রঙ নাম্বার পর্ব – ৭

আগের পর্ব

শুরু করা যাক —

শেষমেস শিলা রকির হাত ছেড়ে দিল। মনে হলো শিলা রকির জেদের সামনে হার মানল।

তারপর মেঝের মধ্যে রকি শেষ লজ্জা নিবারণের কাপড় টুকু শিলার ডবকা দেহ থেকে আলগা করে ফেলল।

মেঝের মধ্যে লুটিয়ে পড়ল আধ ভেজা কাপরখানা। চারিদিকে নিস্তব্ধতা । শুধু হল রুমের মধ্যে জোরে জোরে নিঃশ্বাসের শব্দ শোনা যাচ্ছিল। হল রুমের মধ্যে সোফাতে শিলাকে রকি লেংটা করে ফেলেছে।রকির চোখ বড় বড় হয়ে গিয়েছে। এরকম দৃশ্য সে কখনোই দেখেনি এর আগে।

শিলা একটা হাত দিয়ে ছাটানো লোমবিহীন গোলাপি মাং ঢাকছে আর আরেকটা হাত তার বড় বড় খাড়া দুধ গুলো ঢাকার বৃথা চেষ্টা করছে। শিলাকে এই অবস্থায় দেখে রকি একেবারে অবাক হয়ে গিয়েছে। রকি একেবারে জড় পদার্থের মতো শিলার সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে। রকি শিলার শরীরটাকে চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছে। রকি শিলাকে এই অবস্থায় দেখে তার বাড়া একেবারে ফুলে উঠেছে মনেহয় পেন্ট চিরে বের হয়ে যাবে। শিলা নীচে মেঝের দিকে তাকিয়ে রয়েছে আর জোরে জোরে নিঃস্বাস নিচ্ছে । নিঃশ্বাসের সাথে সাথে ডবকা শরীরটা ওঠা নামা করছে। উফফ কি দৃশ্য এরকম দৃশ্য দেখে রকি আর থাকতে পারছে না।

শিলা – সরো রকি এবার আমি রুমে যাবো।

এই বলে শিলা সোফা থেকে উঠে পড়তে লাগল। তখনি রকি শিলার রাস্তা আটকালো।

শিলা – কি করছো রকি সরো আমি রুমে যাবো । তোমার বাবা এখনি চলে আসবে।

রকি – এখনো আমার দেখা হয়নি মা। আমি আরো তোমাকে দেখতে চাই। আমি তোমার শরীরটা ছুঁতে চাই।

শিলা এবার ভয় পেয়ে গেল।

শিলা – কি বলছো এইসব । তুমি যা বলেছ আমি তাই করেছি এখন সামনের থেকে সরো।

এই বলে শিলা তার অবশিষ্ট নাইটি ব্রা পেন্টি মেঝে থেকে তুলতে লাগল। তখনি রকি শিলাকে জাপটে ধরে ফেলল। শিলা একেবারে আকাশ থেকে পড়ল। শিলার শরীর কাঁপতে লাগল। সারা শরীরের লোম খাড়া হয়ে গেল শিলার।

শিলা – একি একি কি করছো তুমি এইসব ছাড়ো আমাকে ছাড়ো বলছি। ছাড়ো আমাকে।

রকি – আমি আর পারছি না মা। তোমাকে না স্পর্শ করে আমি আর থাকতে পারছি না।

শিলার হাতের নাইটি ব্রা সব আবার মেঝেতে পরে গেল।

শিলা – ছাড়ো আমাকে । রকি কি করছো তুমি, আমায় ছাড়ো আমি তোমার মা।

রকি শিলাকে জাপটে ধরে রয়েছে। রকির চোখে শিলা আগুন দেখতে পারছে। শিলাকে বুঝতে আর বাকি নেই যে তার সাথে আজকে কি হতে চলেছে। রকি শিলার চোখের দিকে লালসার নজরে তাকিয়ে আছে। রকির হাত গুলো শিলার পিঠে বিধতে শুরু করল। রকির খাড়া বাড়া পেন্টের ভিতর থেকে শিলার ভেজা উরুর ফাঁকে ঘষা খাচ্ছে। শিলা সেটা অনুভব করছে।

