবু আর সন্তুষ্ট নন , অলিভিয়ার যৌনাঙ্গের স্বাদ চান, যৌনাঙ্গের গরম সুধা পান করতে চান ! সেটা মুখে না বললেও হাত পায়ে দড়ি বাধা অবস্থাতে নিজের শরীরী ভাষা দিয়ে সেটা বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন !

কিন্তু এক অলিভিয়ার দিন, অলিভিয়া আজ নিজের যা ইচ্ছা হয় করবে , অলিভিয়া নিজের যোনিটা প্রদীপ বাবুর ঠোঁটে চেপে ধরছে , আবার পরের মুহূর্তে দূরে সরিয়ে নিচ্ছে , যেভাবে সন্তানকে মায়ের দুধ থেকে আলাদা করলে যেমন অনুভব হয় বাচ্চাদের , আজ প্রদীপবাবুর অবস্থা অনেকটা ওরকমই ! এর পর নিজের দুটো উরু ফাঁক করে, দুটো আঙ্গুল দিয়ে যোনিটা চিরে ধরলো প্রদীপবাবুর মুখের কাছে, প্রদীপবাবু পিপাসিটের মতো নিজের জিভটা বাড়িয়ে অলিভিয়ার যোনির গোলাপি লাল অংশে জিভ বোলাতে লাগলেন, আর অলিভিয়া দুই হাত দিয়ে নিজের ঝুলে পড়া চুলটা ধরে মাথার ওপরে তুলে দিয়ে ধরে থাকে মাথায় হাত দিয়ে, আর কোমরটা আরো এভিয়ে কোমল যোনিটা এগিয়ে দেয় প্রদীপবাবুর মুখের দিকে, জিভটা আরো ভেতরে নিয়ে নেয় অলিভিয়া !

আর একটা হাত পেছনে নিয়ে গিয়ে প্রদীপবাবুর খাড়া গম্বুজ নিয়ে খেলা করতে থাকে, প্রদীপবাবুর ব্যাকুলতা আরো বৃদ্ধি পেতে লাগলো, আর জিভটা আরো দ্রুত চালনা করতে লাগলো, অলিভিয়ার কামুক যোনিটা ইতিমধ্যেই রসে ভরে গেছে , অলিভিয়া নিজের হাত আরো জোরে চালাতে লাগলো আর প্রদীপবাবু উন্মত্ত হতে লাগলো ! প্রদীপবাবুর এই ব্যাকুলতা, আর উন্মত্ততা অলিভিয়ার তহঁতে একটা মৃদু হাসি অন্য, এভাবেই দেখতে চেয়েছিলো সে নিজের প্রিয়তমকে !

এবার অলিভিয়া দুষ্টুমি করে নিজের রসালো যোনিটা প্রদীপবাবুর দাড়িতে গালে ঘষে নিজের যোনিরস মাখিয়ে দিতে লাগলো, আর নিজের বেবিডল খুলে একদম পুরো নগ্ন হয়ে গেলো ! বিয়ের এতো বছর পরেও প্রদীপবাবুকে সেটা একই রকম বিচলিত করে যেমন নববিবাহিতা অলিভিয়াকে দেখে প্রথম প্রথম বিচলিত করতো ! এবার অলিভিয়া পিছিয়ে এসে প্রদীপবাবুর লিঙ্গের চূড়াতে নিজের যোনিটা ঘষতে লাগলো আর অলিভিয়া এবং প্রদীপবাবু দুজনেই কামের ডাকে সারা দিতে লাগলো নিজের মুখ থেকে শীৎকার করে ! এবার অলিভিয়া নিজের কোমরটা হালকা তুলে প্রদীপবাবুর গম্বুজের চূড়ার মাথায় রেখে নিজের পুরো যোনির মধ্যে গেথে নিলো ! প্রদীপবাবুকে কোমর নাড়ানোর সুযোগ না দিয়ে অলিভিয়া দুই হাতে নিজের ঝুলে থাকা বড় স্তনদুটো কে দুই হাতে ধরে নিজের পাছাটা সামনে পেছনে করতে লাগলো, আর প্রদীপবাবু সম্পূর্ণ নিষ্ক্রিয় খেলোয়াড় !

