রঙ নাম্বার পর্ব – ৬

গল্প না দিতে পারে আমি খুবই দুঃখিত।।

দেরি না করে শুরু করা যাক ।

আগের পর্ব

খালি বাড়িতে কেউ নেই । ভদ্র বাড়ির বউ বাড়ি খালি থাকার ফলে সে এখন হল রুমের মধ্যে এক বীভৎস অবস্থায় রয়েছে। হল রুমের মেঝেতে লুটিয়ে পড়ে রয়েছে বাড়ির গৃহবধূর পরনের নাইটিটা তার সাথে ব্রা আর আধ ভেজা পেন্টি। পুরো রুমের মধ্যে সোফার ক্যাচ ক্যাচ শব্দ ভেসে বেড়াচ্ছে। সেই সোফার উপরে দেখা যাচ্ছে লেংটা অবস্থায় শিলা খাড়া ডিলডোটার উপরে প্রানপনে লাফিয়ে চলছে ভালো ভাবে লক্ষ করলে দেখা যাবে যে খোলা এলোমেলো ঘামে ভেজা চুল গুলোর ফাক দিয়ে কানে ফোন নিয়ে সে কামের জ্বালা মেটাচ্ছে।

সেই সময় শিলা তার শরীরের জ্বালা মেটাতে এতটাই ব্যস্ত যে সে সব কিছু একেবারের ভুলেই গিয়েছিল। কান পাতলে সোনা যায় যে তার মুখ থেকে রকি রকি আওয়াজ ভেসে বেড়াচ্ছে। সে ক্ষমা চাইছে রকির কাছে। ডিলডোটার উপরে উঠবসের সময় শিলা দেবীর ভারী বড়ো পুটকিটা বার বার সোফাতে বাড়ি খাচ্ছে । ভারী পুটকিটা ঘামে পুরোটা ভিজে গিয়েছে । ফর্সা সারা শরীরটা ঘামে ভিজে চিক চিক করছে ।

শিলা নিজের গুহা মন্থনে এতটাই ব্যস্ত যে তার সময়ের দিকে কোনো লক্ষই নেই। ঠিক সেই সময় বাড়িতে তার ছেলে অর্থাৎ রকির আগমন হয় —-

শিলা তার শরীরের তেষ্টা মেটাচ্ছে তখনি-

।।। আমি এসে গেছি ।।।

সর্বনাশ রকি ? হ্যাঁ এই সময় । রকি মেইন ডোর টা খুললো। মেইন ডোর খুলতেই রকি যা দেখতে পেল তাতে তার শরীরে একটা বিদ্যুৎ খেলে গেল। একি… সে কি দেখছে এইসব। রকি তার চোখ কে বিস্বাস করতে পারছিল না।

রকি তার চোখের সামনে দেখতে পেল যে শিলা দেবী পুরো লেংটা অবস্থায় সোফাতে লাফাচ্ছে।
দরজা খোলার আওয়াজে শিলার হুস ফিরলো। শিলা রকি কে দেখে একেবারে পাথর হয়ে পড়ল। সে কি করবে কিছুই বুঝে উঠতে পারছিল না। রকিও একেবারে অবাক

রকি – মা ???

এরকম দৃশ্য দেখে রকি ঢক গিলতে লাগল। তারপর শিলা এই অবস্থা তেই তাড়াতাড়ি সোফা তে পরে থাকা কাপড় দিয়ে নিজেকে ঢাকতে লাগল। কিন্তু এই ডবকা শরীর ঢাকতে পারছিল না তবুও কোনো রকমে শিলা নিজেকে ঢাকল। বুক থেকে কোনোরকমে উরু পর্যন্ত ঢাকতে পারলো।

শিলা কিছুতেই রকির দিকে তাকাতে পারছিল না। লজ্জায় সে মাথা অন্যদিকে ঘুরিয়ে নিচু করে রাখলো। রকি জড় পদার্থের মতো শিলার দিকে তাকিয়ে রইলো।

শিলা – এদিকে তাকিওনা রকি।

রকি আবার ঢক গিললো।

শিলা ভেতরে এখনো ডিলডোটা ঢোকানো এখনো সেটা মাংএর ভিতরে নেচে চলেছে। সেটা শিলার মুখ দেখে বোঝা যাচ্ছে।

তারপর রকি গর্জে উঠলো-

রকি – এইসব কি।

শিলা চুপ করে রইল।

রকি – তুমি আমার আর বাবার অবর্তমানে বাড়িতে এসব করছো। কার সাথে কথা বলছিলে তুমি।

শিলা কিছু বলছিল না।

রকি – তুমি বাবাকে এভাবে ধোকা দিচ্ছ। তুমি একজন ভদ্র পরিবারের গৃহবধূ তুমি এসব কি করছ। আমাদের পিঠ পিছনে এত বড় নোংরা কাজ করতে তোমার বিবেকে বাধলনা ?

