রঙ নাম্বার পর্ব – ৯

আগের পর্ব

আশা করি সবার গল্প ভালো লাগছে। ভালো লাগলে আমাকে মেইল করে জানান এতে আমি আরো উৎসাহিত হবো।

শিলা কিচেন থেকে বেরিয়ে এসে বিমল এর জন্য খাবার বাড়তে লাগল। শিলার মুখে অস্বস্তির ভাব পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। রকি এসে টেবিলে বসল। শিলা রকির জন্যও খাবার বাড়তে লাগল রকি শিলার দিকে চেয়ে রয়েছে শিলা রকির চোখে চোখ মেলাতে পারছে না। শিলাও খাবার নিয়ে বিমলের পাশে বসল। খাওয়া দাওয়া শেষ করে যে যার রুমে গেল। রাত ১১টা শিলা রুমে খাটে বসে রয়েছে ঐদিকে বিমলের নাক ডাকার শব্দ শোনা যাচ্ছে। শিলা কিছুতেই ভুলতে পারছে না আজকের ঘটনা। সে কি জঘন্য কাজ করেছে। সে এটাও ভয় পাচ্ছে যে রকি এবার কি করবে। সারা রাত শিলা ঘুমোতে পারেনি এই ভেবে ভেবে ।

পরের দিন সকালে শিলা বাড়ির কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ল। বিমলের অফিস রয়েছে তাড়াতাড়ি খাবার তৈরি করতে হবে।

বিমল – রকি ওঠেনি ।

শিলা – না মনে হয়।

বিমল – যাও ওকে ডেকে ওঠাও আমি স্নানে যাচ্ছি।

শিলা – আমি মামানে ।।

বিমল – কেন কি হল।

শিলা – কিছু না ।

বিমল স্নানে গেল। শিলার মনটা ছেত ছেত করছে। শিলার মন বলছে রকির কাছে না যেতে। কিন্তু না গেলে তো বিমল রাগ করবে । সে দ্বিধা নিয়েই গেল। শিলা সিঁড়ি দিয়ে উপরে গিয়ে রকির রুমে সামনে গিয়ে দাঁড়াল। রকিকে ডাকতে শিলার অস্বস্তি হচ্ছিল। শিলা নিচু গলায় —

শিলা – র রকি রকি । ওঠো তোমার বাবা ডাকছেন।

ভেতর থেকে সারা এলোনা। শিলা আবার ডাকলো কিন্তু সারা পাওয়া গেলো না । তারপর শিলা দরজাটা আস্তে আস্তে খুলল । দেখতে পেল রকি গা ঢেকে গভীর ঘুমে লিপ্ত। শিলা রকির কাছে গিয়ে ডাকতে যেতে তার মন সাথ দিচ্ছে না। কিন্তু তবুও সে খাটের কাছে গিয়ে ডাক দিল –

শিলা – রকি রকি । ওঠো রকি।

সারা পাওয়া গেলো না । তারপর শিলা ব্ল্যাংকেটটা সরালো । সরিয়ে দেখল রকি জেগে রয়েছে আর সে একেবারে লেংটা । আখাম্বা বাড়াটা হাতের মুষ্টিতে মুঠ দিয়ে ধরে রেখেছে। শিলা এই দৃশ্য দেখে শরীরে বিদ্যুৎ খেলে গেল। তৎক্ষণাৎ শিলা মুখ ঘুরিয়ে তাড়াহুড়ো করে রুম থেকে বেরোবে তখনি রকি বিছানা থেকে এক লাফে নেমে রুমের দরজা লাগিয়ে দিল।

শিলা – কি .কি.. করছো তুমি এইসব। দরজা লাগাচ্ছ্ কেন ।

রকি কথার উত্তর না দিয়ে শিলার দিকে লোলুপ দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো। রকি একেবারে লেংটা বাড়াটা পুরো টাইট হয়ে রয়েছে একেবারে শিলার দিকে তাক করানো। শিলা রকির থেকে কিছুটা দূরে মুখ অন্য দিকে করে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

শিলা – রকি আমাকে যেতে দাও । তোমার বাবার অফিসের সময় হয়ে যাচ্ছে।

রকি – কালকের হিসেব তা কে দেবে সুনি।

শিলা – কিসের হিসেব আমার কিছু মনে নেই।

রকি – বাবাকে বলে মনে করাবো ?

শিলা চমকে উঠল।

শিলা – না ।

শিলা রকির দিকে না তাকিয়ে —

শিলা – রাস্তা থেকে সরো রকি দেরি হয়ে যাচ্ছে । তোমার বাবার অফিস আছে। তোমারও তো কলেজ আছে ।

রকি – আজকে আমি কলেজ যাবো নাতো মা ।

শিলা এবার একটু নার্ভাস হচ্ছে। সে বুঝতে পারছে রকির মতলব।

শিলা – কেনো যাবেনা ?