অলিভিয়া দুই হাতে নিজের গর্ব নিজের স্তন দুটো ধরে স্তনমর্দন করতে করতে প্রদীপবাবুর লিঙ্গটা যোনি দিয়ে আঘাত করতে লাগলো, এবার অলিভিয়া পুরোপুরি সোজা হয়ে নিজের মাথাটা পেছনে হেলিয়ে দিয়ে দুই হাত পেছনে রেখে নিজের কোমরটা ওপর নিচ করতে লাগলো একদম ৯০ ডিগ্রী কোণ এ ! আজ এই যৌনখেলাকে পুরোপুরি নিজেই চালনা করছে অলিভিয়া , সঙ্গে সঙ্গে প্রদীপবাবুকেও লাগাম হাতে নিয়ে চালনা করছে ! এবার ঝুকে পড়লো প্রদীপবাবুর বুকে, প্রদীপবাবুর বুকের চুলের সাথে অলিভিয়ার চুল মিশে গেলো, আর অলিভিয়ার নরম বড় বেলুন দুটো চেপে ঘসছে প্রদীপবাবুর ওপরে ! আজ অলিভিয়া একটু বেশিই উপভোগ করছে, রোজ এ তো প্রদীপবাবু উপভোগ করেন, আজ না হয় তার দুস্টু মিষ্টি প্রিয়তমা বৌটা বেশি উপভোগ করুক !

এভাবে প্রদীপবাবুর লিঙ্গটা ৩০ ডিগ্রী কোণ করে অলিভিয়ার সিক্ত যোনিতে ছেদ করছে ! প্রদীপবাবু এরকম কামক্রিয়াতে খুব একটা অভ্যস্ত নয় , আজ খুব তাড়াতাড়ি ইন্দ্রপতন হলো, আর নিজের বীর্যে নিজের তলপেট ভাসিয়ে দিলেন প্রদীপবাবু ! দুজনের চোখে মুখে তৃপ্তির আভা ! আজ সুন্দরী কামুকি অলিভিয়া বরের সাথে অন্য রকম দুষ্টুমিতে নিজের মন ভরিয়েছে , নিজের যোনি ভরিয়েছে ! ওই ভাবেই অলিভিয়া আর প্রদীপবাবু সুখী দম্পতি হয়ে পরস্পরকে জড়িয়ে নগ্নভাবে ঘুমিয়েছে ! প্রতিদিন বিভিন্নভাবে অলিভিয়া আর প্রদীপবাবু যৌন খেলায় মেতে ওঠে, আর দাম্পত্য সুখ আস্বাদন করে ! হয়তো এই জন্যই দুজনের বিবাহ জীবন এতো সুখের আর প্রায় ৪০ উর্ধ অলিভিয়া আর ৪৫ উর্ধ প্রদীপবাবু সেই কারণেই যৌনজীবন আর সঙ্গম রোজ রাতেই উপভোগ করেন ! সারাদিন দুজনের মধ্যে কোনো বার্তা হয় না, দুজনই দুজনের কাজে ব্যস্ত থাকে ! কিন্তু দিনের শেষে যখন তারা একসাথে মিলিত হয় তখন সারাদিনের ক্লান্তি, পরিশ্রম , দুঃখ, রাগ , অভিমান ভুলে গিয়ে বিছানাতে দুটো মানুষ, দুটো মন, দুটো সারির এক করে দেয় ! সারা রাত একে অপরকে জড়িয়ে অঙ্গের সাথে অঙ্গ লাগিয়ে সুখের নিদ্রায় শায়িত হয় !

আজ যাজ্ঞসেনী বাড়ি ফিরেই শাশুড়ি সৌদামিনী দেবীর কাছে নতুন আদেশ পেলো আজ বাড়িতে খিচুড়ি হবে, যাজ্ঞসেনীর শশুর মশাইয়ের আজ খিচুড়ি খাবার ইচ্ছা ! কোনোরকম প্রতিবাদ বা বিরোধিতা করার কোনো অধিকারই নেই যাজ্ঞসেনীর, তাই যথারীতি রান্নাঘরে গিয়ে খিচুড়ির ব্যবস্থা করতে লাগলো ! বাইরে থেকে আওয়াজ এলো সৌদামিনী দেবীর ,” সাগরকে একটু বলে দিও , ও খিচুড়ি খেতে খুব ভালোবাসে” !

খিচুড়ি রান্নার আগেই যাজ্ঞসেনী নিজের দেবর সাগরকে আগে থেকেই জানিয়ে দিয়েছে শাশুড়ির আদেশ মতোই ! যাজ্ঞসেনীর সব কিছুতেই জ্বালা, যদি স্বামী অমিতেশ বাড়ি এসে নিজের ভাই সাগরকে দেখেন তবে তার রাগটা গিয়ে পর্বে যাজ্ঞসেনীর ওপর ! তাই তাড়াতাড়ি রান্না শেষ করেই সাগরকে এসে খেয়ে যেতে বললো ! সাগর একটা কালো রঙের স্কিন টাইট টি শার্ট আর একটা খয়েরি পাতলুন পরে হাজির ! সাগর বাড়ি ঢুকতেই অনু আর প্রিয়া চাচুকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে গেলো ! যাজ্ঞসেনী মনে মনে ভাবতে লাগলো ” কি অসাধারণ ব্যক্তিত্ব আর অসম্ভব বিনয়ী তার দেবর সাগর ! অফিস থেকে এসেও একদম বাচ্ছাদের মতো এনার্জি আর মুখে মৃদু হাসি ! পোশাকের চয়নটাও খুব সুন্দর, পেটানো নির্মেদ চেহারাতে তার বলিষ্ঠ শরীরটা আরো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে ! টি শার্টের দুই হাতা থেকে পেশীবহুল হাতটা বেরিয়ে আছে ! দুই ভাইয়ের মধ্যে একটুও মিল নেই যেন দুজনে দুই মেরু ”