এইসব শোনার পর শিলা আর থাকতে পারলো না । শিলা তার মুখ খুলল। শিলা ক্ষোভের ফলে বলে উঠলো।

শিলা – তুমি কি । তুমি যে ওইদিন আমার ব্রা প্যান্টি নিয়ে বাথরুমে মাস্টারবেট করছিলে। সেটাকি খুব ভদ্র আচরণ ছিল ?

শিলা এটা কথা শেষ করার আগেই নিজেই নিজের মুখ হাত দিয়ে বন্ধ করল। সেই ক্ষোভের মধ্যে এটা কি বলে ফেলল। শীলা নিজেই অবাক হয়ে গেল এটা সে রকি কে কিভাবে বলল। তার অনুশোচনা বোধ করতে লাগল।

ঐদিকে রকি আরো প্রচন্ড অবাক । সে যেন গাছের থেকে পড়ল। রকি স্বপ্নেও ভাবতে পারেনি যে শিলা এসব জানে।

রকি – ম ..ম …মানে তুমি জানো ?

শিলা চুপ করে মেঝের দিকে তাকিয়ে রইল। সারা শরীরে শিলা কাটা অনুভব করছিল আর তার উপর ভেতরে ডিলডো লাফাচ্ছে সে এই মুহুর্তে এটা বন্ধ কিভাবে করবে। আর সে যে এখন থেকে উঠে বেড রুমে যাবে সেই অবস্থাতেও ও নেই। পাশে সোফাতে ফোনটা পরে রইলো শিলা সেটা ডিসকানেক্ট করতে ভুলে গেছে।

রকি শিলার দিকে এগোতে লাগল।

রকি – তুমি যে বাবাকে এইভাবে ধোকা দিচ্ছ এটা আমি বাবাকে জানাচ্ছি।

শিলা – নাহহ রকি প্লিজ এমনটা করো না।

রকি – কার সাথে ফোনে কথা বলছিল বলো আমাকে।

শিলা চুপ করে রইলো।

রকি – বলতেই হবে নাহলে আমি আজকে বাবাকে সব কিছু বলব।

শিলা – প্লিজ না রকি প্লিজ। এমনটা করো না।

রকি শিলার ডবকা শরীরটার দিকে বার বার না তাকিয়ে পারছেনা। শিলার সারা শরীর ভেজা ঘামে আর খাড়া বোটা গুলো কাপড়ের উপড়ে স্পষ্ট হয়ে আছে।

শিলা রকির তাকানো লক্ষ করছিল আর বারবার তার শরীরে কাটা দিয়ে উঠছিল। শিলা কে এই অবস্থায় দেখে রকির পেন্টের মধ্যে তাম্বু হতে লাগল।

শিলা – তাকিওনা রকি আমার দিকে।

শিলা মুখটা লাল হয়ে গিয়েছে লজ্জায়। সে এখন অসহায় অবস্থায় বসে রয়েছে । কাপড়টা এতটাই ছোটো যে একটু নড়াচড়া করলেই শিলার সম্মান রকির সামনে বিলীন হয়ে যাবে।

রকি – এসবের পরেও তুমি কিভাবে ভাবলে যে আমি চুপ করে থাকব।

শিলা – প্লিজ রকি । এমনটা করলে আমার জীবনটা নষ্ট হয়ে যাবে।

রকি কিছুক্ষণ চুপ করে রইলো ……

রকি – ঠিক আছে আমি বাবাকে কিছু বলব না। কিন্তু আমার একটা শর্ত আছে।

শিলা একটু চমকে উঠল ।।।

শিলা – কি শর্ত বলো।

রকি শিলার শরীর থেকে চোখ ফেরাতে পারছে না । শিলার শরিরে একমাত্র কাপড় খানা ঘামে ভিজে গিয়েছে । লোমবিহীন ফর্সা উরু গুলোর দিকে রকি ডেব ডেব করে তাকিয়ে রয়েছে। শিলা সেটা লক্ষ করছে । শিলা লজ্জায় মুখ অন্য দিকে ঘুরিয়ে রাখল।

রকি – তুমি যদি শর্তটা মানতে রাজি থাকো তাহলে আমি কাউকে কিছু বলব না। আর ঘটনাটা শুধু আমার আর তোমার মধ্যে থাকবে।

শিলা ইতস্তত হয়ে বলল —

শিলা – কি.… শর্ত ?