শিলা – ছাড়ো।

রকির হাত শিলার নগ্ন পিঠে ঘুরে চলছে। শিলা কেঁপে কেঁপে উঠছে। শিলার মাং জল ছাড়ছে । রকির হাত এবার ক্রমশ পিঠের নিচের দিকে যেতে লাগল। রকির হাত এবার শিলার কোমরে। আস্তে আস্তে রকির অনভিজ্ঞ হাত গুলো শিলার বড়ো দাবনা পাছার মধ্যে যেতে লাগল। শিলা সির সিরিয়ে উঠছে । অবশেষে রকি শিলার বড়ো পুটকিটা খাবলা মেরে ধরে ফেলল।

শিলা – আহঃ।

তারপরে আর দেরি না করে রকি শিলার গোলাপি রসালো ঠোঁট গুলিতে নিজের ঠোঁট বসিয়ে দিল।

রকি প্রানপনে তার মায়ের ঠোটের মধু শুষে নিচ্ছে। আর শিলা নিজেকে ছাড়ানোর জন্য তার দুই হাত দিয়ে রকির বুক ঠেলছে। কিছুতেই পারছে না। রকি আরো ক্রমশ আরো জোরে শিলাকে আকড়ে ধরে শিলাকে কিস করে চলছে। আর তার হাতগুলো শিলার বড়ো দাবনা পুটকিটা জোরে জোরে খাবলাচ্ছে।

এই করে প্রায় পনেরো মিনিট কেটে গেল রকি শিলার ঠোঁট ছাড়ল। শিলা হাপাতে লাগল। হাপাতে হাপাতে শিলা মেঝেতে হাটু গেড়ে বসে পড়ল। সারা শরীর শিলার ঘেমে শেষ হয়ে গিয়েছে ।

শিলা – এ তুমি কি করছো রকি। একি সর্বনাশ করছো তোমার মায়ের।

রকি – এখনো তো কিছুই করিনি মা।

শিলা – মানে। তুমি বলতে চাইছ।

রকি এবার তার পেন্টের হুক খুলতে লাগল। শিলা অবাক হয়ে –

শিলা – কি করছো তুমি এসব রকি।

রকি তার পেন্ট টা খুলে মেঝে ফেলে দিল। তারপরেই শিলা চোখের সামনে লাফ দিয়ে বেরিয়ে আসল আখাম্বা রকির বাড়া । শিলার চোখ চরখগাছ। শিলা লজ্জায় তার মুখ অন্য দিকে ঘুরিয়ে নিল।

রকি – মা দেখো তোমাকে এই অবস্থায় দেখে আমার চেটের কি অবস্থা হয়েছে। একে তো শান্ত করতেই হবে কি বল তুমি।

শিলা – কিঃ বললে তুমি রকি। আমি তোমার মা তুমি ভাবলে কি করে । ছিঃ রকি ছিঃ।

রকি – তুমি একটু আগে কি করছিলে মা পরপুরুষের সাথে ফোনে ? আমাকে আর বাবাকে যে তুমি এইভাবে ঠকিয়ে আসছ। আজ হয়তো তুমি ধরা পড়েছ । তুমি এইসব কবের থেকে করে আসছ কে জানে ।

শিলা – নাহ আমি কাউকে ধোকা দিচ্ছি না। বিস্বাস করো ।

রকি এবার শিলাকে কোলে করে তুলে সোফাতে নিয়ে ফেলে দিল। শিলা রকির কাছে কাকুতি মিনতি করে চলেছে। কিন্তু রকি কিছুই শুনছিল না। রকি শিলার খাড়া দুধ গুলিতে এবার আক্রমণ শুরু করল। খাড়া বোটা গুলি রকি তৎক্ষণাৎ মুখে পুরে নিল। আর চাটতে লাগল।

শিলা – আহঃ না রকি না আমি তোমার মা হই। এরকম করো না রকি প্লিজ। আহঃ রকি উহঃফ ব্যথা লাগছে রকি না।

ঘড়িতে বিকেল পাঁচটা বাজে । এই মুহূর্তে রায় পরিবারের ভিতরে কি ঘটনা ঘটে চলেছে কোনো কাক পক্ষীও টের পাচ্ছে না। মেইন ডোরটা লাগানো কিছুটা এগিয়ে মেঝেতে পড়ে রয়েছে অগোছালো ভাবে নাইটি তার পাশে ব্রা আধ ভেজা পেন্টি একটু পাশে রকির জিন্স প্যান্টটা।