কোক ভাঙলো যখন চোখাচোখি হলো সাগরের সাথে ! যাজ্ঞসেনী আর দেরি না করে রান্না ঘরে চলে গেলো খাবার টা টেবিলে নিয়ে এসে বেড়ে দিলো ! সাগর স্বভাব বশত বৌদির হাতের রান্নার প্রশংসাতে পঞ্চমুখ হয়ে উঠলো ! সাগরের মনে প্রতিদান দেওয়ার কথা এলো, চুপি চুপি বৌদি যাজ্ঞসেনীকে বললো কাল দুপুরে সাগরের ফ্ল্যাটে আস্তে, সেখানে সে যাজ্ঞসেনীর প্রিয় মটন বিরিয়ানি এনিয়ে রাখবে ! মনে পড়লো যাজ্ঞসেনীর, সেই কবে আমিষ খেয়েছে তাও আবার দেবর সাগরের জন্যই সুযোগ পেয়েছিলো, গোগ্রাসে গলধঃকরণ করেছিল সেই রুমালি রুটি আর চিকেন ভর্তা ! সত্যি কোনো তুলনা নেই বর অমিতেশ আর দেবর সাগরের ! খাওয়াদাওয়ার পর সাগর বিদায় নিলো, একটু পরেই অমিতেশ বাড়িতে ঢুকে রোজকার মতো ফ্রেশ হয়ে শরীরটা সোফাতে এলিয়ে দিয়ে চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে টিভিতে খবরের মধ্যে নিমজ্জিত ! আজ খেয়ে দিয়ে যাজ্ঞসেনী তার প্রিয় কালো রঙের গাউন পরে চুল বেঁধে বিছানাতে এসে শুলো, বরের সাথে শরীরটা একটু ছুঁইয়ে দিয়ে নিজের কোমলতার স্পর্শ দিয়ে বরকে একটু নিজের দিকে আকর্ষিত করার চেষ্টা করলো, ঘুমে মগ্ন অমিতেশ ঘুমের ঘোরেই একটু দূরে সরে গেলো !

যাজ্ঞসেনী রোজকার মতোই চোখ বুজে ঘুমের চেষ্টা করতে লাগলো, কিন্তু এ কি ? যাজ্ঞসেনী চমকে চোখ খুলে তাকালো, চোখ বন্ধ করতেই তার চোখের সামনে দেবর সাগরের সেই হাসিমুখে টি শার্ট আর পাতলুন পড়া চেহারাটা ভেসে উঠলো ! ভাগ্গিস তার চিন্তা ভাবনার ওপর কারুর নজর নেই, নাহলে আজ সর্বনাশ হতো, তার সংসার ভেঙে যেতেও পারতো ! কিন্তু সাগর কিছুতেই তার কল্পনার বাইরে যেতে রাজি নয় , বারবার ঘুরে ফিরে যাজ্ঞসেনীর মনের দ্বারে কড়াঘাত করতে লাগলো ! যাজ্ঞসেনী উঠে বাথরুমে গিয়ে চোখে মুখে জল দিয়ে এসে শুলো ! আবার সাগরের চেহারাটা ভেসে উঠলো, আর এবার যাজ্ঞসেনীর স্বপ্নে শৃঙ্গার করতে লাগলো ! ঠিক স্বপ্ন নয়, জাগ্রত অবস্থাতেই , জেগে জেগেই স্বপ্ন, অনেকটা দ্বিবাস্বপ্নর মতোই , হঠাৎ স্বপ্নে সাগরের স্পর্শে যাজ্ঞসেনী গরম তাওয়াতে রাখা মাখনের মতো গলে যেতে লাগলো, দুই পায়ের মাঝে একটু সিক্ততা অনুভব করলো, হাত দিয়ে দেখে সত্যি তার যোনি সিক্ত হয়ে উঠেছে ! যাজ্ঞসেনী অপরাধবোধে নিজের ওপরে নিজেই লজ্জিত হলো !

আরো খবর  মৌচাক – ২