রকি – আমি তোমার পুরো শরীরটাকে কাপড় বিহীন দেখতে চাই । পুরো লেংটা মাহহ।

শিলা এই কথাটা শুনে একেবারে চমকে উঠল ।

শিলা – কিহ্হঃ বলছ তুমি এইসব রকি। আমি তোমার মা। তুমি ভাবলে কি করে ।

রকি – যেইভাবে তুমি ভাবলে আমাদের সবাইকে ঠকাতে।

শিলা – নাহহ । তুমি আমার ছেলে । ছিঃ।

রকি – তাহলে তৈরি হয়ে থাকো বাবা আসার পরে তোমার একটা ব্যবস্থা হবে।

রকির ঠোঁটের কোনে একটা হাসি ফুটে উঠল। শিলা এবার ভয় পেতে লাগল। সে এখন কি করবে।

রকি – মা আমি তোমার ছেলে আর ছেলের সামনে লেংটা হতে তোমার কি প্রবলেম ?

রকির পেন্টের উপরে বড়ো তাম্বু হয়ে রয়েছে আর শিলা সেটা মাত্র লক্ষ করল। এটা দেখে শিলা আবার মুখ ঘুরিয়ে নিল।

শিলা – নাহ। আমি আমার স্বামী ছাড়া কারো সামনে নির্বস্ত্র হতে পারবো না।

রকি – তাহলে এখানে যে তুমি পরপুরুষের সাথে কি করছো সেটা আমাকে বলবে একটু ?

শিলা একেবারে চুপ । তার বলার কিছুই নেই । শিলার দুধের বোটা গুলো একেবারে খাড়া হয়ে আছে ভেজা কাপড়ের উপর দিয়ে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে।

রকি – এক বার তোমাকে কাপর্বিহীন দেখতে চাই মা।
কথা দিচ্ছি এটা তোমার আর আমার মধ্যেই থাকবে।

শিলা রকির দিকে তাকিয়ে মাথা নাড়িয়ে নানা করছে। রকি এবার শিলার সামনে গিয়ে বসল। রকি শিলাকে এত কাছের থেকে দেখে তার শরীরের রক্ত সঞ্চালন আরো বেড়ে গেল। রকি শিলাম উন্মুক্ত লোমবিহীন উরুতে হাত রাখল। শিলা একে বারে কেঁপে উঠল।

শিলা – কি করছো রকি ছাড়ো আমাকে। আমি পারবো না , তুমি আমার ছেলে।

রকি – প্লিজ মা আমি কাউকে কিছু বলব না।

শিলা প্লিজ রকি প্লিজ নাহ।

রকি – তোমাকে আমি খুব ভালোবাসি মা আমি তোমাকে একবার লেংটা দেখতে চাই।

রকি শিলার লজ্জা নিবারণের একমাত্র কাপড় টায় হাত দিল। শিলা রকির হাতটা ধরে ফেলল …

শিলা – প্লিজ রকি নাহহ ।

রকি – আমি তোমাকে একবার দেখতে চাই ব্যস একবার । তোমার লেংটা শরীরটা একবার দেখতে চাই।

শিলা রকির হাত ছেড়ে দিল। মনে হলো শিলা রকির জেদের সামনে হার মানল।

তারপর …

তারপর মেঝের মধ্যে শিলার একমাত্র লজ্জা নিবারণের কাপড়টা রকি খুলে ফেলে দিল।।।

।।পরবর্তী অংশ পরের পর্বে।।

তো বন্ধুরা গল্পটা লাগছে সেটা অবশ্যই জানাবেন।

• পাশে থাকবেন

আমাকে মেইল করার জন্য 👇

আরো খবর  মাতা ও কন্যা, বইল বীর্য্যের বন্যা- পর্ব ৯