হল রুমের মধ্যে শুধু সোনা যাচ্ছে শিলার শীৎকারে ভরা কাকুতি মিনতি। রায় পরিবারের এপার্টমেন্ট টার সামনে দিয়ে ফ্ল্যাট এর একজন বুড়ো সুইপার যাচ্ছিলেন। তার কানে আবছা আবছা আওয়াজ ভেসে আসছে ভেতর থেকে। সে একবার চারপাশটা ভালো ভাবে দেখে নিল তারপর দরজায় কান লাগাল। ভেতর থেকে ভেসে আসছে কাকুতি ভরা শীৎকার লোকটার বাড়া খপ করে দাঁড়িয়ে পড়ল।বুড়ো হলেও লোকটা ছিল একটা আস্ত লুইচ্চা। এই বুড়ো শিলাকে এপার্টমেন্ট এর বাইরে দেখলে চোখ দিয়ে গিলে খায়। এই ফ্ল্যাট এ বসবাসকারী অনেক মহিলাই এই বুড়ো কে নিয়ে সোসাইটির মেনেজার কে নালিশ জানিয়েছে কিন্তু লোকটি বুড়ো আর তার আগে পিছে কেউ না থাকায় তাকে কাজ থেকে সরায়নি। তারপর আবছা আবছা শীৎকার শুনে বুড়া লোকটার মুখে একটা হাসি দেখে দিল। লোকটা জানত যে এই এপার্টমেন্ট এ শিলা থাকে। লোকটা দরজাটা খুলতে চাইল কিন্তু দরজাটা লোক ছিল।

হল রুমের ভেতরে সোফাতে শিলাকে চিৎ করে ফেলে তারই ছেলে তার বড় বড় দুধ গুলো হিংস্র জানোয়ার এর মত চেটে পুটে খাচ্ছে। দুই পায়ের মাঝে গোলাপি গুহা থেকে নদী বয়ে চলছে। রকি শিলাকে আকড়ে ধরে তার দুই খাড়া দুধ জোড়া একেবারে নিংড়ে নিচ্ছে ।

শিলা – রকি রকি ছাড়ো আমাকে ছাড়ো । আমার সাথে এরকমটা করো না। আমি কাউকে মুখ দেখাতে পারব না। রকি ছাড়ো।

রকি – ম্মম ম্মম ম্মম।

রকি এবার তার হাত আস্তে আস্তে নীচে নিয়ে যেতে লাগল। রকির হাত এখন শিলার নাভির নিচে। রকির বা হাত একটা শিলার দুধের বোটায় আরেকটা দুধ রকি মুখে পুরে জোরে জোরে চুষছে রকির ডান হাত এখন শিলার ফ্রেশ শেপ করে কামানো গোলাপি মাং এর মধ্যে। রকির হাতের স্পর্শ পেয়ে শিলা একেবারে ককিয়ে উঠল। রকি অনুভব করল যে শিলার মাং একেবারে ভিজে সাগর বয়ে চলেছে।

রকি – মা তোমার মাং তো পুরো ভিজে গিয়েছে।

শিলা তার মুখটা হাত দিয়ে ঢেকে ফেলল। শিলা বুঝতে পারল যে আজকে রকি তাকে নষ্ট না করে ছাড়বে না। শিলা তার চোখ বন্ধ করে ফেলল। দুই চোখের কোনে বিন্দু বিন্দু জল দেখ গেল।

বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা লোকটি কারো আসার আওয়াজ পেয়ে সেখান থেকে দৌড়ে পালাল। বিমল বাবু অফিস থেকে ফিরেছে । সে খুব ক্লান্ত । চলার ভঙ্গি দেখেই বোঝা যাচ্ছে। বিমল বাবু কলিং বেল টা টিপল।

পাশে থাববেন 🙏

যদি কেউ আমার সাথে পার্সোনালি কথা বলতে চান তাহলে মেইল করুন। আমি আপনাদের টেলিগ্রাম এ এড করবো। শুধুমাত্র মহিলারা 😉

আমাকে মেইল করার জন্য 👇

আরো খবর  ক্যান্সার আক্রান্ত স্বামীর স্ত্রীয়ের পরকীয়া পর্ব ১