রকি – আমার কিছু হিসেব বাকি আছে। সেই হিসেবে গুলি চুকতা করতে হবে।

শিলা – রকি । কি বলছো এইসব আমি তোমার মা হই সেটা কি তুমি ভুলে গিয়েছো।

রকি – কিছু ভুলিনি মা আর তার জন্যই তো এখনো বাবাকে কিছুই বলিনি আমি।

শিলা – দরজা খোলো তোমার বাবা স্নান সেরে এসে পড়েছে বোধহয় আমাকে দেখতে না পেলে চেঁচামেচি করবে ।

রকি – ঠিক আছে যাও।

রকি দরজা খুলে দিল আর সামনের থেকে সরে গেল। দরজা খোলাতে শিলা তাড়াতাড়ি যেতে লাগল দরজার সম্মুখীন আসতেই রকি শিলাকে ধরে ফেলল।

শিলা – আহঃ .।

রকি শিলাকে জাপটে ধরে ফেলল । শিলা ছটফট করতে লাগল।

শিলা- রকি ছাড়ো আমাকে ছাড়ো বলছি।

রকি শিলাকে পেছন থেকে জাপটে ধরে রয়েছে। পিঠের ওপর থেকে ঘন চুল গুলো সরিয়ে রকি শিলার ফর্সা পিঠে ঠোঁট দিলো। শিলা কাঁপতে লাগল। রকির খাড়া বাড়া শিলার বড়ো পাছাতে গুতো লাগছে । শিলা অস্বস্তিতে চোখ বন্ধ করে ফেলল। রকি এবার শিলার বড়ো বড়ো দুধ গুলোতে হাত দিল। ব্লাউস এর হুক খুলতে লাগল–

শিলা – এ কি করছো তুমি, ছাড়ো আমাকে তোমার বাবা বাড়িতে ।

রকি – আহঃ কি ফিগার উফফ। এত বড় বড় দুধ মা অফ আমি আবার চুষতে চাই।

শিলা – না না না ।

রকির বাড়া টাইট হয়ে ফেটে যাবে এমন হয়ে যাচ্ছে। শিলার ব্লাউজ রকি খুলে ফেলেছে কালো ব্রা টা খোলার চেষ্টা করছে শিলা প্রতিরোধ কড়ছে । শিলা পেরে উঠতে পারছে না। ব্লাউস মেঝেতে পরে গেল শাড়ির আচলটা আগেই মেঝেতে লুটিয়ে পড়েছিল। শিলাকে রকি নিজের দিকে ঘোড়ালো ঘুরিয়ে শিলার ঠোঁটে বসিয়ে দিল নিজের ঠোঁট। চলল চুম্বন শিলার ঠোঁট গুলোকে একেবারে যেন খেয়ে ফেলবে এইভাবে চুষতে লাগল রকি। শিলা দম নিতে পারছে না। ঠোঁট চুষছে আর সাথে সেক্সি পিঠ টাতে হাত বোলাচ্ছে খালি পিঠ ব্লাউস নেই । এবার রকি ঠোঁট ছেড়ে বড়ো দুধে মুখ দিল ব্রার উপর দিয়ে চাটতে লাগল। শিলার মাং জল কাটা শুরু করে দিয়েছে।

শিলা – রকি ছেড়ে দাও আমাকে প্লিজ। এরম করো না তোমার বাবা নীচে অপেক্ষা করছে।

রকি – করুক অপেক্ষা আমি তোমাকে খাবো আজকে কেউ বাধা দিতে পারবে না।

এই কথা শুনে শিলা আরো উত্তেজিত হয়ে উঠলো।
বিমল বাবু বাথরুম থেকে বেরিয়ে —

বিমল – খাবার বেড়েছো ?

কেউ নেই কিচেনে । বিমল তারপর বেডরুমে গেল দেখল সেখানেও নেই। বিমল অফিসের জন্য রেডি হতে লাগল। ঐদিকে রকির রুমে এবার মেঝেতে লুটিয়ে পড়লো কালো ব্রা টা । এবার রকি তার মায়ের বড়ো খাড়া দুধ গুলোর উপরে চাটা শুরু করল । শিলা অনিচ্ছা সত্ত্বেও তার শীৎকার আটকাতে পারছে না। শিলাকে টেনে রকি খাতে ফেলল সেখানে শিলার উপরে চড়ে দুধ খেতে লাগল। সারা ঘরে দুধ চোষার চক চক শব্দ ঘুরে বেড়াচ্ছে । শিলার মাং পুরো ভিজে গিয়েছে।

বিমল বাবু রেডি হয়ে রুম থেকে বেরিয়ে এল শিলাকে কোথাও দেখা যাচ্ছে না।

বিমল – কি গো কোথায় গেলে।

রকি শিলাকে খাচ্ছে চুষে চুষে খাচ্ছে। রকি এবার উঠে শিলার শাড়ি খুলতে লাগল। খাট থেকে শাড়িটা খুলে রকি সেটা মেঝেতে ছুড়ে ফেলল। শিলা পুরো গরম হয়ে পড়েছে । রকি এবার সায়ার ডুরিতে হাত দিল । সায়ার ডুরির গিট খুলতে লাগল। রকি সায়ার গিট খুলে ফেলল। রকি এবার শিলার শরীর থেকে সায়া খুলতে লাগল শিলা বাধা দিতে লাগল। শিলা উপরে থেকে পুরো লেংটা এবার কোমরের নিচের পালা। কিন্তু নিয়তির খেলা এমনি যে বিমলের ডাক এবার শিলার কানে পৌঁছালো রকিও তার বাবার গলা শুনতে পেল।

পাশে থাববেন 🙏

যদি কেউ আমার সাথে পার্সোনালি কথা বলতে চান তাহলে মেইল করুন। আমি আপনাদের টেলিগ্রাম এ এড করবো। শুধুমাত্র
মহিলারা 😉

আমাকে মেইল করার জন্য 👇
টেলিগ্রামে আসুন যেখানে আমরা গরম কথা বলতে পারি @iaks121

আরো খবর  মা ও‌ জেঠুর কামলীলা